বউ থেকে hot youtube Star! – 7 by Suronjon

সিরাজ এর সন্মান আর আমার প্রফেসনাল সুনাম বজায় রাখতে আমি ড্যান্স বার এর প্রমোশনে একটা ড্যান্স ভিডিও শুট করতেও রাজি হয়ে গেলাম। যখন শুট শুরু হবে, স্টেজ এর মধ্যিখানে এসে, ঠিক সামনের দিকে তাকাতে বার ভর্তি লোক দেখে, আমি আরো ঘাবড়ে গেলাম। ডিলেওয়ার এর বারের প্রতিটি টেবিল ভর্তি ছিল। বেশির ভাগ লোক dilewar এর বন্ধু স্থানীয় ছিল। যারা ফ্রীতে শুটিং দেখতে এসেছিল। Dilewar এর বার ঐ সন্ধ্যে বেলা পুরো হাউসফুল ছিল। ও নিজের সব ঘনিষ্ঠ বন্ধু আর ভালো কাস্টমার দের স্পেশাল ইনভাইটেশন দিয়ে ডেকে এনেছিল ঐ লাইভ ভিডিও শুট দেখানোর জন্য।

প্রতিটা টেবিলে হুক্কা পাইপ স্ট্যান্ড লাগানো ছিল, সেখান থেকে ধোঁয়া উড়ছিল। Waiter রা ট্রে হাতে টেবিলে টেবিলে মদ আর snacks সার্ভ করছিল। ইতিমধ্যে মিউজিক স্টার্ট হল। সিরাজ রা আমার সাথে নাচবার জন্য একজন male dancer hire করেছিল। যার নাম ছিল ফিরোজ। উনি এগিয়ে এসে আমাকে হাত ধরে ওনার সাথে ক্যামেরার সামনে যেতে ইশারা করলেন। সিরাজ আর দিলওয়ার কেও দেখলাম সামনের সারিতে বসে আছে ওরা আমাকে centre স্টেজে আসার জন্য ইশারা করছিল।

এই প্রাইম মোমেনটে আমার মাথা কাজ করছিল না। আমি স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম, প্রচণ্ড নার্ভাস লাগছিল, তার উপর যেটা করতে যাচ্ছিলাম সেই কাজে আমার মন সায় দিচ্ছিল না। আমি স্টেজ থেকে বেরিয়ে সাইডে চলে আসলাম। রানী ওখানে দাড়িয়ে আমার দিকে লক্ষ্য রাখছিল। সে আমি স্টেজে উঠেও আবার নেমে আগের জায়গায় চলে আসলাম দেখে রানী আমার দিকে এগিয়ে এলো। ফিরোজ ও আমাকে নিতে একি জায়গায় এসে উপস্থিত হল। ফিরোজ বলল, ” সব কুচ সেট হ্যা, আব ভি বিলকুল টপ কি আইটেম লাগি রহি হো।”

আমি স্টেজে প্রবেশ করতে ভয় পাচ্ছি দেখে, রানী আমার কাধে হাত দিয়ে বলল, ” আমি বুঝতে পারছি, এটা তোমার ফার্স্ট টাইম। যা করতে হচ্ছে তোমার মেনে নিতে প্রব্লেম হচ্ছে। কি আর করবে বল। এই নাও এটা খাও, মাথা ঠাণ্ডা কর। ফিরোজের সাথে যাও। অর শুরু হ যাও। তুমি ঠিক পারবে।”

এই বলে রানী আমার হাতে একটা গ্লাস ভর্তি পানীয় ধরিয়ে দিল। ওতে ভদকা আর কোকোনাট ওয়াটার এর একটা অসামান্য ককটেল বানানো ছিল। আমি আর কথা না বাড়িয়ে রানীর কথা শুনে ওর হাত থেকে গ্লাস টা নিয়ে সরাসরি মুখের ভেতর ঢক ঢক করে পানীয়টি ঢেলে দিয়ে এক নিমেষে গ্লাস টা খালি করে ফেললাম। তারপর ফিরোজ এর হাত ধরে স্টেজে প্রবেশ করলাম।

একটা বলিয়ুড আইটেম নাম্বার এর সাথে আমাকে আর ফিরোজ কে একসাথে নাচতে বলা হল। আমাকে মুখ বুজে ওদের সেই আবদার রাখতে হল। নাচ টা সাধারণ নাচ রইল না। কারণ নাচতে নাচতে ফিরোজ শার্ট খুলে ফেলল আর আমার মুখে সোজা একটা বিদেশি ব্র্যান্ড এর মদ এর বোতল থেকে মদ ঢালতে লাগল। মদ আমার মুখে সব টা পৌঁছালো না মুখ থেকে গড়িয়ে আমার গলা আর বুকের স্তন বিভাজিকা ভিজিয়ে দিল। ফিরোজ মদ ঢালতেই লাগলো আমার শরীর লক্ষ্য করে, আস্তে আস্তে ব্লাউজটা আর শাড়ি টা ভিজে গেল।

বোতল শেষ করে ও একটা হুক্কা পাইপ থেকে ধোঁয়া টেনে আমার মুখে আর শরীরে সেটা ছেড়ে দেওয়া আরম্ভ করল। তারপর আমার পিছনে এসে , আমাকে ভালো করে প্রেমিক এর মতন জড়িয়ে ধরে ঘনিষ্ঠ ভংগিতে কোমড় দোলাতে শুরু করল। নাচতে নাচতে আমার কোমরে বুকে আর পাছায় ফিরোজ বিনা বাধায় হাত দিচ্ছিল। চুলের ক্লিপ টা খুলে দিয়েছিল একটা বিশেষ মুহূর্তে এসে। এই ভাবে কোনো কাট ছাড়াই ১০ মিনিট এর ও বেশী সময় ধরে এই নাচ এর ভিডিও গ্রাফি চলল।

আমি দাতে দাত চেপে সব কিছু সহ্য করলাম। এইভাবে শুট যখন শেষ হল। ক্যামেরাম্যান কাট বলল, সারা বার হাততালি আর সিটিতে ফেটে পড়ল। অনেকে তো টাকাও ছুড়লো। আমি তখন হতাশ হয়ে একটা চেয়ারে এসে বসে পড়লাম। সাথে সাথে সিরাজ আর রানী এসে আমাকে অভিনন্দন জানালো, ওদের হাতে একটা মেরুন রঙের বড় টাওয়েল ছিল। ওটা দিয়ে আমাকে ওরা কভার করে দিল।

তারপর সিরাজ আর ওর লোকেরা মিলে গার্ড দিয়ে আমাকে ঐ চেঞ্জ রুমে নিয়ে গেল। র হার্ড ড্রিংক পেটে পড়ায় আমার ভালো নেশা হয়ে গেছিল। তাই বোধ হয় ওদের অভার্থনায় একটু বেশি ভাসছিলাম। ওদের কথা অনুযায়ী আমার পারফরমেন্স নাকি অসাধারণ হয়েছে। দেখে একবারের জন্য নাকি বোঝা যায় নি,আমার এর আগে কোনো দিন সেভাবে নাচ করি নি।

ভালো ভালো কথা বলে আমাকে খুশি করে, সিরাজ আর দিলেওয়ার রা আরো একটা সর্বনাশ আমাকে দিয়ে করিয়ে নিল। আমি ওদের বিশ্বাস করে আমার বাড়ির ঠিকানা ওদের কে জানিয়ে দিলাম। আমি তখন বিন্দু মাত্র টের পাই নি যে ওরা আমার সরল মনে ওদের বিশ্বাস করার খুব চরম মূল্য দেওয়াবে।

সিরাজ নিজে আমাকে ড্রপ করে দিয়েছিল। ওর মিষ্টি মিষ্টি কথার ভাজে ভুলে গিয়ে আমি ওকে আমার বাড়ি অব্ধি আসতে allow করলাম। সিরাজ আমাকে হাগ করতে চাইলে আমি ওর আবদার রেখে ওকে আমার শরীরে টেনে জড়িয়ে ধরে ওর গালে আলতো চুমু খেয়ে বললাম, ” কি এইবার happy তো?”

সিরাজ খুশি হয়ে আমাকে ওর প্রমিজ করা গিফট টা দিয়ে বলল, তুমি তো আমার মন জিতে নিয়েছ মলি।।এই লাভ সাইন ডিজাইন সোনার চেইনটা আমাদের বন্ধুত্বকে আরো গাঢ় করবে।”

পরের দিন বেড়ানো ছিল। দুপুরে শুট করতে বেড়ানোর সময় ছেলে কে কার কাছে রেখে যাবো খুব চিন্তায় পড়ে গেলাম। কাকিমা দিদির বাড়ী গেছিল। ছেলের দিদিমণি ও বাড়ি ছিল না। মেঘনা কে ফোন করলাম, ও বলল আই অ্যাম সরি মলি, আমি তো বেরিয়ে এসেছি। সারা দিন এর প্ল্যান। বাড়ি ফিরতে ফিরতে রাত হয়ে যাবে।”

আমি বললাম, তাহলে কি করি বল তো। আমার আর এক ঘণ্টার মধ্যে কাকে ছেলের কাছে রেখে নিচ্ছিনতে বেরোব ।

কি করা যায় ভাবছি। এমন সময় বাইরে দরজায় কলিং বেল বাজলো। এই অসময়ে কে আসলো,আমি অবাক হয়ে গেলাম। দরজা খুলে দেখি বাইরে সিরাজ দাড়িয়ে। হাতে একটা টিউলিপ ফুল এর তোরা। আমি দরজা খুলতেই ও আমার হাতে ঐ ফুল এর তোরা ধরিয়ে দিয়ে বলল, congratulation for completing 10000 সাবস্ক্রাইবার।

আমি সারপ্রাইজ হয়ে গেলাম। ফুলের তোড়া টা নিয়ে বললাম thank you Siraj। Tumi এখন এই সময়।
সিরাজ তোমাকে দেখা করে শুভেচ্ছা জানাতে ইচ্ছে করল তাই চলে এলাম। কিন্তু কি ব্যাপার বলতো। তুমি কি কোনো প্রব্লেমে পড়েছ বলে মনে হচ্ছে। মুখে পরিষ্কার চিন্তার ছাপ দেখতে পারছি।

আমি সিরাজ কে সব কিছু খুলে বললাম।

ও সব শুনে বলল এই ব্যাপার? কোনো সমস্যা না। তুমি কাজে বেরও। তোমার ছেলের দেখা শোনার জন্য আমি থাকছি। আর বিকেলে একটা মহিলা কে আস্তে বলে দিচ্ছি। ওনার নাম হল বিন্দু। ৪২ + age, ভালো সেন্টার এর সার্টিফিকেট আছে। একেবারে তোমার ছেলের বন্ধু হয়ে যাবে দেখবে। আর উনি থাকলে তোমার খুব হেল্প হবে। বিন্দু দির নম্বর দিচ্ছি কথা বলে নাও।

আমি ওর থেকে এভাবে চট জলদি সাহায্য পাবো আশা করি নি
আমি বললাম thanks a lot সিরাজ।।আজ তুমি না থাকলে না জানি আমি কি করতাম।

সিরাজ বলল, শিফ মুখে thanks e কাজ চলবে না, তোমাকে বিপদ থেকে উদ্ধার করলাম, আমার আরেকটু বড় reward চাই।

আমি বললাম কি চাই তোমার বল? আমার পক্ষে সম্ভব হলে আমি নিচ্ছয় দেবো।

সিরাজ: তুমি ভেবে বলো মলি। পরে আমি কিন্তু কোনো কথা শুনবো না।

আমি বললাম, ” আরে কি চাই তোমার বল না।”
সিরাজ : ঠিক আছে আমি সময় মতন ওটা তোমার কাছ ঠিক চেয়ে নেব।।আজ চলো তোমার ছেলের সাথে একটু দুজনে মিলে খেলা যাক।

এই বলে সিরাজ অনায়াসে আমার ছেলের সঙ্গে দিব্যি মিলে মিশে গেল। নিজের ফোন বের করে ছেলের হাতে দিয়ে নতুন একটা গেম খেলতে লাগলো দুজন মিলে। আমি সিরাজ কে একটু চা করে দিলাম। ফোনে বিন্দু দির সাথে কথা বলা হয়ে গেল। চিনি না জানি না ওর আওয়াজ শুনে বেশ ভরসা হল। তারপর শাড়ি পাল্টে, সেই ডিপ কাট এর কালো রং এর হাতকাটা ব্লাউস পরে, রেডি হয়ে বেড়াতে যাবো।
এমন সময় সুদর্শন বাবুর ফোন এলো।

আমি ফোন রিসিভ করে হ্যালো বলতে, সুদর্শন বাবু বললেন মল্লিকা অসময়ে বিরক্ত করলাম না তো..এই এখন একবার আসতে পারবে আমার এখানে জরুরি দরকার ছিল?
আমি বললাম, এখনই আসতে হবে আমার তো একটা শুট আছে। বেরোচ্ছিলাম।

সুদর্শন বাবু বললেন, ” ঠিক আছে চলে আসো না। জাস্ট পাঁচ মিনিট সময় নেব। তোমার দেরি হবে না।

আমি বললাম ঠিক আছে সুদর্শন দা। আমি আসছি। কি ব্যাপার সেটা ফোনে বলা যায়? জানতে কৌতূহল হচ্ছে।
সুদর্শন বাবু একটু হেসে বললেন, আরে চলে এস না। এলেই জানতে পারবে।

আমি বললাম ঠিক আছে দেখা হচ্ছে ১০ মিনিটে।
তারপর ছেলেকে আদর করে বললাম, সিরাজ দাদার সাথে লক্ষ্মী ছেলে হয়ে থাকবে.. একদম দুষ্টুমি করবে না। তোমার drawing book homework এর কপি সব আমি জায়গায় গুছিয়ে রেখে এসেছি।

সন্ধ্যা বেলা মিশ এর দেওয়া home task করে নেবে। আমি রাতে ফিরে সময় না পেলে, কাল সকালে চেক করে নেব। আর একটা মাসী আসবে তার সাথে লক্ষ্মী ছেলে হয়ে থাকবে কেমন। তুমি গুড বয় হয়ে থাকলে আমি বাড়ি ফেরার সময় তোমার জন্য দারুন একটা জিনিস নিয়ে আসবো। কেমন। বাই বাই বাবু। লক্ষ্মী ছেলে..।

ছেলে এতক্ষন সিরাজ এর সাথে বেশ খেলছিল। আমি বেরিয়ে যাবো শুনে ও সামান্য বেকে বসল। ও প্রথমে বলল তুমি কোথায় যাচ্ছ মা?

কাজে যাচ্ছি শুনে বলো।

তোমার রোজ রোজ কী কাজ থাকে বলতো। আজ তো ছুটির দিন। আমার স্কুল ও তো আজ বন্ধ।

– বড়ো দের ছুটি থাকে না বাবা.. দেখো তোমার বাবা ও তো বেরিয়েছে না কাজে।

– আমিও যাবো। তুমি বলেছিলে আজকে পার্কে নিয়ে যাবে..

-আজ না বাবু অন্য দিন পাক্কা নিয়ে যাবো।

– আজকেই যাবো..

– না বাবু…

– তুমি যেখানে যাচ্ছ সেখানে যাবো…

– বড়দের কাজের জায়গা ছোটরা যায় না..

– আমি যাই না..আমি বসে থাকবো..যতক্ষণ তুমি কাজ করবে…তারপর একসাথে বাড়ি ফিরে আসবো।

– এটা হয় না বাবু। জেদ করে না সোনা ছেলে আমার। আজকে না অন্যদিন তোমাকে নিয়ে বেড়াবো কেমন..।

আমার কথা শুনে ওর মুখ টা একটু ভারী হয়ে গেল। সেটা দেখে আমারও বেশ মন খারাপ হয়ে গেল। এদিকে দেবরাজ জির পাঠানো গাড়ি এসে গেছিল বাড়ীর সামনে, আমি আর দাঁড়ালাম না ব্যাগ কাধে নিয়ে ছেলে কে জড়িয়ে গালে একটা চুমু খেয়ে বেরিয়ে গেলাম। সিরাজ দরজা অব্ধি এলো।

আমি ওকে বাই করে বেরিয়ে গাড়িতে উঠতে যাবো এমন সময় সিরাজ বলল, একি আমি একটা good bye hug পাবো না।

আমি হেসে ধুর এসব কি বলছো। তুমি কি ওর মত বাচ্চা নাকি।

সিরাজ: প্লিজ মলি দাও না একটা হাগ।

আমি বললাম ঠিক আছে এই নাও। বলে সাইড থেকে জড়িয়ে ধরে ওর ইচ্ছে পূরণ করে দিলাম, আমার গা থেকে আমার বডি পারফিউম এর মিষ্টি সুবাস ও টেনে নিয়ে বলল, thank you Molly, আজকের শুট এর জন্য all the best।

আমি গাড়িতে উঠে বসলাম। গাড়ি চলতে আরম্ভ করলাম। প্রথমে সুদর্শন বাবুর কাছে যেতে হল। উনি সেই কেবিনে নিয়ে গিয়ে বসালেন। একটা গয়নার বাক্স টেবিল এর দেরাজ খুলে বার করে দিয়ে বললেন, এটা তোমার জন্য বানিয়েছি। এটা তোমাকে নিতে হবে। না না কোনো কথা শুনবো না।

 

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.2 / 5. মোট ভোটঃ 9

কেও এখনো ভোট দেয় নি

1 thought on “বউ থেকে hot youtube Star! – 7 by Suronjon”

Leave a Comment