coti golpo স্ত্রীর শরীরসুধা – 2

bangla coti golpo. ছোটবেলা থেকেই আমি সুন্দরী । পাড়ার ছেলেরা যখন মুগ্ধ চোখে আমার দিকে চাইত তখন থেকেই আমি নিজেকে আর বিশেষ করে আমার এই শরীরটাকে ভালবাসতে শুরু করি । আমার এই ফর্সা গোলাপী নরম তুলতুলে শরীর , আমার মাঝারি কিন্তু দৃঢ় বুকের ঢল , আমার মেঘের মত চুল , আমার নর্তকীর পাছা , সব মিলিয়ে যে আমি একজন পুরুষের দারুন সঙ্গিনী হবার ক্ষমতা রাখি, বারো তের বছর বয়েস থেকেই সংসার আমাকে বুঝিয়ে দেয় । পাড়ার অনেক বড় ছেলেরা এমনকি নিজের পিসতুতো দাদা, এবং মামা কাকারা পর্যন্ত একলা থাকতে আমার শরীরের দিকে তাকাত সেটা বুঝতে পারতাম ।

স্ত্রীর শরীরসুধা – 1

আর পরে এটাও বুঝতে পারি যে রাতে ওরা সবাই আমার শরীরকে ভাবত , কেউ কেউ একা একা , কেউ কেউ নিজের বৌএর সঙ্গে সঙ্গম করতে করতে । আমাকে এইসব জানাতো আমার স্কুলের দুই ক্লাস উচু বন্ধু শিঞ্জিনী । শিঞ্জিনী মানে নুপুর । আমার শরীরে আমার মনে প্রথম নুপুর বাজিয়েছিল ও । স্কুলের পরে সবাই যখন চলে গেছে একলা ক্লাসরুম-এ আমরা দুজনে বসতাম । লুকিয়ে লুকিয়ে শিঞ্জিনী আমাকে দুষ্টু বই পড়াত । আর ঐসব বই পরে যখন আমি লজ্জায় লাল হয়ে যেতাম , চোখমুখে হল্কা বেরোত , তখন আসতে করে শিঞ্জিনী আমার স্কার্ট-এর তলায় হাত ঢুকিয়ে আমার উরু স্পর্শ করত ।

coti golpo

আমি কিছুই করতে পারতাম না , সব ভালমন্দের বুদ্ধি লোপ পেত । আসতে আসতে বলত, আমার খরগোশটা ভিজে গেছে ইশ । অর সুন্দর চাঁপার কলির মত লম্বা আঙ্গুলগুলো খেলা করত আমার অভয়ারন্যে । আমার নাকের পাতা ফুলে যেত, নিশ্বাসে গরম হল্কা, কিশোরী থেকে যুবতী হয়ে যেতাম এক লহমাতে । না না বলে তীব্র আনন্দে বার করে নিতে চাইতাম ওর হাত । সেই সময় শিঞ্জিনী আমার হাতটা নিয়ে নিজের স্কার্ট-এর তলায় ঢুকিয়ে দিত । বলত আর পারছিনা রে সোনালী । গরমে মরে যাচ্ছি । আদরের খেলাতে দুজনে খেলতাম । দুই সখী ।

মনে পরত কবিগুরুর গান – সখী যাতনা কাহারে বলে । চাপা শীত্কার বেরিয়ে আসত যা সুধু আমরা দুজনে ছাড়া আর কেউ সুনতে পেত না । ইহ্হহ মাগো । আস্তে শিঞ্জিনী আর না আর না নাআআআআআ । শিঞ্জিনীর আঙ্গুলগুলো সেতারের তারের মত বাজাত আমাকে । আর আস্তে আস্তে পৌছে দিত সম-এর দিকে । কাপতে কাপতে আমার যুবতী শরীর পৌছে যেত চূড়া-তে আর শিঞ্জিনীর-ও । দুজনে দুজনের দিকে তাকিয়ে সংকেত করতাম । ও চেপে ধরত আমার শরীর । উমমমম এখনো ভাবলে শিরশির করে । coti golpo

শেষ সময়ে আমাদের আঙ্গুলগুলো পাগলের মত আঘাত করত ভগাঙ্কুরে । একটা দুষ্টু হাসত শিঞ্জিনী । আর একটা – আর একটু আদর্রে । আমার যোনি থেকে তিরতির করে বেরিয়ে আসত মধু । আর ওর-ও । দুই সখী নিস্তেজ হয়ে বসে থাকতাম কিছুক্ষণ আধো-অন্ধকার ঘরে । ছোট বয়েসেই আমাকে শিঞ্জিনী আস্তে আস্তে তৈরী করে ফেলে । যদিও ও আমাকে চরম সুখ দেয় প্রথম, কিন্তু আমি নারীর চেয়ে পুরুষদের প্রতি-ই বেশি আকৃষ্ট ছিলাম । কিন্তু মনে ছিল এক স্বপ্নের পুরুষ । সে , সুধু সেই আমার এই তুলতুলে নরম সুন্দরী দেহটাকে পাবে ।

আমার কল্পনার সেই পুরুষ লম্বা চওড়া পেশল আর বলিষ্ঠ । কল্পনাতে তার হাত আমার শরীরে অনুভব করতাম । ভিজে যেত অন্তর্বাস । মাঝে মাঝে শিঞ্জিনী-ও আমাকে এই ব্যাপারে জিগেস করত । পাড়ার ছেলেদের দেখিয়ে বলত কাকে তর ভালো লাগে বল, চাইলেই পাবি । শিঞ্জিনী পাড়ার একটি ছেলের কাছে আদর খেত, তবে পুরোটা দেয়নি । হালকা হালকা ছোওয়া জড়ানো , চুমু মাঝে মাঝে ব্লাউসের ওপর দিয়ে চটকানো , এতেই সীমাবদ্ধ ছিল ওদের ভালবাসা । coti golpo

কিন্তু আমাদের বিয়ের তিন চার বছর আগে শিঞ্জিনী তাকে অবলীলাক্রমে ছেড়ে দিয়ে আমেরিকা চলে গেল ওর ইঞ্জিনিয়ার বরের সঙ্গে । যাবার আগে আমাদের কথা হয়েছিল । শিঞ্জিনী বলল সোনালী, জীবনে জাগতিক সুখটাই আসল । প্রেমিক আমাদের মত সুন্দরী মেয়েদের জন্য সবসময়েই থাকবে । বিয়ের আগে হোক বা পরেই হোক । যেকোনো ছেলেকে নাচাবার অধিকার আমরা সবসময়েই রাখি । কিন্তু আমাদের চাই এমন একজনকে যে আমাদের নিরাপদ রাখবে সারা জীবন । শিঞ্জিনীর সঙ্গে আমার আর দেখা হয়নি ।

একটা চিঠি পর্যন্ত দেইনি আমেরিকা থেকে । কৈশোরের সখী যৌবন আসতেই চলে গেছে । কিন্তু অর কথাটা আমার মনে আছে – “নিরাপত্তা” আমি ভাবলাম সেটাই জীবনে আসল । স্বপ্নের পুরুষ স্বপ্নেই থাক । তাই স্বপনের সঙ্গে যখন সম্বন্ধটা এলো , রাজি হয়ে গেলাম । ব্যাঙ্ক-এর প্রবেশনারী অফিসার স্বপন মেইন বেশ ভালো তখন । ব্যাঙ্ক-এর কোয়ার্টার চাকর , স্বচ্ছলতা , আর কি চাই একজন মধ্যবিত্ত বাঙালি নারীর ? coti golpo

বিয়ের সময় আমার সবে কুড়ি বছর বয়েস । অসাধারণ সুন্দরী আমি । স্বপন উনত্রিশ । আমার স্বপ্নের পুরুষের মত না হলেও বেশ ফিটফাট । ফুলসজ্জার রাতে আদর করলো আমাকে । আমার মত সুন্দরী তো আগে দেখেনি ও । রূপে মুগ্ধ । আর কত ভালবাসার কথা । আমি ভালো বর পেলাম , সবাই বলল । অনেক মেয়ে তো ঈর্ষিত । সবাইকে কাদিয়ে আমি গেলাম শ্বশুরঘর করতে । সে তো নয় সুধু স্বামীর ঘর । দুজনের কোয়ার্টার-এ সুধু আমরা দুজন । হাসি খেলা । এর পরে সুকন্যা এলো আমাদের জীবনে ।

নিরাপত্তা ,মানে চরম নিরাপত্তা । সেইসঙ্গে ভালবাসাও । কিন্তু আরো কিছুদিন পরে কেমন একটা শুন্যতা । আস্তে আস্তে বুঝতে সুরু করলাম , সেই স্বপ্নের পুরুষ আর স্বপনের মধ্যে অনেক তফাত । সে বলিষ্ঠ , দামাল শরীর তার । স্বপনের মত একটুতেই ক্লান্ত হয় না । আদরের প্রথম অঙ্কেই শ্রান্ত হয়ে পরত ও । ঘুমিয়ে পরত । আমার তখন সবে শুরু । স্বপনের শিথিল লিঙ্গতাকে জাগিয়ে ওঠাতে চাইতাম লজ্জা ভেঙ্গে গেলে । দুই উরুর মধ্যে চাপ দিতাম ওটাকে ধরে । কিন্তু সেই ক্ষমতা স্বপনের ছিলনা । তাই মাঝরাতে একা হয়ে যেতাম আমি । coti golpo

গৃহবধু হলেও কল্পনাতে ডেকে আনতাম আমার স্বপ্নের পুরুষকে । যার একমাত্র অধিকার ছিল আমার যুবতী শরীরের ওপর । আমার কল্পনাতে সে রমন করত আমাকে । ছিন্নভিন্ন হতে চাইতাম আমি তার হাতে । ঘুমন্ত স্বপনের পাশে শুয়েই আস্তে আস্তে দুই উরু ঘসতাম একটু একটু করে । ভিজে যেত উরুসন্ধি । কল্পনার পুরুষ তখন আমাকে আস্তে আস্তে নগ্ন করে দিচ্ছে । তার ঘামে ভেজা বুক, তার কাধ , তার পেশল দেহ উহ মাগো । স্বপনকে ছেড়ে আমি তখন মনে মনে তার বউ । আদুরে নতুন বউ আমি তার । ভীষণ অসভ্য সে ।

আমার শাঁখা-সিদুর মঙ্গলসুত্র পরেছি তার জন্য । অনেক বিবাহিত মেয়েরাই কি এরকম ভাবে ? শিঞ্জিনী-ও? তাই কি আমাকে বলেছিল ও? নিরাপত্তা – হ্যা – নিরাপত্তা আমি পেয়েছি । নিরাপত্তা আমার চাই-ও । স্বপনকে ছেড়ে আমি যাব না । কিন্তু আমার কল্পনার পুরুষ ? ওকে তো কেউ আমার কাছ থেকে কেড়ে নিতে পারবে না । মাঝরাতে সে আসবে । নগ্ন হব আমি তার কাছে । আমার এই দেবীর মত শরীরের সম্মান সুধু তো সেই দিতে পারে তাইনা? তার বাহুর পেষণ আমার শরীরে । পিষছে আমাকে । coti golpo

লোহার মত শরীর আমার কল্পনার পুরুষের । স্তন-দুটো স্বপনের পাশে সুয়ে খাড়া হয়ে গেল । ও ঘুমে কাদা । আর থাকতে না পেরে বাথরুমে গেলাম পা টিপে টিপে । নাইটি খুলে অন্তর্বাস পরে মেঝেতে উপুর হয়ে সুয়ে আঙ্গুলগুলো দুই পায়ের ফাকে প্যান্টির ভেতরে ঢুকিয়ে দিলাম । উহ যদি শিঞ্জিনী থাকত । যাক, ওই তো আছে আমার কল্পনার পুরুষ । স্বপন যদি দেখত আমি বাথরুমের মেঝেতে উপুর হয়ে সুয়ে চাইছি আমার পুরুষকে । চুরি একটু ঝনঝন করছে ও সুনতে পাবে না ।

কল্পনার পুরুষ তখন আমার ওপরে । স্বপনের চেয়ে অনেক বড় তার লিঙ্গ । আস্তে আস্তে মধুর ছন্দে তাকে আহ্বান করলাম আমার বরতনুতে । আমার দেবতা । আমার স্বামী । আমি মনে মনে বুঝলাম আমার চাই অন্য এক পুরুষকে । যে নিরাপত্তা না দিলেও সুখ দেবে । নিরাপত্তার জন্য তো স্বপন আছেই । আমি সুখ চাই । উহ মাগো একটা হাত আমার তলপেটে । কি আরাম । coti golpo

ও তখন আমার ভেতরে । ওকে, আমার পুরুষকে নিয়ে কোমর দোলাচ্ছি মাগো উফ । বাথরুমের মেঝেতেই পাগলের মত অসহ্য সুখে কাপতে কাপতে রাগমোচন করলাম আমি । আর তৃপ্ত করলাম তাকে । আমার আসল স্বামীকে । আবার কবিগুরু । সখী যাতনা কাহারে বলে । আমি যাতনা চাই । আমার সারা শরীরে ।

এমনি করে অনেক অনেক রাতেই আসতে শুরু করলো আমার কাছে আমার স্বপ্নের পুরুষ । সুধু একা একাই নয় , স্বপনের সময় সম্গমের সময়েও ভাবতে সুরু করলাম আমার স্বপ্নের পুরুষকে । স্বপন যখন আমাকে করত , আমার মনের মধ্যে থাকত সেই পুরুষ । মানসিকভাবে আমি রমিতা হতাম তার দ্বারা । তার ফলে আরো মধুর হয়ে উঠলো আমাদের যৌনজীবন । আমি উত্তেজনায় খুব জোরে জোরে আমার নিতম্ব দোলাতাম আনন্দে । স্বপন তাল রাখতে পারত না সেই দোলনের সঙ্গে । কারণ ঐভাবে সঙ্গমে বীর্যধারনের ক্ষমতা ছিলনা ওর । coti golpo

আমার যখন প্রথম অঙ্ক তখন স্বপন সোনা আর পারছিনা বলে বীর্যপাত করত আমার ভেতরে । আমি তখন অতৃপ্ত । মনে মনে ডাকতাম আকুল হয়ে আমার পুরুষকে এস এস সোনা । আমাকে তৃপ্ত কর । আনার এই আকুলিত যৌবন, স্তনচুড়ার এই স্পর্শ , নিতম্বের নিবিড় উচ্ছাস সব নিয়ে সুধু সুখ দাও । কিন্তু স্বপন তো আমার স্বামী । তাই ওর হয়ে যাবার পরে ভান করতাম আমার-ও যেন চরম তৃপ্তি হলো । আকুল চিত্কারে জানতাম সেই তৃপ্তি যা সত্যি হত না । অনেক বিবাহিতা নারী-ই করে , হয়ত পাঠিকা- রা আপনারাও করেছেন বা করছেন স্বামীর সঙ্গে ।

অর বাথরুম থেকে ফেরার পরে আমি যেতাম বাথরুমে । আর আস্ত আমার স্বপ্নের পুরুষ , আমার মনের নির্জন কোনে । বাথরুমের নিরালায় চরম মিলনে রত হতাম আমরা । শাওয়ার চালিয়ে দিতাম যাতে স্বপন ভাবে আমি চান করছি । কিন্তু ঘামতাম আমি । ওর পরশে ওর বুকে ওর শয্যায় । সেও ঘামত । মিশে যেত আমাদের দুজনের ঘাম , আমার সিদুর ঘেটে দিত সে ।

উমম অব্যক্ত চাপা শীত্কার বেরিয়ে আসত । শেষে স্বপনের জন্য থাকার কথা যে মধু, সেই মধু ঝরে পরত বাথরুমের মেঝেতে । দাতে দাত চেপে একটু একটু করে সেই পুর্নমিলনের উল্লাস অনুভব করতাম । কিন্তু পেতাম না সত্যিকারের জীবনে তাকে । অনেক অনেক নারী-ই থাকেন জীবনে এইভাবে । বাইরে থেকে তারা সবাই সতী । কিন্তু একা মনের কোনে ? স্বপ্নের দামাল পুরুষের অঙ্কশায়িনী । coti golpo

আমিও ছিলাম তাই । সারা জীবন ধরে আত্মরতিতেই সন্তুষ্ট থাকতাম যদি না আসত পারমিতা আমার জীবনে । একদিন শপিং মল থেকে ওদের বাড়িতে ফিরেছিলাম আমরা দুজন । মলে অন্তর্বাস কিনছিলাম আমরা । ও অনেকটা জোর করেই কিছু দুষ্টু অন্তর্বাস কেনায় আমাকে দিয়ে । বলে তুই পড়লে স্বপনদার ভালো লাগবে । আর দুটো দুরন্ত নাইটি-ও । বাড়ি ফিরলে আমাকে পরে দেখাতে বলে । আমরা দুজনে পরি ।

আমি আগে কহন ঐরকম পোশাক পরিনি । বেশ দুষ্টু দুষ্টু লাগে নিজেকে । সেই সময় পারমিতা বলে যেকোনো পুরুষ আমাকে দেখলে পাগল হয়ে যাবে । জিগেশ করে তেমন স্পেশাল আছে কি কেউ ? আমি না বলি । তখন ওর বরের সেই বসের কথা বলে ও । আর অফিসের পার্টি-তে সেই নাচের কথা । বরের বসের স্পর্শে নাকি পুরোপুরি শরীর জেগে উঠেছিল পারমিতার । অন্য পুরুষের সঙ্গে দেহ ঠেকানোর নাকি আলাদা উত্তেজনা ।

– ইশ পারমিতা কি সব অসভ্য কথা বলছিস ।আমি ভাবতেই পারছিনা

– পারবি ভালই পারবি । রনেন-দার মত অসভ্য পুরুষের পাল্লায় পড়লে তোর-ও লজ্জা ওই নাইটি-র মতই পাচ মিনিটে খসিয়ে দেবে । কি লম্বা হ্যান্ডসাম চেহারা । আর কি অসভ্যের মত চেপে ধরেছিল আমার শরীর । coti golpo

– রবি যদি জানতে পারত ?

– আর বলিস না । রবি-ই তো নাচতে যেতে বলেছিল

– এমা কি বলছিস ? স্বপন তো ভাবতেই পারবেনা

– দেখ রনেন-দার হাতে ওর প্রমোশন । ও কি করতে হবে সোজাসুজি বলেনি কখনো কিন্তু অন্যভাবে বোঝাত । আমিও ভাবলাম বউ হয়ে এটুকু করতে পারব না?

– তুই জানতিস যে ও রাজি হবে?

– সোজাভাবে কি বলে ? ঐসব পার্টিতে যাবার আগে আমাকে দুষ্টু দুষ্টু ড্রেস কিনে দিত যাতে আমার স্তন-সন্ধি দেখা যায় , আমাকে মদ খেতে বলত যাতে আমি উত্তেজিত হয়ে থাকি । coti golpo

– তোর ভালো লাগত?

– কেন ভালো লাগবে না ? একে দু-তিন পেগ জিন-এর নেশা , তারপরে রনেন-দার মত পুরুষের নিষিদ্ধ আদর । সারা শরীর তো শিরশির করত ।

– ইশ কিসব বলছিস । আমার শরীর-ও তো শিরশির করছে ।

– নাইটি-টা খুলে ফেল না ।একটা ব্লু চালিয়ে দেই, ভালো লাগবে ।

– কি বলছিস যাতা ইশ

– আরে তার আগে চল একটা করে জিন খেয়ে নেই – আগে খেয়েছিস?

– না কখনো না – কেমন খেতে রে?

– দাড়া আনছি লেবু দিয়ে দেই – কেমন ঝিম ঝিম নেশা হবে দেখবি

পারমিতা জিনের গ্লাস নিয়ে এলো । আমরা নাইটি পরে জিনের গেলাসে চুমুক দিছি । বোধহয় একটু কড়া করেই দিয়েছে সত্যি ঝিম ঝিম করছে তিনচার চুমুকের পরেই

– এবার দেখ আসল জিনিস । এটা পুরো দেশী । আমাদের জন্যে । coti golpo

পারমিতা ডিভিডি প্লেয়ারের সুইচ অন করলো । আমরা খাটে নাইটি পরে শুয়ে দুজনে । আমি আর কিছু বলতে পারব না কিন্তু পাঠকেরা বুঝতেই পারছেন মধ্যবিত্ত সাধারণ ঘরের মেয়ের কাছে কিরকম লাগবে । সুপুরুষ আমি আগে দেখেছি কিন্তু খালি গায়ে অত সুন্দর বলিষ্ঠ পুরুষের চেহারা দেখলে মেয়েদের কি হয় আপনারা নিশ্চয় বুঝবেন । আমার ঘন ঘন নিশ্বাস পড়তে দেখে পারমিতা বুঝতে পারল । ওরও বেশ গরম লাগছিল । পর্দায় নারী প্রবল আনন্দে বলিষ্ঠ পুরুষের সঙ্গম উপভোগ করছিল । আমার তলপেট আসতে আসতে ভিজতে সুরু করেছিল । পারমিতাই নীরবতা ভঙ্গ করলো ।

– কি রে কেমন লাগছে ? উফফ কি হ্যান্ডসাম না ? এই ছেলেটাকে দেখেই আমার হয়ে যায় । আমাদের বরগুলো এরকম হলে দারুন হত না?

– ইস কি সব বলছিস রে তুই পারমিতা । আমাদের বরেরা জানতে পারলে?

– আমি তো বরের সঙ্গেই দেখি । ওই তো নিয়ে এসেছিল । তুই দেখিস না ?

– না রে । আমার বর পুরনো ধরনের মানুষ । ও এসব দেখে না ।

– দেখে না আবার । ওরা সবাই দেখে । বিয়ের আগে আমার বর আরো সব দেখত । এখন তো একটু কম । coti golpo

– সোনালী নেশা নেশা লাগছে না ? উফ আমার কি দারুন লাগছে ওদের দেখতে ।

– হ্যা রে তুই কি দিলি – শরীরটাতে কেমন কেমন লাগছে ।

– লাগবেই তো । শিরশির করছে না ওখানে ?

– তুই যা বলিস না । সেতো করবেই একটু একটু । কি আর করা যাবে ।

– উফফ কি হ্যান্ডসাম ছেলেটা । নিতে ইচ্ছে করছে না ওকে?

– যাহ তুই প্লিস এরকম বলিস না । স্বপন শুনলে রেগে যাবে ।

– আরে স্বপনদা তো নেই এখন । আমাকে বল না ।

– জানি না যাহ

– বুঝলাম । ঐরকম একজনকে পেলে সারা জীবনের ইচ্ছে মিটিয়ে দেবে তর জানিস । তাইত আমি রনেন-দার সঙ্গে নাচতে গেছিলাম । coti golpo

– উনি কি হ্যান্ডসাম নাকি ওই ছেলেটার মত?

– হ্যা বেশ ভালো দেখতে । আমাকে জড়িয়ে নাচছিল । হঠাত সারা শরীরটা কেমন গরম হয়ে গেল জানিস ।

পর্দায় নিবিড় সঙ্গম চলছে । ঝিম ঝিম নেশা । পারমিতার সঙ্গে এইসব কথা বলতে বলতে আমার শরীরটাতেও বেশ গরম । বললাম

– রনেন-দা দুষ্টুমি করছিলেন ?

– করবেনা আবার । ওরা সবাই সমান । আমার বুক ঠেকছিল নাচের তালে তালে । রনেন-দার হাত ছিল আমার কোমরে । রবি তো বার-এ ছিল দেখতে পাচ্ছিলনা । অন্ধকার ডান্স ফ্লোর । খালি খালি কোমর থেকে নাভিতে হাত দেবার চেষ্টা করছিল ।

– ইস আমি তো অন্য কেউ নাভিতে হাত দিলে পাগল হয়ে যাব । ইস কি লজ্জা ।

– আরে হাত যখন নাভিতে পড়বে তোর্ সবগুলো সুইচ অন হয়ে যাবে । তখন বুঝবি আসল মজা কাকে বলে । ইস ঘেমে যাচ্ছিস তো , আমিও ঘেমে যাচ্ছি । চল নাইটিগুলো খুলে ফেলি , ইস কি গরম ।

আমরা দুজনে সুধু অন্তর্বাস পরে । পর্দায় সঙ্গম চরমে উঠছে । নারী পাগলের মত নিতম্ব দোলাচ্ছে । coti golpo

– ইস সোনালী তোর্ কি ফিগার রে । আমি তো মোটা হয়ে গেছি । ভাগ্যিস রনেন-দা তোকে দেখেন নি । নয়তো আমাকে পাত্তাই দিতেন না ।

– না না তোর্ ফিগার-ও ভালো । বাঙালি ছেলেরা এরকম স্বাস্থ্যবতী মেয়েই পছন্দ করে । আমার বরের স্বাস্থ্যবতী মেয়েদের প্রতি দুর্বলতা আছে একটু একটু ।

– কিকরে জানলি ? কাউকে করে নাকি?

– না না । তবে দেখেছি বেশ ভরন্ত চেহারার মেয়ে দেখলে আরচোখে তাকায় । ওর থেকেই তো বোঝা যায় ।

– বুঝলাম । স্বপনদার একজন ভরন্ত সুন্দরী পছন্দ । তা তোকে যদি একজন হ্যান্ডসাম পুরুষ যোগার করে দেই , স্বপন-দাকে দিবি নাকি আমাকে?

-ইস কি সব বলছিস । খুব অসভ্য তুই

– আর তুই খুব সতী না ? দেখি দেখি – পুরো ভিজে গেছে তো

আমি কি আর বলব । সেটা তো সত্যি । ঐরকম বলিষ্ঠ সঙ্গম আগে দেখিনি তো । coti golpo

– এই তোর্-ও তো ভিজে গেছে । আমাকে বলছিস কেন ?

– আহ বলনা , এইসময় যদি ওই ছেলেটাকে পেতিস আদর খেতে ইচ্ছে করত না ? উহ মাগো আমাকে পাগল করে দিত ও । বলনা নিশ্চয় করতে ইচ্ছে করত ।

– লজ্জায় মাথা নুইয়ে বললাম হ্যা ।

পারমিতা খাটে আমার দিকে সরে এলো । বলল দেখি কেমন ভিজেছে ? বলে একটা হাত আসতে করে আমার অন্তর্বাসের ওপরে রাখল । আমি কিছুই বললাম না ।শিঞ্জিনীর কথা মনে পরে যাচ্ছিল । সুধু জোরে জোরে নিশ্বাস পড়ছিল । অর্থপূর্ণভাবে তাকালাম পারমিতার দিকে । বিলি কাটছিল ও অন্তর্বাসের ওপর দিয়ে আমার সিক্ত যোনিতে ।

– ইস পুরো ভিজে তো রে । বলে আঙ্গুলগুলো সোজা ঢুকিয়ে দিল ইঙ্গিত পেয়ে । আমি উমমম করে উঠলাম ভালোলাগা জানাবার জন্যে । নাকের পাটা ফুলে উঠলো । ও অভ্যস্ত সব জানে ।

– আমারটাও ভিজে গেছে দেখ । বলে আমার একটা হাত নিয়ে পারমিতা ওর অন্তর্বাসের ওপরে রাখল । আমি জানতাম কি করতে হবে । আসতে করে লজ্জাভরা মুখে আঙ্গুলগুলো ঢুকিয়ে দিলাম ওর অসভ্য জায়গাটাতে । coti golpo

পারমিতার আঙ্গুল খেলছে আমার ওখানে । উফফ কত্তদিন পরে আবার । হিসহিস করে পারমিতা বলল এবার বল স্বপন-দার চেয়ে ওই ছেলেটার আদর ভালো কিনা ?

আমি থাকতে পারলাম না । বললাম হ্যা বলেই তো মনে হয় । ভীষণ হ্যান্ডসাম তো ।

পারমিতা আর থাকতে পারলনা । বলল স্বপনদারটা বড় না ওই ছেলেটার?

আমি কি বলব জানিনা । পারমিতা আমার সিক্ত যোনিতে কি বিপদজনক সুরসুরি দিছে । আমার মধ্যে আদিম নারীকে জাগিয়ে দিয়েছে ।

– জানিনা যা । ওই ছেলেটার ওটা তো ভীষণ অসভ্যের মত ।

– বুঝলাম তার মানে স্বপনদার বদলে সিনেমার ছেলেটা ঢোকালে তোর শরীরে মস্তি বাড়বে

– উফ তোর যেন বাড়বে না । পুরো তো ভিজে গেছিস । আর একটু করলেই তো খসাবি । coti golpo

– সত্যি বলেছিস সোনালী । পুরো খসানোর আগের অবস্থা । খসিয়ে দিবি তুই ?

– আর আমারটা ?

– তোরটা আমি দিছি । আয় ল্যাঙটো হয়ে যাই । আর তো লজ্জা নেই ।

সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থাতে শুয়ে বিছানাতে পারমিতা আর আমি । পর্দায় উন্মত্ত সঙ্গম । আমাদের স্বপ্নের পুরুষ নারীকে পাগলকরা সঙ্গম করছে কোলে তুলে ।

– উফফ সোনালী । তোকে পেলে যেকোনো পুরুষ পাগল হয়ে যাবে । কি উত্তেজক ফিগার তোর্ ।

– উফফ মাগো পারমিতা ওখানে কি আরাম । আমি যদি ওই ছেলেটাকে পেতাম । আহ হাতটা ঢুকিয়ে দে ইস মাগো কি সুখ ।

– আয় আমাকে চেপে ধর । ভাব আমি ওই ছেলেটা । কি বড় ঐটা না ওর? স্বপনদার ঐটা অত বড়? না ওরটা বড় বল না ?

– উফ আর বলিস না । জানিস না কেন আমার উত্তেজনা উঠছে ?

– বুঝলাম , স্বপনদার বদলে আজ ওই ছেলেটা তোর্ হিরো । coti golpo

– হ্যা ঠিক যেমন বরের বদলে রনেন-দা তোর্ । অসভ্য একটু জোরে দে ।

– ঠিক বলেছিস রনেন-দার ঐটাও খুব বড় জানিস । আমাকে চেপে ধরে যখন নাচছিল, ঠেকছিল । পুরো বাশ করে দিয়েছিলাম ।

– রবিকে বল প্রমোশন-এর জন্য তোকে একরাত ছেড়ে দিতে রনেন-দার কাছে , তোকে তাহলে ডিভিডি দেখতে হবে না । বউ হয়ে এটুকু কর বরের জন্যে ।

– ইস আর তোর্ কি হবে?

– আমার কথা ছাড় । উফফ মাগো পারমিতা আর পারছিনা । আরেকটু জোরে মাগো ।

– উফফ সোনালী – মাগো আমার আসছে । কবে যে নেব রনেনদা-কে ।

উমমমমমমম – কাতরে উঠলাম আমি । পারমিতাও । জোযার আসার আগের মুহূর্ত । মনে পড়ল শিঞ্জিনীর সঙ্গে চরম সুখের কথা । আঃ কত্তদিন পরে আবার । চোখ বুজে আমার আর পারমিতার শরীর কাপতে কাপতে চূড়া-তে উঠলো । জড়িয়ে ধরলাম দুজনে দুজনকে । আর কোনো লজ্জা নেই । আসছে আমাদের দুজনের-ই । চাপা শীত্কার করে উঠলাম দুজনেই । coti golpo

হিসহিস করে পারমিতা বলল – কাকে নিলি ভেতরে?

লজ্জার মাথা খেয়ে আমি বললাম – পর্দার ওই অসভ্য টাকে বুঝিস না কেন ? আমার উলঙ্গ শরীরটাকে ফালা ফালা করে দিছিল ওর ঐটা । উফ মাগো কি উত্তেজক শরীর ছেলেটার । আর ঐটাও কি বড় মাগো । উমমমমম ।

পারমিতাকে বললাম আর তুই?

হেসে বলল ও – তোর বরটাকে । আমার ভরন্ত শরীর ভালো লাগবে বলেছিলিস না?

দিবি তোর্ বরটাকে আমাকে?

গভীর ভালবাসায় আর কিছুটা নেশায় বললাম – দিয়ে দিলাম – খুশি তো?

উত্তেজনার চরমে ছিলাম তখন আমরা । কেন যে পারমিতা স্বপনকে চাইছে একটু পরেই বুঝলাম । coti golpo

– আচ্ছা পারমিতা আমার বর-টাকে তো চাইছিস , আমি কাকে পাব ? রনেন-দা তো সুধু তোর ।

– বুঝিস না কেন , রবি তো তোকে দেখে পাগল । ব্লু দেখতে দেখতে বলে সোনালীর মত ফিগার দেখো । তোর কথা বললেই তো ওর হয়ে যায় ।

– সেকিরে রবি-দা অত দুষ্টু নাকি । ইশ আবার আমার ফিগার নিয়েও কথা বলে?

– সোনালী জানিস না কে কিরকম । বাইরে থেকে ছেলেদের বোঝা যায় না ।

– ইস না আমি পারব না । তোর বর তো । ছি ।

– হু রবি যখন তোকে কোলে বসিয়ে সুরসুরি দেবে তখন তোর এই লজ্জা কোথায় থাকে দেখব । আমার লজ্জাবতী ! বলে পারমিতা আমার বুকের শক্ত নুড়িদুটোতে একটু কুরকুরি দিয়ে দিল ।

– ইস মাগো । ভাবতেই পারছিনা

– হ্যা রে তোর রবি , আর আমার স্বপন । নতুন বর বউ । coti golpo

– ইস ভাবতেই কেমন শরীর গরম হয়ে যাচ্ছে রে পারমিতা ।

– সত্যি যখন পাবি আরো গরম হবে । রাজি ? আমরা রাজি হলে ওদের রাজি করানো তো এক সেকেন্ডের ব্যাপার । তোর একটা চোখের ইশারায় রবি তোর পায়ে দাসখত লিখে দেবে ।

– ইস আর তোর ওই ভরন্ত শরীর দেখলে আমাকে ছেড়ে এক মিনিটে স্বপন তোর বুকে মুখ রাখবে ।

– উফ মাগো , সত্যি বলব রবি-দার ফিগারটা আমার খারাপ লাগে না ।

– হ্যা তোর সঙ্গেই মানাবে । আমার তোর বরের মত ভেতো বাঙালি-ই ভালো লাগে । যার যেমন চাই ।

– সত্যি বলছিস রবি-দা বলেছে আমার ফিগার ওর পছন্দ ?

– হ্যা রে বাবা । একটা ব্লু দেখতে দেখতে বলছিল, এই মেয়েটা একদম সোনালীর মত । আমি বললাম আজকাল কি তুমি সোনালী-কেও ভাব নাকি? কি বলল জানিস?

– কি রে? ইস শুনতে কেমন লজ্জা করছে । coti golpo

– বলল হ্যা ওর দারুন ফিগার , কোলে বসিয়ে ভালো করে আদর করা যাবে ।

– মাগো রবিদা কি অসভ্য রে ।

– তোর বর-ও নিশ্চয় মনে মনে আমার কথা ভাববে জিগেশ করে দেখতে পারিস আমি সত্যি বলছি কিনা ।

সেদিন-ই আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম এই নতুন উত্তেজক বন্ধনে ধরা দেবার । বিবাহবন্ধনের চেয়ে অনেক উত্তেজক এই নতুন বন্ধন । স্বপনের সঙ্গে বেশ কয়েক রাত পারমিতাকে নিয়ে আলোচনা করে বুঝলাম পারমিতার প্রতি অর তীব্র আকর্ষণ আছে । ঠিক যেমন পারমিতা বলেছিল । তারপরে চারজনের মন্দারমনিতে যাবার প্ল্যান । আর তারপরে – আপনারা তো জানেন-ই ।

 

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.6 / 5. মোট ভোটঃ 25

কেও এখনো ভোট দেয় নি

2 thoughts on “coti golpo স্ত্রীর শরীরসুধা – 2”

Leave a Comment