panu golpo পিতার রাজকন্যা – 7

bangla panu golpo choti. ড্রেসিং টেবিলে আয়নার সামনে বসে ঠোঁটে অল্প একটু লাল লিপস্টিক বুলিয়ে নিতে ভোলেনা শালিনী| ঠোঁটদুটি পরস্পরের সাথে ঘসে লিপস্টিক সমান করে সে| বেশি প্রসাধনে কোনকালেই বিশ্বাসী নয় সে| নিজের চোখ ঝলসানো, মন অবশ করে দেওয়া রূপ সম্বন্ধে সে তার যথেষ্ট সচেতনতা আছে এবং সে ভালো করে জানে কি করে অত্যন্ত অল্প কিছু তুলির আঁচড়ে তা আরো মারাত্মক আকর্ষনীয় করে তোলা যায়| মুচকি হাসে সে আয়নায় নিজের পানে, তার কমলার কোয়ার মতো ঠোঁট দুটি এখন অত্যন্ত আকর্ষনীয় লাগছে|

[সমস্ত পর্ব
পিতার রাজকন্যা – 6]

এমনিতেই তার উপরের ঠোঁটটি ইশত ফুলে ওঠা, যেন চুমুর আহ্বান জানাচ্ছে সহজাত স্বতস্ফুর্ততাতেই! নিজের তীক্ষ্ণ নাক এবং টানা টানা দুটি ডাগর চোখ সম্বন্ধে তার কোনো অভিযোগই ছিল না কোনো কালে| পিঠ অবধি লম্বা ঘন চুল সে আলগা করে একটি মোহনীয় খোঁপায় বাঁধে| সে জানে তার খোঁপা নিয়ে খেলে তার চুল আলুলায়িত করতে পছন্দ করেন মিঃ ধানুকা|

panu golpo

চেয়ার থেকে উঠে পরে ফুল লেংথ আয়নায় নিজের তনুটি দেখে একবার শালিনী| যৌবন নিয়ে দুশ্চিন্তা এখন তার সুদূর, বহুদূর …| ৩৪-২৬-৩৬ মাপের তার শরীরের গঠন যে কোনো বাঙালি মেয়েকে হিংসায় জ্বালিয়ে দিতে বাধ্য| একটি লাল রঙের ফিনফিনে পাতলা শিফনের শাড়ি ও কমলা রঙের চাপা ব্লাউজে এখন তাকে সাক্ষাত অপ্সরার মতই যেন লাগছে| নাভির নিচে শাড়ির গেরো, পাতলা ছিপছিপে ফর্সা কোমরের অনেকটাই উন্মুক্ত| শাড়ির আঁচলে চাপা ব্লাউজে টানটান ফুলে থাকা সুডৌল, উদ্ধত স্তনজোড়া মারাত্বক ভঙ্গিতে খাড়া খাড়া হয়ে আছে, যেন প্রতিদ্বন্দীতায় আহ্বান জানাচ্ছে বহিঃপৃথিবীকে|

কোমরের তলা থেকে উল্টানো ফুলদানির মতো সুডৌল আঁচড় কেটে নেমে গেছে তার উছ্লানো সুঠাম নিতম্ব এবং শরীরের বাকি অংশ| সুন্দর একটা হাসি ছুঁড়ে দেয় আয়নায় শালিনী| সে জানে নায়িকা হবার জন্য যে প্রধান অস্ত্র: শত পুরুষের হৃদয় জ্বালানো রূপ, তার আছে| এখন শুধু দরকার প্রাথমিক জড়তা কাটিয়ে ওঠা এবং তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণভাবে: সঠিক সুযোগের সন্ধান এবং তার সদ্যব্যবহার করতে পিছপা না হওয়া! panu golpo

-“বাব্বাঃ! এত সেজে গুজে অপ্সরা হয়ে কোন মুনীর ধ্যান ভাঙ্গতে যাওয়া হচ্ছে রূপসীর?”
বেরোবার সময় পিতার সম্মুখীন হয় শালিনী|
-“বাপ্পি, বলেছিলাম তোমায় আজ মৃদুলাদির বিয়ে! তুমি না সব ভুলে যাও!” শালিনী তার সুসজ্জিত হাত বাড়িয়ে পিতার মোটা নাকটি মুলে দেয়|

-“উম্ম” মেয়ের কোমর জড়িয়ে ধরে রজতবাবু ওর শাড়ির গেরোর উপর, নগ্ন নাভির উপর নিজের জাঙ্গিয়া আবৃত (বাড়িতে তিনি আজকাল গেঞ্জি ও জাঙ্গিয়া পরেই থাকেন, স্ত্রীর শত আপত্তি সত্ত্বেও) শিশ্নদেশ ঘষতে ঘষতে আদূরেভাবে বলেন “উম্ম,, এসে এই পোশাক পড়ে বাপ্পির সাথে কিছুক্ষণ থাকবে!”
-“উম্ম,.. ততক্ষণে মা এসে যাবে!” শালিনী ঠোঁট ফোলায়|
-“উম আমি জানিনা, চুপিচুপি এসে দরজা আটকে দেবে!”panu golpo

-“আর যদি মা জিজ্ঞাসা করে তোমার ঘরে কি করছিলাম!”
-“বলবে বাপ্পির সাথে খেলছিলে!”
-“ধ্যত!” পিতার বুকে ঠোনা মারে শালিনী| সে ভালই বুঝতে পারে আর নাভির উপর জাগ্রত হয়ে যাওয়া পিতার লিঙ্গ| শক্ত দন্ডটির রগড়ানি খাচ্ছে এখন তার কোমল, নাভি|

-“উম, তাহলে বলবে বাপির পা টিপে দিচ্ছিলে|”
-“বাপ্পি তুমি কি যে বলো না!”
-“আমি জানিনা তোমায় আসতেই হবে!” কন্যার নাভিতে নিজের লিঙ্গ প্রায় ঢুকিয়ে দেবার চেষ্টা করতে করতে ঘষাঘষি করতে করতে রজতবাবু বলেন| তাঁর ডানহাত নেমে আসে ওর বুকের উপর, শাড়িতে লোভনীয় ভাবে ফুলে থাকা স্তনজোড়ার টানে.. panu golpo

-“না বাপ্পি! এখন বুকে হাত দেবে না!” শালিনী পিতার হাত সরিয়ে বলে “অনেক কষ্টে আঁচল ঠিক রেখেছি!”
-“উম, কবে থেকে বাপ্পিকে তার দুষ্টু মেয়েটা তার বুক টিপতে দিচ্ছেনা!” রজতবাবু অভিমান করে বলেন|
-“উম, যথেষ্ট টিপতে দিই বাপ্পি! ঢপ্ মেরোনা!” তাঁর সুন্দরী কন্যা চোখ পাকায়|
-“উম, আজকেই দিতে হবে! ঠিক এমন সুন্দরী সেজে থেকে!” রজতবাবু আবদার করেন|

-“উম, ঠিকাছে, দেখা যাবে, এখন ছাড়ো! দেরি হয়ে যাচ্ছে!”
-“বিয়েবাড়িতে যাচ্ছিস, গিফ্ট কই?” হঠাত শুধান রজতবাবু|
-“গি… গিফ্ট!” শালিনী প্রহমে একটু থতমত খায়, কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে সামলে নিয়ে বলে “ও গিফ্ট! রাস্তায় মণিদীপার সঙ্গে দেখা করে একসাথে কিনবো!”
-“হমম.. ঠিক আছে! যাও! সাবধানে যাবে!” রজতবাবু ছেড়ে দেন মেয়েকে| panu golpo

-“উম, তুমি লক্ষ্মী হয়ে হয়ে থাকবে আমি না আসা পর্যন্ত!” শালিনী পিতার ঠোঁটে একটি ছোট চুম্বন উপহার দেয় হেসে| বাঁহাতে জাঙ্গিয়ায় অস্ত্রের মতো উঁচিয়ে থাকা ওঁর লিঙ্গটি ধরে নেড়ে দিয়ে, অন্ডকোষে নোখের লম্বা আঁচড় দিয়ে ঠোঁট কামড়ে হেসে চলে যায়|

অজয় ধানুকা এপার্টমেন্ট

হাই হিলে মট-মট শব্দ তুলে মসৃন ঝকঝকে ব্যালকনি দিয়ে হেঁটে যায় শালিনী| অনেক সুদর্শন কোট-টাই পরিহিত পুরুষ ফিরে ফিরে তাকাচ্ছে তার দিকে যাবার পথে তার রূপে মুগ্ধ হয়ে| শালিনী মুচকি ছুঁড়ে দিতে ভুলছে না| এমন উচ্চস্থানীয় পরিবেশে এরকম পরিলক্ষিত হতে ভালই লাগছে তার| সে শুনেছে হাই হিলে তার হাঁটার ছন্দ সহজাত এবং আকর্ষনীয়|
লিফটে chauffer-এর সাথে দু-একটা কথা হয় তার| সে বলেই ফেলে মিঃ ধানুকার কাছে পার্সোনাল টাইম পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার, তবে শালিনীর মতো সুন্দরীর জন্য লোকে নাকি জীবনও দিতে দ্বিধা করবে না! panu golpo

শালিনী ছেলেটির প্রশংসা শুনে ওকে একটি তার বাছাই করা মনমাতানো হাসি উপহার দেয় তার শ্বেতশুভ্র দন্ত্পঙ্গক্তি উন্মোচিত করে| লিফট বারোতলায় এলে সে গটগট করে হেঁটে বেরিয়ে যায়| ছেলেটি অনিচ্ছাসত্ত্বেও বাধ্য হয় শালিনীর অতি আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে আন্দোলিত হতে থাকা পাতলা শাড়িতে পরিস্ফুট সুন্দর নিতম্বের দিকে কিছুক্ষণ তাকিয়ে থাকতে… শাড়ি থেকে উন্মোচিত ওর কোমরের সুচারু খাঁজের কাছটিতে নাক ডোবাবার বাসনা হয় তার ভীষণ..

২৩৪ নম্বর স্যুইটের দরজায় তিনবার টোকা দেয় শালিনী| পরিচারক দরজা খুলে দেয়, সেও মুগ্ধ দৃষ্টিতে শালিনীর দিকে লালসা ছুঁড়তে ভোলেনা একবার| শালিনী সুঠাম হেঁটে প্রবেশ করে ভিতরে| সামনেই বড় কাউচে মিঃ ধানুকা বসে তাঁর ল্যাপটপে কিছু করছিলেন| তিনি একজন আটচল্লিশ বছরের অতিকায়, স্থুল প্রকৃতির সম্পুর্ন মুন্ডিত মস্তক সিনেমা প্রডিউসার| এই মুহুর্তে তাঁর গলায় একটি বড় সোনার চেইন, যা তাঁর লোমশ বুকে বিশ্রাম নিছে| তাঁর পরনে সাদা পাঞ্জাবি ও লাল পাজামা, এটি তাঁর বিখ্যাত ট্রেডমার্ক পোশাক যার জন্য তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে বিখ্যাত| panu golpo

শালিনীকে দেখে তিনি দন্ত উন্মোচন করে হেসে সোফায় তাঁর বাঁ পাশে এসে বসতে ইঙ্গিত করেন| তাঁর উপরের সারির একটি দাঁত সোনার| শালিনী ওঁর অভিমুখে হাসিমুখে যেতে যেতে কৌতূহলে ভাবে কেমনভাবে পদ করলেন এই সোনার দন্তটি ধানুকা| তিনি কি সত্যিই নিজের একটি উপরের সারির দাঁত হারিয়েছেন না, অন্য কিছু…

শালিনী পাশে এসে বসলে দরাজ হেসে অভিবাদন জানান ধানুকা নিজের বিশাল বাম বাহুতে ওর স্কন্ধ বেষ্টন করে ওকে নিজের কাছে ঘনিষ্ঠ করে নিয়ে “কেমন আচ প্রিয়াঙ্কা?”
-“এক্সেলেন্ট মিঃ ধানুকা!” সুন্দর ঝকঝকে সাজানো দাঁতের সারি মেলে হেসে ওঠে শালিনী, ওঁর শরীরের খুব কাছাকাছি ঘনিষ্ঠতায় সে গন্ধ পাছে ওঁর দামি কোলনের| panu golpo

-“Or should I call you Ms.chopra!” ওর হাসিতে মুগ্ধ হয়ে বলে ওঠেন ধানুকা|
-“You are flattering me!” শালিনী তার অপরূপ মুখশ্রী লজ্জার লালিমায় মাখিয়ে অল্প নত করে মুখ!
-“নো seriously!” ধানুকা বলে ওঠেন সোফায় নড়েচড়ে বসে “আমার তো মনে হয় তুমি, given right slot, will be more glamorous than even her!”

-“উম্ম, হিহি..” শালিনী উত্তরে তার তনুটি আকর্ষনীয়ভাবে মুচড়ে উত্তপ্ত হেসে ওঠে ধানুকার পাশে| এ-কদিনে সে ভালই পারদর্শী হয়েছে এমন ফ্ল্যাটারির খেলায়, রপ্ত হয়ে উঠছে মন–মাতানোর খেলায়|..

-“হহমম’ ধানুকা হেসে এবার শালিনীর স্কন্ধে তাঁর হাতের চাপে ওর তনুটি আরো একটু নিজের দিকে করে মুক্ত ডান-হাতটি এনে ওর উদরের কাছে ওর পাতলা লাল শাড়ির আঁচলের কাপড় দেখতে দেখতে বলেন “তুমার শাড়ি বহত খুবসুরৎ,,উম” তিনি এবার সরাসরি ওর উরুর উপর হাত নামিয়ে শাড়ির আঁচলের উপর দিয়েই আস্তে আস্তে ঘষতে ঘষতে যেন কিছুই হয়নি এমনভাবে ওর দিকে তাকিয়ে হেসে বলেন “উম.. তুমি খুব নাজুক আছে, ঔর ভিশন কিউট! বলো কি খানাপিনা আনি? ফার্স্টে ড্রিঙ্কস হয়ে যাক! স্কচ?” panu golpo

-“উম, আমি ড্রিঙ্কস করি না! মিঃ ধানুকা আপনি জানেন!” আদুরে, লাস্যময়ী গলায় বলে ওঠে শালিনী ওঁর দিকে চেয়ে ঠোঁট মুচকে হেসে, বলার সময় সে আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে বাঁ-হাতে নিজের চুল একপাশ করে নিয়ে ফর্সা মরালগ্রীবা উন্মুক্ত করে ধানুকার সামনে| বুকের উপর তার আকর্ষনীয় বক্ষসম্পদদুটি প্রকট করে অথচ কিছু না বোঝার ভান করে সে স্বাভাবিক আচরণ করে সহজাত লাস্যে| এ-কদিনে সে অনেকটাই আরষ্টতা কাটিয়ে উঠেছে|

মিঃ ধানুকার মতো উচ্চস্থানীয়, ধনী রত্নকুম্ভীরের খুচরো উরু-স্পর্শে সে কিছু মনে করে না… যদিও চকিতে তার দুই হরিন-নয়ন একবার দেখে নেয় গেটে পরিচারকটিকে, স্বাভাবিকভাবেই লোকটির দৃষ্টি এদিকে… শালিনীর চোখাচুখি হতেই চোখ সরিয়ে নেয় যদিও| শালিনী ব্যাপারটাকে আমল দেয় না|
-“প্লিজ প্রিয়াঙ্কা! my treat! আমার এখানে ককটেল অন্তত টেস্ট কর! I insist!” নিবিড় চাপ দিয়ে শাড়ির উপর দিয়ে শালিনীর উরু থাবায় মলতে মলতে আবেশে-দুষ্টুমিতে ধানুকা বলেন “প্লিইইজ!”
-‘ওকে!” শালিনী মুখে বাঁকা প্রশ্রয়ে হাসি টানে “তবে অনলি ককটেল!” panu golpo

-“কুকিস? উম?”
-“ওকে!” শালিনী ঠোঁট কামড়ে হাসে মিষ্টি করে|
-“Thats like a good girl! হাহা!” তিনি ওর চিবুক নেড়ে দেন, এবং উদ্দেশ্যপ্রনোদিত ভাবেই হাত নামাবার সময় শালিনীর ফুটন্ত স্তন ছুঁয়ে যান, তারপর বেল বাজিয়ে ভৃত্যকে অর্ডার করেন|

-“উম” শালিনী মিষ্টি হেসে একবার নিজের বুকের দিকে তাকায়| তার সুডৌল, লাল ব্লাউজে টানটান ডানস্তনটি আঁচল সরে কিছুটা বেরিয়ে এসেছে| শালিনী আঁচল আর ঠিক করেনা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই,… সে জানে তার বুকের এই দুটি আকর্ষনীয় নরম-উন্মুখ অস্ত্রের এখন তাদের নিজেদের লাস্যে চলতে দেয়াই শ্রেয়|
ভৃত্য ট্রে সামনের টেবিলে অধোবদনে রেখে যাবার পর শালিনীকে পুনরায় নিজের কাছে ঘনিষ্ঠ করে গ্লাসে ককটেল ঢালেন ধানুকা| “উম্ম, I like this cocktail very much! We will drink from the same glass!” তিনি গ্লাসটি শালিনীর হাতে দিলে সে হাসিমুখে তা নেয়| panu golpo

-“উম্ম..” শালিনী কোমর বেঁকিয়ে এমনভাবে বসে যাতে তার উন্মুখ স্তনদ্বয় তাঁর বুকের কাছাকাছি লোভনীয়ভাবে ছোঁয়াছুঁই খেলতে থাকে| হাসিমুখে সে গ্লাস তুলে চিয়ার্স জানায়| তারপর গ্লাসটি নিজের ঠোঁটে ধরে অল্প চুমুক দিয়ে ওঁর ঠোঁটে ধরে|
-“উমমম, Do you like it?” চুমুক দিয়ে বলেন ধানুকা|

-“Its fantastic!” শালিনী ঠোঁটে অল্প একটু জিভ বুলিয়ে ঠোঁট মুচকে হেসে বলে| ওর ভেজা ঠোঁট, ওর উন্মাদ করার রূপের লাস্যে অভিভূত হয়ে যান ধানুকা, কিন্তু তিনি ভোগপ্রবীন মানুষ| শরীরের কাছাকাছি নরম, উষ্ণ লাস্যময়ী সুন্দরী যুবতী নিয়ে মদালাপ তাঁর এই প্রথম না| তিনিও হেসে আলতো করে ওর নগ্ন নাভিতে আঙ্গুলের খোঁচা দেন|
-“আউচ!” হেসে ওঠে শালিনী অল্প কাতরে উঠে, তার হাতে ধরা গ্লাস থেকে মদ চলকে তার শাড়ির আঁচলে পড়ে বুকের উপর| panu golpo

-“দেখেছো তো!” হেসে ওঠেন ধানুকা “এখন পাল্লু না সরিয়ে তুমি পারবে না!” বলে তিনি শালিনীর বুক থেকে শাড়ির আঁচল আলতো করে ফেলে দেন| চাপা কমলা ব্লাউজে অত্যন্ত আকর্ষনীয়ভাবে খাড়া-খাড়া হয়ে নিজেদের সম্পুর্ন আদল নিয়ে সমুন্নত দুটি স্তন যেন তাঁরই দিকে দুর্বিনীত ভাবে ফুলে আছে! আমোদিত বোধ করেন ধানুকা| তাঁর ভোগপ্রবীন হৃদয়ও কিছুটা চলকে ওঠে|

ধানুকার হেন দুষ্টুমিতে বাধা প্রদান না করে শালিনী নরম-গরম উষ্মায় তাঁর দিকে চেয়ে তারপর ঠোঁট টিপে লাস্যময়ী হাসে| আঁচলখসা বুকেই সে আদূরেভাবে গ্লাস রেখে একটি কুকি তুলে নেয়|
-“উমমম, These are delicious! কোথা থেকে এনেছেন?” আদুরে স্বরে বলে ওঠে শালিনী অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে কুকিতে কামর দিয়ে|
_”হাহা, আমার ওয়াইফ বানিয়েছে!” হেসে বলেন ওর হাত থেকে গ্লাস নিয়ে স্কচে চুমুক দিয়ে| panu golpo

-“উম্ম! আপনি তো খুব নটি!” ঠোঁট মুচকে লাস্যময়ী হেসে শালিনী আদুরে ছলনায় তার বুকটা ঠেলে উঠে এবং যেন দুষ্টুমি করেই কমলা ব্লাউজে একটি পরিপক্ক আমের আকৃতিতে টানটান ফুলে ওঠা তার বামস্তনটি ছুঁয়ে যায় ধানুকার বুকের পাশটিতে….

-“হমম, Thats what i like to hear!” শালিনীর সুডৌল স্তনের স্পর্শে আমোদিত হয়ে ধানুকা তাঁর গ্লাস ধরা হাত নামিয়ে এনে ছোঁয়ান তাঁর বুকের কাছে ওর উদ্ধত বামস্তনটির উপর, তর্জনী ও বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ দিয়ে গ্লাসটি ধরে তিনি অন্যান্য আঙ্গুলগুলি দিয়ে আলতো আঁচড় কাটতে থাকেন স্তনটির উপর টানটান ব্লাউজের কাপড়ে, চুলকে দেবার মতো করে–“ She is praised all around!”

“উমমম, হিহি” অস্ফুটে উত্তপ্ত হাসিতে নিজের মুখ অপূর্ব সুন্দর লালিমায় ভরিয়ে তলে শালিনী চোখ নামিয়ে| তার স্তন নিয়ে খুনসুটি করতে রত ধানুকার হাত থেকে সে গ্লাসটা নেয়|
গ্লাস ঠোঁটে দেবার আগে মুচকি হেসে চোখে এক অপূর্ব ঝিলিক দেয় শালিনী| এতই শ্বাসরুদ্ধকর সুন্দর সেই ভঙ্গি যে ধানুকা ওর ঠোঁটে হাত উঠিয়ে আঙ্গুলের চাপ দিতে বাধ্য হন| panu golpo

-“উম্ম” নরম কমলার কোয়ার মতো ঠোঁটদুটো দিয়ে তাঁর চেপে ধরা আঙ্গুলে মিষ্টি চুম্বন করে শালিনী, গিলে নেয় ঝাঁঝালো তরল| ঠোঁট ফুলিয়ে হেসে ওঠে সে পিঠ বেঁকিয়ে এমনভাবে যে তার কমলা রঙের ব্লাউজে দুটি গম্বুজের মতো ফুলে ওঠা স্তন আরো টানটান হয়ে ওঠে, বাঁ-কাধ থেকে নিজের আলুলায়িত খোঁপা সরিয়ে এনে সে ডান-কাঁধে ফেলে| “আপনি লোকে যা ভাবে তার থেকেও খুব নটি!” সে আদুরে ভাবে বলে|

-“হাহা,, উমমম” মিঃ ধানুকা এবার তাঁর শালিনীর স্কন্ধ বেষ্টন করা বাঁহাত একটু সরিয়ে এনে ওর নরম চুলের খোঁপা আরো ঘেঁটে আলুথালু করে ফেলেন| নরম সিল্কের মতো চুল নিয়ে খেলা করেন….. তারপর সামান্য হেসে ওর অপরূপ সুন্দর হাসিমাখা মুখের দিকে চেয়ে বলেন.. “হাহা,.. কি করে তোমার মালুম হলো আমি এত নটি?” panu golpo

-“উমমম” শালিনী চোখেমুখে অর্থপূর্ণ ভঙ্গি করে হাসে, একটুও কোনো অভিযোগ বা অসারতা না দেখিয়ে সে অসাধারণ একটি সুন্দর হাসিতে তার সৌন্দর্য্যে আরো ঢেউ তুলে বলে ওঠে “আপনার ওয়াইফ বাড়িতে সে কথা একবারও তো বলেননি!”
-“হাহা,.. তো?” ধানুকা হেসে বলে ওঠেন স্বাভাভিকভাবে|

মিঃ ধানুকার এমত প্রশ্নে কি উত্তর দেবে বুঝতে পারেনা শালিনী| কিন্তু মুখে তার প্রতিচ্ছবি না পড়তে দিয়ে একটুও অপ্রস্তুত না হয়ে সে মিষ্টি হেসে তেরছা চোখে তকিয়ে বলে:
“Does she know?”
-“Know what?”
-“That আপনি… you are .. interviewing me?” ঠোঁট কেটে হাসে শালিনী| panu golpo

-“কেন? do you want her to come? Do you want her company too?” হেসে ওঠেন ধানুকা, “হাহাহা… থ্রিসাম?”
-“ধ্যাত!” শালিনী এবার লজ্জা পেয়ে তার তার সুন্দর মুখ একপাশ করে|
-“হমম..” হেসে এবার তিনি ডানহাত বাড়িয়ে তিনি টেবলে প্লেটের উপর থেকে কুকি নিয়ে এসে কামর দেন -“ঔম্ম, তুমি একটা নিলে যে? দেখো এটা টেস্ট করে!” তিনি নিজের আধখাওয়া কুকি তিনি বাড়ান ওর দিকে|

-“উম” শালিনী এবার ঠোঁট টিপে অত্যন্ত আকর্ষনীয়ভাবে হেসে হাত বাড়িয়ে তা নেয়|
-“উম, I love you bengali girls, you are seductive, sultry, sexy and cute!” ধানুকা এবার ওর উন্মুক্ত, ফর্সা কোমরে চাপ দিয়ে ওকে আরো কাছে টানতে টানতে বলেন “তুমার মধ্যে নায়িকা হবার সমস্ত জিস্টই রয়েছে, উম্ম”
-“উম, থ্যাঙ্ক ইউ মিঃ ধানুকা!” শালিনী আকর্ষনীয়ভাবে তার সাজানো দাঁত দিয়ে কামর দেয় হাতে ধরা কুকিটিতে, মিষ্টি হাসে| panu golpo

মি: ধানুকার বাড়িতে শালিনীর আজ দ্বিতীয় দিন| ধানুকার সাথে তাকে পরিচয় করিয়ে দেন তারই কলেজের ফ্যাশন বিভাগের অধ্যাপিকা নন্দিনী ভার্মা| টলিউডের ফ্যাশন জগতের এক নামকরা ডিজাইনার তিনি| বহু মেইনস্ট্রিম ছবিতে তিনি কাজ করেছেন এবং করে চলেছেন| কথিত আছে মুম্বইয়ের একটি প্রত্রিকায় তাঁর কাজ দেখে মুগ্ধ হয়ে ভারত পরিদর্শন করতে আসা লন্ডনের এক বিখ্যাত থিয়েটার-শিল্পী এলিস রিচার্ডস তাঁকে আহ্বান জানিয়েছিলেন বিখ্যাত ইংলিশ ব্রডওয়ে ড্রামা ‘আ মিডসামার নাইট’স ড্রীম’ এর জন্য কস্টিয়ুম ডিজাইন করার জন্য|

তবে মিস. ভার্মা তা সবিনয়ে প্রত্যাখ্যান করে জানিয়েছিলেন ‘টলিউড-ই তাঁর জগৎ, বাংলাই তাঁর প্রিয় ও প্রাণের স্থান’| শালিনীর চোখ ঝলসানো, হৃদয় অবশ করা রূপ ছারাও ওর মধ্যে এক সহজাত লাস্য, ও অভিনয়-প্রতিভা তিনি বেশ অনেকদিন ধরেই লক্ষ্য করছিলেন| সময় মতো মি: ধানুকার সাথে আলাপ করিয়ে দেওয়াটা শুধু বাকি ছিল| যদিও তিনি জানেন রূপ, লাস্য, অভিনয়-গুন, স্বাতন্ত্র এই সকল গুনাবলী নিয়ে বহু, হাজার হাজার মেয়ে প্রতিদিন আসছে নায়িকা হবার স্বপ্ন নিয়ে| panu golpo

কিন্তু একজন প্রতিষ্ঠিত নায়িকা এবং এদের মধ্যে অভিজ্ঞতা ছাড়াও আর একটি ‘বিশেষ গুণ’গত পার্থক্য থাকে| এই বিশেষ গুণটি শালিনীর আছে কিনা, তা জানার জন্যই মিস. ভার্মার শালিনীকে অজয় ধানুকার কাছে পাঠানো| তিনি জানেন কয়েকটি সাক্ষাতের পরেই শালিনী বুঝে যাবে টলিউড-কাস্টিং-কাউচ এর রীতিনীতি… তারপর দুর্ভাগ্য বশত: হয় পাশ নয় ফেল| এবং নিরানব্বই শতাংশ মেয়েই ছিটকে বেরিয়ে যায় এই পরীক্ষা থেকে| কিন্তু নন্দিনী ভার্মার কেমন যেন প্রতীতি হয়েছে শালিনীর ভিতরে একটা ধিকিধিকি জ্বলতে থাকা আগুন আছে… শুধুমাত্র তাঁর অনুমান এটি| যাই হোক, তা সময়ই প্রমাণ করে দেবে|

প্রথমদিন শালিনীর সাথে সাক্ষাতকারে স্বাভাবিকভাবেই ধানুকা চমত্কৃত ও আমোদিত হয়েছিলেন কিন্তু ব্যস্ততার কারণে সেদিন কথাবার্তা আলাপচারিতা বেশিক্ষণ এগোতে পারেনি| কিন্তু আজ তিনি শালিনীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তাঁর প্রাইভেট কোয়ার্টারে| এবং এতক্ষণ কথোপকথনে মনে হচ্ছে তিনি যারপরনাই আনন্দিত| শালিনীর উষ্ণ ঘনিষ্ঠতায়, ওর অসাধারণ সুন্দর হাসি ও নিপুন লাস্যে তিনি অনুভব করছেন ভিতরে এমন কিছু যা তিনি অনেকদিন অনুভব করেননি| panu golpo

শালিনীর কোমর বেষ্টন করে কাছে টেনে ধানুকা এখন ওর উদ্ধত-যৌবনা বুকে ব্লাউজে আঁটসাঁট, টানটান দুটি উষ্ণ নরম ফল নিজের স্থূল শরীরের একপাশে মিশিয়ে নিয়ে অপর হাত দিয়ে ওর সুন্দর ফর্সা মুখের বাঁ-পাশে এসে পড়া একগোছা ঘন কালো চুল নিয়ে খেলা করতে করতে ওর সৌন্দর্য্যসুধা পান করছেন|
শালিনী তার মুখের মধ্যে তাঁরই দেয়া কুকিটি আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে চিবোতে চিবোতে মুখে মুচকি হাসি নিয়ে তাকিয়ে আছে তাঁর দিকে|

সে জানে ধানুকার শরীরের চাপ খেয়ে তার চাপা ব্লাউজ থেকে তার ফর্সা স্তনদুটি কিছুটা উথলে উঠেছে অত্যন্ত যৌনাকর্ষক মদিরতায়, এবং তাদের মাঝের অরুনাভ, গাঢ় খাঁজটিতে বারবার চলে যাচ্ছে ধানুকার চোরা দৃষ্টি| কিন্তু সেদিকে যেন তার কোনো ভ্রুক্ষেপই নেই, এমন একটি আদরমাখা ভঙ্গিতে সে তাকিয়ে আছে তাঁর দিকে নিজের অপরূপ সুন্দর মুখশ্রীর দ্যুতি নিয়ে| panu golpo

-“You are so beautiful, and sooo lucky to have such beauty!” মিঃ ধানুকা শালিনীর চুল ছেড়ে ওর নরম স্কন্ধে ডানহাতের পাতা রাখেন “Not every girl has such alluring perfection, not every girl deserves…” তাঁর হাতের চেটো শালিনীর কাঁধ বেয়ে মসৃণ গতিতে ব্লাউজের সীমানা ছাড়িয়ে নেমে আসে ওর নগ্ন ফর্সা বাহুতে, নরম মসৃণ ফর্সা ত্বক বেয়ে নামতে থাকে.. তাঁর অপর হাত শালিনীর কোমর থেকে নেমে ঠিক নিতম্বের উপরের নগ্ন খাঁজে থামে… তর্জনী বোলাতে থাকেন তিনি সেখানে

-“You are flattering me again Mr Dhanuka!” শালিনী উত্তপ্ত স্বরে বলে ওঠে মুখ টিপে হেসে, যদিও সে একটু একটু শিউরে উঠছে তার মসৃণ ত্বকে ধানুকার খরখড়ে হাতের স্পর্শে|…

ধানুকার ডানহাত এখন খেলছে শালিনীর নগ্ন উদরের উপর নাভির আশেপাশে ফর্সা চামড়ায়| তাঁর অপর হাতের তর্জনী ওর নিতম্বের উপরের খাঁজটিতে বিচরণ করতে করতে এবার সেখানে বেশ জোরে একটি চাপ দেয় ওর কথা শেষ হওয়া মাত্রই,… “আউচ!” বলে শালিনী পিঠ ঠেলে উঠতেই ধানুকার ডানথাবা ওর উদর থেকে তরিত্গতিতে উঠে ওঁর শরীরের সাথে লেগে থাকা ওর বামস্তনটি খপ্ করে ধরে ফেলে| panu golpo

প্রথমে সমস্ত করতল ও পাঁচ আঙ্গুল প্রসারিত করে তিনি কমলা ব্লাউজে আমের মতো ঠেলে ওঠা স্তনটি গুছিয়ে ধরেন, তারপর থাবার মধ্যে নরম ফলটি চেপে ধরেন, তালু ঠেলে দাবিয়ে দেন নরম তুলতুলে উষ্ণ মাংসে.. “ummm… soo juicy, ripe and hot! You are a real teaser!” তিনি শালিনীর দিকে তাকিয়ে বলেন|

-“উউম” শালিনী ঠোঁট ফুলিয়ে ওঠে| যদিও সে আচমকা অপ্রস্তুত হয়ে পড়েছে মিঃ ধানুকা তার স্তনপীড়ন করতে শুরু করায়, এবং প্রবৃত্তিবশতই তার বাঁহাত উঠে এসেছে তার স্তনের উপর মিঃ ধানুকার হাতের উপর, কিন্তু সে সঙ্গে সঙ্গেই নিজেকে সামলে নেয়| সে এটির জন্য আজ প্রস্তুত ছিল, শুধু এমন আচমকা আক্রমনে নয়| সে তার উঠে আসা হাতটি তার স্তনের উপর ধানুকার থাবার উল্টোপিঠে রেখে ওঁর হাতের আঙ্গুলের একেকটি আংটিতে বোলাতে থাকে মুগ্ধভাবে “and you are a really rich man!” সে মুখ তুলে তাকায় ধানুকার দিকে, তার ঠোঁটে টলমল করছে প্রশ্রয়মাখানো দুষ্টু হাসি| panu golpo

-“হাহাহাহা” জোরে হেসে ওঠেন বিশাল বপু কাঁপিয়ে ধানুকা| তিনি সম্পূর্ণ লক্ষ্য করেছেন শালিনী প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া এবং তা কাটিয়ে উঠে পরিস্থিতি সামলে নিয়ে ওঠার অসামান্য প্রদর্শনটি| তদুপরি তাঁর মন্তব্যে ওর এমন সরস উত্তরে তিনি ভীষণ আপ্লুত হয়েছেন! তিনি তাঁর হাতে ধরে থাকা স্তনটি ভালো করে মালিশ করে করে টিপতে শুরু করেন, অপর হাত ওর কোমর থেকে তুলে এনে ওর কাঁধ বেষ্টন করে বলেন “তুমার সত্যিই, সত্যিই বহত পটেনশিয়াল আছে, .. হাহা”

-“উম্ম..” শালিনী কোনো আপত্তি করেনা তার স্তন নিয়ে নিয়মিত সংকুচিত ও প্রসারিত হতে থাকা ধানুকার থাবাটিকে| মুখ টিপে হেসে সে বলে ওঠে “তা এই কথাই বলে আমায় আশা দেখিয়ে যাবেন, or do I get my first script today?”
-“First script?” ধানুকা বিস্ময়মাখানো হেসে শালিনীর টগবগে স্তন থেকে হাত তুলে ওর চিবুক তুলে ধরেন “On your second formal visit to Ajay Dhanuka? লড়কি,… তুমি তো দেখছি as ambitious as your beauty! A bit too much ambitious!”
-“হিহিহি..” শালিনী একটুও নিষ্প্রভ না হয়ে হেসে ওঠে ঝর্নার মতো তার শ্বেতশুভ্র দন্ত-পঙ্গক্তি উন্মুক্ত করে.. “Well there is no harm in asking!” panu golpo

-“সচ বাত!” ধানুকা আবার শালিনীকে শরীরের সাথে ঘনভাবে মিশিয়ে নিয়ে ওর চোখে চোখ রেখে বলেন “I like talking to you, do you think we should resume our conversation in a more private ambience… ??”
শালিনী হাসিমুখে তাকিয়ে থাকে ওঁর দিকে, সে জানে তাঁর এই ইঙ্গিতপূর্ণ অভ্যর্থনার মানে কি| সর্পিল গতিতে তার বাহু বেয়ে চলাফেরা করছে তাঁর সরিসৃপ হাত|

সে চোখ থেকে চোখ সরিয়ে নেয় না ওঁর দুই চোখ থেকে, এই মুহূর্তে অনেক ইঙ্গিত, অনেক সম্ভাবনা… আসন্ন সফলতা-অসফলতার কথকথা লেখা হয়ে যাচ্ছে সেই ক্লেদাক্ত দুই-চোখে| এই মুহূর্তে সে দাঁড়িয়ে আছে একটি সীমারেখার উপর… তার পরীক্ষার প্রথম গুরুত্বপূর্ন প্রশ্নের সম্মুখীন সে| এবং তার সঠিক, এবং সু-বিবেচিত উত্তরের উপর নির্ভর করছে তার ভবিষ্যত অভিনেত্রী-জীবনের সবকিছু… panu golpo

কি উত্তর দেবে শালিনী?

প্রায় যেন এক যুগ দু-জোড়া চোখ পরস্পরের দিকে নিবদ্ধ থাকে| শালিনীর মুখের একটি পেশিও স্থানান্তরিত হয় না তাদের স্বাভাবিক অস্থান থেকে| দীর্ঘ ত্রিশ বছরের জমে ওঠা অভিজ্ঞতার ঝুলি নিয়েও ধানুকা বুঝে উঠতে পারছেন কি চলছে ওই দুই চোখের অন্তরালে… অবাক হন তিনি|

-“আজ থাক মিঃ ধানুকা,.. It’s getting late… আমাকে এবার যেতে হবে|” বলে ধানুকাকে অবাক করে দিয়ে শালিনী উঠে পড়ে ওঁর পাশ থেকে, বুকে আঁচল তুলে সুন্দর ভঙ্গিতে ঠিক করে নেয়| মুচকি হাসি উপহার দেয় ওঁকে একটি| তারপর সাবলীল ছন্দে গটগট করে হেঁটে যায় পেছন ফিরে| panu golpo

“প্রিয়াঙ্কা ওয়েট!”

শালিনী থেমে যায়| হাসিমুখে ময়ূরকন্ঠি ঘাড় হেলিয়ে পেছনে তাকায়|

ধানুকা ওঠেন সোফা থেকে তাঁর বিশাল তনু নিয়ে| ঘরের কোনে একটা বুককেস খুলে একটা ফাইল বের করে নিয়ে আসেন দন্ডায়মান শালিনীর কাছে| সেটি ওর হাতে দিয়ে মুচকি হেসে বলেন “You are forgetting your first script!”

-“Wow!” শালিনী উজ্জ্বল হয়ে হেসে ফাইলটি নেয়| তারপর একটু এগিয়ে এসে একদম ধানুকার দেহ ঘেঁষে দাঁড়িয়ে নিজের রঞ্জিত ঠোঁটদুটি ফুলিয়ে সরাসরি ওর ঠোঁটে একটি উত্তপ্ত চুম্বন এঁকে দিয়ে ফিসফিস করে বলে “thank you Mr Dhanuka!” panu golpo

-“ইউ আর ওয়েলকাম!” ধানুকা ওর পাতলা কোমরের খাঁজে হাত রাখেন “come back to me with this when you are ready, any day. Make an appointment with my receptionist, I will put your name on the top of the list.”

-“I will!” শালিনী মিষ্টি হেসে উত্তর দেয় শরীরে একটি আকর্ষনীয় ঢেউ তুলে, তারপর ফাইলটি নিজের বুকের উপর দু-বাহুর মাধ্যমে চেপে ধরে পেছন ফিরে ঠোঁট কামড়িয়ে হাসে| তারপর হেঁটে দরজার কাছে আসতে ভৃত্য একহাতে তা ওর জন্য খুলে দেয়|

লিফটে নামার সময় chauffeur ছেলেটির সাথে তার আবার মুলাকত হয়| মুচকি হাসি উপহার দেয় ছোট্ট করে ওকে শালিনী|

-“আপনি ঠিক ডিসিশন নিয়েছেন ওখানে ম্যাডাম!” কিছুক্ষণ পর ছেলেটি বলে ওঠে হঠাত|
-“কি ডিসিশন?” শালিনী ভ্রু তুলে তাকায়|
-“আজকে বসের বেডরুমে না গিয়ে|” ছেলেটি মুচকি হেসে বলে|
-“what… আপনি কি করে জানলেন?” panu golpo

-“We watch everything, we have to, actually!” ছেলেটি মুখে হাসি নিয়েই বলে|
শালিনী প্রথমে অপ্রস্তুত হয়ে পরেও তারপরেই মুখে একটি উষ্মা-মেশানো সুন্দর হাসিতে ঠোঁট ফুলিয়ে রাগত চোখে তাকায় ভ্রু কুঁচকে “pervert!”
-“হাহা..” ছেলেটি শালিনীর মন্তব্য হেসে উড়িয়ে দিয়ে বলে “প্রথমদিন ৯৯% মেয়েরাই বসের কাছে কাঠের পুতুলের মতো বসে থাকে, গায়ে হাত দিলে কুঁকড়ে ওঠে, তারপর বস বেডরুমে যেতে অফার করলেই ঢক করে ঘাড় নেড়ে হ্যাঁ বলে দেয়, ভাবে বুঝি ওটা করলেই বস সন্তুষ্ট হয়ে চান্স দিয়ে দেবে!

কিন্তু আপনি ঠিক তার উল্টো করলেন| আজকে এক-কথায় বসের সাথে বেডরুমে গেলে তিনি আপনাকে কোনদিনই আর সিরিয়াসলি নিতেন না! But now, look at you! You have already got your first script! You did brilliant!” panu golpo

শালিনী কিছু না বলে প্রশংসা উপভোগ করে| সে ছেলেটিকে এতক্ষণে ভালো করে দেখছিলো| ফর্সা, লম্বা| খুবই সুদর্শন|
লিফটের দরজা খুলে গিয়েছিলো| সে আবার একটা মুচকি হাসি ছেলেটিকে ছুঁড়ে দিয়ে বেরিয়ে যেতে যেতে বলে “nice knowing you.”
-“লুকিং ফরোয়ার্ড টু মিট ইউ এগেন!” ছেলেটি চেঁচিয়ে বলে ওঠে গমনরতা শালিনীর উদ্দেশ্যে|

1 thought on “panu golpo পিতার রাজকন্যা – 7”

Leave a Comment