baba meye choti পিতার রাজকন্যা – 4

bangla baba meye choti. দুপুর সারে তিনটে এখন ঘড়ির কাঁটায়| শালিনী কলেজ থেকে সবে ফিরেছে| ওর পরণে সাদার উপর মেরুন রঙের কাজ করা সালোয়ার কামিজ| রজতবাবু ওকে ওর ছোট্ট গোলাপী রঙের ব্যাগটা সহই জরিয়ে ধরে সোফায় এনে বসেছেন| ওঁর বলশালী ডানহাতটি দিয়ে তিনি শালিনীর ব্যাগসহ কোমর পেঁচিয়ে ওকে জরিয়ে ধরেছেন এবং তাঁর অপর হাতটি ঘুরে বেরাচ্ছে ওর শরীরে, কখনো চাপ দিছে ওর উরুমুলে, কখনো তিনি ওর উদরে হাত ঘসছেন, কখনো পোশাকের উপর দিয়ে ওর স্তনদুটো পিষ্ট করছেন|

[সমস্ত পর্ব
পিতার রাজকন্যা – 3]

তাঁর মুখ অনবরত চুমু খেয়ে চলেছে শালিনীর গালে, ঠোঁটে, চিবুকে, গলায়| ওঁর পরণে এখন একটি সুতির গেঞ্জি ও একটি লাল জাঙ্গিয়া| শালিনী পিতার বাহুবন্ধনে অসহায় হয়ে শরীরে মোচড় দিচ্ছে, ওঁকে নরম গরম বকুনি লাগাচ্ছে|
-“উম্ম..উম..উমমমম্ম্ম্ম…” শালিনীর লাল টকটকে পাপড়ির মতো ঠোঁটদুটিতে চুমু খেয়ে খেয়ে ঘর্ষণে ঘর্ষণে উত্তপ্ত করে নিজের লালায় ভিজিয়ে টসটসে করে ফেলেছেন রজতবাবু| ঠোঁটদুটি তিনি লজেন্সের মতো মুখে পুরে চুষছেন, চাপছেন, কামর দিছেন..

baba meye choti

-‘উন্ফ্ফ..” জোর করে পিতার আগ্রাসী ঠোঁটদুটি থেকে নিজের মোহনীয় ঠোঁটজোড়া ছাড়িয়ে নিয়ে শালিনী চোখ পাকিয়ে তাকিয়ে বলে “উফ বলছি না এক্ষুনি এসেছি! বাপ্পি তোমার তর সয় না যেন! ইশশ,,”
-“উম্ম, “ শালিনীর কোমরে চেপে ধরা কব্জির বাঁধন আরো দৃঢ় করে ওর উদরে ঘুরতে রত তাঁর অসৎ বাম-হাতটি ওর বুকে তুলে সেখানকার কামিজ ঠেলে ওঠা উন্মুখ, নরম টিলাগুলি একে একে থাবায় চেপে টিপতে টিপতে রজতবাবু ওর কানের কাছে ঘরের নগ্ন মসৃন ত্বকে ঠোঁট এনে বলেন “এখনো কিন্তু শুনলাম না সারাদিন কি করে কাটিয়েছে দুষ্টু!”

-“আহা, সব বলছি, ছাড়ো না ব্যাগটা রাখি!” শালিনী পিতার থাবা তার স্তন থেকে ছাড়িয়ে ওঁর কোল থেকে কোনরকমে নিজেকে মুক্ত করে| তারপর হংসিনীর ছন্দে হেঁটে গিয়ে টেবিলে ব্যাগটি রেখে ওঁর দিকে ফিরে ঠোঁট কামড়ে হেসে ওঠে|
-“কি হয়েছে রে রূপসী পরী?” দু-পা ভালো করে ছড়িয়ে দিয়ে কন্যার অভিমুখে তাঁর লাল রঙের জান্গিয়ায় তাঁবুর মতো ফুলে ওঠা শিশ্নদেশ প্রকাশিত করে হেসে বলেন রজতবাবু|
-“হিহি বাপ্পি, উম্ম, …”বাচ্চা মেয়ের মতো লালিমালিপ্ত হাসিতে পূর্ণ হয় শালিনীর অপরূপ মুখশ্রী “আমি আমাদের কলেজের ফ্যাশন ট্রেন্ডস এ চান্স পেয়ে গেছি বাপ্পি!” baba meye choti

-“wow..” রজতবাবু বলে ওঠেন| তাঁর অদূরে সামনে দাঁড়িয়ে আছে শালিনী| ওর পরনের সালোয়ার কামিজটি যথেষ্ট চাপা, এবং ওর আওয়ারগ্লাস ফিগারের পুরো ধাঁচটি সুষ্ঠুভাবে ফুটে উঠেছে তাতে| বুকের উপর স্তনজোড়া খাড়া-খাড়া, দুটি আত্মাভিমানী টিলার মতো কামিজের নক্সাকাটা কাপড় ঠেলে উঁচু-উঁচু হয়ে আছে| কামিজটির বুক অনেকটা কাটা, তাই ফর্সা স্তনসন্ধির সামান্য অংশও প্রকাশিত| ওরনা সর্বদা গলায় দেয় শালিনী| ওর সরু কোমরের কাছেও প্রমদ্জনক ভঙ্গিতে সেঁটে আছে কামিজের কাপড়, এবং সুঠাম নিতম্বের দৌল উথলিয়ে উঠেছে আকর্ষক ভঙ্গিতে পোশাক ঠেলে|

“তার মানে এখন তোমার কি কাজ?”
-“বাপ্পি না তুমি না কিছু বোঝো না!” শালিনী মডেলের মতই দৃপ্ত ছলে এগিয়ে আসে পিতার কাছে “আমি এখন আমার ডিপার্টমেন্ট-এ সবথেকে পপুলার! উমমমম!” baba meye choti

শালিনী হেঁটে আসার সময় ওর শরীর থেকে এগিয়ে থাকা পরাণ জ্বালানো স্ফীত বুকের ঔদ্ধত্য গা গরম করে দিচ্ছিল রজতবাবুর, তাই ও তাঁর দু-পায়ের মাঝে কাছে আসা মাত্র তিনি প্রথমেই দু-হাত ওর বুকে তুলে ওর দুর্বিনীত স্তনজোড়া সজোরে মুচড়ে ধরেন কামিজশুদ্ধ “উম, তা তোমার উদ্দেশ্য বুঝি শুধু পপুলার হওয়া?” দুহাতে ধরা শালিনীর উদ্ধত, প্রগলভ স্তনদুটি শক্ত চাপ দিয়ে দিয়ে পিস্টনের মতো মলতে মলতে তিনি সুখ নেন “উম? আর কি-কি ঝামেলায় জরিয়ে পড়বে তা জানা আছে কি?”

-“উমমম” শালিনী মিষ্টি হেসে পিতার হাত ছাড়িয়ে সোফায় ওঁর পাশে ওঁর দিকে ফিরে বসে| ঘনিষ্ঠ হয়ে আসে ওঁর পাশে “আহ, আগে ভাগেই তোমরা ভীষণ উল্তবাল্টা চিন্তা করতে শুরু করো, কে বললো আমি এত ঝামেলায় জড়াব? আমার কমন সেন্স নেই নাকি”
-“উম্ম..” রজতবাবু হেসে কন্যাকে নিজের শরীরের সাথে ঘনিষ্ঠ করে ওর নরম-উন্মুখ স্তনের স্পর্শ নেন নিজের লোমশ বাম-স্কন্ধে “হমম, সে তো আমি জানিই আমার সুন্দরী ফুলটুসির কত কমন সেন্স!” baba meye choti

-“উমমমম..” পিতার কাঁধে স্তনজোড়া পিষ্ট করে ঠোঁট ফুলিয়ে আদুরে হেসে ওঠে শালিনী, তার ডানহাত সুচারু সর্পিলতায় এসে পরে তাঁর শিশ্নদেশে জাঙ্গিয়ার উপরে| সেখানে ওঁর শক্ত পুরুষাঙ্গ মুঠো করে ধরে সেদিকে তাকিয়ে শালিনী বাচ্চা মেয়ের মতো সকৌতুকে হেসে ওঠে অন্য হাতটি নিজের গালে রেখে “ইশশ বাপ্পি, তোমার জাঙ্গীর একি রং চুজ করেছ! হিহি.. এমা!”

-“উম্ম” শক্ত টনটনে পুরুষাঙ্গে মেয়ের নরম উষ্ণ হাতের জাদুস্পর্শে আরামে হেসে উঠে রজতবাবু বলেন “কেন রে?”
-“হিহি, ইস!” জাঙ্গিয়াতে ফুলে ওঠা পিতার ভারী ভারী দুটি অন্ডকোষ নিয়ে খেলা করে শালিনী মিষ্টি হাসি মুখে ফুটিয়ে “কেমন দেখাচ্ছে তো!”
-“তাহলে খুলে ফেল!” baba meye choti

শালিনী মুখ টেপা হাসি নিয়ে পিতার দিকে তাকায়, ওঁর গালে একটা চুমু খেয়ে নিজের নরম হাত দিয়ে সুন্দর ভঙ্গিতে জাঙ্গিয়া নামিয়ে ওঁর শক্ত তাগড়াই পুরুষাঙ্গটি বার করে আনে, তারপর মিষ্টি হেসে টেনে বার করে একটা একটা করে দুটি লোমশ অন্ডকোষ| তারপর অত্যন্ত স্নেহভরা মমতায় সে পিতার যৌনদন্ড ও অন্ডকোষদ্বয় হাতে নিয়ে আদর করতে করতে বলে ‘উম্ম, বাপ্পি তোমার মেয়েকে তুমি ফ্যাশনে সফল হিসেবে দেখতে চাওনা?” সে পিতার পানে চেয়ে চোখের পাতা ঝাপটায়|

“উমমম” যৌনাঙ্গে মেয়ের আদরে গলতে গলতে সিরসিরানি সুখের আনন্দে রজতবাবু বলেন “কেন চাইব না অপ্সরী? শুধু আমি চাই তোমার অমন এই সুন্দর মুখটা যেন কখন আঘাতে কুঁকড়ে না যায়! কেউ যেন ওই অপরূপ চোখদুটোয় দুঃখ না মিশিয়ে দেয়|”
শালিনী পিতার বাক্যবিন্যাসে যারপরনাই আহ্লাদিত হয়ে আদুরেভাবে স্তনদুটি চাপে ওঁর কাঁধে, সুমধুর স্পর্শের ঝর্না তোলে ওঁর যৌনাঙ্গে -“ উম্ম, জানি বাপ্পি, কিন্তু মাকে বোঝানোর দায়িত্ব কিন্তু তোমার!” baba meye choti

-‘হাহা, দুষ্টু!” তিনি হেসে মেয়ের নরম ঠোঁটদুটোয় চুমু খেয়ে বলেন “সে হবে ক্ষণ, কিন্তু তোমার এত বড় খবরের জন্য বাপ্পিকে কোনো treat দেবেনা?”
শালিনী মুখে তেরছা হাসি নিয়ে এবার পিতার দিকে তাকায়, তারপর উঠে পড়ে সোফা থেকে, ইঙ্গিতে তাঁকেও উঠতে বলে|
রজতবাবু উঠলে তাঁর সুন্দরী কন্যা তাঁর খাড়া পুরুষাঙ্গ মুঠো করে ধরে, তারপর চলার উদ্রেক করে পুরুষাঙ্গে টান দিয়ে| রজতবাবু অনুসরণ করেন|
শালিনী পিতাকে পুরুষাঙ্গ ধরে টানতে টানতে নিয়ে আসে তার নিজের ঘরে| তারপর ওঁর দিকে ফিরে মুচকি হাসে|

-“আঃ,.. উম্ম,.. অঅঅউউমমমমহহ” শালিনী পিতার পুরুষাঙ্গটি মুখ থেকে বার করে গরম নিঃশ্বাসে আপদমস্তক পুড়ায় সেটিকে| ওঁর লিঙ্গের হালকা বাদামি ফোলা মস্তকটি তার লালায় ভিজে চকচক করছে| তার মাঝের মসৃন চেরা অংশটির ঠিক মাঝখানে ওঁর গোলাপী মুত্রছিদ্রটি| শালিনী সেখানে তার গোলাপী আর্দ্র উত্তপ্ত জিভ দিয়ে দু-বার চাটে|
-“আঃ, আঃ, ..” সুখে কঁকিয়ে ওঠেন রজতবাবু| baba meye choti

-“উমমমমম…হিহি” শালিনী তার সুন্দর দন্তপঙ্গক্তি বার করে হেসে ওঠে| অন্ডকোষ থেকে শুরু করে ওঁর গোটা খাড়া দন্ডটি চার-পাঁচটি উত্তপ্ত চুম্বন করে বলে “উম্ম, বাপ্পি, আমায় তোমার সুন্দরী মনে হয়?”
-“আহঃ, অবশ্যই! সুন্দরী মানে? তুমি একটি স্বর্গের অপ্সরা! আঃ, কি গরম ওই ঠোঁটদুটো,..আঃ”

-“উম্ম, তা এমন সুন্দরী মেয়ের মুখে তোমার ‘ওটা’ ঢুকতে দেখতে খুব আনন্দ না?” ফাজিল হাসি হেসে শালিনী কথাগুলো বলতে বলতে তার হাসিমাখা মুখে ধীরে ধীরে পিতার পুরুষাঙ্গটি মস্তক থেকে শুরু করে ঢুকিয়ে নিতে থাকে| তারপর নিজের উষ্ণ-আর্দ্র মুখবিবরে খাড়া-তাগড়াই লিঙ্গদন্ডটির অর্ধেকটি ঢুকিয়ে চুষতে চুষতে হাসিমুখে ওঁর পানে চোখে পাতা ঝাপটিয়ে তাকায়| ওর গালদুটি ইশত ফুলে উঠেছে|
-“আহাহা, আহ্হ্ঘ্ঘ .. ঔম্ম” সুখের তাড়নায় সামান্য ছটফটিয়ে ওঠেন রজতবাবু| ডান-পায়ের বুড়ো আঙ্গুল কুঁকড়ে যায় তাঁর… baba meye choti

এই মুহুর্তে শালিনীর খাটের উপর তাকিয়ায় ঠেস দিয়ে আধশোয়া রজতবাবু| তাঁর নিম্নাঙ্গ এখন সম্পুর্ন নগ্ন| তাঁর দু-দিকে ছড়ানো বিশাল দুই লোমশ উরুর ফাঁকে গুটিসুটি মেরে উপুর হয়ে দু-কনুইয়ে ভর দিয়ে আধশোয়া শালিনী| তার হাতদুটি এখন বিশ্রাম নিছে পিতার বিশাল স্ফীত উদরের উপর| তার অপরূপ সুন্দর মুখটি এখন ওঁর উন্মুক্ত, শক্ত খাড়া পুরুষাঙ্গ ও লোমশ অন্ডকোষদুটির সাথে খুনসুটিতে রত|

এই মুহূর্তে বাদামী লিঙ্গদন্ডটির অর্ধেকটাই তার মুখের ভিতর ঢোকানো এবং সেটি সে একটি ফিডিং বোতলে দুধ খাবার মতো সুষম গতিতে চুষছে, যেন দন্ডটি চুষে চুষে কোনো রসপানে রত সে| একগোছা চুল তার মুখের উপর এসে সুন্দরভাবে পরেছে|
-“আঃ, উঃ” আরামে সাগরে অথৈ পাথারে যেন ভাসছেন রজতবাবু| তাঁর যৌনাঙ্গে মেয়ের নিয়মিত শোষনের চাপে সুখে অস্থির হয়ে উঠছেন তিনি…
-“উম্ম্ম্ন্ম..” পিতার পুরুষাঙ্গ শোষণরত অবস্থায় গভীর ধ্বনি করে ওঠে শালিনী, যা তাঁর পুরুষাঙ্গে অনুরনণিত হয়ে সারা শরীরে সুখের হিল্লোল তোলে| baba meye choti

-“উম্ম, আঃ,..” রজতবাবু সুখে গলতে গলতে মেয়ের মাথায় ডান-হাতের তালু দিয়ে চাপ দিয়ে ওর মুখে তাঁর পুরুষাঙ্গটি আরো ঢোকাতে চান| শালিনী বাধ্য মেয়ের মতো পিতার কথা শোনে, মুখ নামিয়ে সে এবার পিতার যৌনদন্ডটি পুরোটাই মুখে ঢোকায়, একেবারে গোড়া অবধী| এর ফলে লিঙ্গটির মাথা তার প্রায় আলজিভ ছুঁইছুঁই করে, ফলে সে একটু কেশে ওঠে, কিন্তু সামলে নেয়| তার চিবুক বসে যায় পিতার অন্ডকোষের মধ্যে, নাকে সুরসুরি দেয় ওঁর শিশ্নকেশসমূহ|

-“হ্ন্ম্ম্ম…অখখ…” এই অবস্থায় শোষণ করতে থাকে শালিনী পিতার পুরুষাঙ্গ| গভীর অদূরে ধ্বনি করে ওঠে মুখভর্তি ঠাসা পিতার শক্ত তপ্ত যৌনাঙ্গ নিয়ে, তার নিঃশাস এবার আলোড়ন তোলে রজতবাবুর শিশ্নকেশের জঙ্গলে|
-“আআঅহ্হ্হ্হ্হ্হ্হাঅ!” ভীষণ আরামে কঁকিয়ে ওঠেন রজতবাবু| তাঁর মেয়ের মুখে তাঁর পুরো পুরুষাঙ্গটিই এখন ঢোকানো| মন দিয়ে পিতাকে সেবা করছে সে| গালদুটো ফুলে উঠেছে ওর| তিনি ওর মাথা থেকে হাত নামিয়ে এবার ওর মুখে এসে পরা চুল সরিয়ে দেন| ওর চোখদুটো দেখেন| baba meye choti

শালিনী নিরবে তাকায় পিতার দিকে, মুখভর্তি দপদপ করছে তার ওঁর লিঙ্গ| “উমমম” মৃদু আওয়াজ করে সে এবার চোয়াল নাড়িয়ে দন্ডটি শোষণ করতে করতে তার বাম হাতটি ওঁর উদর থেকে নামিয়ে ওঁর শিশ্নকেশে আনে, তারপর একটি একটি করে ওঁর শিশ্নকেশে টান দিতে থাকে লিঙ্গ চুষতে চুষতে দুষ্টুমি করে|
-“হাহাহ,, আহ” হেসে সুখের তীব্রতায় নড়ে ওঠেন রজতবাবু| আদুরে মেয়ের মাথায় হাত বুলান| সময় কাটতে থাকে…

“আম্হ্ম্ম,..উম” প্রায় দশ মিনিট ধরে একটানা পিতার পুরুষাঙ্গের সম্পূর্ণটাই মুখে ঢোকানো অবস্থায় সেটিকে নিরন্তর চোষার পর অবশেষে শালিনী সম্পুর্ন লালাস্নাত দন্ডটি মুখ থেকে বার করে, লম্বা শ্বাস টানে| তার লালায় রজতবাবুর লিঙ্গটি আপাঙ্গ ভিজে টসটস করছে| অনেক্ষণ শালিনীর মুখের অভ্যন্তরের উত্তপ্ত, আর্দ্র আদরে থাকার পর হঠাৎ ভিজে লিঙ্গে ঠান্ডা হওয়ার স্পর্শ পেয়ে শিহরিয়ে ওঠেন রজতবাবু| baba meye choti

-“উম্ম ,..উম উম” পিতার ভিজে লিঙ্গটি বাম হাতে ধরে আপাঙ্গ ঘন ঘন চুম্বন করে শালিনী, দন্ডটিতে ঠোঁট চেপে চাপ দিয়ে যেন বাঁকাবার চেষ্টা করে,.. পিতার শক্ত, খাড়া মাংসল দন্ডটি নিয়ে কি যে তার খুনসুটি! দুষ্টুমি করে হাসছে সে মিচকি মিচকি খয়েরী রঙা ভোঁতা অস্ত্রটিতে চুমু খেতে খেতে| দুটি অন্ডকোষ সহ পিতার পুরুষাঙ্গের প্রতিটি অংশ চুমু খেতে খেতে উত্তপ্ত করছে সে,.. দন্ডটি বাম হাতে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে উল্টে-পাল্টে ঠোঁট চেপে চেপে চুমু খাচ্ছে| লিঙ্গের শিরা-স্ফীত গাত্র, মস্তক, মুত্রছিদ্র, কোনো অংশটিই সে বাদ দিছে না| তার ঘন ঘন চুম্বনের মিষ্টি শব্দে ভরে উঠেছে ঘর|

-‘উম্ম,.. হাহা|” দুহিতার চুমায় চুমায় হয়রান পুলকিত সমগ্র যৌনাঙ্গ নিয়ে আরামে হেসে ওঠেন রজতবাবু| তিনি ভেবে পান না জীবনে কি করেছেন তিনি| এত সুখ তাঁর প্রাপ্য ছিল!

-‘উম্ম” কিছুক্ষণ পর চুমার বর্ষণ থামিয়ে শালিনী বাচ্চা মেয়ের মতো হেসে হেসে পিতার লিঙ্গখানি চাপর মেরে মেরে খেলা করে| ওঁর পেটের উপর চাপ দিয়ে দন্ডটি উল্টে ধরে তারপর চট করে ছেরে দিয়ে লিঙ্গটির লাফিয়ে উঠে দোদুল-দুল আন্দোলন দেখে হাসে সে| তারপর বাঁহাত দিয়ে দন্ডটি একপাশে কাত করে সেটির গোড়ায় মুখ ডুবিয়ে দিয়ে কুটকুট করে দাঁতে কাটতে থাকে সেখানকার চামড়া, খুনসুটি করে|
-“.. দুষ্টু! কি করছিস!” baba meye choti

-“হিহিহি, উমমমম !” শালিনী হেসে উঠে মুখ তুলে পিতার লিঙ্গের মাথায় চুমু খায়, তারপর ঠোঁট নামিয়ে ওঁর একেকটি লোমশ অন্ডকোষ মুখে পুরে এমন ভাবে চোষে যেন সে দুটি কোনো লোভনীয় লজেন্স..
-“আঃ..” রজতবাবু বুঝতে পারছেন না আর কতক্ষণ মেয়ের খুনসুটির সাথে তিনি পাল্লা রজত,..

-‘অম,.. উম্ম!” অন্ডকোষ থেকে পিতার লিঙ্গগাত্র বেয়ে গোলাপী জিভ দিয়ে চাটতে চাটতে উঠে এসে শালিনী এবার ওঁর স্ফীত লিঙ্গ-মস্তকটি মুখে নিয়ে চুক-চুক করে চোষে কিছুক্ষণ দুষ্টুমি ভরা হাসি মুখে নিয়ে-
-“আঃ” স্পর্শকাতর লিঙ্গ-মস্তকে দুহিতার এহেন শোষনে কঁকিয়ে ওঠেন সাংঘাতিক সুখে রজতবাবু| এতক্ষণ ধরে রাখা সংযম কথায় উধাও হয়ে যায় তাঁর, দাঁতে দাঁত চেপেও তিনি সামলাতে পারেন না নিজেকে, অসহায় শব্দ করে বালিশ মুঠো করেন… baba meye choti

-‘উম্ম’ বাঁহাতে লিঙ্গটি ধরে শালিনী সেটির মস্তকে শোষণ থামিয়ে সবেমাত্র সেটির মুত্রছিদ্র বরাবর নিজের নরম ঠোঁটদুটি ঘসে আদর করছিল| হঠাতই তার ঠোঁটের উপর সাদা ঘন বীর্যের ফোয়ারা নির্গত হতে শুরু করলে সে চমকে হেসে ওঠে, “একই বাপ্পি! নাআআ…!” সে মুত্র ছিদ্রটিতে ঠোঁট চেপে কামক্ষরণ বন্ধ করার চেষ্টা করে পিতার, কিন্তু তার হাতের মধ্যে পুরুষাঙ্গটি মুচড়ে উঠে তার ঠোঁটের উপর আবার উগরে দেয় একগাদা সাদা থকথকে তরল, যা তার চিবুক বেয়ে গড়িয়ে পরে|

-“ ইশশ বাপ্পি তুমি না, একটুও ধরে রাখতে পারো না, করে ফেল খালি!” পিতার কামক্ষরণকে গুরুত্ব না দিয়ে শালিনী আগের মতই ওঁর দন্ডটি হাতে চাপতে চাপতে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে চুম্বন করতে থাকে নিজের মতো করে, পার্থক্য এই যে এখন ওর হাতে ধরা চুম্বনরত লিঙ্গটির মস্তকের ছিদ্র দিয়ে দমকে দমকে হরহর করে সাদা, ঘন ও উত্তপ্ত বীর্য বেরিয়ে এসে গড়িয়ে পরে ওর হাত, ঠোঁট ভিজিয়ে দিছে এবং তাদের কিছু অংশ রজতবাবুর শিশ্নকেশে এসে ছোট ছোট সাদা দলায় জমা হচ্ছে| baba meye choti

রজতবাবু অসহায়, নিরুপায় ভাবে কামক্ষরণ করে যাচ্ছেন মেয়ের হাতে-মুখে, তাঁর বীর্যমোচন যেন আর শেষই হতে চাইছে না,… তাকিয়ে দেখছেন তিনি তাঁর কন্যার আদর খুনসুটি করতে থাকা দন্ডটির সমানে কাম উন্মোচন করে যাওয়া| তাঁর খয়েরী দন্ডটি এখন বীর্যে মাখামাখি হয়ে উঠেছে, শালিনীর ঠোঁট, গাল হাতে মাখামাখি বীর্য| তবুও ভিসুভিয়াসের মতো পুরুষাঙ্গটি উগরে চলেছে সাদা ঘন পদার্থ,.. প্রচন্ড সুখের মধ্যেও বিপন্ন লাগছে রজতবাবুর নিজেকে, এভাবে পরিকল্পনাহীনভাবে, অসহায়ভাবে কামক্ষরণ হয়ে যেতে থাকায়|

অনেকটি ছোট ছেলের নিদ্রাকালীন মুত্র ত্যাগ করে সকালে উঠে তা আবিষ্কার করে যা অনুভূতি হয়, ঠিক সেরকম|
-“উম্ম,.. বাপ্পি,” পিতার কামক্ষরণ শেষ হলে শালিনী নিজের ঠোঁট চেটে পরিস্কার করে ওঁর মুত্র-ছিদ্রে জমে থাকা বীর্যটুকু চেটে নিয়ে বলে “খবরদার তুমি এখন নরম হবে না! উম্ম !” সে কামক্ষরণে শ্রান্ত পিতার অর্ধশক্ত দন্ডটি মুখে পুরে নিয়ে চুষে, জিভ নাড়িয়ে খেলতে থাকে| baba meye choti

-“আহ্হ্ঘ্ঘ..” সদ্য বীর্যমোচন সত্ত্বেও প্রায় দশ মিনিট পর শালিনীর মুখের মধ্যে ওর একটানা সুনিপুন পরিচর্যায় আবার লৌহশক্ত আকার ধারণ করে রজতবাবুর পুরুষাঙ্গ| টনটন করে তাঁর লিঙ্গ, উত্তেজনায় চোখ বোজেন তিনি|

-“অম্ম..” মুখ থেকে পিতার আবার সম্পুর্ন খাড়া এবং শক্ত হয়ে ওঠা লিঙ্গটি বার করে শালিনী এবার তার ওরনাটা খুলে এনে পিতার লিঙ্গ, শিশ্নকেশ, নিজের হাত, মুখ সমস্ত মুছে বীর্য এবং লালামুক্ত করে একেবারে শুকনো করে পরিস্কার করে ফেলে সব| তারপর ডানহাতে মুঠো করে ধরে পিতার এখন-শক্ত সম্পুর্ন জাগ্রত খাড়া পুরুষদন্ডটি| বিজয়িনীর হাসি হেসে তাকায় ওঁর পানে|

-“উফ, দেখাচ্ছি তোমায়!” রজতবাবু এবার উঠে বসে শালিনীকে ধরে জোর করে বিছানায় টেনে চিত্ করে শুইয়ে দেন, তারপর নিজে নগ্ন লিঙ্গ ওর উপর উঠে আসেন| ওর বুকের উপর উঠে এসে ওর দুই কাঁধের দুপাশে দুই হাঁটুতে ভর দিয়ে বসেন ওর নরম স্তনের উপর নিতম্বের কিছুটা ভর রেখে …
-“বাপ্পী, ওহ..” হেসে উঠে শালিনী “কি করছো!” তার মুখের উপর এসে পরে পিতার বাদামি পুরুষাঙ্গ… baba meye choti

-‘উম্ম” নিজের শক্ত শিরা ফুলে ওঠা লিঙ্গদন্ডটি রজতবাবু এবার তাঁর সুন্দরী দুহিতার ঠোঁটদুটির মধ্যে প্রবেশ করিয়ে ওর উত্তপ্ত-আর্দ্র মুখের ভেতরে অনেকখানি সোজা ঢুকিয়ে দেন|
-“অমম্ম!” পুরুষাঙ্গ মুখে ঢোকানো অবস্থায় উপরে পিতার পানে চেয়ে গুমরে ওঠে…
-“উম, এখন কেমন জব্দ রূপসী? উম” আরাম করে নড়েচড়ে বসেন রজতবাবু শালিনীর নরম-গরম স্তনযুগলের উপরে, দুহাত ওর মাথার দুপাশে রেখে আদর করেন ওর মুখে লিঙ্গ ঢুকিয়ে রেখে|

-“মহম্ম, অম্মঃ” শালিনী পিতার তাগড়াই শক্ত পুরুষাঙ্গ মুখে নিয়ে কথা বলতে পারেনা,… তার চিবুকে লোমশ অন্ডকোষদ্বয় ঠোকা খাচ্ছে| চোখে দুষ্টুমির ঝিলিক দিয়ে সে এবার দুহাত উঁচিয়ে নিজের বুকের উপর পিতার নগ্ন লোমশ নিতম্বে আঁচড় কাটে|

-“হুহু.. “ ওর নরম আদরে আরাম বোধ করেন রজতবাবু| আস্তে আস্তে তিনি ওর মুখের ভিতর লিঙ্গচালনা শুরু করেন নিতম্ব নাড়িয়ে নাড়িয়ে| শালিনীর লাল দুটি গোল হয়ে থাকা ঠোঁটের মধ্যে দিয়ে কালচে খয়রী, মোটা ও শক্ত রজতবাবুর লিঙ্গটি মসৃন গতিতে ঢুকতে-বেরোতে থাকে| যেন ওর মুখ মৈথুন করছেন তিনি| নিতম্ব নারাবার সময় নরম স্তনদুটি ডলা খাচ্ছে তাঁর নিচে| baba meye choti

-“উন্মহঃ..হমম..” শালিনী এ অবস্থায় সত্যিই জব্দ বোধ করে নিজেকে| তার বিশেষ নড়াচড়ার উপায় নেই,… মুখের মধ্যে পিতাকে লিঙ্গচালনা করতে দিয়ে ঘাড়টা সামান্য নাড়াতে পারছে সে| আপাতত তার মুখটি পিতা মৈথুনের জন্য ব্যবহার করছেন| “উহ্ম্ম্ম্ম…” সে মুখভর্তি ঠাসা, মন্থনরত তাঁর শক্ত মাংসল দন্ড নিয়ে গুমরিয়ে উঠে নিজের অসহায়তার কথা জানায় ওঁর পানে করুন চোখে চেয়ে…

-“উম, উর্বশী, লক্ষ্মী মেয়ের মতো শুয়ে থাকো..” রজতবাবু আরামে হাসতে হাসতে বলেন| দেখেন কিভাবে তাঁর শক্তিশালী পুরুষাঙ্গ ওর লাল গোল হয়ে থাকা ঠোঁটদুটির মধ্যে দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় ওর লালায় চকচক করছে ভিজে…. আবার ঢোকার সময় ওই আর্দ্র, উত্তপ্ত, নরম-তুলতুলে মুখবিবর ও মসৃন সর্পিল উত্তপ্ত জিহ্বার অসহনীয় আরামদায়ক আদর,.. “আহ্হ্ছঃ” তাঁর চোখ মুদে আসে সুখের আতিশয্যে| baba meye choti

-“অহ্নম,,” শালিনী উত্তপ্ত শ্বাস ফেলে চোখের পাতা নামায়| নিরবে পিতাকে তার মুখকে মন্থন করে মৈথুন করতে দেয়| মুখের ভেতর লিঙ্গটি অনেকটা ঢুকে আসার সময় সে প্রতিবার চুষে, জিভের আদরে সেটিকে ভরিয়ে দিতে থাকে ওঁর যৌনসঙ্গমের সুখ বারবার জন্য| এই মুহুর্তে তার নিজের মুখটিকে যোনি মনে হয়| যোনির পেশী যেভাবে দলন করে প্রবিষ্ট পুরুষাঙ্গকে, সেভাবে সে চোয়ালের চাপে পিতাকে আরাম দিতে চেষ্টা করে স্বতঃস্ফুর্তভাবেই| আদুরে মেয়ের মতো ওঁর নিচে সামান্য কাতরিয়ে ওঠে|

-“উমমম, আহঃ, লক্ষ্মীটি ,… সোনামনি..” মেয়ের মুখমৈথুন করতে করতে আরামে ফোঁস-ফোঁস করে শ্বাস ফেলতে থাকেন রজতবাবু| সময় কাটতে থাকে,..

প্রায় দশ-মিনিট পর হঠাত শালিনীর পাশে সেলফোনটা বেজে ওঠে| বাজতেই থাকে…
-“অমমু!” শালিনী লিঙ্গঠাসা মুখ নিয়ে পিতার পানে চেয়ে চোখ ঝাপটায়, ইঙ্গিত করে চোখের মণি ঘুরিয়ে|
-‘হাহা,,.. সুন্দরী!” রজতবাবু হেসে লিঙ্গচালনা করে যান ওর অপরূপ মুখশ্রী ও মিষ্টি ভঙ্গি দেখতে দেখতে, তিনি ওর তীক্ষ্ণ নাকটি টিপে দেন, মাথায় হাত বুলান| কিন্তু ওর মুখ থেকে লিঙ্গ বার করার কোনো লক্ষণ দেখান না| baba meye choti

-“উম্মুম!” শালিনী মুখভর্তি পিতার যৌনাঙ্গ নিয়ে উষ্মা দেখায়| ফোনটি বাজতে বাজতে বন্ধ হয়ে যায়|
-‘উম্ম” প্রসন্নচিত্তে শালিনীর মুখের সাথে যৌনসঙ্গম চালিয়ে যান রজতবাবু|

-“উম্মঃ” শালিনী এবার মুখমন্থীতা হতে হতে অসহায় বোধ করে| পিস্টনের মতো একইভাবে তার মুখের ভেতর পিতার শক্ত তাগড়া পুরুষাঙ্গ ঢুকছে-বেরোচ্ছে, সে মুখটা একটু বাঁপাশে সরিয়ে ঘরির সময় দেখতে গেলে তার ডান-গাল ফুলিয়ে ফুলিয়ে উঠতে থাকে মৈথুনরত লিঙ্গখানা| সে মুখ ফিরিয়ে আবার মুখের মধ্যে চালনারত পিতার দন্ডটি সামলিয়ে নেয়| চুষে আরাম দেয়|

আরো কিছুক্ষণ বাদে আবার সেলফোনটি বেজে ওঠে| শালিনী এবার অনেককষ্টে পিতার তলা থেকে নিজের দু-হাত বার করে এনে ফোনটা তুলে আনে, “ঔন্গ্ম্ম্ম্ম..” মুখভর্তি পুরুষাঙ্গ নিয়ে গুঙিয়ে উঠে সে| মুখের ভেতর থেকে সেটি বার করে আনে “বাপি, মা ফোন করছে !”
-“আঃ’ কঁকিয়ে ওঠেন রজতবাবু দীর্ঘক্ষণ মেয়ের মুখের নরম-গরম আদরে থাকার পর হঠাতই তাঁর স্পর্শকাতর সিক্ত যৌনাঙ্গতে ঠান্ডা হাওয়া লাগতে, “ধর” তিনি অগত্যা বলেন| baba meye choti

-“উমমম, “ শালিনী মুচকি হেসে সেলফোনটা ডানকানে ধরে কথা বলতে বলতে বাঁহাতে পিতার সিক্ত পুরুষাঙ্গটি নিয়ে চুমু খেয়ে, চেটে, অল্প চুষে চুষে সেটিকে আদর করতে থাকে| অন্ডকোষগুলি নিয়ে খেলা করে| নিজের নরম সুন্দর মুখের উপর চাপতে থাকে পুরুষাঙ্গখানি|
-“উম্মঃ” মেয়ের এমন আদরে সোহাগে আর থাকতে না পেরে রজতবাবু কথা বলা কালীনই ওর মুখে ঢোকাতে চান পুরুষাঙ্গ…
-‘ঔহ্ম্ম” শালিনী চোখ কটমটিয়ে তাকায় পিতার দিকে, কিন্তু তিনি ওর মুখ থেকে লিঙ্গ সরাতে চান না কিছুতেই… আলতো করে করে মুখমৈথুন করতে থাকেন ওর|

-“মহ..” বাধ্য হয়ে মুখে পিতার চলনরত পুরুষাঙ্গ নিয়েই শালিনী আধোঃস্বরে মায়ের সাথে কথা বলতে থাকে তাঁকে খেতে খেতে কথা বলার বাহানা দিয়ে…
খুবই আনন্দ পান শালিনী কথা বলাকালীন ওর মুখটি ব্যবহার করতে রজতবাবু, ওর চপল জিভের ছোঁয়া, তাঁর দন্ডের চারপাশে কথা বলার সময় ওর ঠোঁটের ভঙ্গী ও মুখের ভাপের স্পর্শ,.. খুবই পুলকদায়ক| baba meye choti

শালিনীর কথা বলা শেষ হলে রজতবাবু জোর করে ওর মুখে প্রায় পুরোটাই তাঁর পুরুষাঙ্গ ঢুকিয়ে দেন, ,…
-“উন্গ্ম্ম্ম্ম!” শালিনী প্রতিবাদ করে ওঁর থাইয়ে চাপর মারে কিন্তু কোনো লাভ হয়না| নিবিড়ভাবে ওর মুখ-মৈথুন করতে শুরু করেন তিনি নিতম্ব আন্দোলিত করে করে|

-“ঔম্হঃ…” শালিনী মুখের মধ্যে পুরুষাঙ্গের দলনে কঁকিয়ে ওঠে, কিন্তু অভ্যস্ত নমনীয়তায় মানিয়ে নেবার চেষ্টা করে পিতার আক্রমন,.. কাতরিয়ে ওঠে সে যদিও একটু ওঁর শরীরের নিচে| লিঙ্গমুখে ওর অস্ফুট উত্তপ্ত গুমরে ওঠার শব্দে ভরতে থাকে ঘর|

-“আঃ,… অঃ” উত্তেজনায় জোরে জোরে মন্থন করছেন এখন রজতবাবু শালিনীর মুখ, তাঁর মন্থনের তারনায় ওর গাল ফুলে উঠছে, চিবুকে তাঁর অন্ডকোষদ্বয়ের ধাক্কায় ধাক্কায় মৃদু থপথপ শব্দ হচ্ছে| তিনি নিজেকে আর ধরে রাখতে পারছেন না, নরম দুটি স্তন দলিত-মথিত হচ্ছে তাঁর নিতম্বের তলায়… উত্তেজনায় তিনি মন্থন করতে করতে দুহাতে শালিনীর মাথার দুপাশে বিছানায় ভর দেন| baba meye choti

-“অগ্ল্ম্গ্গ..” শালিনী গুঙিয়ে ওঠে গলার কাছাকাছি পিতার লিঙ্গ পৌছে যাওয়ায়, অভ্যস্ত পন্থায় সামলাতে গিয়েও সে লিঙ্গঠাসা মুখে কেশে ওঠে,…. আত্মরখ্হ্মার্থেই যেন সে বাঁহাত উঠিয়ে পিতার লিঙ্গটির গোড়া চেপে ধরে গোল করে দু-আঙ্গুলে| তার বড় বড় চোখদুটি পিতার দিকে নিবদ্ধ|
-“আঃ, আহ্হ্গঃ…” ওর চোখের দিকে তাকিয়ে মন্থন করে যান রজতবাবু, তাঁর কপালে ঘাম ফুটে উঠেছে,… অবশেষে গুঙিয়ে ওঠেন তিনি শালিনীর মুখের গভীরে লিঙ্গ চেপে … কামক্ষরণ করতে শুরু করেন বাঁধনহীনভাবে|

-“অল্ল্গ.. গল্গ্গ” মুখের মধ্যে উত্তপ্ত বীর্যের লাভা উদগিরণ সামলাতে গিয়ে গুঙিয়ে ওঠে শালিনী, সোজাসুজি কিছু দলা তার গলায় পৌঁছালে সে ঘরঘর করে গার্গল করে ওঠে, তবে অভ্যস্ত খিপ্রতায় গিলে গিলে নিতে থাকে পিতার ঘন বীর্য| তার মুখের ভিতর ঠেসে ধরেন পিতা আবার লিঙ্গখানি এবং হরহর করে আরো দলায় দলায় উদগীরণ করেন বীর্য… baba meye choti

-“ওখ্ল্গ..” মুখে দলনরত পুরুষাঙ্গ সামলাতে সামলাতে বীর্যের জোয়ারে গলার কাছটা সামলিয়ে গিলতে গিয়ে না পেরে এবার কেশে ওঠে শালিনী, এবং তার ঠোঁটের বাঁ-পাশের কষ দিয়ে একটি সাদা বীর্যের স্রোত নির্গত হয়ে গড়িয়ে পড়ে…
শালিনীর মুখের ভেতর সম্পুর্ন নিজের নিয়ন্ত্রণে (অথবা নিয়ন্ত্রণহীনতায় ) বীর্যমোচন করতে করতে ওর কষ দিয়ে স্রোত গড়িয়ে পড়তে দেখে ওর হিমসিম অবস্থাটা বুঝতে পেরে গর্বে হেসে ওঠেন রজতবাবু, আবার ওর মুখের গভীরে লিঙ্গ ঠেসে উগরে দেন দলা দলা বীর্য….

-“অউন্ক্ত্ত্ত..” ঢোক গেলে শালিনী কোনমতে পিতার অনেকখানি জমা বীর্য গলার ভেতরে পাঠিয়ে দিয়ে, সঙ্গে সঙ্গে আলজিভের কাছে আরও একগাদা উত্তপ্ত বীর্য ভরে উঠলে সে গুঙিয়ে ওঠে ,… তার কণ্ঠনালীর পেশীগুলি যেন বিদ্রোহ করে মুচড়ে ওঠে … কোনমতে সে মুখে চেপে ধরা দন্ডটি সামলিয়ে ঢোঁক গিলে খায় সেই বীর্যগুলি| সে অবাক হয় দ্বিতীয়বার কামক্ষরণেও এত তেজ কি করে হয় পিতার|
-“আঃ..” তীব্র কামক্ষরণে তৃপ্ত রজতবাবু এবার বিশাল বড় শ্বাস ছারেন… baba meye choti

-“অম্ম্মঃ” কোনমতে মুখের মধ্যে নরম হতে থাকা পিতার পুরুষাঙ্গটি বার করে আনে শালিনী… চোখ বোজে| হাঁপাচ্ছে সে…
হাঁপাচ্ছেন রজতবাবুও, মুগ্ধ চোখে দেখছেন মেয়েকে, ওর ঠোঁটদুটি ইশত ফাঁক হয়ে আছে, যেন আরো লাল হয়ে উঠেছে সেজোড়া| কষ বেয়ে গড়িয়ে পরছে সাদা বীর্যের স্রোত|দিকে ওর বাঁ-হাতে ধরে রাখা তাঁর বীর্যে ও লালায় মাখামাখি অর্ধশক্ত পুরুষাঙ্গটি| দেখছেন কিভাবে ওর গলার কাছে কামিজের বাইরে দুধসাদা নরম স্তনদুটি অনেকখানি দুটি সাদা বলের মতো উঠলে উঠেছে তাঁর বসার চাপে|

-“অহ্ম্ম” শ্বাস স্বাভাবিক হলে শালিনী তার মুখে অরুনিমা ফুটিয়ে হেসে ওঠে, তাকায় বড় বড় চোখদুটি মেলে পিতার পানে আদুরে মেয়ের মতো| তারপর আবার মুখে নেই পিতার দন্ডটি| চুষে চুষে চেটে নিয়ে খেতে থাকে বীর্যের ক্ষয়ক্ষতিগুলি| ওঁর ফোলা লিঙ্গমস্তকটি চুষে চুষে বীর্যমুক্ত করতে করতে সে এবার আদুরে স্বরে বলে ওঠে
-“উম্ম, বাপ্পী, আমি একটা রাক্ষসী!” baba meye choti

-“যাঃ!” দুহিতার এহেন উক্তিতে প্রতিবাদ করে ওঠেন রজতবাবু|
-“হিহি..” ওঁর নরমতর মূষিকের ন্যায় পুরুষাঙ্গটি চাটতে চাটতে সুন্দর সাজানো দাঁত মেলে হেসে ওঠে শালিনী, “উম্ম, বলত কত সহস্র ভাইবোন চেটেপুটে খেয়ে নিচ্ছি আমি এই মুহুর্তে?”
-“হাহা.. উম্ম’ তিনি আদর করেন মেয়ের মাথায় হাত বুলিয়ে| লোমশ অন্ডকোষদুটি ঘনভাবে চেপে ধরেন ওর চিবুকে ..

“উম্ম, হিহি..” আদুরেপনায় হেসে ওঠে শালিনী, পিতার নরম হয়ে আসা পুরুষাঙ্গটি কিছুক্ষণ লজেন্সের মতো চোষে দুষ্টু হাসতে হাসতে..
-“উম” আরো কিছুক্ষণ মেয়ের সুন্দর মুখের উপর যৌনাঙ্গ দলাদলি করে খুনসুটি করেন রজতবাবু, বড় সুন্দর লাগছিলো তাঁর ওর নরম ফর্সা নাক-মুখের উপর নরমতর নিজের গা**ড় খয়রী অঙ্গটি ঘষাঘষি করতে, খুনসুটি করতে..
তারপর তিনি উঠে আসেন অবশেষে ওর শরীরের উপর থেকে| baba meye choti

শালিনী সঙ্গে সঙ্গে উঠে পড়ে পিতার মুখোমুখি এসে ওনাকে জরিয়ে ধরে বসে “উম্ম, বাপ্পী, তুমি একশো পার্সেন্ট হ্যাপি তো আমার মডেলিং নিয়ে?”
-‘হুম” হাসেন রজতবাবু| শালিনীর কষ বেয়ে এখনো গড়িয়ে পরছে মোটা বীর্যের স্রোতটি… তিনি সেদিকে ওর দৃষ্টি আকর্ষণ না করিয়েই ওর মাথায় হাত বুলিয়ে বলেন “আমি গর্বীত”

-“উমমম” শালিনী ঘন চুম্বন করে পিতার খরখড়ে গালে নিজের নরম ঠোঁটদুটি চেপে…’থাঙ্ক্যু বাপ্পী!!” তারপর আদুরে অছিলায় বুকটা একটু টানটান করে কামিজে সমুন্নত স্তনযুগল প্রকট করে তুলে তেরছা হেসে তাকায় পিতার দিকে “মা-কে রাজি করবে তো?”
-“হাহা, সে দেখা যাবে ক্ষণ!” হেসে ওঠেন রজতবাবু|

1 thought on “baba meye choti পিতার রাজকন্যা – 4”

Leave a Comment