best golpo মায়া – আমরা সবাই বাঁধা যেখানে – 7 by nextpage

bangla best golpo choti. জানালার ফাঁক গলে সূর্যের রশ্মি পড়ছে নিলয়ের মুখে। ঘুম ভেঙে যায় ওর, সামনে তাকাতেই বিছানায় ছোট্ট বাচ্চার মত গুটিসুটি দিয়ে ঘুমাতে থাকা তথাকে চোখে পড়ে। গত দুদিনের জ্বরে মেয়েটা যেন শুকিয়ে গেছে। চোখের নিচে কালো আস্তরণ পড়তে শুরু করেছে। ঘুমের মাঝে কত শান্ত, নির্মল, পবিত্র দেবশিশুর মত লাগছে ওকে। পরদির জ্বর না কমাতে ভয় পেয়ে গিয়েছিল নিলয়। দোলন কে ফোন করেছিল, ভেবেছিল দোলন এখানে আসলে হয়তো তথাকে দেখাশোনা টা করতে পারবে। কিন্তু দোলন আগের দিনই হঠাৎ দাদুর বাড়ি চলে গেছে কয়েকদিনের জন্য।

[সমস্ত পর্ব
মায়া – আমরা সবাই বাঁধা যেখানে – 6 by nextpage]

এই দু দিনে যেন ঝড় বয়ে গেছে নিলয়ের উপর দিয়ে। চেয়ার ছেড়ে বিছানার দিকে এগিয়ে যায়, কপালে হাত দিয়ে জ্বর টা কমেছে কিনা দেখার জন্য হাত বাড়ায়। হাত টা কপালে ছোঁয়াতে যাবে তখনি হালকা চোখ মেলে তাকায় তথা।
হকচকিয়ে হাত সরিয়ে নেয় নিলয়।
-জ্বরটা কমেছে কিনা সেটা দেখার জন্যই আর কি, তুমি অন্য কিছু ভেব না আবার। আমি কিন্তু ঐ জ্বর টা দেখার জন্যই।

best golpo

দুয়েকবার চোখের পাতি ফেলা ছাড়া আর কিছুই বলে না। একটু উঠে বসার চেষ্টা করে। পাশেই স্যালাইনের খালি বোতল ঝুলতে দেখে। বিছানার পাশে হেলান দিয়ে বসতে গিয়ে তথা খেয়াল করে ওর গায়ে যে জামাটা আছে সেটা সেদিনের রাতে যেই জামাটা পড়েছিল সেটা না। জামাটাতে আরেকবার চোখ বুলিয়ে বড় বড় চোখ করে সামনের দিকে তাকাতেই হকচকিয়ে যায় নিলয়। নিলয় বুঝতে পারে তথা কি বলতে পারে, তার আগেই ও বলতে শুরু করে

-তুমি যা ভাবচ্ছো একেবারেই তেমন কিছু হয়নি৷ আমি সত্যি বলছি, মা কালীর দিব্যি। আমি তোমার জামা কাপড় চেঞ্জ করিনি, আর চেঞ্জ করবো কি আমি তো তোমাকে হাতে স্পর্শই করিনি। ঐ একটু কপালে হাত দিয়ে জ্বরটা দেখেছি আর কি, এছাড়া আর কিছু না। তুমি বিশ্বাস করো, না হলে রান্নার খালা আসলে তাকে জিজ্ঞেস করো। খালাই তোমার জামা কাপড় চেঞ্জ করে দিসে। ঐ ডাক্তার কাকা বলেছিল তাই।

চোখ বন্ধ করে বসে থাকে তথা, কোন কথা বলে না।
-তুমি কি আমার কথা বিশ্বাস করছো না? তুমি খালা কে জিজ্ঞেস করো, গত দুদিন খালা তো ছিল। সে তো মিথ্যে বলবে না।
-(চোখ খুলে ঠান্ডা গলায়) বিশ্বাস করেছি, এত সাফাই গাইতে হবে না।
-যাক বাবা, আমি তো ভয়েই মরে যাচ্ছিলাম। তুমি না আবার আমাকে কি না কি ভেবে বস। এখন একটু দেখি জ্বর টা আছে কি না। best golpo

-(মাথা নাড়িয়ে সায় দেয়)
হাতটা কপালে ঠেকিয়ে দেখে না এখন আর জ্বর টা নেই। চোখের লাল ভাবটাও কমে এসেছে।
-না এখন আর জ্বর নেই। গত দুদিনে যা অবস্থা টা হয়েছিল। এমন করে কেউ জ্বর বাধায়? যা ভয় টা দেখিয়েছ৷।
-(গলার স্বর নিচু করে) আর এমন হবে না।

-হুম। এখন চুপটি করে বসো আমি তোমার জন্য একটু স্যুপ বানিয়ে নিয়ে আসি। এখন থেকে ঠিকমত খাওয়া দাওয়া করতে হবে, উহু এটা আমার কথা না ডাক্তার কাকা বলে দিয়েছে।
-(শুকনো ঠোঁটে হাসি আনার চেষ্টা করে) জানি।
স্যুপ টা নিয়ে ঘরে ঢোকার সময় খেয়াল করে তথা  চোখ বন্ধ করে হেলান দিয়ে বসে কিছু ভাবছে। নিলয় সামনে গিয়ে চেয়ার টেনে বিছানার কাছে নিয়ে বসে পড়ে। best golpo

চেয়ার টানার শব্দে চোখ খুলে তাকায় তথা৷ নিলয় ওর দিকে স্যুপের বাটি এগিয়ে দিয়ে খেয়ে নিতে বলে। তথা হাত বাড়াতে গিয়ে ডান হাতে ব্যাথা অনুভব করে। স্যালাইনের ক্যানুলা টা এখনো লাগানো আছে, ওটার জন্যই হয়তো ব্যাথ্যা করছে। সেটা বুঝতে পারে নিলয়
-থাক, তুমি সোজা হয়ে বসো। আজ না হয় আমি খাইয়ে দিচ্ছি।
-না না আমি খেয়ে নিতে পারবো।

-একদম চুপ করে বসো। যা বলছি সেটা শুনে চলো। এতদিন তো নিজের ইচ্ছে মতই কাটিয়েছ। শরীর দুর্বল আছে তুমি নিজে পারবে না।
-(সেদিনের নিলয়ের রুদ্র রূপ দেখার পর আর কথা বারাবার সাহস পায় না)
-(খাইয়ে দিতে দিতে) ওদিন কার জন্য আমাকে ক্ষমা করে দিও, আসলে নিজের কাজ নিয়ে মাথা টা গরম ছিল। আবার তোমার এমন টিউটোরিয়াল  রেজাল্ট খারাপ দেখে মেজাজ টা ঠিক রাখতে পারি নি। ওভাবে আমি বলতে চাই নি, কিন্তু বলে ফেলেছি। তুমি আমার উপর রাগ করে থেক না। best golpo

-(মাথা নিচু করে) না না আমি কিছু মনে করিনি। যা বলেছো সেটা তো আমার ভালর জন্যই। আমিই ভুল করেছি।
-সামনেই ফাইনাল এক্সাম। এখন ঐসব নিয়ে একদম চিন্তা ভাবনা করবে না। মন দিয়ে পড়াশোনা করে ভাল রেজাল্ট করো তারপর ভেবে দেখা যাবে।
-(ক্লান্ত স্বরে)ঠিক আছে, তুমি যা বলবে সেভাবেই চলবো।

-হুম। আজ রেষ্ট নাও কাল থেকে আবার রেগুলার কলেজ টিউশন শুরু করো, ভাল করে পড়াশোনা করে ভাল রেজাল্ট করতে হবে তো। ঠিক আছে, বাকি সব চিন্তা আপাতত বাদ।

‌—★★★—
জ্বর সেরে উঠেছে দুদিন হলো কিন্তু তথা না যাচ্ছে কলেজে না যাচ্ছে টিউশন গুলোতে। সারাদিন কেমন জানি চুপচাপ ঘরে বসে থাকে। কি যেন ভেবে চলে সবসময়৷ নিলয়ের মনেও চিন্তার জন্ম নিয়েছে তথা কে নিয়ে৷ কি হলো মেয়েটার সেটা জানতে হবে। ও কিছু একটা নিয়ে সমস্যায় পড়েছে হয়তো। যাই হোক না কেন, সেটা নিয়ে কথা বলতে হবে ওর সাথে। আজ কাজ থেকে একটু আগেভাগে ফিরে আসার প্ল্যান করতে করতে ঘর থেকে বের হয়ে যায় নিলয়।
বিকেলের মাঝে কাজ শেষ করে বাসায় চলে আসে নিলয়। নিজের রুমে যাবার আগে তথার রুমে ঢুঁ মারে। তথা টেবিলে বসে খাতায় আঁকিবুঁকি কাটছে। best golpo

-জামা কাপড় চেঞ্জ করে নাও একটু বের হবো।

-এখন? আমার ভাল লাগছে না। আমি যাবো না।

-তোমাকে নিয়ে যাবো বলেই বের হচ্ছি, তোমাকে তো যেতেই হবে। বেশি কথা না বলে রেডি হয়ে নাও।

-আচ্ছা রেডি হচ্ছি।

দুজনে তৈরী হয়ে নিচে নেমে আসে। নিলয় রিক্সা ডেকে নজরুল মঞ্চে যাবে বলে তথাকে রিক্সায়  উঠতে বলে। যাবার পথে কোন কথা হয় না। তথা সেই আগের মতই মনমড়া হয়ে অন্যদিকে তাকিয়ে আছে। ওকে আগে সহজ করতে হবে, তারপর কি হয়েছে সেটা জানতে হবে – ভাবতে থাকে নিলয়। নজরুল মঞ্চের এখানে এসে রিক্সা ভাড়া মিটিয়ে মাঠের দিকে হাটতে থাকে। best golpo

-এদিকে বসবে নাকি আগে ফুচকা খাবে?

-তোমার যেটা ইচ্ছে।

-তোমাকে নিয়ে ঘুরতে আসলাম আর তুমি বলছো  আমার ইচ্ছে? সেটা কেমন আবার। আচ্ছা আগে তোমার ইচ্ছে মত হবে তারপর আমার ওকে?

-তাহলে ফুচকা খাই চলো।
ফুচকার দোকানের দিকে এগিয়ে যায়। দু’ প্লেট ফুচকার ওর্ডার দেয়।

-তুমি তো ঝাল বেশি খাবে তাই না?

-হুম

-মামা, একটাতে ঝাল বেশি আরেকটাতে ঝাল কম করে ফুচকা দিও।
ওরা খোলা মাঠে ঘাসের উপর বসে পড়ে। best golpo

-ভাল লাগছে?

-হুম

-আগে তো আসতেই চাইলে না।

-এখন এসে ভাল লাগছে।

একটু পর ফুচকাওয়ালা দু প্লেট ফুচকা দিয়ে যায়। এত ঝাল খায় কি করে মেয়েরা। আমার তো এতেই কান গরম হয়ে যাচ্ছে মনে মনে ভাবতে থাকে নিলয়। হঠাৎ শুসিয়ে ওঠার শব্দে সামনে তাকায় নিলয়। তথার ফুচকায় ঝালটা হয়তো বেশিই হয়ে গেছে। ওর চোখ মুখ লাল হয়ে গেছে। বারবার শুশিয়ে যাচ্ছে।

ওর লাল হয়ে যাওয়া মুখটা দেখে নিলয়ে কেমন যেন অনুভব হতে থাকে। একদৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে ওর মুখের দিকে। চোখ দুটো কেমন ছলছল করছে তথার। লিপস্টিক না দেয়া ঠোঁট দুটো ঝালে লালচে হয়ে উঠেছে। কানের সাথে সাথে পুরো শরীরটাই যেন গরম হয়ে যাচ্ছে। ভিতরের পুরুষ সত্তা টা জেগে উঠতে চাচ্ছে। তথার ঠোঁট দুটো ভীষন করে টানছে। best golpo

নিলয়ের ইচ্ছে করছে ওর ঠোঁট দুটো মুখে পুড়ে নিয়ে ভিতরের ঝাল টুকু শুষে নিতে। ঠোঁটে লেগে থাকা মরিচের শেষ বিন্দু টুকু নিজের মুখে নিয়ে আসতে। যেন এই কষ্ট থেকে তথাকে রেহাই দিতে পারে। ওর মনটা আনচান করে উঠছে, মস্তিষ্ক তাড়া দিচ্ছে, যা এগিয়ে যা এই তো সুযোগ। তর ঠোঁটের উষ্ণ স্পর্শে ওর যন্ত্রণা ভুলিয়ে দে। ওকে তর করে নে।

-এত ঝাল কে দেয়? উফফ বাবারে, মুখ জ্বলে যাচ্ছে।
তথার কথায় চেতন ফিরে নিলয়ের। নিমিষেই ভিতরের জেগে উঠা সত্তা টাকে চেপে দেয় আর গভীরে। উঠে গিয়ে জলের বোতল এনে তথার দিকে এগিয়ে দেয়। ঢক ঢক করে জল খেতে থাকে তথা৷ আরও কিছুক্ষণ বসে থাকার পর ফুচকার বিল দিয়ে দেয় নিলয়

-জল খেলে কিন্তু ঝাল কমে না, আমার কাছে ঝাল কমানোর একটা ট্রিক আছে।

-সেটা আবার কি?

-চলো চা খেয়ে আসি।

-এখানে তো চায়ের দোকান দেখছি না। best golpo

-এখানে নয়, আকুয়া রেলগেটের ওখানে একটা চায়ের দোকান আছে৷ অনেক ভাল চা বানায়। একবার খেলে প্রতিদিন খেতে চাইবে।

-আবার এত দূরে যাবো।

-আরে দূরে কোথায়? এদিকে রেললাইন ধরে হেটে চলে যাবো তাহলে সর্ট কার্ট হবে।

রেললাইন ধরে হাঁটতে থাকে দুজনে৷ আগের সেই মনমরা ভাবটা অনেকটা কেটেছে তথার। হালকা বাতাস আসছে, আকাশটা মেঘলা তাই চাঁদের আলো ততটা পরিষ্কার না। এই প্রথম রেললাইন ধরে কারও সাথে হাটছে তথা। আশেপাশে অনেকেই রেললাইনে বসে আড্ডা দিচ্ছে। কিছুক্ষণের মাঝেই রেলগেটে চলে আসে।

নিলয় দুটো দুধ চায়ের ওর্ডার দিয়ে তথার কাছে ফিরে এসে রেললাইনের ওপর বসে পড়ে। আদুল গায়ে ছোট একটা ছেলে এসে চা দিয়ে যায়। অপূর্ব একটা গন্ধ আসছে চা থেকে। চায়ের উপরে হালকা মলাইয়ের স্তর। দুধে এলাচির স্বাদটা জিভের ঝাল ভাব টা কমিয়ে দিচ্ছে। আসলেই দারুন লাগছে চা টা।
নীরবতা ভাঙে নিলয়ে ডাকে

-আচ্ছা একটা কথা জিজ্ঞেস করবো?

-হুম. best golpo

-কি হয়েছে তোমার? দুদিন ধরে দেখছি এমন মনমরা হয়ে বাসায় পড়ে থাকো। কলেজে, টিউশনে যাচ্ছো না। আমাকে বলো তো কি সমস্যা হয়েছে।

-(হঠাৎ এমন প্রশ্নে ঘাবড়ে গিয়ে) কই কিছু না তো। আমার কিছু হয় নি তো। আমি ঠিক আছি।

-(হালকা হেসে) আমার সাথে মিথ্যে বলছো। আচ্ছা আমাকে বিশ্বাস তো করো নাকি? আর কিছু না হই বন্ধু তো হতে পারি। তা বন্ধু কে তো সব বলা যায় তাই না। আমার সাথে যা সমস্যা আছে সেটা শেয়ার করো দেখ ভাল লাগবে।

নিজেকে আর ধরে রাখতে পারে না তথা। চোখ দুটো ভিজে আছে। দেখে মনে হচ্ছে ওর মনের ভিতরে বিশাল কোন ঝড় উঠেছে, আর সেই ঝড়ে সব কিছু তছনছ করে দিয়ে গেছে। একটু এগিয়ে এসে মাথা গুজে দেয় নিলয়ের কাঁধে, কাঁদতে থাকে অঝোর ধারায়। তথার চোখের জলে কাঁধ টা ভিজে যায় নিলয়ের। নিলয় হাত বুলিয়ে দেয় তথার মাথায়। best golpo

পার্থ কদিন ধরেই বলছিলো ওর জন্মদিনে তথা কে ওদের বাসায় যেতেই হবে। বাসার কথা শুনে তথা প্রথমেই সাফ না করে দিয়েছিল। বাসায় অনুষ্ঠান মানেই অনেকেই থাকবে। ওদের ফ্যামিলির লোকজন, আত্মীয় স্বজন, প্রতিবেশি ওদের মাঝে তথা গিয়ে কি করবে। পরিচয়ে কি বলবে, বন্ধু? মেয়ে বন্ধু এভাবে বাসায় যায় নাকি। এর চেয়ে ভাল সে যাবে না।

কিন্তু ও দিকে পার্থ নাছোড়বান্দা, তথা কে যেতেই হবে। বাসায় অনুষ্ঠানে শুধু বন্ধু-বান্ধবরাই থাকবে। পার্থের বাবা মা চাকরি করে তাই তারা দিনে বাসায় থাকে না তখনি বন্ধু রা মিলে সেলিব্রেট করবে। বারবার করে পার্থ এমন ভাবে তথাকে মানানোর চেষ্টা করেই চলেছে। শেষ পর্যন্ত তথাকে রাজি হতেই হলো, বলতে গেলে বাধ্যই হলো। ভালবাসার মানুষ জন্মদিনে মন খারাপ করে থাকুক সেটা তথা নিজেও চায় না। আজকাল তথার পুরো পৃথিবীটাই জুড়ে পার্থ। পার্থের জন্য ওর ভালবাসার জন্য সব কিছু করতে পারে তথা। best golpo

টিউশন নিয়ে টেনশনে ছিল সেটাও না থাকাতে পার্থের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যাওয়ার সুযোগ টা আরও ভালভাবে তৈরী হয়ে যায়। বাসা থেকে বেরিয়ে আগে চলে যায় গাঙ্গিনাপাড় ঘড়ির মার্কেটে। গত দু মাসের জমানো টাকা দিয়ে পার্থ কে গিফট দেবার জন্য একটা ঘড়ি কিনবে। ঘড়ি কিনে শাপলা স্কয়ারে এসে পার্থকে ফোন করে। একটু পরেই বাইকে এসে তথা কে বাসায় নিয়ে যায়।

সকাল থেকে আকাশ টা মেঘলা হয়ে আছে, মাঝে সাঝে ঝড়ো বাতাস বইছে৷ পার্থের বাসায় যাবার পথেই ঝিরিঝিরি বৃষ্টি পড়তে শুরু করলো৷ বৃষ্টির বেগ বাড়ার আগেই ওরা বাসায় পৌঁছে গিয়েছিল। ওদের বাসাটা নাহা রোডের একটু ভিতরের দিকে। একটা ৮ তলা বিল্ডিং এর তিন তলার একটা ইউনিটে পার্থ রা থাকে। ভালই বড়সড় ইউনিট টা। তিনটে রুম, দুটো বাথরুম, রান্নাঘর, ডাইনিং রুম, বারান্দা সবই আছে। বাসায় ঢুকে কাউকে দেখতে না পেয়ে অবাক হয় তথা।

-তোমার বাকি বন্ধুরা কোথায়? তুমি না বলেছিলে তোমার কলেজের বন্ধু-বান্ধবীরা আসবে।

-হুম আসবে তো। বৃষ্টির কারণে আটকে গেছে। একটু আগেই কথা হয়েছে এইতো কিছুক্ষণের মাঝে এসে পড়বে। best golpo

-একটা তোয়ালে দিবে, চুল গুলো ভিজে গেছে।

-এইতো এনে দিচ্ছি।

তোয়ালে দিয়ে চুল গুলো মুছে নিয়ে পার্থের রুমে গিয়ে বসে তথা। খুব ছিমছাম করে সাজানো রুমটা। একপাশের দেয়ালে সুন্দর সুন্দর ছবি আর্ট করা। টেবিলের উপরে পার্থের একটা বড় বাধানো ছবি তার চারপাশে ছোট ছোট নানা রঙের বাতি জ্বলছে।

-তা আমার জন্য কি গিফট এনেছো। দেখাবে না??

-যেটুকু টাকা জমিয়েছিলাম সেটা দিয়ে একটা ঘড়ি এনেছি।( ব্যাগ থেকে ঘড়িটা বের করে) তোমার পছন্দ হয়েছে।

-অনেক সুন্দর, আমার হাতে পড়িয়ে দাও।

-সত্যি?

-হুম সত্যিই জান। অনেক সুন্দর মানিয়েছে। তা আমার যে আরেকটা গিফট পাওনা সেটা?? best golpo

-(অবাক হয়ে)আর কিসের গিফট?

-কেন, মনে নেই? আমি যেটা চেয়েছিলাম।

-না না। ওসব হবে না৷

-(কাঁদু কাঁদু মুখ করে) প্লিজ জান। একটা শুধু একটা কিস করবো প্লিজ।

-আমি পারবো না৷ এমন করো না।

-একবার, শুধু একবার জান। আমি কি কখনো তোমাকে অন্যদের মত জোর করেছি? কখনো এসব চেয়েছি। আজ আমার জন্মদিনে একটা বার চাইছি আর তুমি এমন করছো।

-তুমি না একটা, আমার এসব কেমন যেন লাগে। আমি পারবো না। best golpo

-তুমি পারবে, আমি শিখিয়ে দেব। তোমার লজ্জা লাগলে চোখ বন্ধ করে রাখো।

আর কোন যুক্তি খোঁজে পায় না তথা। হয়তো চেষ্টাও করে না খোঁজার। এত যুক্তি খোঁজে কি হবে, তাতে যদি ভালবাসার মানুষটা কষ্টই পায়। একটা চুমোতে যদি ও খুশি থাকে তাহলে কেন আটকাবে। ওর খুশিতেই তো আমার খুশি, আমি তো ওকে ভালবাসি।

চোখ বন্ধ করে নেয় তথা আর অপেক্ষা করা পার্থের চুমো গ্রহন করার। এগিয়ে আসে পার্থ তথার লিপস্টিকে গোলাপি হয়ে উঠা ঠোঁট দুটোর দিকে। পার্থের নিশ্বাস গুলো নিজের মুখের কাছে অনুভব করে তথা৷ পার্থের ঠোঁট জুড়ো নেমে আসে তথার ঠোঁটের কাছে, আলতো করে স্পর্শ করে ওর উষ্ণ ঠোঁটে।
চোখ খোলে না তথা, ওর ঠোঁট গুলো তিড়তিড় করে কাঁপছে। সেই সুযোগে আবারো তথার ঠোঁটের উপর নিজের ঠোঁট গুলো চেপে ধরে। অল্প অল্প করে চালিত হতে থাকে দু’জোড়া ঠোঁট। best golpo

একজনের প্রেম রস নিংড়ে নিতে থাকে আরেকজন। রস ধারায় ভিজে উঠে দুজনার অনুভূতির সচল ঠোঁট। একে অপরকে আকড়ে ধরে উষ্ণ আলিঙ্গনে। তথার ঠোঁটের পাটি দুটো পালা করে চোষে চলে পার্থ। যেন ওগুলে কারো ঠোঁট নয় মধুভান্ড। চুম্বনের উষ্ণতায় গলতে থাকে তথার শরীর। রক্তের তাপে কিংবা কামের উত্তেজনায় শরীরে শিহরনের ঢেউ উঠে। আরও এলিয়ে দেয় নিজেকে পার্থের বুকে। পার্থের হাত গুলো ওর পিঠে চড়ে বেড়ায়।

আস্তে আস্তে স্পর্শ পায় নিজের পেটের উপর নাভির কাছে। শরীরটা মাঝে মাঝে কাঁপুনি দিয়ে উঠে। হাত গুলো উপরে দিকে উঠতে থাকে। নিজের বুকের উপর হাতের আলতো স্পর্শ পায় তথা৷ ধীরে ধীরে হাতের আঙুল গুলো খেলে যাচ্ছে ওর স্তনের উপর। নিচে ব্রা থাকায় সহসাই তথার স্তন বোটার হদিস পায় না পার্থ। তাই ব্যর্থ চেষ্টায় হালকা মুচড়ে দেয় ওর স্তন দুটো। ব্যাথা আর উত্তেজনা দুটোর মিলনে সীৎকার করে উঠে তথা।

ওঘরে টেলিফোনটা আগেও দুবার বেজে বেজে বন্ধ হয়ে গেছে। এবার আবার বাজতেই দুই কপোত-কপোতীর হুস ফিরে। সাথে সাথেই লজ্জায় নিজেকে পার্থের বাহুডোর থেকে নিজেকে আলগা করে নেয়। তথার মুখমন্ডলে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমে উঠেছে। সেগুলোতে আলো পড়ে চিকচিক করছে।
পার্থ ফোন রিসিভ করার জন্য পাশের রুমে চলে যায়। তথা বসে এদিক সেদিক দেখতে থাকে। কাছেই বিছানার উপর পার্থের মোবাইলটা পড়ে আছে। খুব দামি ফোন, ফোনের ডিজাইন, ক্যামেরা সবকিছু অনেক ভাল। best golpo

মোবাইলটা হাতে নিয়ে দেখতে থাকে তথা৷ কলেজে, টিউশনে অনেকের হাতেই এমন দামি ফোন দেখে ইচ্ছে জাগে নিজের এমন একটা মোবাইলের। হঠাৎ বিপ বিপ করে আওয়াজ করে একটা মেসেজ আসে। মোবাইল টা লক করা কিন্তু স্ক্রিনে যেটুকু মেসেজ আছে সেটা দেখে হতভম্ব হয়ে যায় তথা৷ মেসেজে লেখা
“কিরে ব্যাটা এক বছরে আর কতগুলা জন্মদিন সেলিব্রেট করবি। মাল কি পটে গেছে? আজকেই খেয়ে দিবি নাকি? একা একা সব মজা নিস না। আমাদের দেখার জন্য কিছু….” বাকিটা দেখা যাচ্ছে না।

কি করবে বুঝতে পারে না তথা৷ এখানে এসে যে কতবড় ভুল করেছে সেটা বুঝতে পারছে। হাত পা কাঁপতে থাকে তথার। ওর ব্যাগটা হাতে নিয়ে ওঘরে উকি দেয়। পার্থ এখনো কারও সাথে কথা বলছে। এই সুযোগ তথা দৌড়ে ফ্ল্যাট থেকে বেড়িয়ে আসে। বিল্ডিং থেকে নেমে দৌড়াতে থাকে, শুধু সামনের দিকে দৌড়াতে থাকে। মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছে সেদিকে কোন খেয়াল নেই ও শুধু দৌড়ে যাচ্ছে। best golpo

—★★★—

কাঁধে মাথা রেখে সেই কখন থেকে কেঁদেই চলেছে মেয়েটা। কান্না করে যদি মনটা হালকা হয় তবে কান্না করুক। চোখের জলে সব কষ্ট, গ্লানি, মলিনতা ধুয়েমুছে সাফ হয়ে যাক।

-(চুলের মাঝে আঙুল দিয়ে বিলি কাটতে কাটতে)বোকা মেয়ে কোথাকার। এভাবে কেউ কাঁদে নাকি। এই দেখো আশেপাশে মানুষ দেখে কি ভাবছে হুম। অনেক হয়েছে এবার চোখ মুছো।

-(কান্নাটা থেমে আসে কিন্তু সেটার রেশ থাকে ফোঁপানোর মাঝে)

-পাগলি মেয়ে, আমি তো জানতাম তুমি অনেক সাহসী, মনের দিক থেকে শক্তিশালী। তা ভিতরে ভিতরে যে এত বোকা সেটাতো জানতাম না। তুমি কান্না করছো কেন হুম।

-আমি যে অন্যায় করেছি। এমন কিছু করা তো আমার উচিত হয়নি। best golpo

– অন্যায় করবে কেন? কাউকে ভালবাসা কি অন্যায়? অন্যায় করলে ঐ ছেলেটা করেছে। সে তোমার ভালবাসার মর্যাদা দিতে পারে নি। তবে হ্যাঁ  তুমি ভুল করেছো, ভুল মানুষকে ভালবেসেছো। তবে ভুল করাটা খারাপ কিছু না। আমরা যদি ভুল না করি তবে শিখবো কি করে। ভুল কি তুমি একা করো? না তো আমরা সবাই করি।

-আমার উপর তুমি এখনো রেগে আছো না?

-আরে না! রাগ করবো কেন। কিন্তু হ্যাঁ এখন যদি কান্না বন্ধ করে স্বাভাবিক না হও তবে রাগ করবো, ভীষন রাগ করবো।

ওড়না দিয়ে চোখের মুছে সোজা হয়ে বসে তথা।

-এবার একটু হাসো তো। দেখি কখন তোমাকে বেশি সুন্দর লাগে হাসার সময় নাকি চোখ মুখ ফুলিয়ে কান্না করার সময়।

না চাইতেও হালকা হাসি চলে আসে তথার মুখমন্ডলে। best golpo

-এইতো এবার ঠিক আছে। এখন চলো রাত ভালই হয়েছে বাসায় ফিরতে হবে তো নাকি। আজ রাতে ভাল করে একটা ঘুম দিবে আর সব কিছু ভুলে যাবে। কিচ্ছু হয়নি বুঝেছো। আরও খারাপ কিছু হতে পারতো। কাল থেকে নতুন সকাল, সব কিছু নতুন করে শুরু। বাকি সময়টা শুধু সামনের দিকে মনোযোগ দিবে। চলো এখন উঠো।

নিলয়ের হাত ধরে উঠে দাঁড়ায় তথা। রেললাইন ধরে হাটতে থাকে মেইন রোডের দিকে৷ আকাশের মেঘলা ভাবটা অনেকটা কেটে গেছে, চাঁদের আলোতে আশপাশটা আগের থেকে স্পষ্ট। ফুরফুরে বাতাস বইছে, বাতাসে তথার খোলা চুল গুলো এলোমেলো করে উড়ছে।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.4 / 5. মোট ভোটঃ 34

কেও এখনো ভোট দেয় নি

6 thoughts on “best golpo মায়া – আমরা সবাই বাঁধা যেখানে – 7 by nextpage”

Leave a Comment