bengali choti galpo আউট অফ কলকাতা – 7 by Anuradha Sinha Roy

bengali choti galpo. বাড়িতে বেশি কিছু না থাকায়, বেশ কয়েকটা ডিম ফাটিয়ে পাউরুটির সাথে এগ টোস্ট বানাতে লাগল দীপা ।
হ্যাঁ, এগ টোস্ট। কিছু লোকজনের কাছে সেটা তুচ্ছ মনে হলেও, সেটা যে এক কালে সবার কছে অমৃতের সমন ছিল সেটা মানতে খারিজ করবে না কেউই। যুদ্ধর সময় সেই এগ টোস্টই ছিল অমৃত। তখন কার দিনে মাঝেমাঝে ত্রাণের খাবার এলে লোকজনের মধ্যে খাবার নিয়ে মারামারি কাড়াকাড়ি লেগে যেত। এমনই ছিল সেই দুর্ভিক্ষের সময় যে, কেউ কেউ তো আবার কিছু না পেয়ে মানুষ খেকোয় পরিণত হয়েছিল।তবে, এখন সেই ব্যাপারটা না থাকলেও, কলকাতায় এখনও ভাল খাবার পাওয়া খুবই শক্ত ছিল আর যদিও তাদের সন্ধানে ভালো কিছু আসত, সেটা তাদের টাকায় পোষাত না।

[সমস্ত পর্ব
আউট অফ কলকাতা – 7 by Anuradha Sinha Roy]

ওইদিকে, দীপাকে রান্না করতে দেখ, সাহায্য করার নাম করে ওর পেছন পেছন ঘুর ঘুর করতে লাগলো রুদ্র। তবে ওর আসল মতলব ছিল অন্য কিছুই | চোখের সামনে সেই সুন্দরী রমণীর রূপ দেখে ও এততাই অপ্লুত হয়ে উঠেছিল যে, ও আর নিজেকে আটকে রাখতে পারছিল না, তাই দীপার সেই উলঙ্গ শরীর উপভোগ করবার জন্য, ওর পেছনে দাঁড়িয়ে ওর ভরাট পাছার উপরে নিজের খাঁড়া লিঙ্গটা ঘষতে লাগল রুদ্র আর সেই সাথে, পেছন থেকেই হাত বারিয়ে দীপার পুরুষ্টু মাইজোরা আস্তে আস্তে পেষণ করতে লাগল আর রুদ্রকে সেই কর্ম করতে দেখেই দীপা বলল,  “এইরে…..আবার? এর মধ্যেই জেগে গেলেন উনি? ”

bengali choti galpo

“ইসস! কি করবো বল তো? তুমি সামনে থাকলে আমি যে আর নিজেকে ঠিক রাখতে পারিনা” বলে দীপার ঘারে গলায় চুমু খেতে লাগলো রুদ্র ।
“উফফফ! তুই পারিস ও বটে…পাগল ছেলে কোথাকার…” বলে ঘার ঘুরিয়ে রুদ্রর গালে চুমু খেলো দীপা।
ইতিমধ্যে, ওদের এগ-টোষ্টও রেডি হয়ে গেল আর ওরাও সেগুল এক নিঃশ্বাসে খেয়ে ফেলল আর পেট শান্ত হতেই দীপা নিজের মন শান্ত করার ঔষধ খুঁজতে লাগল। দীপা হঠাৎ করেই পাশের কাবার্ডের পাল্লা খুলে, সেখান থেকে একটা ওল্ড মনক রমের বোতল বাইরে বের করল। তারপর দুজনের জন্য দু গ্লাসে একটু একটু করে রম ঢালল|

ওইদিকে সেই দৃশ্য দেখে রুদ্র খুব অবাক হল কারণ সে জানত যে, সেই মদের বোতলটা দীপা অনেক দিন ধরেই বাঁচিয়ে রেখেছিল, কোন একটা ভাল মুহূর্তের জন্য।
“একি! তুমি ওটা ভেঙে ফেললে? অবাক হয়ে প্রশ্ন করে উঠল রুদ্র।
“হ্যাঁ রু, আই থিংক দ্যাট উই ডিসার্ভ দিস টু নাইট। আজ এটা আমাদের প্রাপ্য।” এই বলে রুদ্রর হাতে একটা গ্লাস ধড়িয়ে নিজেরটা নিয়ে শোয়ার ঘরের দিকে পা বারাল দীপা। শোয়ার ঘরে পৌঁছে বিছানায় উঠে, দেওয়ালে হেলান দিয়ে বসল ও। bengali choti galpo

ওকে দেখাদেখি রুদ্রও তাই করল আর বিছানায় উঠেই দীপার গায়ের ওপর নিজের পা তুলে দিল।  দীপাও ওকে কাছে পাওয়ার জন্য নিজের বুকে টেনে নিলো। সস্নেহে নিজের প্রেমিকক্র আলিঙ্গন করে দীপা নিজের মাথাটা রুদ্রর কাঁধে এলিয়ে দিল। ওইদিকে রুদ্র নিজের শরীরের দীপার উলঙ্গ রূপের উষ্ণতা মাখতে লাগল আর সেই সাথে দীপার নরম স্তনদুটিকে নিজের হাতে করে পেষণ করতে লাগল। এরই ফাঁকে নিজেদের মদের গ্লাসে একটা দুটো করে চুমুক দিতে দিতে ওরা শুরু করলো নিজেদের গল্প।

“হমমম! তা এবার বল তোমার বরাকারের কাহিনী” রুদ্র বলে উঠল।
“কি আর বলব তোকে, এমনিতে তো আমার এই কাজে প্রাণের ঝুঁকি আছই আর সেটার যে আমি কোন তোয়াক্কাই করি না সে তুই ভালো করে জানিসই। তবে…আজকে এই কাজটা করতে আমার খুব ভয় লাগছিলো রে। মানে ওখানে যদি না আমি পাণ্ডে-জির কন্টাক্টদের থেকে হেল্প পেতাম, তাহলে হয়তো ওখানে আমি এক পাও ফেলতে পারতাম না।” বলে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলল দীপা। bengali choti galpo

দীপার সেই কথার গুরুত্বটা বুঝতে পেড়ে রুদ্র গম্ভীর হয়ে বলল, “এত খারাপ অবস্থা ওখানে?”
“এই তো সবে শুরু, এরপরে আরও খারাপ দিনকাল আসতে চলেছে।”
“ওখানে?”
“হ্যাঁ…কিন্তু এখানকার থেকে ওখানকার অবস্থা তবুও অনেক ভাল…”, দীপা বলে উঠল।

“কই, আমার তো মনে হয় যে আমরা এই শহরে খুব ভালোই আছি “, রুদ্র বলে উঠল।
“আপাতত রু….ফর দা টাইমবিয়িং, বাট এই জায়গা নরকে পরিনত হতে চলেছে কিছুসময়ের মধ্যেই আর সেটা হওয়ার আগেই আমাদের এখান থেকে পালাতে হবে”
“পালিয়ে যাবে? মানে, আউট অফ কলকাতা? কিন্তু…কিন্তু কোথায় যাবো আমরা ?” bengali choti galpo

“সম্ভবত দিল্লির দিকে, বা হৃষীকেশের দিকে, হিমালয়তে।” দীপা বলে উঠল।
“কি…হিমালয়তে? হিমালয়তে গিয়ে কি করব আমরা? সাধু সন্ন্যাসী হয়ে তপস্যা করব?”
“তাতে খারাপ কি? তবে রু, আমার কানে এটা এসেছে যে, ওখানকার লোকেরা নতুন করে বসবাস করতে আরম্ভ করেছে। আবার একজনের কাছে এটাও শুনলাম যে হিমালয় অঞ্চলে নাকি একটা নতুন সভ্যতার হদিশ পাওয়া গেছে।”

“তাই বুঝি? তা কে বলল তোমায় এসব, বাবা পাণ্ডে-নন্দ?” বিদ্রুপের সূরে বলে উঠল রুদ্র।
“সে যেই বলে থাকুক না কেন, খবরটা তবে মিথ্যে নয়” দৃঢ়তার সাথে বলে উঠল দীপা।
“দেন…ইস ইট পসিবল টু… মানে ওখানে কি আমরা যেতে পারি?” কিন্তু কিন্তু করে বলে উঠল রুদ্র।

“মেবি, যাওয়া যেতেই পারে ওখানে, তবে তার জন্য প্রয়োজন টাকা, অনেক অনেক টাকা | গঙ্গার সুদূর বিস্তৃত সমতল ভূমি অতিক্রম করার জন্য ঠিক ঠাক কানেকশন আর এসকর্টের প্রয়োজন আর সেই দুটোই আমরা পেতে পারি যদি আমাদের কাছে থাকে প্রচুর টাকা পয়সা” বলে আবার একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়ল দীপা। bengali choti galpo

“বুঝলাম, মমম… বাই দা ওএ, বরাকার কেমন জায়গা ?” রুদ্র হঠাৎ বলে উঠল।
“খুব ডাসটি আর খুব ড্রাই, ওখানে খুব বেশি কিছু নেই। তবে মাইথন আর পাঞ্চেত বেশ মনোরম আর আরেকটা জিনিস যেটা তোকে বলে রাখা ভাল…আমার মনে হয় পান্ডে-জি-র ওখানে কোথাও একটা সেফ হাউস আছে, বাট আগেন আমি শিওর নই সেই ব্যাপারে, কারণ আমি শুধু বরাকর পর্যন্তই গিয়েছি।”

“হমমম ওকে, তো এবার বল ওখানে আর কার সঙ্গে দেখা করলে তুমি ?”
“আরে! এই সন্ধেবেলাই তো তোকে বললাম যে, ওখানে কারুর সঙ্গে দেখা করতে হয়নি আমাকে? আরে, ওই ড্রপ বক্সের কথা, মনে নেই তোর? ওইখান থেকেই তো ওই ডিভাইসটা পেলাম আমি। তবে রু, আমার কেন জানি না একটা খটকা লাগছে” দীপা হঠাৎ বলে উঠল । bengali choti galpo

“খটকা? কিসের খটকা?”
“না মানে…আমি পুরোপুরি শিওর নই এই ব্যাপারে, তবে কেন জানি না আমার মনে হচ্ছে যে পাণ্ডে-জিও একটা অল্টারনেট প্ল্যান বানাছেন। মানে ভেবে তুই দেখ, লাস্ট কিছু মাসের প্রত্যেকটা অ্যাসাইনমেন্টই এইরকম অদভূত ধরনের ছিল। প্রত্যেকটাতেই কিছু না কিছু জিনিস আমাকে নিয়ে আসতে হয়েছে। তবে কি বল তো, আমার মনে হয় উনি কলকাতা ছাড়ার পরিকল্পনা করছেন আর ওই ডিভাইসটা তারই একটা ধাপ”

“মানে ? ওই ডিভাইসটা দিয়ে কি করবেন উনি?” উত্তেজিত হয়ে বলে উঠল রুদ্র।
“কোনও ধারণা নেই আমার রু, কিন্তু ওই ডিভাইসের সাথে থাকা প্যাকেটে কিছু কাগজপত্র ছিল আর তাতে কি সব ব্যাংকিং এর সার্ভিসের ব্যাপারে লেখা ছিল….আঃউউ , আস্তে টেপ!।” রুদ্র একটু বেশী উত্তেজিত হয়ে দীপার মাইজরা একটু বেশী জোরে টিপে দেওয়ার কারণে দীপা বলে উঠল।

“ওঃ সরি, হ্যাঁ কি যেন বলছিলে, ব্যাংকিং নিয়ে ? ওহ হেভেন ফাক্স!” রুদ্র হঠাৎ চেঁচিয়ে উঠল, তারপর দীপার দিকে তাকিয়ে বলল,”অ্যাই…তোমার কি মনে হচ্ছে যে, পাণ্ডে-জি নিজের ধনসম্পত্তি একপাশ থেকে আরেক পাশে সরাবার প্ল্যান করছেন?” bengali choti galpo

“হাউ রাইট ইউ আর! ইয়েস, সম্ভবত…আর সেটা কলকাতা থেকে পালানোর প্রথম পদক্ষেপ হিসাবে।” দীপা বলতে উঠল।

“যদি পাণ্ডে-জির মতন জাঁদরেল লোক ভয়ে এখান থেকে পালানোর প্ল্যান করে দেন, আমাদেরও ভয় পাওয়া উচিত দীপা। আর আমাদেরও সম্ভবত সেরকম কিছু একটা প্ল্যান করা উচিত, মানে ওই প্ল্যান বি টাইপের কিছু” রুদ্র বলে উঠল।

“হ্যাঁ…সেটা মন্দ বলিসনি তুই, আর সত্যি বলতে এই জায়গাটাও আস্তে আস্তে খুব আনসাস্টেনেবল হয়ে উঠছে। আমার মনে হয় না যে এখানে আর আমরা বেশিদিন থাকতে পাড়ব বলে” বলেই “আঃ” করে একটা বড় হাই তুলল দীপা। সেই হাইএর সঙ্কেতে, তারপর ঘড়ির দিকে তাকিয়ে সে বুঝল যে ওদের অনেক দেরী হয়ে গেছে।

তাছাড়া ওর নিজেরও খুব ক্লান্তিও লাগছিল, তাই নিজের গ্লাসে পোড়ে থাকা বাকি রমটুকু এক চুমুকে শেষ করে, রুদ্রর কাছ থেকে সরে গিয়ে ওর পাশেই টানটান হয়ে শুয়ে পড়লো দীপা। রুদ্রর গ্লাস আগেই ফাঁকা হয়ে গেছিলো তাই আর দেরী না করে, নিজের আর দীপার গ্লাসটা নিচে মেঝেতে নামিয়ে রেখে, দীপার পাসেই ধপাশ করে শুয়ে পড়ল ও। তবে শুয়ে পরার পরেও, সে নিজের মুখটা রাখল দীপার নিখুঁত স্তনের উপরে । bengali choti galpo

দীপার স্তনের বোঁটাগুলো নিজের মুখে নিয়ে চুষতে লাগলো আস্তে আস্তে | দীপাও নিজের স্তনবৃন্তগুলতে রুদ্রর নরম জিভের আভাস পেয়ে আস্তে আস্তে রুদ্রর মাথায় হাত বোলাতে লাগলো। দীপার একটা স্তনবৃন্ত মুখে নিয়ে শুষে খেতে খেতে, আরেকটি নিজের আঙুলের মাঝে নিয়ে টানতে লাগলো রুদ্র। আর সেই টানটানই চোষাচুষির ফলে দীপার স্তনের বোঁটাগুলো একদম খাঁড়া হয়ে উঠল।

সারাদিনের স্ট্রেস আর তারপর সেই সন্ধ্যার ঘটনার ক্লান্তি, দীপার শরীরটাকে একেবারে শিথিল করে দিতে লাগলো । কিছুক্ষণ এইরকম চলার পর রুদ্র নিজের বালিশে মাথা রাখতেই দীপা তার বুকে নিজের মাথা রেখে শুয়ে পড়লো ।

সেই নগ্ন অবস্থাতেই, দুই প্রেমিক প্রেমিকা, শেষরাতের শেষ চুম্বন উপভোগ করে একে ওপরের বাহুতে নিদ্রামগ্ন হল আর দেখতে দেখতেই, একটা নতুন দিন আরম্ভ হয়ে গেল, ঠিক যেমন দীপা বলেছিল। কিন্তু হঠাৎ সব কিছুর স্নিগ্ধতা পালটে দিলো একটা আওয়াজ। দরজা ধাক্কানোর আওয়াজ। কারা যেন তাদের ফ্লাটের দরজায় ধাক্কা দিচ্ছিল.. bengali choti galpo

‘কিন্তু কে…? কে এলো এখন আবার?’

কলকাতার শহরের নাম করা সব বহুতল অফিস বিল্ডিংগুলর মধ্যে অন্যতম ছিল টি সেন্টার আর তারই লবিতে বসে অপেক্ষা করছিল দীপা আর রুদ্র।

দীপার সেখানে আজ দ্বিতীয় দিন আর বোধ হয় সেই জন্যই, বাইরের পাহারাদার গুণ্ডাগুলো আর রিসেপশনিস্টটা তাদের সঙ্গে অত সম্মান দিয়ে কথা বলছিল | তবে শেষবার যখন ওরা এখানে এসেছিলো, তখন রুদ্রকে পর্যন্ত গেটের ভেতরে ঢুকতে দেয়নি ওরা। দীপাকেও অনেকক্ষণ ধরে আটকে রেখে জেরা জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল| এমন কি তাদের কে পাণ্ডে-জির সাথে থাকা পার্সোনাল ইন্টার্ভিউয়ের কথাও বলতে বিশ্বাস করতে চাইনি ওরা | সেদিন অনেক কষ্টে দীপা ওদের রাজি করিয়ে ছিল…

“হোয়াই? কেন আপনি পাণ্ডে-জির সাথে দেখা করতে চান ?”

“বললাম তো, আমার কাছে এমন কিছু একটা আছে যেটা ওনার, আর সেটা আমি শুধুমাত্র ওনার হাতেই তুলে দিতে চাই ” দীপা জোরগলায় বলে উঠল। আধঘণ্টা ধরে সেই এক কথা অনবরত বলতে বলতে দীপার এইবার খুব বিরক্ত লাগছিল, তবুও সে নিজের রাগ নিবারণ করে সেখানে দাঁড়িয়ে রইল। bengali choti galpo

” হ্যাঁ…তো ঠিক আছে, সেটা আমাকে দিন | আমি তাকে দিয়ে দেবো ” গার্ডটা বলে উঠল।

“সরি, বাট ওই জিনিসটা আমি ব্যক্তিগতভাবে তাঁর হাতেই তুলে দিতে চাই।” দৃঢ়তার সাথে বলে উঠল দীপা।

সেই শুনে এবার গেটে দাঁড়িয়ে থাকা সেই গার্ডটা চেঁচিয়ে উঠে বলল, “কি? আপনি খেপেছেন নাকি ? আমরা কেউই যার সাথে কোনোদিন দেখা করিনি, আপনি কিনা বলছেন তার সাথেই ব্যক্তিগতভাবে দেখা করতে চান?”

তবে দীপাও কোন দমবার পাত্রী নয়, তাই সেও বলে উঠল, “ওহ আচ্ছা, তাই তো? ঠিক আছে, আপনি পাণ্ডে-জিকে তাহলে জানিয়ে দিন, যে তিনি যে প্যাকেটের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে বসে আছেন সেটা তার কাছে কোনদিনও পৌঁছবে না, কারণ ওটি আমি আপনাকে দেবো না।” সেই কথাগুল খুব আত্মবিশ্বাসের সাথে বলে উঠলেও, দীপা জানতো যে যদি ওরা তার ব্যাগ সার্চ করে তাহলে সিলিন্ডারটা ওদের খুঁজে পাওয়া অনিবার্য। bengali choti galpo

“প্যাকেট? প্যাকেটের জন্য অপেক্ষা করছেন উনি?” গুণ্ডাটা বলে উঠলো আর কেন জানি না, সেই প্রথম বারের জন্যে ওর মনে হল যে তার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা সেই ভিজিটরটা খুবই ইম্পরট্যান্ট, কিন্তু তবুও সে তাকে ভেতরে ঢুকতে দিতে দ্বিধা বোধ করলো।

“হ্যাঁ, আমি আজ সকালেই তিস্তার কাছ থেকে মেসেজ পেয়েছি সেই প্যাকেটটা এখানে নিয়ে আসার জন্য।” দীপার বলে উঠল।

“তি…তিস্তা?” অবাক হয়ে বলে উঠল লোকটা, কারণ তিস্তা পাণ্ডে-জির গ্যাঙের একজন খুবই ইম্পরট্যান্ট মেম্বার আর আতি পাতি গুণ্ডার চেয়ে তার পজিশন ছিল অনেক অনেক উপরে। তাই তিস্তার নাম আওরাতেই একে একে যেন সবকটা দরজা খুলে যেতে লাগলো দীপার জন্য | কিছুক্ষণের মধ্যেই সে মেন লিফটে উঠে একদম টপ ফ্লোরের সুইচটা চেপে ধরল আর দেখতে দেখতেই একের পর এক ফ্লোর পেরিয়ে অবশেষে একদম টপ ফ্লোরে পৌঁছে গেল দীপা। bengali choti galpo

“গুড মর্নিং, সান-শাইন ” লিফটের দরজা খুলতেই কে যেন ওইপাশ থেকে বলে উঠলো আর সেটা যে দীপার উদ্দেশেই সেটা আর বুঝতে বাকি রইল না ওর | দীপা সেই বেক্তির কণ্ঠস্বর অনুসরণ করে নিজের চোখ তুলে তাকাতেই, তার সামনে করিডোরে এক সুন্দরী মহিলাকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখল, আর তাতে ওর আর বুঝতে  বাকি রইলো না যে ইনিই তিস্তা, পাণ্ডে-জি-র গ্যাঙের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য।

“ওহ! গুড মর্নিং,” দীপা সেই বেক্তির দিকে তাকিয়ে উত্তর দিয়ে আস্তে আস্তে সামনের করিডোরের দিকে এগিয়ে গেল, তারপর আবার বলল, “হ্যাঁ, আজকের সকালটা সত্যি খুবই সুন্দর, তবে আমার সামনের এই  দৃশ্যটা তার থেকেও বেশি সুন্দর।” বলে বাইরের দিকে তাকাল দুজনে | সেন্টারের সতেরো নম্বর তলা থেকে সত্যি খুব সুন্দর দেখতে লাগছিল কলকাতা ময়দানের স্নিগ্ধ সবুজ মাঠটা আর তাতে সকালের নতুন সূর্যের কিরন পড়ে ঝলমল করছিল।  তবে এখন সেটার বেশিরভাগটাই আবাসিক নাগরিকের সীমারেখায় আবদ্ধ ছিল।

“এখান থেকে সব কিছুই সেই আগের মতনই সুন্দর লাগে দেখছি ” দীপা একদৃষ্টে সেই দিকে তাকিয়ে বলে উঠল। bengali choti galpo

“হমমম…দেন…আসুন, এইখানে বসে সামনের দৃশ্যটা উপভোগ করুন, আর তার মধ্যে আমি দুটো কফি করে নিয়ে আসি” এই বলে সামনের থাকা সোফার দিকে ইশারা করে, ব্ল্যাক অ্যান্ড ডেকোর এসপ্রেসো মেশিনের সামনে গিয়ে কফি বানাতে লাগলো তিস্তা। তিস্তার সেই অনুরধে দীপা সেই সোফায় গিয়ে বসল, তারপর খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে চারিদিক পরিদর্শন করতে লাগল। এক ফাঁকে তার চোখ তিস্তার ওপরে পরতেই ওকে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখতে লাগলো দীপা।

তিস্তাও দীপার মতও ভালই লম্বা, তবে সে দীপার চাইতে অনেক বেশী ফর্মাল পোশাক পরেছিল। যেখানে দীপার পরনে ছিল শুধুমাত্র একটা সাধারণ শাড়ি, সেখানে তিস্তার পরনে ছিল একটা টাইট ফিটিং ক্যাপ্রি প্যান্ট আর শর্টস, যেটা তার পাছার সাথে লেপটে ছিল। আর ওপরের দিকে ছিল একটা টাইট টপ যেটা তার মাঝারি সাইজের স্তনগুলোর ওপর চেপে বসেছিল। দীপা এইদিক ওইদিক তাকতে আরেকটাও জিনিস লক্ষ্য করল যে, তার পাশের সোফার ওপরে একটা স্লিভলেস জ্যাকেট রাখাছিল, যেটা সম্ভবত তিস্তার। bengali choti galpo

কফির জন্য অপেক্ষা করতে করতে, দীপা এবার তিস্তার মুখের দিকে তাকাল | সে দেখল যে তার মুখশ্রী বেশ সুন্দর আর শার্প | তার কাঁধ অবধি কালো চুলের ঘটা নেমে এসে, তার হালকা তামাটে রঙের ত্বকের রূপকে আরও যেন বারিয়ে তুলেছে| তিস্তাকে দেখে খুবই ফিট বলে মনে হল দীপার, কারণ তার শরীরে থাকা এক ফোঁটা মেধও ওর চোখে পড়ল না, আর কোনও সন্দেহ ছাড়াই বলা যেতে পারতো যে সে জিমের একজন নিয়মিত সদস্য |

‘উনি কি পাণ্ডে-জির রক্ষিতা? না কি পাণ্ডে-জি-র বিসনেস পার্টনার?’ দীপা অবাক হয়ে নিজেকে নিজে সেই প্রশ্ন করল, ‘নাকি উনি মহিলা বডিগার্ড? মানে ওই গাদ্দাফির যেমন ছিল?’ নিজের সেই সব প্রশ্নের উত্তর পাওয়ার আগেই, এবার একটা পাল্টা প্রশ্ন করে বসল তিস্তাঃ

“আপনি কি পাণ্ডে-জির জন্য কোনও জিনিস ক্যারি করছেন ?” বলে কফির কাপ দুটো টেবিলের ওপর নামিয়ে রাখল তিস্তা।

“হ্যাঁ, আর আমি সেটা তার হাতে পার্সোনালই তুলে দিতে চাই, মানে যদি আপনি সেটা ঠিক মনে করেন ” দীপা বলে উঠল। bengali choti galpo

“নিশ্চয়ই…নিশ্চয়ই, তবে বসের সাথে দেখা করাবার আগে, আপনাকে একবার থরোলি চেক করতে হবে। ওটা বসের স্ট্যান্ডার্ড সিকিউরিটি ড্রিল” তিস্তা বলে উঠল।

“হ্যাঁ…ঠিক আছে, আই আন্ডারস্ট্যান্ড…” বলেই উঠে দাঁড়িয়ে নিজের হাত দুটো উপরে তুলে ধরল দীপা। ওইদিকে, দীপাকে অকস্মাৎ সেই ভাবে উঠতে দেখেই তিস্তা বলে উঠল,”না…না, ওয়েট! আগে কফিটা খেয়ে নিন, নাহলে ওটা ঠাণ্ডা হয়ে যাবে”। তিস্তার সেই কথা শুনে দীপা আবার নিজের জায়গায় বসে নিজের কফিটা আস্তে আস্তে শেষ করল। কফি শেষ করে দীপা নিজের কাপটা টেবিলের ওপর রাখা ডিশের ওপর রাখতেই ঃ

“নাও, প্লিজ টেক অফ ইওর ক্লোথ্স, দয়া করে আপনার পরনের কাপড় খুলে ফেলুন,”। এই প্রথম তিস্তার কণ্ঠে একটা কাঠিন্য ভাব অনুভব করলো দীপা, “ইয়েস সব কিছু, অল অফ ইট ”

সেই শুনে দীপা নিজের মাথা নাড়িয়ে সম্মতি জানাল, তারপর সোফা থেকে উঠে দাঁড়িয়ে তিস্তার দিকে তাকাল। “এইরকম চেকিং কি আপনি পুরুষদের উপরেও করেন?” তিস্তার চোখে চোখ রেখে জিজ্ঞেস করল দীপা আর সেই সাথে নিজের শাড়ির আঁচলটা আস্তে আস্তে টেনে খুলতে লাগলো। এসব তার কাছে মুড়িমুড়কির মতন, এসব তার কাছে কোন নতুন ব্যাপার নয়। bengali choti galpo

“ফার্স্ট অফ অল, এই দরজা দিয়ে ভেতরে ঢোকে এরকম লোকের সংখ্যা খুবই কম আর সেকেন্ডলি, যারা ভেতরে ঢোকে, হ্যাঁ…তাদের সবাইকেই এই ভাবে স্ট্রিপ সার্চ করি আমি…কারণ বলা যায় না, কার মনে কি আছে ” এই কথাটা বলতেই তিস্তার চোখে-মুখে বিদ্যুতের ঝলক খেলে যেতে দেখল দীপা।

“ওকে,কিন্তু তাহলে বস কিভাবে নিজের বিজনেস সামলান?” বলে নিজের ব্লউসের হুকটা খুলে ব্লউসটা নীচে মেঝেতে ফেলে, পরনে শুধু ব্রা আর পেটিকোট পোড়ে দাঁড়িয়ে রইলো দীপা।

“সেটা আপনার জেনে লাভ নেই, সান-শাইন,” তিস্তার কণ্ঠে আবার একটা কাঠিন্যের ছাপ লক্ষ্য করল দীপা, ” আর আমার মনে হয়, আমি আপনাকে আপনার পরনের সব কিছুই খুলে ফেলতে বলেছিলাম, তাই নাকি?”  bengali choti galpo

সেই শুনে আর কথা না বারিয়ে দীপা এবার নিজের শরীর থেকে শেষ সুতটুকু সরিয়ে ফেলতে উদ্দত হল। প্রথমে ব্রাটা খুলে, তারপর নিজের পেটিকোটটা নিচের দিকে নামিয়ে দিলো দীপা আর সেই সঙ্গে তিস্তার চোখের সামনে বেরিয়ে পড়লো তার সেই অপ্সরার মতন নগ্ন রূপটি | বত্তিরিশ বছর বয়েসেও দীপার শরীরটা সেই আগের মতনই টাইট ছিল| ওর নগ্ন রূপ দেখে যে কেউই সম্মোহিত হয়ে যেত। দীপার ভারী নিটোল স্তনগুলির ঠিক মাঝে থাকা বাদামী রঙের স্তনের বৃন্তগুলি, এ সির ঠাণ্ডা হাওয়ার কারণে একদম খাঁড়া হয়ে উঠে নিজেদের জানান দিতে লাগলো |

আর তার নরম পেটের ঠিক নিচে, কালো লোমে ভরা যোনিদেশও  হাতছানি দিয়ে নিজের জানান দিতে লাগলো। দীপার সেই লাস্যময়ী রূপটাকে কিছুক্ষণ ধরে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করল তিস্তা। তারপর ওকে সেই ভাবেই কিছুক্ষণ দাঁড় করিয়ে রেখে, একজোড়া ল্যাটেক্স গ্লাভস নিজের হাতে পরে দীপার শরীরের উপরে হাত বোলাতে লাগলো সে। তারপর নিচে ঝুঁকে দীপার পাচার ফুটো থেকে যোনি পর্যন্ত সব কিছু চেক করতে লাগলো | তবে ওই ব্রিজের গুণ্ডাগুলোর থেকে অনেক বেশি বুদ্ধিমান ছিল তিস্তা। তারও অনেক কৌশল জানা ছিল। bengali choti galpo

“প্লিজ, সিট্ অন দা ফ্লোর, মানে উবু হয়ে বসুন আর আপনার পাছাটা ভালো ভাবে ফাঁক করে বসবেন, তারপর দুবার জোরে জোরে কাসবেন”

দীপা নিজের গহ্বরের ভেতরে যদি সত্যিই কিছু অস্ত্রশস্ত্র লুকিয়ে রেখে থাকত তবে সেটা নিশ্চয়ই এই সার্চের পর বেরিয়ে আসত কিন্তু আপাতত তার ভেতর থেকে কিছু পেল না তিস্তা | অবশেষে একদম শিওর হয়ে তিস্তা বললঃ

“ঠিক আছে। বরাকর থেকে যে ডিভাইসটা এনেছেন ওটা কোথায় ? আর ওই রুমের চাবিটা কোথায় ?”

” দুটোই আমার পার্সের মধ্যে আছে” দীপা বলে উঠল।

“ফাইন, এবার আপনি আপনার পোশাক পরে নিয়ে আমার সঙ্গে ভিতরে যেতে পারেন”

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.5 / 5. মোট ভোটঃ 11

কেও এখনো ভোট দেয় নি

1 thought on “bengali choti galpo আউট অফ কলকাতা – 7 by Anuradha Sinha Roy”

Leave a Comment