handjob choti পিতার রাজকন্যা – 2

bangla handjob choti. শালিনী হাসিমুখে নিজেকে আয়নায় দেখে| নিজের অপূর্ব সুন্দর উজ্জ্বল মুখশ্রী দিকে তাকিয়ে তার নিজের সৌন্দর্যে যেন নিজেই সে বিভোর হয় নতুন করে আবার!তার ঘন কালো টানা টানা দুটি চোখ, তীক্ষ্ণ উদ্ধত নাসা, নরম হালকা গোলাপী পাপড়ির নেয় দুটি ঠোঁট, সুডৌল ছোট্ট চিবুক, ফর্সা মরাল গ্রীবা, সবই যেন অত্যন্ত বেশি করে সৌন্দর্যে মন্ডিত| মাথার চুলের একটি লক তার মুখের একপাশে পরে তার সৌন্দর্যকে একটু রহস্যময়ী লাস্য এনে দিয়েছে| তবে শালিনীর মুখমন্ডলের সবথেকে মারাত্মক আকর্ষনীয় স্থান তার ভ্রূযুগল|

[পিতার রাজকন্যা – 1]

নিখুঁত, বাঁকা একটু উপরদিকে আঁচড় কেটে ওঠা সেই ভ্রু-দুটি যেন তার সমস্ত সৌন্দর্যে এক উদ্ধত অশনিসংকেত জাহির করছে, যা দেখে যে কোনো যোগ্য প্রতিদ্বন্দিও দু-পা পিছিয়ে আসতে বাধ্য হবে! মুচকি হেসে শালিনী আয়নার সামনে চেয়ারে বসতে বসতে লাল সালোয়ার-কামিজে নিজের একুশ বছরের নাচ শেখা ছিপছিপে তনুটিকে মনে মনে তারিফ করে| তার শরীরের গঠন আওয়ারগ্লাসের মতন| জিন্স টপ পরলে তা একদম পরিস্ফুট হয়ে ওঠে| গত দু বছর ধরেই সে ধরে রেখেছে নিজের ৩৬ ডি-২৬-৩৮ গঠনটি|

handjob choti

এর পেছনে মেহনতও কম করেনি সে। কিন্তু এখন এই চাপা হলুদ সালোয়ার কামিজেও তার অপরূপ আকর্ষনীয় তনুর আঁক-বাঁক বেশ স্পষ্ট| মুখ টিপে হাসে সে আয়নায়| বুকের উপর তার কামিজ টানটান করে দুটি  বড় বড় মাইয়ের আকৃতি স্পষ্ট|তার এই মনকারা উদ্ধত স্তনজোড়া আবাল-বৃদ্ধ সকলেরই বুকে তীর বেঁধে সর্বত্র| এর জন্য তাকে কম অসুবিধায় পড়তে হয়নি! যে কোনো পোশাকেই তার স্তনদুটি অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে ফুলে ফুলে উঁচু-উঁচু হয়ে থাকে| যেন তার শরীর থেকে কিছুটা এগিয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে থাকবেই তারা অপার অহংকারে|

তার এমন খাড়া-খাড়া স্তনযুগলের মোহিনী রূপের তীরে বিদ্ধ হয়ে অনেকেই তাকিয়ে থাকে, এবং ভেতরে জ্বলে পুরে মরে| এতে শালিনী মজা পেলেও অস্বস্তিও বই তার কম হয়না! বিশেষ করে যখন কোচিং-এ পরবার সময় এবং কলেজে ফার্স্ট বেন্চ-এ বসলে সে অনুভব করে স্যার এবং অধ্যাপকদের দৃষ্টি ঢুকে পড়তে চায় তার কামিজ অথবা টি-শার্ট-এর গলার ভিতর দিয়ে… | যাই হোক, শালিনী একরত্তি কোমর একটু বেঁকিয়ে বসে তার মৃণাল বাহুলতা বাড়ায় ড্রেসিং-টেবলের দিকে| মাথার পিঠ অবধি ঘন কালো চুল একহাতে জড়ো করে| handjob choti

সমস্ত প্রসাধন শেষে শালিনী এসে হাসিমুখে রজতবাবুর ভেজানো দরজায় টোকা মারে|
“ভেতরে আয়!” ঘরের ভিতর থেকে গুরুগম্ভীর কন্ঠস্বর পাওয়া যায়|
শালিনী হাসিমুখে এসে দরজা ঠেলে ঢোকে| তার পিতা বিছানার উপর আধশোয়া তাকিয়ায় হেলান দিয়ে| তাঁর অবস্থা বেশ আলুথালু| পরনে স্যান্ডো-গেঞ্জি ও একটি জাঙ্গিয়া| তাঁর স্থুল শরীরটি হাস্যকর লাগছে এই পোশাকে| তাঁর বুকের কাঁচা-পাকা লোম স্যান্ডো-গেঞ্জির বাইরে বেরিয়ে কুঁচকিয়ে আছে|

দুটি বিশাল লোমশ থাই-সহ দুটি পা পুরোটাই নগ্ন| এবং সে-দুটি তিনি ছড়িয়ে রেখেছেন বিছানার উপর দু-দিকে| জাঙ্গিয়া আবৃত নিজের শিশ্নদেশ উন্মুক্ত করে রেখে| তাঁর বাঁ-হাতে ধরা একটি মদের বোতল| “আয়, সোনা, কাছে এসে বস!” তিনি ডাকেন শালিনীকে|
শালিনী মুচকি হেসে পিতার দিকে এগিয়ে গিয়ে প্রথমেই ওঁর হাত থেকে মদের বোতল নিয়ে পাশের টেবিলে রাখে| তারপর পা জড়ো করে ঝুলিয়ে রেখে বসে ওঁর ছড়ানো দু-পায়ের ফাঁকে| handjob choti

“কি হয়েছে?” সে মুখ টিপে হেসে শুধায় পিতাকে| নিজের ডান হাতটি বাড়িয়ে এনে রাখে ওঁর সাদা গেঞ্জিতে ফুলে ওঠা বিশাল উদরের নিচে ওঁর শিশ্নদেশের উপর জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে সরাসরি| হাত বুলিয়ে আদর করতে থাকে সে পিতাকে মুখে দুষ্টুমিভরা হাসি নিয়ে ওঁর মুখপানে চেয়ে|
-‘উমমম,,..” আরামে মদের গন্ধযুক্ত শ্বাস ছেরে হেসে আদুরে ভাবে তিনি ভারী গলায় বলেন “কি আবার হবে, তোমাকে ডাকতে আজকাল আবার কারণ লাগে নাকি রূপসী?

-“হিহি..” শালিনী তার অনিন্দ্যসুন্দর সাজানো দন্তপঙ্গক্তি উন্মুক্ত করে হাসে তার চাঁপার কলির মতো আঙ্গুলগুলি ও নরম তালুর তলায় পিতার জান্গিয়ায় আবদ্ধ পুরুষাঙ্গের নিমেষের মধ্যে শক্ত তাগড়াই হয়ে উঠে ফুঁসতে থাকা অনুভব করতে করতে, জাঙ্গিয়া ঠেলে তাঁবুর মতো উঁচু হয়ে ওঠে অংশটি| সে আদর করে তাঁবুটির আপাঙ্গ তালু বুলায়, জেগে খাড়া হয়ে ওঠা পুরুষাঙ্গটির ফোলা মস্তকটি ধরে অল্প নেড়ে দেয় – “উমমম, খালি আদর খাবার ইচ্ছা না?” handjob choti

-“হমম, “ শ্বাস ছেড়ে রজতবাবু পাশের টেবিল থেকে মদের বোতলটা নিতে যান, কিন্তু শালিনী ডান হাতে জাঙ্গিয়াসহ ওঁর পুরুষদন্ডটি মুঠো করে ধরে বাঁ-হাতে ওঁকে বাধা দেয় মুখে তেরছা হাসি নিয়ে “নাআআ…!!”
-“আঃ.. দুষ্টু” কন্যার নরম হাতের মুঠোয় দপ-দপ করতে থাকা নিজের শক্ত লিঙ্গ অনুভব করতে করতে হাত নামান রজতবাবু| “কি হবে রে ছুটকি বাপ্পিকে মদ খেতে না দিয়ে?” তিনি একটু ঝুঁকে ওর থুতনি ধরে নেড়ে দেন “আ়া?”

-“উম্ম… হিহি..” মুচকি হাসতে হাসতে শালিনী হাতের মুঠোর মধ্যে আদর করে পিতার শক্ত যৌনদণ্ডটিকে, বুড়ো-আঙ্গুলের নখ দিয়ে অল্প আঁচড় কাটে লিঙ্গটির গায়ে জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে, নিজের অপর হাতটি ওঁর বুকের উপর এনে বুকের কাঁচা-পাকা চুলগুলি নিয়ে খেলা করতে করতে বলে “ না, আমি তা হতে দিতে পারিনা বাপ্পী, তুমি জানো|” handjob choti

-“উমমম..” রজতবাবু পা-দুটো আরো ছড়িয়ে দেন ওর হাতের স্পর্শসুখ আরও উপভোগ করার জন্য| কিছু উত্তর করেন না তিনি মেয়ের এই কোথায়|
কিছুক্ষণ এভাবে কাটতে থাকে| শালিনী হাসিমুখে একমনে পিতার জান্গিয়ায় আবদ্ধ শক্ত তাগড়াই পুরুষাঙ্গটি হাতে নিয়ে খেলা করে, মালিশ করে, আদর করে ওঁকে আরাম দিচ্ছে|

রজতবাবু একইভাবে পা ছড়িয়ে বসে কন্যার আদর খাচ্ছেন| ওঁর ডানহাতটি এবার উঠে খেলছে শালিনীর কাঁধে এসে পরা চুল নিয়ে, ওর বাহুর উপর ঘোরাঘুরি করছে| শালিনীর প্রত্যেকটা স্পর্শে যেন জাদু! ওঁর শরীরে রোমাঞ্চ এনে দিচ্ছে! ও জানে তাঁর পুরুষাঙ্গের কোন কোন অংশ সবথেকে স্পর্শকাতর, পুলকপ্রদায়ী| দু-পায়ের ফাঁকে যেন অপূর্ব রোমাঞ্চকর সুখের জগত তাঁর এখন! তিনি চাইছেন জাঙ্গিয়া খুলে নিজের নগ্ন উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গে ওর নরম চপল আঙ্গুলের সুখস্পর্শ নিতে, কিন্তু পুরো ব্যাপারটাই তিনি কন্যার হাতে ছেড়ে দিয়েছেন| সম্পুর্ন সমর্পিত তিনি তাঁর কন্যার হাতে| handjob choti

-“তা বাপ্পি,..” পিতার জান্গিয়া ঠেলে ফুলে ফেঁপে ওঠা শিশ্নদেশে নিজের সুচারু আঙ্গুলগুলির মনোরম খেলায় তাঁকে আরাম দিতে দিতে মিষ্টি হেসে এবার শালিনী ওঁর পানে চেয়ে শুধায় “তুমি জানতে চাইলে না তোমার মেয়ে আজ এত সেজেগুজে কোথায় যাচ্ছে?”
-“তাই তো!..” যেন সম্বিত ফেরে রজতবাবুর, গায়ে সিরসিরানি তোলা যৌনসুখের আরাম নিতে নিতে তিনি হেসে শালিনীর গাল টিপে দেন.. “সত্যি তো! কোথায় যাচ্ছ রূপসী? এই অবেলা?”

-“উম্ম,” যেন দুরন্ত সারমেয়কে পোষ মানাচ্ছে এমন ভাবে শালিনী পিতার শক্ত, উত্তপ্ত যৌনাঙ্গটিকে জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে আদর করতে করতে ওঁর পানে দুষ্টুমিভরা হাসি মুখে তাকিয়ে ঠোঁট কাটে, “প্রফেসর সামন্তের বাড়ি!”
“সে কি?’” দুহিতার কোথায় রজতবাবুর কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ পরে, “ও খুব খতরনক লোক! ওর কাছে যেতে হবে না!” handjob choti

-“ধ্যাত, কি যে বলো না বাপ্পি!” শালিনী হেসে পিতার অন্ডকোষদুটি ঘাঁটে, জান্গিয়ায় শক্ত হয়ে ফুলে ওঠা, দপদপ করতে থাকা ওঁর উত্তপ্ত পুরুষাঙ্গটির সর্বত্র নিজের পাঁচ আঙ্গুলের নোখ দিয়ে আলতো করে আঁচড় কেটে কেটে, চুলকে দিয়ে দিয়ে স্নেহের সাথে আদর করতে করতে বলে “আমি যথেষ্ট বড় হয়েছি!” সে ওঁর লিঙ্গমস্তকটি ধরে আদর করে চাপ দেয়, তারপর জান্গিয়ায় ফুলে ওঠা ওঁর সমস্ত শিশ্নদেশ নিজের নরম, উষ্ণ হাতের থাবায় মুঠো পাকিয়ে ধরে, তারপর সেটি ধীরে ধীরে মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে চাপ দিতে দিতে পিতার দিকে তাকিয়ে তেরছা হেসে বলে “তাছারা তুমিই তো বলেছে, পড়াশোনার জন্য সবরকম সুযোগ খতিয়ে দেখতে! তাই না?”

-“আহ্হ্ম্ম্মম…” শ্বাস ছাড়েন রজতবাবু, ভীষণ আরাম দিছে তাঁকে শালিনী| ওর মুঠোর প্রত্যেকটি চাপে যেন আরামের শিহরণ খেলে যাচ্ছে তাঁর শরীরে, “উম, সবই বুঝি.. কিন্তু,..” তিনি কথা মুখে রেখে দেন|
শালিনী নিঃশব্দে হাসে পিতার অবস্থা দেখে| অধ্যাপক সামন্ত এবং তার পিতা যেন জন্মকাল থেকে শত্রু| এমনি সময় হলে তিনি শালিনীর এহেন সংকল্প এককথায় না করে দিতেন গর্জিয়ে উঠে, দ্বিতীয় কোনো প্রস্তাবও শুনতে চাইতেন না! কিন্তু এখন, এমন রাশভারী, রাগী মানুষটির একটি বিশেষ অঙ্গ মুঠো করে ধরে যেন তাঁকে একেবারে নিরুপায় ও জব্দ করে ফেলেছে সে| handjob choti

অত্যন্ত যত্নসহকারে সুন্দর ও সুচারুভাবে মালিশ করে সে পিতার শক্ত, উত্তেজত লিঙ্গখানি জাঙ্গিয়ার উপর দিয়ে| মনের সমস্ত ভালোবাসা যেন উজার করে অঙ্গটির প্রতি, সুন্দর করে একেকটি অন্ডকোষ মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে আরাম দেয় তাঁকে| “তাছাড়াও,” সে একটু এগিয়ে এসে মিষ্টি অদূরে কন্ঠস্বরে পিতার উদ্দেশ্যে বলে “আমার সেল নম্বর তো আছেই, সব খবরই ইচ্ছা করলে তুমি নিতে পারো তাই না?” সে পিতাকে ভারমুক্ত করতে মুচকি হেসে কথাগুলো বলে তার ডান হাতের বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে আসতে আসতে চাপ দেয় পিতার লিঙ্গমস্তকের ধার-বরাবর|

-“তা পারি, ‘ রজতবাবু তাঁর সুন্দরী মেয়েকে চোখ ভরে দেখতে দেখতে বলেন, ওর গালের পাশ দিয়ে ডান হাত বুলান, “তোকে নিয় আমার বড় চিন্তা, রূপসী পরী আমার, উর্বশী!”
“উমমম” পিতার মুখে নিজের রূপের প্রশংসা শুনে আহ্লাদী হয়ে পরে শালিনী, হেসে উঠে একটু চাপ দিয়ে মোচড় দেয় তাঁর যৌনাঙ্গে| handjob choti

-“আঃ..” কন্যার সুচারু মোচড়ে একটু কেঁপে উঠে গুঙিয়ে ওঠেন রজতবাবু| এবং শালিনী হাতে মুঠো করে ধরা পিতার পুরুষাঙ্গে একটি স্পন্দন অনুভব করে, এবং দেখে তাঁর লিঙ্গমস্তকের কাছে জাঙ্গিয়ার কিছুটা অংশের ভিজে ওঠা, ..
-“ইশশশ বাপ্পি, “ পিতার পুরুষাঙ্গটি আদর করতে করতে হাসে শালিনী, “ কি করে ফেলেছ তুমি!”
-“উম্ম,..’ গভীর শ্বাস ছাড়েন রজতবাবু, কন্যার হাতের মধ্যে তাঁর লিঙ্গ উত্তেজনায় দপদপ করছে আরো, তবুও শালিনীকে ইচ্ছামতো খেলতে দেন তিনি সেটি নিয়ে|

শালিনী এবার হাসিমুখে পিতার জাঙ্গিয়ার ইলাস্টিক ধরে টেনে নামায় একেবারে লোমশ অন্ডকোষদুটির তলায়| তড়াক করে লাফিয়ে ওঠে রজতবাবুর উন্মুক্ত বাদামি, শিরা-উপশিরা যুক্ত ঠাটানো আখাম্বা পুরুষাঙ্গটি|
-“আঃ” তিনি কঁকিয়ে ওঠেন অস্ফুটে ঘরের শীতল হাওয়ার স্পর্শ সদ্য উন্মুক্ত যৌনাঙ্গে অনুভব করে| handjob choti

-“উম্ম, হিহি” মিষ্টি হেসে শালিনী পিতার শক্ত, তাগড়াই আন্দোলিত হতে থাকা দণ্ডটিকে অগ্রাহ্য করে সুন্দর করে সে নিজের আঙ্গুলগুলি দিয়ে ওঁর ঘন শিশ্নকেশে বিলি কেটে দিতে থাকে ধীরে ধীরে|
-“আঃ,..উমমম!” ভীষণ আরাম হয় রজতবাবু কন্যার এমন সুমধুর পরিচর্যায়| আরামের খুশিতে তিনি তাঁর উপেক্ষিত হতে থাকা লিঙ্গদন্ডটি নাচিয়ে ওঠেন, এবং তা যেন তড়াক করে লাফ দিয়ে উঠে শালিনীর বিলি কাটতে থাকা হাতের ফর্সা, নরম কব্জিতে এসে আঘাত করে|

-‘হিহি, দুষ্টু!” শালিনী উজ্জ্বল হাসিতে নিজের অপরূপ সুন্দর মুখমন্ডল উদ্ভাসিত করে, কিন্তু তবুও সে পিতার দন্ডটিতে সরাসরি হাত না দিয়ে ওঁর শিশ্নকেশে, অন্ডকোষদ্বয়ে বিলি কেটে দিতে থাকে, চুলকে দিতে থাকে আর দেখে আরামের অতিশয্যে ওঁর লিঙ্গটির বারবার লাফিয়ে লাফিয়ে উঠতে থাকা, তার নরম হাতের স্পর্শ নেবার বাসনায়| handjob choti

কিছুক্ষণ এমন খেলা করে সে অবশেষে পিতার খাড়া, শক্ত যৌনাঙ্গটি নিজের নরম উত্তপ্ত থাবাতে নিয়ে দৈর্ঘ্য বরাবর সেটি মুঠো পাকিয়ে ধরে অল্প চাপ দেয়|
-“আঃ,..” সুখে টনটন করতে থাকা নগ্ন লিঙ্গের চামড়ায় অবশেষে কন্যার নরম উষ্ণ হাতের স্পর্শে আরামে শীত্কার করে কঁকিয়ে ওঠেন রজতবাবু| কি অপূর্ব সুন্দর এই অনুভূতি! তাঁর দু-উরুর সন্ধিস্থলে যেন স্বর্গীয় আনন্দের শিহরণ!
চোখ বুজে ফেলেন তিনি|

-‘উম্ম” পিতাকে আরামে এমন করে উঠতে দেখে হাসি চাপে শালিনী| সকল আবদারের জাদুকাঠি এখন তার হাতে, বিশাল চেহারার অতবড়ো মানুষটি, সমাজের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি, কড়া, প্রচুর মানুষের বুক হিম করিয়ে দেওয়া সেই বিজনেস টাইকুন এখন তার ডানহাতের মুঠোয় সম্পুর্ন অসহায়| মুচকি হেসে মুখ নামিয়ে দেখে সে তার প্রিয় খেলার বস্তুটিকে! পিতার লিঙ্গমস্তকটির মাঝখানের চেরা অংশটি চকচক করছে, এবং সেটির ছিদ্রটি দিয়ে একফোঁটা সাদা রঙের অর্ধতরল নির্গত হয়ে বেরিয়ে আছে| handjob choti

সে এবার দন্ডটি মুষ্টিমুক্ত করে ওঁর লিঙ্গমস্তক থেকে সেই তরলটুকু সংগ্রহ করে তর্জনী দিয়ে, তারপর তা ওঁর ব্যাঙ্গের ছাতার মাথার আকৃতির ফোলা লিঙ্গ-মস্তকটির ধারের আগা বরাবর অত্যন্ত সুচারু ভঙ্গিতে, যত্নসহকারে মাখিয়ে দিতে থাকে| দেখে স্পর্শকাতর স্থানে তার আঙ্গুলের স্পর্শে দন্ডটির তিরতির করে কেঁপে কেঁপে ওঠা|

-“আহাঃ,…” মেয়ের অপরূপ পরিচর্যায় যৌনসুখের শিহরণে রজতবাবুর শরীরে যেন বাজনা বাছে| চোখ খুলে তিনি দেখছেন এখন ওর ইশত-আনত সুন্দর মুখটা, ওর চুলের লকটি এসে ঝুলে পরেছে ওর মুখখানি সামান্য আড়াল করে|

-“উম” মুখ তুলে যেন পিতার চোখের ভাষা পরে নিয়ে মুচকি হেসে শালিনী ওঁর খাড়া, শক্ত দন্ডটি আলতো করে চুলকে দিতে থাকে সবখানে| মস্তক থেকে শুরু করে আলতো নোখের আঁচড় টেনে অন্ডকোষ অবধি, লিঙ্গটির উল্টোপিঠে দুষ্টু-নরম চুলকুনি, কুরকুরানি, অন্ডকোষদুটির লোম ধরে ধরে অল্প অল্প টান, এখানে ওখানে ছোট ছোট চিমটি, হাসতে হাসতে সে চুলকিয়ে দিতে থাকে পিতার যৌনাঙ্গটি আপাদমস্তক| handjob choti

-“আহা,.. হাহা, উম্ম” আরামে, সুখে, ভাষাহীন আনন্দে হেসে ওঠেন রজতবাবু তাঁর মেয়ের তাঁর যৌনাঙ্গ নিয়ে এমন চুলকে দেওয়া খেলায়| ওর প্রত্যেকটি আঙ্গুল যেন প্রজাপতির মতো ছটফট করছে তাঁর উত্তেজিত পুরুষাঙ্গখানি নিয়ে, আনন্দে মাতোয়ারা করছে তাঁকে|
-“উম” পিতার নগ্ন, ঠাটানো পুরুষাঙ্গ, শিশ্নকেশ এবং অন্ডকোষসমূহ নিয়ে ডান হাতে নানাবিধ সুমধুর, সুচারু খেলা চালিয়ে যেতে যেতে এবার শালিনী তাঁর পানে চেয়ে ঠোঁট টিপে হেসে বলে “ বাপ্পি, খুব তো আদর খাচ্ছ, কিন্তু একটা কথা তুমি কিন্তু বেমালুম ভুলে যাচ্ছ!”

-“কি মামনি? বল আমায়?” যৌন আরামে হেসে ভারী স্নেহার্দ্র গলায় শুধান রজতবাবু|
-“হাহা,’ তাঁর মেয়ে হেসে ওঠে তাঁর এমন অতি-সদয় মন্তব্যে, তাঁর শক্ত লিঙ্গদন্ডে সুরসুড়ি দিয়ে দিয়ে একইসাথে বুড়ো আঙ্গুলের চাপ দিয়ে দিয়ে তাঁর দুটি অন্ডকোষ পালা করে মালিশ করে দিতে দিতে, “উমমম, মনে করে দেখো না!’ সে আবদারি স্বরে বলে|
-“উম্ম,… কি রে? সত্যি মনে পরছে না!’ handjob choti

-“হিহিহি..” নিজের দুষ্টুমিতে হেসে ফেলে শালিনী| আসলে তার পিতার কিছুই ভুলে যাওয়ার কথা না, কেননা সে কিছুই চায়নি এর আগে| কিন্তু এভাবে প্রসঙ্গ উত্থাপন করার মধ্যে এক আলাদা মজা আছে, সে তার সুন্দর দন্তপঙ্গক্তি দিয়ে তলার ঠোঁট কামড়ে মিষ্টি হেসে বলে, “ইশশ বাপ্পি তুমি কিছু মনে রাখতে পারো না! আমি যে একটা রুকস্যাক চেয়েছিলাম ভালো!”
-“উম্ম কেন গো সুন্দরী? তোমার রুকস্যাক দিয়ে কি হবে?” রজতবাবু হেসে ডানহাত বাড়িয়ে মেয়ের গলার কাছে সুরসুরি কাটেন মজা করে|

-“ধ্যাত বাপ্পি, হাত সরাও, সুরসুরি লাগছে! হিহি..”
কিন্তু তিনি হাত সরাতে পারেন না| তাঁর হাতের একটু নিচেই শালিনীর বুকের উপর লাল কামিজে টানটান, খাড়া খাড়া হয়ে মাথা তুলে আছে ওর দুটি মারাত্মক আকর্ষনীয় স্তন! তিনি হেসে এবার ওর বুকে কুরকুরি কাটতে কাটতে বলেন
-“আমাদের সময় তো এত কিছু লাগতো না রে! হাহা..” handjob choti

-“ধ্যাত! হিহি..” হাসির ঝর্ণা বইতে থাকে শালিনীর শরীর জুরে, পিতার ক্রীড়ারত হাতের দুপাশে উগ্র স্তনজোড়া দুটি টিলার মতো কামিজ ঠেলে ফুলে উঠছে ওর এখন,.. মারাত্মক উদ্ধত তাদের ভঙ্গি,.. তার হাত সমানতালে পিতার ঠাটানো যৌনাঙ্গটি নিয়ে আদর-খেলায় মত্ত,… দন্ডটিকে অস্থির করছে সে তার চাঁপার কলির মতো আঙুলগুলি দিয়ে…

-“উম এই আম দুটো খুব পেকে উঠেছে তো ..হাহা, উম্ম” আর না পেরে এবার রজতবাবু কন্যার কামিজে ফুলে ওঠা ডান দিকের উদ্ধত স্তনটি ডানহাতে গ্রহণ করেন, হাতের মধ্যে চাপ দিয়ে নরম তুলতুলে মাংসপিন্ডটি মুঠো পাকিয়ে তোলেন, আহ্লাদে লক্ষ্য করেন তাঁর হাতের চাপে শালিনীর কামিজের গলার বাইরে দুধে-আলতা ত্বকে সুডৌল আঁচড় কেটে ওর স্তনটির উঠলে ওঠা|
-“উম্ম! বাপ্পি!” অল্প উষ্মা নিয়ে তাকায় তাঁর মেয়ে তাঁর পানে| handjob choti

-“ইশশশ দুষ্টু মেয়ে! ব্রা পরিসনি?” তিনি হেসে শুধান, শালিনীর পাকা কমলালেবুর মতো স্তনটি আরামে কামিজসহ কচলাতে কচলাতে, জীবন্ত উদ্ধত গ্রন্থিটির সমস্ত নরম নির্যাসটুকু মুঠোয় মিশিয়ে নিতে নিতে| যেন লেবু কচলে সরবত বানাচ্ছেন তিনি!
-‘বাপ্পি, ইশশ ছাড়ো!’ শালিনী রাগতভাবে পিতার লিঙ্গে মোচড় দিয়ে বলে “বেশ করেছি ব্রা পরিনি! তোমার তাতে কি?”

-‘উম্ম” হেসে রজতবাবু এবার মেয়ের কামিজ ঠাটিয়ে ফুলে থাকা অপর স্তনটি ধরে কচলাতে আরম্ভ করেন, শালিনী এবার রেগে উঠে পিতার লিঙ্গ নিয়ে খেলা বন্ধ করে ওঁর হাত ছাড়িয়ে উঠে পড়তে পড়তে বলে “ইশশ তুমি আমার কামিজ কুঁচকে দিচ্ছ! আমি চললাম!” handjob choti

-“কোথায় যাও সুন্দরী? বস না!” তিনি জোর করে শালিনীর বাহু ধরে আকর্ষণ করে বসিয়ে দেন আবার তাঁর সামনে| তারপর এবার তিনি, যেন তাঁরই দিকে তাকিয়ে থাকা কন্যার লাল কামিজে স-অহংকারে ফুলে ওঠা দুটি ঠাটানো স্তনের উপর নিজের দুই হাত স্থাপন করেন| তারপর সে-দুটি একসাথে রিক্সার হর্নের মতো, শক্ত মোচড় দিয়ে দিয়ে টিপতে শুরু করেন, নিয়মিত ছন্দে|

শালিনী এবার কোনো বাধা দেয়না| শুধু ঠোঁট ফুলিয়ে যেন বাচ্চা মেয়ের অভিমানে পিতাকে তার আকর্ষনীয় স্তনদুটি পীড়ন করতে দেয় তাঁর সামনে বসে| ঐভাবেই সে পিতার শক্ত পুরুষাঙ্গটি আবার নিজের নরম হাতে গ্রহণ করে| দন্ডটি এবার সে মুঠো করে ধরে কচলে কচলে মালিশ করে দিতে থাকে|
-“আহ্ছ্ছঃ..” মেয়ের স্তনদুটি শক্ত দু-থাবায় টিপতে টিপতে লিঙ্গে ওর মালিশে যৌনসুখে হা-হুতাশ করতে থাকেন রজতবাবু| কামিজসহ দু-হাতে নরম মাংস কচলে কচলে ডলতে থাকেন ওর উদ্ধত স্তনজোড়া, হাতের সুখ করে করে| handjob choti

-“উউউ, দুষ্টু বাপ্পী!” মৃদু কঁকিয়ে উঠে শালিনী পিঠ বেঁকিয়ে ওঠে, মুখে তেরছা হাসি নিয়ে সে এবার জোরে জোরে কচলে চলে পিতার দন্ডখানি|
-“আআহ, আআআহ,…” সুখের জোয়ার হুড়মুর করে চলে আসতে থাকে রজতবাবুর শরীর জুরে, পরাজিত হন তিনি, মেয়ের উদ্ধত স্তন থেকে তার দুহাত খসে পরে বিছানার চাদর খামছে ধরে|

শালিনী হাসিমুখে দেখে পিতার হঠাত স্থির হয়ে যাওয়া, তারপর তার হাতের মধ্যে জোরে লিঙ্গ ঠেলে দেওয়া, সে হেসে ওঁর লিঙ্গটি তাক করে উপরপানে, এবং ফোয়ারার মতো সাদা বীর্যের ঝর্ণা লিঙ্গমুখ থেকে উত্সারিত হয়ে উঁচুতে উঠে আবার নেমে এসে পরে শালিনীর কব্জি, বিছানা, রজতবাবুর লোমশ থাই ভিজিয়ে দেয়| handjob choti

-“হাঃ, এখ্খ,, আহাঃ..” শালিনীর হাতে বারবার পুরুষাঙ্গ ঠেলে ঠেলে তীব্র কামক্ষরণ করতে থাকেন তিনি, ফোয়ারার মতো একেকটি বীর্যের দমক বেরিয়ে এসে নতুন করে ভিজিয়ে দিতে থাকে শালিনীর হাত, বিছানা সবকিছু|
-“হিহিহি,.. ইশশ বাপ্পী কি করছে!” শালিনী হাসতে হাসতে গরুকে দুধ দোয়ানোর মতো যত্ন করে পিতাকে কমক্ষরণ করায়| তার হাত বীর্যে মাখামাখি হয়ে যেতে থাকে| পিতাকে এমনাবস্থায় থরথর করে কাঁপতে দেখে তার আরো মজা হয়| যেন মৃগীরোগ হয়েছে তাঁর!

প্রচন্ড উত্তেজক, সম্পুর্ন কামক্ষরণের পর ক্লান্ত বিধ্বস্ত রজতবাবু তাকিয়ায় হেলান দিয়ে ঘন ঘন লম্বা শ্বাস ছাড়তে থাকেন| তাঁর নাকের পাটা ফুলে ফুলে উঠছে|
-“উম্ম” কিছুক্ষণ পিতার ঘন বীর্যসমূহ এবং নরমতর মূষিকের ন্যায় পুরুষাঙ্গ নিয়ে আপনমনে খেলা করে শালিনী উঠে এসে ওঁর গালে মিষ্টি করে একটি চুমু খেয়ে বলে ওঠে “আসছি বাপ্পি, ভাল্ল হয়ে থাকবে!” handjob choti

তীব্র যৌন পরিতৃপ্তিতে ধ্বসে পরা রজতবাবু মেয়ের কোথায় কোনো উত্তর করেন না| হাঁপাচ্ছেন তিনি নিঃশব্দে|
শালিনী হাসিমুখে উঠে পরে| বেসিনে হাত ধুয়ে নিয়ে বেরিয়ে আসে পিতার ঘর থেকে| দরজা ভেজিয়ে দেয় আস্তে করে|

1 thought on “handjob choti পিতার রাজকন্যা – 2”

Leave a Comment