blowjob choti সোহিনী সরকার, তার ভাই এবং… 7

bangla blowjob choti. “কাট! এক্সিলেনট হয়েছে, প্যাক আপ।” চেঁচিয়ে বললেন ডিরেক্টর।
শোনামাত্রই ঠোঁটের কোণে হাসির আভাস এনে ফ্লোর থেকে নেমে এল সোহিনী। সাথে সাথেই একজন ছুটে এলো ছাতা নিয়ে। মৃদু হেসে মানা করল সে। তার ভালো লাগেনা এভাবে কেউ তার মাথায় ছাতা ধরুক। আজ রোদের তেজও কম বেশ। হাতে ধরা জলের বোতল থেকে খানিকটা জল খেয়ে গাছতলায় একটা চেয়ারে বসে হাঁফ ছাড়ল সে।

[সমস্ত পর্ব
সোহিনী সরকার, তার ভাই এবং… 6]

গাঢ় বাদামী ঢাকাই জামদানি  শাড়িখানা বেশ ভারী, চলতে ফিরতে অসুবিধা হয়। প্রিয় সানগ্লাস চোখে দিয়ে চুপচাপ দেখতে থাকল বাকিদের ব্যাস্ততা। বর্ষা সবে শুরু হয়েছে এখনই পুজোর বিজ্ঞাপনের ব্যাস্ততা। বেশীদিন হয়নি তার এই কোম্পানির ব্র্যান্ড আম্বাসাডর হওয়ার, ভালোই হয়েছে, ধীরে ধীরে সব চিনছে, বুঝছে। ইন্ডাস্ট্রিতে আসার পর প্রথম প্রথম বেশ ভয়ে থাকত, মনে করত কালো মেয়ে বলে সবাই দূরে সরিয়ে না দেয়। কিন্তু, তা একদমই না, এখানে খারাপ মানুষদের সাথে ভালোরাও আছে অনেক। অনেক কিছুই মনে মনে ভাবছিল সে, দুরের সবার কাজ দেখতে দেখতে।

blowjob choti

এমন সময় আচমকা মনে হল এরা যদি জেনে যায় তার ভাইয়ের সাথে সম্পর্কের ব্যাপারটা? শরীরটা কেমন শির শির করে উঠল তার।
“দিদি? একটু সেলফি প্লিজ…”
চমকে ঘাড় ঘোরালেও মুখে হাসি ফুটে উঠল তার। “অবশ্যই, আসো” বলল সে। মেয়ে দুটি খুব খুশি হয়েছে বোঝাই গেল।
জায়গাটা বেশ সুন্দর, একদিন মা, ভাই সবাইকে নিয়ে আসতে হবে ভাবছিল, এমন সময় চিন্তায় ছেদ পড়ল এক পুরুষালি স্বরে,

“ম্যাডাম, আপনার জন্য এটা।” একটা বড় বাদামী খাম ধরিয়ে দিয়ে বলল এক আঠেরো উনিশ বছরের ছেলে।
খামের ভেতর একটা কাগজ, সেটা খুলে একবার চোখ বোলাল সোহিনী।
পর মুহূর্তেই চোখ দুটো হয়ে গেল বড় বড়, ঠোঁটের কোণে অনুপ্রবেশ করল খুশির হাসি। জুতোর ভেতর পায়ের আঙ্গুলগুলো উত্তেজনায় সঙ্কুচিত হয়ে গেল। সোহিনীর মনে হচ্ছিল দু হাত মাথার ওপর তুলে দু কলি গেয়ে নেয়, কিন্তু পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি তাকে সেই অনুমতি দিল না। blowjob choti

বাংলার সবচেয়ে বড় প্রোডাকশন হাউসের চিঠি, আগামী বেশ কয়েকটা সিনেমা, শর্ট ফিল্মের জন্য তার সাথে চুক্তি করতে চায়। এর অর্থ একটাই, সোহিনীর একটা পেনের আঁচড় আর সেই সাথে কয়েক বছরের জন্য তার স্ট্রাগল শেষ! সেইসাথে কত সুযোগ সুবিধা! এযে স্বপ্ন! সোহিনীর বিশ্বাস হচ্ছিল না, মনে হচ্ছিল স্বপ্ন দেখছে, ইচ্ছা করছিল চিমটি কেটে দেখে কিন্তু সেটাও ইচ্ছে করছিল না, পাছে এত ভালো স্বপ্ন টা শেষ হয়ে যায়।
খুব হাসছিল সে… খুব! হয়তো মানুষ তাকে পাগল ভাবছে, ভাবুক। আজ যে তার পাগল হবারই দিন।

“ম্যাডাম!” সম্বিৎ ফিরল সোহিনীর। নিজেকে সামলে বলল সে, “হ্যাঁ সরি, বলুন”
“আপনাকে একটু স্যার ডাকছেন”
“স্যার? মানে?” ভুরু কুঁচকিয়ে জিজ্ঞেস করল সোহিনী।
ছেলেটার চোখের ইশারা বুঝতে পেরে বাঁদিকে তাকিয়ে সোহিনী দেখল বড় রাস্তার ঠিক ধারে একটা দুধসাদা টয়োটা ফরচুনার দাঁড়িয়ে, গারির কাঁচ কালো। blowjob choti

“ওখানে স্যার আছেন, আপনাকে আসতে বললেন” ফিস্ফিস করে বলল ছেলেটি।
মনে মনে অবাক হলেও উঠে দাঁড়াল সোহিনী। আরেকবার ছেলেটির দিকে তাকিয়ে ঠোঁটের কোণে সামান্য হাসি এনে হাঁটা শুরু করল গাড়িটার দিকে। বুকে কেমন একটা দুরুদুরু ভাব। কি আবার হবে? দিনে দুপুরে? এতো লোকের মাঝে ভেবেই এগিয়ে গেল সে। শাড়িটা বড্ড ভারী। তার ওপর মাথায় কায়দা করে চুল বাঁধা, মেক আপ সবকিছু নিয়ে একটা অস্বস্তি হচ্ছিল তার, তাই দরজা খুলে যখন এসির মধ্যে এল, মন টা যেন খানিক শান্ত হল সোহিনীর।

গাড়ির ভেতর কেউ নেই, একজন বাদে। তিনি হলেন বিখ্যাত প্রোডিউসার হরমন ঝুনঝুনওয়ালা, পরনে গাড়ির মতই দুধসাদা ব্লেজার, চোখে কালো সান গ্লাস, শেভ কড়া চকচকে গাল, হাতের আঙ্গুলে অনেক আংটি। বয়স পঞ্চাশের উপরেই হবে। সোহিনীকে দেখেই একগাল হাসলেন তিনি।

লোকটাকে চেনে সে, অনেক পার্টিতে দেখা সাক্ষাৎ হয়েছে, কথাও হয়েছে বার কয়েক। চরিত্রের দোষ আছে শুনেছে, তার সাথেও যখন কথা বলেছে, প্রথম দৃষ্টি তার বুকের আর বুকের খাঁজের ওপরেই থেকেছে, আজও তার ব্যাতিক্রম হল না। এই শাড়ি এমন ভাবেই পড়া যে খুব অল্পই তার ব্লাউজ দৃশ্যমান হচ্ছে, তাও কি যে খুঁজে পেল লোকটা ভগবান জানে। সোহিনীও হেসে প্রত্যুত্তর জানাল।
“বাঃ সোহিনী আপনাকে তো বেশ সুন্দর বধূ লাগছে!” শেষ পর্যন্ত সোহিনীর চোখের দিকে তাকালেন হরমন। blowjob choti

“থ্যাঙ্ক ইউ স্যার!” হেসে বলল সে।
“আহ, তোমার এই… কি যেন বলে? হ্যাঁ গজদাঁত, এগুলির জন্যই তোমার রুপ আরও হাজার গুণ বেড়ে যায়” পরিষ্কার বাংলায় উরুতে হাতের তালু ঘষতে ঘষতে বললেন তিনি।
এবার শুধু হাসল সোহিনী। আগে এসব শুনলে খুব অস্বস্তি হত, এখন অভ্যাস হয়ে গেছে।

“তো, মিস সরকার, কাজের কথায় আসি, কাগজটা পেয়েছেন তো ঠিকঠাক?”
“হ্যাঁ স্যার” হাসিটা খানিক চওড়া হল সোহিনীর,” কি বলে যে আপনাকে থ্যাঙ্ক ইউ…”
হাত তুলে সোহিনীকে থামালেন হরমন।
“থ্যাঙ্ক ইউ বলার এখনও সময় আসেনি মিস সরকার।” blowjob choti

“মানে?” হাসি মাঝপথেই বন্ধ হয়ে গেল সোহিনীর, “আই মিন কি বললেন বুঝলাম না ঠিক।”
খুক খুক করে হাসির আওয়াজ এল, “কাগজটা আরেকবার দেখুন, নীচে একেবারে ডানদিকে একটা সই মিসিং।”
শোনা মাত্রই খাম খুলে আবার কাগজটা ভালো করে দেখল সোহিনী, হ্যাঁ ঠিক তাই।

“এর মানে কি স্যার? খুলে বলুন।” একটা আশংকা মাথাচাড়া দিচ্ছিল, গাড়ি পুরো ফাঁকা, ড্রাইভার ও নেই। কিন্তু এই কাগজটা যে তার নতুন জীবন, একে ছাড়া চলবে না।
“মানে খুব সিম্পল মিস সরকার, ওই সই পেতে হলে কিছু কাজ করতে হবে আপনাকে।” খুক খুক হাসি আবার ভেসে এল।
“আমি বুঝলাম না” এসিতেও বেশ গরম লাগছিল সোহিনীর। বুকের ভেতর চাপ চাপ ভাবটা আবার ফিরে এসেছিল। blowjob choti

“আমি জানি আপনি বুঝতে পেরেছেন,” চকচকে টাকে কয়েকবার হাত বোলালেন হরমন। “দেখুন আজ সময় কম, ইম্পরট্যান্ট মিটিং আছে একটু পড়েই, তাই বেশী কিছু করতে বলছি না, তাছাড়া কিছু মনে করবেন না কালো মেয়েদের প্রতি আকর্ষণ একটু কম আমার, তবুও আপনাকে দেখে সেই আকর্ষণ ফিরে পেয়েছি আমি, একটা বেশ হাস্কি লুক আছে আপনার জন্য, এমনি এমনি তো আর কাগজ টা পাঠাই নি, ফিউচারে আপনিই হবেন আমাদের স্টার। দরশকের বুকে দোলা দিতে আপনার ওই গজদাঁতের হাসিই যথেষ্ট।

তার ওপর ওইগুলো তো আছেই” মুচকি হেসে চোখের ইশারায় সোহিনীর বুকের দিকে দেখিয়ে বললেন হরমন।
চুপ করে থাকল সোহিনী, শক্ত করে শাড়ির একপ্রান্ত খামচে ধরল সে, এখন কি করবে সে? পালাতেও পারবে না, বাজে সিন হবে। ভাইয়ের মুখটা খুব মনে পড়ছিল তার। blowjob choti

“লজ্জা পাবেন না মিস সরকার, ইন্ডাস্ট্রির সব নায়িকারাই এই পথ দিয়ে গেছেন। নেহাত আমার মিটিং আছে, নয়তো এই রোদে আপনার সাথে মিট করতাম না, সোজা কোন ফাইভ স্টার রুমে আপনাকে ডেকে পাঠাতাম।” ফের মুচকি হাসলেন তিনি।
“ক-কিন্তু…”

“কোন কিন্তু নয় মিস সরকার, একটা কথা বলি লজ্জা পাবেন না, আপনার এক্স বয়ফ্রেন্ডের সাথে কাল রাতে কথা হয়েছে, ওঁর দেওয়া ছবি দেখেই তো আপনাকে সিলেক্ট করলাম।” হো হো করে হেসে উঠলেন হরমন।

যাক, রনদীপ একটা ভালো কাজ করেছে ভাবতেই সাথে সাথে বলে উঠলেন হরমন, “you have a very nice body Sohini. Damn you look so sexy in those pictures. specially your brown juicy nipples! wet cum dripping pussy!  oh my god! I love your ass too! One day I’ll sure play with your ass cheeks. সত্যিই পাগল হয়ে গেছিলাম, নাহলে এত কম সময়ের মধ্যে কাউকে সিলেক্ট করি না আমি।   You’re God gifted Sohini. Don’t waste yourself girl!” ভদ্রলোকের কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম দেখা দিল। blowjob choti

সোহিনী কথা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছিল। রনদীপ! এমনটা করল ওঁর সাথে? তার নগ্ন দেহের ছবি এভাবে দেখাল? আরও কতজনকে দেখিয়েছে ও?
“এত ভেব না সোহিনী। ওকে থ্যাঙ্কস জানাও, ছবিগুলি না দেখলে তোমাকে আমি নিতাম না। একটা কথা বলি ওর ইন্টেনশন আলাদা ছিল, এখন তোমাকে সিলেক্ট করেছি বলে হিংসায় জ্বলছে।” হাসলেন তিনি।
“ক-কিন্তু”

“আবার কিন্তু? ভয় পেয়ো না, আমার পাশে আসো।” ইশারা করলেন তিনি।
খানিকটা দোনামোনা করে হরমনের পাশে এসে বসল সোহিনী, স্পষ্ট দেখল বসার সময় লোকটার নজর তার নিতম্বের দিকেই ছিল।
“আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে এটা খুব সাধারণ জিনিস মিস সরকার। প্লিজ না করবেন না, আমার মিটিঙের দেরী হয়ে যাচ্ছে।”
“না করলে আপনি আমার রে* করবেন?” হরমনের চোখে চোখ রেখে জানতে চাইল সোহিনী। blowjob choti

“আরে ছিঃ ছিঃ!” জিভ কাটলেন ভদ্রলোক। “আমাকে দেখে তাই মনে হয়? ওইসব জোর জবস্তি, রক্তারক্তি আমার পছন্দ না। আপনি না করলে কিছুই হবে না, আপনি যেরকম আছেন, তেমন থাকবেন, বড় ব্যানারের কাজ কাল্ভদ্রে পাবেন, বাঁ হয়তো পাবেনই না। চিরকাল অ্যাড ফিল্ম করে যেতে হবে।  আমি কোন গুন্ডা না, আপনার হবু বস। যে তার কর্মচারীদের সম্মান দিতে জানে। আজই প্রথম, আজই শেষ। তবে হ্যাঁ আমার ফেটিশ আছে অবশ্যই, সেটা হল আপনার পোশাক।

আমার যাকে লাগে তাকেই এরকম রানীর মত সেজে আসতে বলি। আলাদাই উত্তেজনা পাই আমি। ওপর ওয়ালার অসীম কৃপা যে আপনাকে আজ দেবীই লাগছে সম্পূর্ণ। ঠিক যেন সেই প্রাচীনকালের কোন সম্ভ্রান্ত জমিদার বাড়ির গিন্নি। গা ভরতি গয়না, হাত জোড়া বালা, চুড়ি, কানে দুল, নাকে অত বড় নথ! চোখে কাজল…উফফ” জোরে শ্বাস নিলেন হরমন। “প্লিজ দেরী করবেন না, আসুন” বলে পা দুটো ছড়িয়ে বসলেন, যাতে জায়গাটা আরেকটু বেশী হয়, এমনিতে গাড়িতে জায়গা অনেক, সোহিনীর আরামসে বসার জায়গা হয়ে যাবে মেঝেতে। blowjob choti

“আ-আমি…”
“সোহিনী!” দীর্ঘশ্বাস ফেলে তার গালে হাত রাখলেন হরমন, বুড়ো আঙ্গুল আলতো ছোঁয়ালেন লাল লিপস্টিক মাখা নরম ঠোঁটের ওপর,”are you virgin?”
“no, sir”
“এই কাজ তোমার চাই?”

“হ্যাঁ স্যার”
“তোমার স্বপ্ন আরও ওপরে ওঠা?”
“হ্যাঁ স্যার।”
“আমাকে দেখে ভয় লাগছে?” blowjob choti

“ন-না স্যার।”
“যা করতে বলছি, অভিজ্ঞতা আছে?”
“হ্যাঁ স্যার” খানিক থেমে জবাব দিল সে।
“আমার ব্যানারের আন্ডারে থাকা যে কাউকে ফোন কর, সবাই একই জবাব দেবে। চিন্তা করার জায়গা না এটা”

মাথা নাড়ল সোহিনী। একটা অনুভুতি শরীরের ভেতর ঢুকেছে, সেটা সাহস না অন্য কিছু সে বলতে পারবে না। লোকটাকেও খারাপ লাগছে না তার। এনাকে বিশ্বাস করা যায়।
“আপনি রেডি?”
এবার আর সোহিনী উত্তর দিল না, শুধু তাকাল হরমনের দিকে। চোখ দুটো চকচক করে উঠল লোকটার। blowjob choti

“আসুন।”
গাড়িতে বেশ সুন্দর একটা তানপুরার আওয়াজ ভাসছে। সেই আওয়াজেই নিজেকে ডুবিয়ে দিতে চাইল সোহিনী। নেমে এল সে গাড়ির মেঝেতে। হরমন ঝুনঝুনওয়ালার দুপায়ের মাঝে হাঁটু গেড়ে বসে ওনার দিকে তাকাল সে।
“তাড়াতাড়ি শুরু করুন, দুই হাত মাথার পেছনে রাখলেন উনি, বেশ ঘামছেন বোঝা গেল।

এটাও বোঝা গেল তিনি সমস্ত কাজ সোহিনীকে দিয়েই করাবেন। প্রথমে সোহিনী বেল্টের বকলস খুলে প্যান্টের হুক খুলে চেন নামিয়ে দিল, সাথে সাথেই হরমন পাছাটা খানিক উঁচু করে প্যান্ট নামিয়ে দিলেন উরুর কাছে, আরেকটু ঘন হয়ে এল সোহিনী। বেল্টের একপ্রান্ত তার গলায় গোত্তা মারছিল।
ঘিয়ে রঙের জাঙ্গিয়াটা টেনে নামাতেই গভীর ঘন কালো লোমের জঙ্গল দেখতে পেল সোহিনী। সেই সাথে নাকে এল ঘাম আর পেচ্ছাপ মিশ্রিত কড়া গন্ধ।
“গুড গার্ল।” blowjob choti

উত্তর না দিয়ে কাজে নেমে পড়ল সোহিনী, যত তাড়াতাড়ি গাড়ি থেকে বেরোতে পারে ততই মঙ্গল। জঙ্গলের ভেতর হাত ঢুকিয়ে কালো কুচকুচে পুরুষাঙ্গ বের করতেই মুখ দিয়ে শব্দ বের হয়ে এল লোকটার।
“ওহ্‌!”

একেবারেই নেতানো আছে, মাপ বেশ ছোট, অন্তত তরুণের থেকে হাজারগুনে ছোট, হাসি পাচ্ছিল সোহিনীর। তবে মুখের ভাব লুকিয়ে পুরুষাঙ্গটা মুঠির ভেতর ধরে আগুপিছু করতে শুরু করল। গোলাপি মুন্ডির সামনে ছিদ্র দিয়ে ঘন তরলের আগমন চোখে পড়ল তার।
ছুরি-বালার পরস্পর ঘর্ষণে গাড়ির ভেতর তানপুরাকে ছাপিয়ে ছন ছন আওয়াজ শুরু হল।
“উফ, একেবারে প্রফেশনাল তো আপনি।” blowjob choti

উত্তরে সোহিনী শুধু হাসল দাঁত বের করে।
হাসি দেখেই হরমনের লিঙ্গ সোজা হয়ে গেছিল,
দেরী করল না সোহিনী, বেশী ভাবার জায়গা নেই। লিঙ্গ উত্থিত দেখেই ছোট্ট হাঁ করে সেটা মুখে পুরে নিল সে। ঘাম, পেচ্ছাপ, বীর্য সবকিছুর মিশ্রিত একটা তরল মিশে গেল তার জিভে।

“ওরে বাপ রে। কি গরম” চোখ বন্ধ করে বললেন হরমন।
লিঙ্গ ছোট হওয়ায় বারবার মুখ থেকে বেরিয়ে আসছিল সেটি, ফলে একটা ভেজা রসালো আওয়াজের উৎপন্ন হল গাড়ির ভেতর…
স্ল্রাপ…স্ল্রাপ… blowjob choti

চোষার গতি বাড়াল সোহিনী,দুই হাত লোকটার লোমশ উরুতে রেখেছিল সে।  ঠোঁট ঘন জঙ্গলে গোত্তা খাচ্ছিল বারবার।
“আহ আহ… এভাবেই মিস সরকার এভাবেই,” মাথার পেছনে রাখা হাত সামনে এনে তিনি রাখলেন সোহিনীর মাথায়, শক্ত করে ধরে আগুপিছু করতে থাকলেন। সোহিনীর এতে সুবিধাই হল। মাঝে মাঝে চোখ তুলে তাকাচ্ছিল সে উপরে, দেখতে পাচ্ছিল তার দিকেই চেয়ে আছেন ভদ্রলোক। লিঙ্গের সাথে জিভের লাগাতার ঘর্ষণে কেঁপে উঠছিলেন মাঝে মাঝেই।

মাঝে মাঝে দম ফুরিয়ে গেলে লিঙ্গের চেরা জায়গা থেকে একদম গোঁড়া অবধি জিভ বুলিয়ে নিচ্ছিল সোহিনী। দু একবার ঘেমো কুঁচকিও চেটে দিল সে।  তারপর আবার মগ্ন হয়ে যাচ্ছিল চোষায়।

সময়ের ধারণা ছিলনা সোহিনীর কাছে। তার সমস্ত মন, দেহ পতিত হয়েছিল সিটে বসা লোকটির পুরুষাঙ্গ, অণ্ডকোষের ওপর। ক্রমাগত তার মুখনিঃসৃত লালা, থুতু স্পর্শ করছিল হরমন ঝুনঝুনওয়ালার লিঙ্গ আর অণ্ডকোষ। থুতু আর লালার ঘোলাটে তরল গড়িয়ে পড়ে ভিজিয়ে দিচ্ছিল লোকটির জাঙ্গিয়ার কিছু অংশ, কিছুটা পড়ছিল টুপটুপ করে মেঝেতে। blowjob choti

সোহিনীর নজর সেদিকে ছিল না অবশ্য, একদৃষ্টিতে হরমনের কুতকুতে চোখের দিকে চেয়েছিল, বাকি কাজ তার মুখ আর জিভ করে চলেছিল। মনের সাথে বিদ্রোহ অনেক আগেই প্রশমিত হয়েছিল অবশ্য, একটা নতুন অথচ চেনা অনুভুতি সারা দেহে ছড়িয়ে পড়েছিল। বেশ প্রবল সেই অনুভুতি.. নিষিদ্ধতায় মোড়া সেটি….সুখের পরশ জাগিয়ে তুললেও খানিক ভয়ও জাগিয়ে তোলে তা।

একটানা অনেকক্ষণ চোষার ফলে ঘাড়ে অল্প ব্যাথা বোধ হওয়ায় কিছুক্ষন সোহিনী হরমনের দিকে বড় বড় চোখ দিয়ে চেয়ে লিঙ্গখানা হাতের তালুর মাঝে রেখে গোলাপি মুন্ডির চেরা জায়গাটা তার নরম জিভ দিয়ে বারবার আঘাত করে চলেছিল, অনেকটা থুতু জমা হয়ে যাওয়ায় স্ল্রাপ স্ল্রাপ আওয়াজটা খানিক বেড়েই গেছিল, থুতু ছিটকে সোহিনীর গালে, নাকে বিন্দু বিন্দু আকারে জমা হচ্ছিল। তবুও সে চোখ সরায়নি, দেখেই চলেছিল হরমন কে। নিষিদ্ধ অনুভূতিটা যে প্রানপনে আঁকড়ে ধরেছে তাকে। blowjob choti

উফ্‌ এত ভালো লাগছে কেন তার? তার তো পালিয়ে যাবার কথা? পারছে না কেন সে? সম্পূর্ণ অচেনা একজনের ঘাম, বীর্য খুশিমনে গ্রহন করে চলেছে?
একটা গোঙ্গানির শব্দ হল, সেই সাথে হরমনের কোমরটা সিট ছেড়ে খানিকটা উঠে গেল। সোহিনী বুঝল সময় হয়ে এসেছে, তবে তার আগেই অত্যন্ত শক্ত করে তার মাথা ধরে টেনে আনলেন হরমন, চুলে ঘেরা উরুসন্ধিতে ফের একবার ধাক্কা খেল সোহিনীর ঠোঁট।

“আহ আহ ।। চোষ ভালো করে, বেরিয়ে আসবে।” বিড়বিড় করে বলতে বলতে বেশ ভালো গতিতে সোহিনীর মাথাটা আগুপিছু করতে থাকলেন, সোহিনীর কিছু করার সুযোগ ছিল না, শুধুমাত্র হাঁটু আর পায়ের আঙ্গুলের ওপর ভর দিয়ে আরেকটু সোজা হয়ে বসেছিল কোমরটা খানিক উঁচু করে, হরমনের নজর এড়াল না তা, ফলস্বরূপ আরও জোরে সোহিনীর মাথা চালনা করতে থাকলেন। blowjob choti

“উম্ম উম্ম…স্ল্রাপ স্ল্রাপ…উম্মম…উম্মম…স্ল্রাপ” ইত্যাদি শব্দের আগমন হরমনের দেহে যেন আগুন ধরিয়ে দিল, আর থাকতে পারলেন না তিনি।
ধরতে পেরেছিল সোহিনীও, ইতিমধ্যে লিঙ্গের সাথে তার জিভের বেশ ভাব হয়ে গেছিল, ফলে লিঙ্গের সঙ্কোচন প্রসারনে সহজেই বুঝতে পারল সোহিনী। পর মুহূর্তেই গোঙ্গানির আওয়াজ তীব্র হল সাথে তার মুখের ভেতর পরিপূর্ণ হল খানিক সাদা খানিক তরল বীর্যে।

“প্লিজ খেয়ে নিন পুরোটা, নাহলে গাড়ির মেঝে নোংরা হয়ে যাবে” শোনা মাত্র দুই উরু খামচে ধরে দুই ঠোঁট দিয়ে আরও জোরে চেপে ধরল লিঙ্গের শেষপ্রান্ত, টের পেল চিড়িক চিড়িক করে তরল বীর্যের দল ধাক্কা মারছে তার গলায়, এক ঢোঁকে অনেকটা গিলে ফেলল সে।
হরমনের বলা সত্ত্বেও পুরো খাওয়া সম্ভব হল না সোহিনীর। বেশ অনেকটা তরল বীর্য উপচে আসল তার ঠোঁট বেয়ে, কিছুটা এসে মিশে গেল হরমনের লিঙ্গের গোঁড়ায় চুলে। blowjob choti

নিজেকে এমন মনে হচ্ছে কেন তার? কেন তার ইন্দ্রিয় বারবার বলে চলেছে আরও চাই? কেন তার প্যানটি ভিজে সপসপ করছে ইতিমধ্যেই?
এর উত্তর সোহিনীর কাছে নেই, সে যেন সম্পূর্ণ হাল ছেড়ে দিয়েছে। আরেক ঢোক গিলে চেটে দিচ্ছিল সে গোটা উরুসন্ধি অঞ্চলটা।
হয়তো বুঝতে পেরেছিলেন হরমন ও, ততক্ষনে একটু সামলে সোহিনীর মুখ দুহাতে ধরে তুললেন নিজের সামনে, সোহিনী তার এক হাত রাখল হরমনের কাঁধে ওপর হাত অবশ্য লিঙ্গকে জড়িয়েই ছিল।

সোহিনীর কোমর ধরে খানিক টেনে এনে দুই হাতের তালু রাখলেন তার নিতম্বের ওপর,
“ওহ ডিয়ার। আমি জানি আপনি কি চান।” সোহিনীর নিতম্ব আলতো করে টিপতে টিপতে বললেন তিনি, কয়েকবার তর্জনী দিয়ে খাঁজের খোঁজে গেছিলেন কিন্তু এই মোটা শাড়ির ওপর দিয়ে খাঁজ খুঁজে পেলেন না। blowjob choti

“আজ আর সময় নেই ডার্লিং। কলকাতা ফিরলে আপনাকে ডেকে নেব, সেদিন আপনি আসবেন, ঠিক এরকম ড্রেসেই।”
সোহিনীর মাথায় কিছু ঢুকছিল না, কি জন্য চায় সে? এনার লিঙ্গ খুব বড় না, মাঝারি কিন্তু কি এমন আকর্ষণ আছে লোকটার মধ্যে যে এভাবে সব কিছু বিসর্জন দিয়ে দিতে মন চাইছে? মনে হচ্ছিল হাত দুটো আরও জোরে খামচে ধরুক তার নিতম্ব, ওই শুকনো ঠোঁট কামড়ে ধরুক তার বীর্যস্নাত অধর। আঁচড়ে কামড়ে শেষ করে ফেলুক তাকে।

তবে হরমন এসব কিছু করলেন না, নিতম্বে হালকা চাপড় মেরে বললেন, “আপনার সাথে দেখা হয়ে বেশ লাগল, পরেরবার আশা করি আরও ভালো লাগবে। ভালো থাকবেন, ও হ্যাঁ আসল জিনিস ভুলেই গেছিলাম, দিন কাগজটা।”
যন্ত্রচালিতের মত কাগজটা এগিয়ে ধরল সে, মুচকি হেসে বুক পকেট থেকে পার্কার কলম বের করে সই করলেন তিনি।
“Thank you Miss sarkar. You’re truly a gem!” বলে একটা ইশারা করলেন।

বুঝতে পেরে ঠোঁটটা মুছে নিল সে, ঠোঁটে আর চিবুকে কয়েক ফোঁটা বীর্য ঝুলছিল।
“এবার ঠিক আছে” মুচকি হাসলেন হরমন। হাসল সোহিনীও।
“আসুন, আমাদের আবার দেখা হবে। অল দ্য বেস্ট” বলে গাড়ির দরজাটা খুলে দিলেন। যন্ত্রচালিতের ন্যায় সোহিনী নেমে এল রাস্তায়, পুনরায় কড়া রোদের আক্রমনের শিকার হল সে।

শুটিং স্পটে কেউ নেই তেমন। এখন রুমে গিয়ে স্নান করতে হবে ভেবে পা চালাল সোহিনী, তীব্র রোদে মুখমণ্ডল চ্যাট চ্যাট করছে, হাতের তালুও। মনে হল একবার ঘাড় ঘুরিয়ে দেখে, কিন্তু সংবরন করল সে।
অপেক্ষা কি করছিলেন হরমন তার ঘাড় ঘোরানোর? খানিক পরেই শুনতে পেল সে গাড়ির ইঞ্জিন স্টার্টের আওয়াজ। blowjob choti

সান গ্লাস চোখে হোটেলের এলিভেটরে ঢুকল সোহিনী, নিতম্বে এখনও লেগে রয়েছে হরমনের হাতের ছোঁয়া। চোখ বুজে ফেলল সে। এখন অবশ্য সেই অনুভুতি আর নেই অনেক আগেই বিদায় নিয়েছে সে। তার বদলে সারা শরীর জুড়ে বিরাজ করছে এক হতাশা, আত্মগ্লানির রেশ।
ঘরে ঢোকার মুহূর্তেই টুং করে মেসেজ ঢুকল ফোনে, ভাইয়ের।
#ক্রমশ

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 3.1 / 5. মোট ভোটঃ 19

কেও এখনো ভোট দেয় নি

2 thoughts on “blowjob choti সোহিনী সরকার, তার ভাই এবং… 7”

Leave a Comment