erotic golpo মাঠাকুরায়ন – 2

bangla erotic golpo choti. ছায়া মাসি আর মাঠাকুরায়নের মধ্যেকি যে কথাবার্তা হচ্ছিল সেই ব্যাপারে আমি কিছুই জানতাম না| আমি শুধু ওদের কথা বলার আওয়াজ শুনতে পারছিলাম| আর আমি এটাও বুঝতে পেরেছিলাম মাঝে হঠাৎ মাঠাকুরায়ন ছায়া মাসিকে কেমন যেন একটা ধমক বেড়ে উঠেছিলেন| যাই হোক না কেন আমি তাওয়াতে মাচ ভাষাগুলি আরেকটু গরম করে দেওয়ার পর তাহলে সাজিয়ে আর একটা অন্য থালায় সকালের আনা মদের বোতল গুলোআর গেলাস সাজিয়ে নিয়ে বিনয়ী হয়ে ঘরে ঢুকলাম|

মাঠাকুরায়ন – 1

ঘরে ঢুকে দেখিযে মাঠাকুরায়ন মাটিতে বসে আছেন তার সঙ্গে তিনটি মোমবাতি জ্বলছে| নিজে নিজে একটা এনেছিলেন তার থেকে তিনি একটি একটি করে পাত্র আরসিসি বের করছে একটা শিশিতে মনে হল যেন কোন ধরনের একটা সাদা রংয়ের চূর্ণ রাখা ছিল| যেহেতু ঘরে তিনটি বড় বড় মোমবাতি জ্বলছিলো তাই সারা ঘরটা কিরকম যেন একটা সোনালী আলোয় ভরে গিয়েছিল… আর এই দিকে আবার বাইরে মেঘ গুড়গুড় করতে লাগলো বিদ্যুৎ চমকালে লাগলো আর হালকা বৃষ্টি শুরু হয়ে গেল…

erotic golpo

ছায়া মাসি কিংকর্তববিমুর হয়ে বিছানায় গুটিয়া বসে ছিল|
আমি থালা দুটোদুটো সযত্নে মাঠাকুরায়নের সামনে রেখে দিলাম|
আমি প্লেট দুটোই মান্থাকুরিনের সামনে রাখলাম।
তৎক্ষণাৎ মোদের একটা বোতলের ছিপি খুলে বোতল থেকে আধ গ্লাস মদ ঢেলে গটগট করে খেয়ে ফেললেন, তারপর উনি আমাকে বললেন, “অ্যাই ঝিল্লি, তোদের বাড়ির উঠোনের কোনায় যে কুঁয়াটা আছে ,সেইটা থেকে তুই আমারি এই ঘটিতে এক ঘটি জল নিয়ে চলে আয়”

“কিন্তু বাইরে বৃষ্টি হচ্ছে, মাঠাকুরায়ন”, আমি দ্বিধায় বললাম।
“আমি জানি, কিন্তু আমার আমার তান্ত্রিক প্রক্রিয়ার জন্য তোদের কুঁয়ার জল আমার বিশেষ দরকার আর তবেই আমি তোর মাসির বাতের চিকিৎসা করতে পারব, তাই না …”
আমি মুচকি হেসে তার হাত থেকে মাটির ঘটি টা নিয়ে বৃষ্টির মধ্যে উঠোনের কোণে কুঁয়ার থেকে জল আনতে দৌড় দিলাম। erotic golpo

বাইরে বৃষ্টি বেশ জোরেই হচ্ছিল তাই ঘর থেকে বেরিয়ে দু তিনটে যেতে না যেতেই আমি পুরোপুরি ভিজে গেলাম| যাই হোক না কেন আমি তো এইসব নিজের ছায়া মাসির জন্যই করছি| আশাকরি মাঠাকুরায়নের তন্ত্র মন্ত্র ক্রিয়া-কলাপ এর ধারা ছয় মাসের বাতের ব্যথা সেরে যাবে|
আমি কোন রকমে বৃষ্টিতে ভিজতে- ভিজতে কুঁয়ার থেকে বালতি টেনে তার থেকে মাঠাকুরায়নের দেওয়া ঘটিতে জল ভোরে দৌড়ে ঘরে ঢুকলাম। আর আমি মনে মনে ভাবছিলাম যে বাজার থেকে আসার সময় তো আমি পুরোপুরি ভিজে গিয়েছিলাম;

তখন সে মাসি আমাকে চান করতে বলেছিলেন এবার তো বেশ ভিজে জাব হয়ে গেলাম একবারে… আমাকে কি আবার চান করতে হবে? ঘরে ঢুকে দেখি মাঠাকুরায়নের সঙ্গে ছায়া মাসিও মদ্যপান করছেন| এর আগে আমি কোনদিন ছায়া মাসিকে মদ্যপান করতে দেখিনি! আর মাঠাকুরায়ন আমাকে ভিজে অবস্থায় দেখে উনার চোখে কেমন যেন একটা লালসা ভরে উঠেছিল| সাধারণত রাস্তাঘাটে আসতে-যেতে আমি কয়েকটা পুরুষ মানুষকে আমাকে এইভাবে দেখতে অনুভব করেছিলেন আরাজ মাঠাকুরায়নের এরাম দৃষ্টিপাতে আমি কেমন যেন একটু ভয় পেয়ে গেলাম| erotic golpo

মাঠাকুরায়ন আমাকে বললেন, “ এক পক্ষে ভাল হল তুই আমার তান্ত্রিক প্রক্রিয়ার জন্য একপক্ষে প্রস্তুতি হয়ে গেলি- এই আমাবস্যার রাতে তোর মতন মেয়ের বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়া খুবই ভালো সংকেত”
উনার চোখ তখনও লালসা আর কেমন যেন একটা ক্ষুধার্ত জন্তুর মতো জ্বলজ্বল করছিল| উনি একবার নিজের জিব দিয়ে নিজের ঠোট দুটি চাটলেন- তখন আমি ভালোভাবে লক্ষ্য করলাম যে ওনার সাপের দু ফালা করা…

আমি ওনার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে জলভর্তি ঘটিটা ওনার সামনে রাখলাম| মাঠাকুরায়ন আমাকে কাছে ডেকে এনে বললেন, “একটু কাছে আয় তো ঝিল্লি তোর কপালে এই লোকটা একটু লাগিয়ে দি”
মাঠাকুরায়ন যেই আমার মাথায় তীলক টা কাটলেন ঠিক তৎক্ষণাৎ আমার মনে হল যেন আমার সারা শরীরে একটা বিদ্যুৎ তরঙ্গ খেলে গেল… চোখের সামনে যেন একটু অন্ধকার হয়ে গেল সেই সময় আমি জানতাম না যে মাঠাকুরায়ন আমাকে বশীভূত করার জন্য ওই তিলক আমার মাথায় কে ছিলেন| erotic golpo

আমি ওনাকে প্রণাম করে উঠে দাঁড়াতে গিয়ে একটু টলে গেলাম, তবুও নিজেকে সামলে নিয়ে শান্তভাবে বললাম, “আমি কাপড় বদল করে আসছি”

মা ঠাকুরের মুখে যেন একটা অদ্ভুত হাসি খেলে গেল উনি আমাকে বললেন, “তোকে আর কাপড়চোপড় বদল করতে হবে না… আমি চাই যে তুই নিজের সব কাপড় খুলে দিয়ে নিজের সব লজ্জা শরম ত্যাগ করে একেবারে হীন আর দীন হয়ে থাক”

এটা শুনে আমি হতবাক হয়ে গেলাম। অদ্ভুত ব্যাপার… মাদারঠাকুরিনকে এই কথা বলার পরও খালা তাদের কিছু বলেননি … কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে, আমি সম্পূর্ণভাবে মাদারঠাকুরিনের নিয়ন্ত্রণে ছিলাম।

আমি থালা দুটো সযত্নে মাঠাকুরায়নের সামনে রেখে দিলাম| erotic golpo

তৎক্ষণাৎ মদের একটা বোতলের ছিপি খুলে বোতল থেকে আধ গ্লাস মদ ঢেলে গটগট করে খেয়ে ফেললেন, তারপর উনি আমাকে বললেন, “অ্যাই ঝিল্লি, তোদের বাড়ির উঠোনের কোনায় যে কুঁয়াটা আছে ,সেইটা থেকে তুই আমারি এই ঘটিতে এক ঘটি জল নিয়ে চলে আয়”

“কিন্তু বাইরে বৃষ্টি হচ্ছে, মাঠাকুরায়ন”, আমি দ্বিধায় বললাম।

“আমি জানি, কিন্তু আমার আমার তান্ত্রিক প্রক্রিয়ার জন্য তোদের কুঁয়ার জল আমার বিশেষ দরকার আর তবেই আমি তোর মাসির বাতের চিকিৎসা করতে পারব, তাই না …”

আমি মুচকি হেসে তার হাত থেকে মাটির ঘটি টা নিয়ে বৃষ্টির মধ্যে উঠোনের কোণে কুঁয়ার থেকে জল আনতে দৌড় দিলাম। erotic golpo

বাইরে বৃষ্টি বেশ জোরেই হচ্ছিল তাই ঘর থেকে বেরিয়ে দু তিনটে যেতে না যেতেই আমি পুরোপুরি ভিজে গেলাম| যাই হোক না কেন আমি তো এইসব নিজের ছায়া মাসির জন্যই করছি| আশাকরি মাঠাকুরায়নের তন্ত্র মন্ত্র ক্রিয়া-কলাপ এর ধারা ছয় মাসের বাতের ব্যথা সেরে যাবে|

আমি কোন রকমে বৃষ্টিতে ভিজতে- ভিজতে কুঁয়ার থেকে বালতি টেনে তার থেকে মাঠাকুরায়নের দেওয়া ঘটিতে জল ভোরে দৌড়ে ঘোঘরে ঢুকলাম। আর আমি মনে মনে ভাবছিলাম যে বাজার থেকে আসার সময় তো আমি পুরোপুরি ভিজে গিয়েছিলাম; তখন সে মাসি আমাকে চান করতে বলেছিলেন এবার তো বেশ ভিজে জাব হয়ে গেলাম একবারে… আমাকে কি আবার চান করতে হবে?

ঘরে ঢুকে দেখি মাঠাকুরায়নের সঙ্গে ছায়া মাসিও মদ্যপান করছেন| এর আগে আমি কোনদিন ছায়া মাসিকে মদ্যপান করতে দেখিনি! আর মাঠাকুরায়ন আমাকে ভিজে অবস্থায় দেখে উনার চোখে কেমন যেন একটা লালসা ভরে উঠেছিল| সাধারণত রাস্তাঘাটে আসতে-যেতে আমি কয়েকটা পুরুষ মানুষকে আমাকে এইভাবে দেখতে অনুভব করেছিলেন আরাজ মাঠাকুরায়নের এরাম দৃষ্টিপাতে আমি কেমন যেন একটু ভয় পেয়ে গেলাম| erotic golpo

মাঠাকুরায়ন আমাকে বললেন, “ এক পক্ষে ভাল হল তুই আমার তান্ত্রিক প্রক্রিয়ার জন্য একপক্ষে প্রস্তুতি হয়ে গেলি- এই আমাবস্যার রাতে তোর মতন মেয়ের বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়া খুবই ভালো সংকেত”

উনার চোখ তখনও লালসা আর কেমন যেন একটা ক্ষুধার্ত জন্তুর মতো জ্বলজ্বল করছিল| উনি একবার নিজের জিব দিয়ে নিজের ঠোট দুটি চাটলেন- তখন আমি ভালোভাবে লক্ষ্য করলাম যে ওনার সাপের দু ফালা করা…

আমি ওনার সামনে হাঁটু গেড়ে বসে জলভর্তি ঘটিটা ওনার সামনে রাখলাম| মাঠাকুরায়ন আমাকে কাছে ডেকে এনে বললেন, “একটু কাছে আয় তো ঝিল্লি তোর কপালে এই লোকটা একটু লাগিয়ে দি”

মাঠাকুরায়ন যেই আমার মাথায় তীলক টা কাটলেন ঠিক তৎক্ষণাৎ আমার মনে হল যেন আমার সারা শরীরে একটা বিদ্যুৎ তরঙ্গ খেলে গেল… চোখের সামনে যেন একটু অন্ধকার হয়ে গেল সেই সময় আমি জানতাম না যে মাঠাকুরায়ন আমাকে বশীভূত করার জন্য ওই তিলক আমার মাথায় কেটে ছিলেন| erotic golpo

আমি ওনাকে প্রণাম করে উঠে দাঁড়াতে গিয়ে একটু টলে গেলাম, তবুও নিজেকে সামলে নিয়ে শান্তভাবে বললাম, “আমি কাপড় বদল করে আসছি”

মা ঠাকুরের মুখে যেন একটা অদ্ভুত হাসি খেলে গেল উনি আমাকে বললেন, “তোকে আর কাপড়চোপড় বদল করতে হবে না… আমি চাই যে তুই নিজের সব কাপড় খুলে দিয়ে নিজের সব লজ্জা শরম ত্যাগ করে একেবারে হীন আর দীন হয়ে থাক”

এটা শুনে আমি হতবাক হয়ে গেলাম। অদ্ভুত ব্যাপার হল মাঠাকুরায়নের এই কথা শোনার পরে ওছায়া মাসির যেন কিছুই বললেন না…

তবুও আমি হতভম্ব হয়ে জিজ্ঞেস করলাম “মানে?”

“মানে আর কি এখনো বুঝতে পারলি না ঝিল্লি? আমি তোকে সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে যেতে বলছি” erotic golpo

আমি একবার ছায়া মাসির দিকে তাকালাম আর দেখলাম যে অদ্ভুত ব্যাপার হল মাঠাকুরায়নের এই কথা শোনার পরেও ছায়া মাসির যেন কিছুই বললেন না… উল্টে উনিও স্বীকৃতিতে মাথা নাড়লেন আর বললেন, “লজ্জা পাস নি রি ঝিল্লি, মাঠাকুরায়ন যা বলছি তাই কর… নিজের কাপড়চোপড় সব খুলে একেবারে ল্যাংটো হয়ে ওনার সামনে দাড়িয়ে যা”

ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে, আমি সম্পূর্ণভাবে ঠাকুরের মাঠাকুরায়নের নিয়ন্ত্রণে বশীভূত হয়ে গিয়ে ছিলাম, তাই আমার যেন মনে হলো যে মাঠাকুরায়ন যা বলছেন, ছায়া মাসির ভালোর জন্যই বলছেন তাই আমাকে ওনার কথামতো উলঙ্গ হয়ে যাওয়া উচিত|

আমি চুপচাপ উঠে দাঁড়ালাম এবং আস্তে আস্তে আমার শাড়ি খুলে ফেলতে লাগলাম। erotic golpo

মাঠাকুরায়ন বললেন, “শোন ঝিল্লি, আমি কিছুক্ষণ আগে তোর ছায়া মাসির সাথে রাখেল পরম্পরার ব্যাপারে আলোচনা করছিলাম| সেই অনুযায়ী আর আমি যা তন্ত্র-মন্ত্রের প্রক্রিয়া করতে যাচ্ছি তার জন্য তোর মতনই একটা কচি সুন্দর এবং যার রক্ত তোর মতনই গরম এইরকম একটা মেয়ে আমার দরকার… যাকে আমি নিজের দাসী- বাদী হিসেবে ব্যবহার করতে পারি… আর রাখেল পরম্পরা অনুযায়ী… তাতে বাঁধা দাসী- বাঁধীদের গায়ে কাপড় রাখার অনুমতি নেই – কারণ মর্যাদা অনুযায়ী তারা সবসময়ই নিম্ন আর অধীন বলে বিবেচিত হয়…

রাখালদের সংস্কৃতি অনুযায়ী কোন স্বার্থ থাকেনা ওদের শুধু একটাই ধর্ম নিজের ভোগদখলকারীর প্রত্যেক আজ্ঞা পালন করা এবং ওনাকে সদা সর্বদা খুশি রাখা… আরে রাখেল পরম্পরা অনুযায়ী আজ থেকে তোকেও নিম্ন, অধীন আর হীন হয়ে থাকতে হবে… তাই আজকের পর থেকে আমরা যতক্ষণ না বলি সম্পূর্ণ উলঙ্গ হয়ে বাড়িতে থাকবি… তোর চুল যেন সব সময় এলো থাকে…” erotic golpo

কেন জানিনা আমার মনে হল যে আমারি গুরুজন মহিলা মাঠাকুরায়ন যা বলছেন আমার ঠিক তাই করা উচিত| এখন আর লজ্জা-শরম বজায় রাখার কোন দরকার নেই| তাই আমি ধীরে ধীরে নিজের প্রথমে শাড়িটা খুললাম হাত তার পেটিকোটের দড়ির গিঁট খুলে সেটিকে একটু আলগা করলাম… কিন্তু ইতিমধ্যেই আমার পেটিকোটটা হাত ফসকে ঝপ করে মাটিতে পড়ে আমার দুই পায়ের চারপাশে গোল হয়ে জড় গেল আর যেহেতু আমি কোন অন্তর্বাস পরে ছিলাম না, আমার মতন একটি যৌবনের সবে কুঁড়ি ফোটা মেয়ে ঘরে বসা দুই প্রৌঢ় মহিলার সামনে একেবারে উলঙ্গ হয়ে গেলাম…

আমি লক্ষ্য করলাম যে সায়ান আমাকে কেমন যেন একটা অদ্ভুত আশ্চর্য চোখে দেখছেন হয়তো মনে মনে ভাবছেন আমি কি এতদিন নিজের টগবগে ফুটন্ত যৌবন কাপড়ের তলায় লুকিয়ে রেখেছিলাম?… আর যেই আমি মাঠাকুরায়নের দিকে চোখ তুলে দেখলাম… আমার সারা গা টা হয়ে গেল… উনার চোখ দুটোকে দেখে মনে হল সেগুলি যেন কেমন একটা অদ্ভুত কামনার ক্ষুদায় ফাঁপা… আর উনি বললেন, “ আমি তোমাদের বাড়িতে ঢোকার আগে তোমাদের বাথরুম থেকে স্নান করার শব্দ পাচ্ছিলাম… erotic golpo

কৌতূহলবশত আমি চুপচাপ তোমাদের বাথরুমের বাইরের দিকের দরজার ফুটো দিয়ে উকি মেরে দেখলাম… তখন দেখলাম তোমারি ঝিল্লি উলঙ্গ হয়ে স্নান করছে… কিন্তু তখন আমার মনটা ভরে নি কারণ ওর পিঠটা আমার দিকে ছিল… আর সেটিও ছিল ওর এক ঢাল ভিজে এলো চুলে ঢাকা… তবে আমি যতটা দেখেছি সেটা দেখেই বুঝে গেছি তোমাদের বাড়িতে একটা জোয়ান ঝিল্লি

আছে… আর আমি আন্দাজ করে নিয়েছিলাম… আমার যেমন একটা গাইঁয়ার মাইয়া দরকার এ ঠিক সেই রকমই হবে”

এই বলে মন্থাকুরিন তার ব্যাগ থেকে একটা ছবি বের করলেন। এই ছবিটি ছিল একজন বৃদ্ধ মহিলার, তার মাথায় ছিল লম্বা ঘন চুলের জট, এটা নিশ্চয়ই মাঠাকুরায়নের গুরু মা’র ছবি।

তারপরে মাঠাকুরায়ন ছায়া মাসিকে ওই ছবিটি দিয়ে ছবিটি নিজের করে নিয়ে বসতে বললেন| তারপর তিনি আরও তিনটি মোমবাতি জালালো আর আমাকে বললে যে আমি যেন সেই গুলিকে একটি বড় ত্রিভুজের আকারে সাজিয়ে দাঁড় করাই একটি মোমবাতি ঠিক ছায়া মাসির সামনে আর দুইটি পাশাপাশি ওই মোমবাতির পিছনে| erotic golpo

তারপরে মাঠাকুরায়ন আমাকে ছায়া মাসির দিকে মুখ করে উবু হয়ে বসতে বললেন| তারপর যেই বটে করে আমি জল নিয়ে এসেছিলাম তার থেকে এক আঁজলা জল নিয়ে তাতে কিছু মন্ত্র বিড়বিড় করে করে তিনি আমার নগ্ন দেহের ওপর ছেটালেন… আমার গায়ে জলের ছিটে পড়া মাত্র আমার মনে হল যেন আমার সারা শরীরে বিদ্যুৎ তরঙ্গ খেলে গেল… আমি যেন আবার শিউরে উঠলাম|

এতে এখন আর কোনো সন্দেহ নেই যে মাঠাকুরায়ন একজন খুবই অভিজ্ঞ তান্ত্রিক মহিলা|

তারপর আবার সেই ক্ষতি থেকে আরেকটু জল হাতে নিয়ে তিনি আমার যৌনাঙ্গ আর মলদ্বার ধুয়ে দিলেন… অবশেষে তিনি… সেই ঘটে কাঁচের বোতল থেকে বেশ খানিকটা মদ ডেলিআমাকে খেতে দিলেন|

এর আগে আমি কোনদিন মদ খাইনি| তাই এক ঢোঁক খাবার পরেই মোদের ঝাঁঝ আর তার উৎকৎ স্বাদে আমি কাশতে আরম্ভ করলাম| কিন্তু মাঠাকুরায়ন আমার চুলে হাত বুলিয়ে বুলিয়ে আমাকে সান্ত্বনা দিতে দিতে আমাকে ওই মদ অর্জনের মিশ্রণটা পান করার জন্য উস্কাতে লাগলেন… আমার মনে হচ্ছিল যে আমাকে ওনার কথা মেনে চলতে হবে তাই আমি খেতে না পারলেও অল্প অল্প করে মদ্যপান করতে লাগলাম… erotic golpo

আর তারপরে ধীরে ধীরে আমি নিজেকে কেমন যেন হালকা হালকা মনে করতে লাগলাম… মনে হয় ধীরে ধীরে আমার নেশা চলে যাচ্ছে… আমি মনে মনে ভাবছিলাম এটা কি মদের নেশা না মাঠাকুরায়নের কোন মন্ত্রীর প্রভাব… যাই হোক না কেন আমি সেটা জানি না|

শিগ্রহী আমি কেমন যেন একটা ঘোরের মধ্যে ডুবে যেতে লাগলাম আর তখন বোধহয় মাঠাকুরায়নের মনে হল যে এবার সময় হয়েছে… উনি আমাকে আলতো করে মাটিতে শুইয়ে দিলেন আর আমার পা দুটি যথেষ্ট ফাঁক করে দিলেন…

আমার এলো চুল উনি আমার মাথার উপর দিকে মাটিতে ভালোভাবে ছড়িয়ে দিলেন তার ওপরে উনি আমার চুলের ওপর বসে পড়লেন যেন ঠিক অনি একটা আমার চুলের আসনের উপর বসে আছে আর তারপরে নিজের ঝোলা থেকে অনেক একটি করে বিভিন্ন রকমের তেলের শিশি বার করতে লাগলেন… আর ওগুলিকে একটি একটি করে আমার যৌনাঙ্গের কাছে আমার দুই পায়ের মাঝখানে এক এক করে রাখতে লাগলেন| erotic golpo

আমি নেশাগ্রস্ত অবস্থায় একবার চোখ তুলে ছায়া মাসের দিকে দেখলামওর দিকে দেখলাম- উনি তখন শুধু জাংগিয়া পরে মাঠাকুরায়নের গরুর ছবিটা নিজের কোলে নিয়ে বসে ছিলেন তারপরে আমি চোখ ফিরিয়ে মাঠাকুরায়নের দিকে দেখলাম… উনাকে দেখে কেমন যেন আমার একটু ভয় করে উঠলো কারণ নেশাগ্রস্ত হলেও বুঝতে পারলাম যে ওনার চোখ দুটি যেন তার কপালে ঢুকে গেছে প্রায় আরণী নিজের দুই হাত তুলে বিড়বিড় করে মন্ত্র উচ্চারণ করছেন আরো নিয়েছিলেন সম্পূর্ণ উলঙ্গ…

তারপরে আস্তে আস্তে কেমন যেন আমার মাথা ঘুরতে লাগলো… আর তারপরে আমার কিছুই মনে নেই…

আমার যখন জ্ঞান ফিরল আমি দেখলাম যে আমি মাটিতে সেই অবস্থায় শুয়ে আছি| আর আমার খাটটা একদিকে কাত হয়ে আছে আর আমার মুখ থেকে লালা বেরিয়ে আমার মুখের এক দিকটা পুরো ভেজা… আমার পা দুটি ঠিক সেইভাবেই ছড়ানো রয়েছে আর আমার চুলগুলো এলোমেলো ভাবে মাটিতে খেলানো রয়েছে| erotic golpo

আমি দেখলাম যে মাঠাকুরায়ন এখন একটা শাড়ি জড়িয়ে নিয়েছেন কিন্তু ছায়া মাসি এখনো সেই জাঙ্গিয়াটা পড়েই বসে আছে… আর আর মাঠাকুরায়ন ছায়া মাসিকে খুবই স্নেহের সাথে খাওয়ার খাওয়াচ্ছেন… আমি জেগে উঠলাম তখন মাটির পেলেন যে আমার জ্ঞান ফিরেছে আর্ণী ছায়া মাসিকে বললেন, “দেখলি তো ছায়া বিধবা… আমি তোকে বলেছিলাম না যে কিছুক্ষণের মধ্যেই আমাদের এই রাখালের জ্ঞান ফিরে আসবে”

আমার মাথাটা ব্যথায় প্রায় ফেটে যাচ্ছিল… আর আমার প্রচন্ডজল তেষ্টাও পেয়েছিল| এটাও মাঠাকুরায়ন বুঝতে পারলেন তাই উনি উঠে গিয়ে আমার জন্য আর একটু মদে জল মিশিয়ে আমায় বললেন, “আস্তে আস্তে উঠে বসে ঝিল্লি… তোর ঠোঁটের থেকে ঝরে পড়া লালা তোর সারামুখে মাখামাখি হয়ে গেছে… ওটা মুছে নে আর তারপরে একটু মদ্যপান করে নে… দেখবি তোর শরীরটা চাঙ্গা হয়ে উঠবে” erotic golpo

আমি কোনরকমে উঠে বসে উনার হাত থেকে গ্লাস নেবার আগে নিজের চুল ঘাড়ের কাছে জোর করে ঘুমাতে যাচ্ছিলাম সেই সময় মাঠাকুরায়ন বলে উঠলেন, “এই না না… আমি তোকে বলেছিলাম না যতক্ষণ না আমরা অনুমতি দিচ্ছি ততক্ষণতুই নিজের চুল বাঁধতে পারবি না আর তোকে উলঙ্গ হয়ে থাকতে হবে এত তাড়াতাড়ি ভুলে গেলি…

নিয়ে এবারে আমাদের সামনে মাটিতে উবু হয়ে বসে ধীরে ধীরে যতটুকু মর্যাদা দিয়েছি ততটা তুই খেয়ে একেবারে শেষ করে দে… দেখবি তোর মাথা ব্যথা সেরে যাবে” তারপরও নিজের মাসির দিকে তাকিয়ে বললেন, “ একটু পরেই ঝিল্লিটাকে দিয়ে আমি তোর মালিশ করাব ছায়া বিধবা… তারপরে তুই যখন ঘুমিয়ে পড়বি তখন আমিও এই ঝিল্লির নরম নরম হাত দিয়ে নিজের মালিশ করাবো”

ততক্ষণে আমি নিজের টাল সামলাতে সামলাতে কোনরকমে উবু হয়ে বসে আছি আর মাঠাকুরায়নের হাত থেকে মদের গেলাস টা নিয়ে ছোট ছোট চুমুক দিয়ে ধীরে ধীরে মদ্যপান করতে আরম্ভ করেছি|

ইতিমধ্যে মাঠাকুরায়ন আমার পাশে এসে বসলেন আর আমার চুলে হাত বোলাতে বোলাতে আস্তে আস্তে ওর হাতটা আমার স্তনের উপরে চলে গেল উনিও গুলোকে হালকা হালকা অনুভব করতে লাগলেন আর উনি আমার প্রশংসা করতে করতে ছায়া মাসিকে বললেন, “ যাই বলিস না কেন রি ছায়া বিধবা… তোর পোষা ঝিল্লির দুধগুলো বেশ বড় বড় হয়েছে আর বেশ ডাঁশা- ডাঁশা আর খাড়া খাড়া”.. erotic golpo

তারপরে মাঠাকুরায়ন নিজের ছোলার থেকেই একটা খুঁত বের করলেন আর বললেন, “ আচ্ছা শোন রি ছায়া বিধবা… এইবারে আমাকে একটা কাজ করতে হবে সেটা হচ্ছে গিয়ে কি তোর এই পোষা ঝিল্লির দুপায়ের মাঝখানের লোমগুলো পুরোপুরি চেঁছে ফেলতে হবে… দেখছিস কিরকম সুন্দর বনের জঙ্গল হয়েছে জায়গাটা? আমি তো ঠিক করে যৌনাঙ্গ দেখতে পাচ্ছি না… আর এখন তো আমি এর যৌবন সুধাও পান করিনি… অনেকদিন হয়ে গেছে একা একা থেকে থেকে…

তবে আজ রাত্রে…আমি তোর ঝিল্লিকে খুব আদর করবো… আর প্রাণভরে ভোগ করব এর যৌবনকে… আর তোর এই ফুটন্ত কুঁড়িটাকে একটি সুন্দর দেখে ফুলের মত ফুটিয়ে দেব| তারপর তুই আমার বিশ্বাস রাখো এই মেয়ে সারা জীবন তোর দাসী হয়ে থাকবে… আর যাতে তুইও একে ভোগ করতে পারিস আমি সেই ব্যবস্থা তোর করে দেব… তবে হ্যাঁ যখন যখন আমি তোদের বাড়ি আসবো… তখন কিন্তু তোরই পোষা ঝিল্লি আমার বাঁদী হয়েই থাকবে…” মাঠাকুরায়ন আমার যৌনাঙ্গের লোমে হাত বুলাতে বুলাতে বললেন| erotic golpo

আমার মাথাব্যথা ততক্ষনে ঠিক হয়ে গিয়েছিল ওর আমি নিজেকে বেশ একটু সংজ্ঞা মনে করছিলাম কিন্তু আমি বুঝতে পারছিলাম যে আমি তখনও নেশাগ্রস্ত… আর জানিনা কেন মাঠাকুরায়নের এইসব কথাবার্তার আচরণ আমার বেশ ভালই লাগছিল… আর কেমন যেন একটা অদ্ভুত যৌন অনুভূতি আমার মধ্যে আস্তে আস্তে ফুটে উঠছিল…

 

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 3.2 / 5. মোট ভোটঃ 9

কেও এখনো ভোট দেয় নি

1 thought on “erotic golpo মাঠাকুরায়ন – 2”

Leave a Comment