new choti live ডাক্তার আপু ও আমি-২

bangla new choti live. চোখ মেলে দেখলাম আমাদের অপারেশন হয়েছে। কিন্তু আপুর জ্ঞান আমার আগে ফিরেছে। আমার বয়স হিসেবে আমি সইতে পারিনি বলে এমন হয়েছে। প্রায় তিনমাস কোমায় থাকার পর আমার জ্ঞান ফিরেছে। আপুর জ্ঞান আরও আগেই ফিরেছে ও সুস্থ। অলরেডি কাজও শুরু করে দিয়েছে। আমার জ্ঞান ফিরেছে শুনে আপু দৌড়ে এলো আমার কেবিনে। একজন নার্স ছিল ওখানে। আপু ঢুকেই থমকে গেল আমায় দেখে।

ডাক্তার আপু ও আমি – 1

আমিও চমকে গেলাম আপুকে দেখে। আগের মতো ঢিলেঢালা পোশাকে কিন্তু বিবর্ণ মুখ আপুর। যেন সব হারিয়ে অসহায়। আপু গম্ভীর হয়ে বলল- নার্স, তুমি এখন যাও। আমি দেখছি যা করার। নার্স চলে গেল। আপু আমার দিকে এগিয়ে আসছে।
আমি- আপু, তুমি সুস্থ হয়ে গেছ…
কথাটা শেষ করার আগেই এক কষে থাপ্পড় পড়ল আমার গালে।

new choti live

আপু- খুব বড় হয়ে গেছিস তাইনা? খুব দায়িত্ব হয়ে গেছে? কে বলেছে এসব করতে?
আমি- সরি আপু। আমি তোমাকে হারাতে চাই নি।তুমি ছাড়া আমার কে আছে বলো?তোমার কিছু হলে আমার কি হতো?
আপু- তাই বলে একবারও চিন্তা হলো না নিজেকে নিয়ে? কিছু হয়ে গেলে?

আমি- তুমি না থাকলে আমার থেকে কি লাভ বলো আপু?
আপু আমার বুকে গালে থাপ্পড় মেরে কাদতে কাদতে বুকে জরিয়ে ধরল। আমি বসা ছিলাম বিছানায় আর আপু দারানো। আমার মাথা আপুর বুকে দুই দুধের চাপে পড়েছে। আর আমিও জরিয়ে ধরায় আপুর পেটে হাত পড়ে গেছে। তবে বিষয়টা তখন মোটেও সেইরকম কামুক ছিল না। শুধু ভাই বোনের মমতাময়ী ভালোবাসা ছিল। আমি আপুর চোখের পানি মুছে দিলাম। new choti live

আপু- তুই কেন এত বড় ডিসিশন নিলি সোনা বলতো? তুই জানিস এর পরিণাম কি হতে পারে?আর তুই আজ তিনমাস পর জেগেছিস জানিস?
আমি- তুমি না বলো সেবাই ধর্ম? যেখানে আমার ঈশ্বর নেই সেখানে আমার কি কাজ? তুমি ছাড়া আমার অস্তিত্ব নেই আপু। আমি আমার পরিণাম জানি। তুমি ছাড়া আমার কোনো পরিণাম নেই।

আমি তোমায় ছাড়া বাচতে পারবো না। তুমি এসব নিয়ে ভেবোনা। আর বকোনা প্লিজ আমায়। এখনতো আমি রোগি তাইনা? এখনতো তোমার ইন্টার্নি নই আমি তাইনা?
আপু আমার রসিকতা শুনে আবার জরিয়ে ধরে কপালে চুমু দিয়ে বলল- আর জীবনেও তোমায় আমি বকা দিবোনা সোনা। আর কোন দিন তোমায় কষ্ট পেতে দিবোনা আমি কথা দিলাম। new choti live

আমি- আরে আপু আমি মজা করছিলাম। সিরিয়াস হয়ো না।
আপু আমার হাত ধরে সিরিয়াস হয়ে জলজল চোখে বলল- কিন্তু আমি সিরিয়াস। তোমার জীবনে আমি বেচে থাকতে কোনো কষ্ট হবে না আমার সোনা ভাই। তুমি আমার সবকিছু। তোমার কিছু হলে আমি বাচতে পারবো না।

আমি- তুমি থাকলে আমার কিছু হবে না আপু
আপু- আই লাভ ইউ সোনা আমার।
আমিও বললাম আই লাভ ইউ আপু।
এই বিষয়গুলো সম্পূর্ণ ভাইবোনে ভালোবাসা বিনিময় ছিল। তাছারা কিছুই না। new choti live

আমায় বাসায় আনা হলো। আপু লিভ নিল যতদিন সুস্থ না হই তার জন্য। হঠাত খেয়াল পড়ল একদিন যে আপুর শরীরে বিন্দুমাত্র পরিবর্তন হয়নি। এখনো সেইরকমই সৌন্দর্য আপুর। কিন্তু চেহারায় চিন্তায় মলিন। তো একদিন আপু বাসায় কাজ করছিল তখন ডাকলাম। আমি সোফায় বসা। সুন্দর হাটতে চলতে পারি ও সুস্ত প্রায়।
আপু আমার কাছে এলে আমি আপুর হাত ধরে বসালাম পাশে। এখন আপু আমায় কোন বিষয় নিয়ে বকে না।

এখন তুমি করে কথা বলে আপু। আমার খুব কেয়ার করে। কিন্তু আমিতো জানি আমার বোনকে আমি কতটা ভালোবাসি। আমরা শারীরিক বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া ঈশ্বরীয় ইচ্ছে। তার ওপর দুজনের দুই দেহ এক প্রাণ হয়ে গেছে। তাই আপুকে আরো গভীরতম ভালোবাসায় আগলে রাখতে ইচ্ছে হয়। তাই বললাম- আপু, কিছু মনে না করলে একটা কথা বলতাম। new choti live

আপু আমার হাত ধরে বলল-কি হয়েছে সোনা কোনো সমস্যা? আমায় বলো।
আমি- অনেক সমস্যা আপু। আমার আর সুস্থ হতে ইচ্ছে করছে না।
আপুর শরীরে এক আলতো ঝটকা খেল। চোখ ভরে এসেছে। গলা ভারি হয়ে বলল- কেন সোনা? এমন কেন বলছো?

আমি- সুস্থ হয়ে কি লাভ আপু বলো? তুমিতো আর আমার আপু নেই। আগে এতো ফ্রিডম নিয়ে চলতে, শরীর ও সৌন্দর্যের খেয়াল রাখতে। কিন্তু এখন আর কোনো কেয়ার নেই নিজের প্রতি। আমি আমার আপুকে ফেরত চাই. যে বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরি নারী। কেন তুমি এত অগোছালো হয়ে চলছো বলোতো?
আপু খুবই গর্ব ও খুশি হয়ে আমায় দেখে বলল- তুমি যা বলবে তাই হবে আমার সোনা। new choti live

এরপর একবার নিজের দিকে তাকালো। কেন জানিনা। কিন্তু এরপর থেকে আপুর কথাবার্তা হাস্যজ্জল হলো। আমার সাথে খুব গল্প করে আপু। কেমন করে আপুর সাথে এতো মিশুক হয়ে গেলাম বলতেই পারিনা। আমাদের মাঝে আগে যে একটা দেয়াল ছিল সম্পর্কের তা যেন উধাও। কিন্তু বিষয়টা আমাদের কারও কাছেই যেন নতুন না। আমাদের মাঝে এক অনন্য বন্ধুত্ব সৃষ্টি হয়ে গেছে। নানান বিষয়ে আমরা খোলামেলা কথা বলছি।

আমিও দেখতে দেখতে সুস্থ হয়ে যাই আপুর অক্লান্ত পরিশ্রম ও সেবায়। তো যেদিন আমরা আবার জয়েন করবো সেদিন আপু যথারীতি চলে যায় আগেই। আমি উঠে নাস্তা করে যাই হাসপাতালে। অনেক দিন পর কেমন নতুন লাগছিল সবকিছু। তো রিসিপশনে গেলে সিনিয়র ইন্টার্ন আপুরা ও ডাক্তার সবাই খুব প্রশংসা করল আমার আর ফুল দিয়ে স্বাগতম জানাল। কিন্তু আপুকে চোখে পড়ল না। আমি এক নার্সকে বললাম- আপু কোথায়? new choti live

নার্স- ম্যাম অপারেশন করছে একটা।
আমি গিয়ে ওটির প্রাইমারি রুমে বসে রয়েছি। আপু কিছুক্ষণ পর বের হলো মাস্ক ও ফুলগাউন পড়ে। ভিতরে কি পড়া তা বোঝার কোনো উপায় নেই। তবে আমি তা দেখার জন্য আসিনি। আপুকে না দেখলে মন টিকে না আমার।

আপু- এসেছ? খেয়েছ সোনা?
আমি- হ্যা আপু।
বলে আপু গাউনটা খুলল।আর আবার আমাকে খুশি করে দিল আপু। আপু টাইট টাইস আর কামিজ পড়ে এসেছে আজ। প্রচণ্ড হট লাগছিল আপুকে। পাশের কামিজের ফাড়ায় পেটের অংশভাগ দেখতে পাচ্ছি। new choti live

আমি হা করে তাকিয়ে আছি আপুর দিকে।
আপু- কি দেখছো সোনা?
আমি সরল মনে বললাম-তোমায় আজকে খুব সুন্দর লাগছে আপু। এতদিন কেমন মনমরা হয়ে থাকতে। কেমন পরাধীন মনে হতো।আর তোমার ড্রেসটাও খুব সুন্দর আপু। কিউট লাগছে তোমায়।

আমি এখন আপুর সাথে খুবই মিশুক হয়ে গেছি। এজন্য এই কথাগুলো আমাদের মাঝে একদম স্বাভা-
বিক। আপু মুচকি হেসে আমার গালে হাত বুলিয়ে বলল- আমার সোনাপাখি যা চাইবে তাই হবে। তুমি বলেছ আর আমি করবো না তা হতেই পারেনা। আর মনমরা হবার প্রশ্নই উঠেনা। তোমার এই ড্রেসটা আসলেই ভালো লেগেছে? new choti live

আমি- খুব ভালো লেগেছে আপু। তোমায় খুব কিউট লাগছে। এমন ড্রেস পড়লেইতো পারো।
আপু- কিউট? তাই নাকি? তোমার যদি ভালো লাগে অবশ্যই পড়বো সোনা। চলো।
বলে আপু বাইরে যাচ্ছি। আমি কেন জানিনা আপুর হাত ধরে বললাম- আপু, সরি। আমি জানিনা কেন বললাম তোমার পোশাক সম্পর্কে।

তোমায় সুন্দর লাগছে বলে বললাম। খারাপভাবে বলিনি আর তুমি কি পড়বে সেটা বলা বেয়াদবি হয়েছে আমার। সরি।
আপু আমার ছেলেমানুষি দেখে মিষ্টি হেসে আমার সামনে বসে হাতে হাত রেখে বলল- আচ্ছা বলোতো আমি তোমার কি হই?

আমি- বোন। আমার পরী আপু। আমার জীবন।
আপু- আমারতো মনে হয়না আমি তোমার কিছু হই.
আমি-না আপু এমন করে বলোনা প্লিজ। তুমি আমার সবকিছু আপু। তুমি ছাড়া আমার কেও নেই। new choti live

আপু- তাহলে এসব কথা কেন বলো?আমি তোমার একমাত্র বোন। আমার ভালোমন্দ সব কিছু নিয়ে বলার অধিকার তোমার আছে। আমি কি পড়বো না পড়বো তাতো আমি বাহিরে কারও থেকে শুনবো না। আমার জীবন আমার ভাই যা পছন্দ করবে তাই পড়বো। এখানে মনে রেখো বড় বোন বলে সম্মান করছো সেটা ভালো। তাই বলে নিজের ইচ্ছা পোষন করবে না তা যেন না হয়।

আমায় কিসে ভালো লাগে কি লাগে না তা যেন আর সংকোচে চাপা না পড়ে।
আমি মাথা নেড়ে বললাম- সরি আপু।
আপু এবার আমায় চমকে দিয়ে গালে চুমু দিয়ে দিল। ও সাথে সাথে নিজের গাল এগিয়ে দিয়ে বলল- গিভ মি এ সুইট পাপ্পি সোনাপাখি। new choti live

আমিও পাপ্পি দিলাম।তারপর আমার হাত ধরেই বের হলো রুম থেকে। হাসপাতালে সবার জানা আমরা ভাই বোন। তাই একসাথে থাকা কোনো সমস্যা বা সন্দেহের বিষয় নেই।
সেদিন আমাদের ছুটি হলে আমরা বের হলাম। তখন হঠাত আপু বলল- চলো আজ ঘুরে আসি।
আমি- চলো।

আমরা দুজন মিলে রিক্শা করে প্লে স্টেশনে চলে গেলাম বসুন্ধরায়। পরে একসাথে ওখান থেকে খুব মজা করে কিছু কেনাকাটা করে বাসায় ফিরলাম।

আমাদের মাঝে আলাদা একটা সুক্ষ্মতা গড়ে উঠছে। ইদানীং আপু টাইট ফিটিং টাইস ও কামিজ পড়েই ঘুরে বেড়ায়। আর আমিও মনে মনে ঠিক করে নিই আপুকে আপন করে পেতে হলে আমাকেও চেষ্টা করতে হবে। একদিন আমি সকালে নাস্তা করে রুমে রেডি হয়ে বের হবো। আপুর রুমের সামনে দিয়ে আসার সময় দেখি রুমের দরজা খোলা। আজ পর্যন্ত কখনো এমন হয়নি। new choti live

আমি চিন্তিত হয়ে কেন জানিনা রুমে ঢুকে গেলাম। দেখি সব ঠিক আছে। বের হবো এমন সময় দেখি আপুর বালিশের নিচে একটা কিছু চিরকুট। কৌতুহলবশত ওটা খুলে পড়তে লাগলাম। যা লেখা ছিল তা দেখে আমার মাথা ঘুরে গেল। লেখা-আমি আজ বেচে আছি আমার ভাইয়ের জন্য। ওকে ছোট থেকে বড় করেছি কখনো ওর প্রতি আমি এতটা আবেগাপ্লুত হইনি।

আমার জীবন বাঁচিয়েছে। সারাজীবন ঋনি করে দিল আমায়। আমি আমার শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত ওর খুশির কারণ হতে চাই। কিন্তু সব ছাপিয়ে আমি ওকে ভালোবেসে ফেলেছি। যে আমার জীবন বাচাতে তার জীবন দিয়ে দেয় তাকে আমি আমার সবটুকু দিতে চাই।আমার দেহ মন প্রান সব থেকে ওকে আমি ভালোবাসি।

কিন্তু নিজের এই ভালোবাসা কিভাবে ওকে বোঝাবো আমি বুঝতে পারিনা। ওকে জাঙিয়া পড়া দেখে আমার হৃদয়ে ঝড় উঠে গেছে। যখনই ওই দিনটার কথা মনে পড়ে তখন আমার জোনি রসে টইটুম্বুর হয়ে যায়। যখন ও বোন ভেবেই আমায় ছোয়, তখনও আমার পেন্টি ভিজে চৌচির হয়। আমি পোশাকে পরিবর্তন করেছি শুধু ওর জন্য। আরও করবো। new choti live

আমি চাই ও যেন আমায় সাহায্য করে, আমায় যেন ভুল না বোঝে। এত কষ্ট করে বড় করে ওর ঘৃনার পাত্রী হতে চাইনা। ওতো সবে বড় হলো। আমার বয়সী বুড়িকে ও কেন ভালো বাসবে। আমি কি ওর ভালোবাসা না পেয়েই সতি হয়েই মরবো? আমার জোনির দ্বার যদি ওকে দিয়ে খুলতে না পারি তাহলে মরেও শান্তি পাবোনা যে। কিন্তু কিভাবে যে আরও খোলামেলা পোশাকে অবতীর্ণ হবো বুঝতে পারছি না।

আবার যদি আমায় বাজে মেয়ে ভাবে ও? ওতো পারে একটু মুখ ফুটে বলতে যে আপু তোমায় ওয়েস্টার্ন ড্রেসে ভালো লাগবে। কি করবো মাথায় আসছে না। আমি ওকে না পেলে মরেই যাবো। অন্য কারও বুকে ওকে আমি দেখলে বাচবোনা। হে সৃষ্টকারী কিছু একটা করো যেন ও আমায় নিজের দিকে টেনে নেয়। আর আমায় শক্তি দাও ওকে আমার প্রতি আকৃষ্ট করার। new choti live

এই চিরকুট দেখে আমার কপাল ঘামতে শুরু করল। আমি যাকে মনে মনে চাইছিলাম, সে আমার জন্য পাগল হয়ে আছে। আমিতো স্বর্গ পেয়ে গেছি। খুশি তে পাগল হয়ে যাবো। আমি ডিসিশন নিলাম আমিও আপুকে তার কাজে সাহায্য করবো।

কিন্তু কখনোই জানতে দিবোনা যে আমি তার সব প্লান জানি। তবে একটা জিনিসে অবাক হলাম যে আপু এখনও সতি। আপুর ভার্জিনিটি ঠিক আছে এটা আশ্চর্যজনক। কারন এই যুগে মানুষ সম্পর্কে জরিয়ে এসব করেই। তার মানে আপু কখনো কারো সাথে সম্পর্ক করেনি।

আমি প্রচণ্ড খুশি হয়ে গেলাম এটা ভেবে যে যা আমি তপস্যা করেও পাওয়ার সম্ভাবনা ছিলনা তা নিজেই আমার কাছে পাঠিয়েছে সৃষ্টকারী।চনমনে মনে আমি হাসপাতালে রওয়ানা করলাম। গিয়ে আজ দেখি আপু আরও একধাপ এগিয়ে গেছে। আপু আজ কামিজ পড়েছে ম্যাগিহাতা। প্রচণ্ড সেক্সি লাগছিল আপুকে। আন্ডারআর্ম এতো পরিষ্কার যে যেকেও পাগল হয়ে তাকিয়ে থাকবে। new choti live

স্লিম বডি স্টাকচার হওয়াতে একদম টাইট টাইস আর কামিজে এতো সেক্সি পৃথিবীতে আর কেও নেই। আশেপাশে সবাই হা করে তাকিয়ে আছে। আমার এখন আর খারাপ লাগেনা। কারন সুন্দর জিনিশ মানুষ দেখবেই। উল্টো এটা আমার আপু তাই আমার কাছে গর্বের বিষয়। আমি খুশিতে আত্মহারা হয়ে আপুর কাছে গেলাম।

আপু- আচ্ছা সোনা, আমায় কি খারাপ লাগছে এই কাপড়ে? অড লাগছে নাতো?
আমি- একদম না আপু। অনেক সুন্দর ও কিউট লাগছে তোমায়।পৃথিবীতে আমার আপুর চেয়ে সুন্দর আর কেও নেই। আর মোটেও অড লাগছেনা। আর এই গরমে এই ড্রেসটা একদম পারফেক্ট হয়েছে। কাজেও হাত নাড়ানাড়ি করতে সুবিধা হবে। new choti live

আপু আমার গালে হাত বুলিয়ে বলল- লাভ ইউ মেরি জান। এখন কোনো পেশেন্ট নেই। চলো ক্যান্টিনে কিছু সময় আড্ডা দিয়ে রাউন্ডে যাবো।
আমরা ক্যান্টিনে গেলাম।
আপু- কি খাবে বলো? কোল্ড কফি না হট কফি?

আমি জানি আপু আমায় সবসময় হিন্ট দিতে চেষ্টা করবে। তাই আমিও আপুকে হেল্প করবো।
আমি- হট কফি। আই লাভ এভরিথিং হট।
আপু এক মুহুর্ত আমার দিকে তাকিয়ে থেকে মুচকি একটা হাসি দিয়ে বলল- নিয়ে আসছি।

এই হাসি যেমন তেমন হাসি না। প্রবল গর্ব মাখা হাসি যেন যুদ্ধের একটা ধাপ পেরিয়ে গেছে।
আমি-আমি আনি?
আপু- প্লিজ গিভ মি এ অপরচুনিটি টু সার্ভ মাই লাভ। new choti live

বলে আপু চলে গেল কাউন্টারে। আপুর দিকে সবার নজর। আপুর কামিজের নিচে থাকা পাছার আলতো ছাপ সবার নজর কাড়ছে। হাটার সময় হালকা দুলুনি আরও আকর্ষণীয় করে তুলে আমার আপুকে।
আপু কফি এনে সাথে একটা পিৎজা নিয়ে এলো।
এনে বলল- দেখো আমার হটবয়ের জন্য হট পিৎজা নিয়ে এলাম।

আমি- (আলতো লাজুক হয়ে) আপু, সবার সামনে কেন জান লাভ বলো? আমার লজ্জা লাগে।।। মানুষ কিভাবে তাকিয়ে থাকে।
আপু অট্ট হেসে বলল- আমার জীবন তুমি। তো জান বলবো নাতো কি বলবো?আমার জীবনে এতটা কেও ভালোবাসেনি আমায়। তাই লাভ বলা স্বাভাবিক।

আর আমার ভাইকে আমি ভালোবেসে যা খুশি বলি তাতে লোকজনের কি??? তুমি এসব নিয়ে ভেবোনা। নাকি তোমার নিজের পছন্দ না আমি তোমায় ভালো বেসে আদরে নামে ডাকি? আমার কি ভাইয়ের ভালোবাসা পাওয়ার কোনো অধিকার নেই? new choti live

আপুর চোখ জলজল করছে।সাথেসাথে আপুর হাতে হাত রেখে বললাম- আমার আপু যা খুশি ডাকতে পারে তাতে আমার কোনো সমস্যা নেই। তুমি ছাড়া আর কে আছে আমার বলো? আমি তোমায় ছাড়া আর কিছু ভালোবাসতে পারি বলো আমার পরী?

আপু এবার হাসলো। পিৎজা এগিয়ে দিল আমার মুখে। আমি সেটাই আবার এক বাইট দিয়ে আপুর দিকে খাওয়াতে নিতেই আপু অবাক হয়ে গেল।
আমি- কি হলো খাবেনা? ওহহ সরি এটাতো আমার ঝুটা।

আমি ওটা রেখে আরেকটা খাওয়াতে নিলাম। তখন আপু আবার ওটা নিয়ে আমার হাতে দিয়ে বলল-এক মায়ের পেটের ভাইবোন আমরা। আমাদের আবার ঝুটা কি। তুমি যা খাবে তাই আমার জন্য অমৃত।
আমি- এতো ভালোবাসো আমায় তুমি আপু?
আপু- নিজের জীবনের চেয়েও বেশি সোনা। তোমার জন্য এখনও বেচে আছি যে আমি। new choti live

এবার আমি আপুকে চমকে দিলাম। আপুর হাত ধরে হাতে একটা মিষ্টি চুমু দিলাম। আপু ভ্যাবাচেকা খেয়ে গেছে আমার কান্ডে। কি বলবে কি করবে তা বুঝে উঠছে না। হা করে তাকিয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করল।
আমি- থ্যাংকস আপু। আমায় এতো ভালোবাসার জন্য। আমিও তোমাকে ভীষন ভীষন ভালোবাসি। আই লাভ ইউ সো মাচ আপু।

আপু চোখ জলজল করে বলল- আই লাভ ইউ টু মাই জান। তোমাকে আমি নিজের জীবন থেকেও বেশি ভালোবাসি সোনা।
এই বলে আপুও আমার হাতে চুমু দিল। চোখে কিছু জয় করা অশ্রু। আমরা নাস্তা খাওয়া শুরু করলাম। পিৎজা খাচ্ছি তখন আপুর ঠোটের কোনায় মেয়ো লেগে গেছে।

ইচ্ছে করেই করেছে জানি। তবুও আমি আমার সাধারণ কাজটাই করছি। বললাম- আপু তোমার ঠোটে ভরে গেছে মেয়ো।
আপু না পাওয়ার নাটক করছে। পরে আমিই বলি- আমি মুছে দিচ্ছি আপু। new choti live

বলে হাত বাড়িয়ে আপুর ঠোটের কোনায় লেগে থাকা মেয়ো মুছে আঙুলে নিলাম। কিন্তু আপু তখন অবাক করে আমার হাত ধরে মেয়োটুকু চুসে নিল আঙুলসহ মুখে ঢুকিয়ে। তখন আপুর মুখের অবস্থা দেখার মত ছিল। কামুকতা উপড়ে পড়ছে এমন দশা। আপু যেন ভুলে গেছে আমরা এখনো এমন কোনো পর্যায়ে যাই নি।একদম ব্লোজব স্টাইলে চুসে নিল মেয়োটুকু চোখ বুজে। চোখ মেলে আমায় দেখে লজ্জা পেয়ে গেল।

কিন্তু আপু নিজেকে সামলে বিষয়টা একদম নরমাল করে কথা নিয়ে গেল হাসপাতালে।আমরা ভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলছিলাম। হঠাত আপুর একটা কল এল। আমরা দৌড়ে গেলাম।একটা ডেলিভারি হবে।আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি ড্রেসিং রুমে। আমি ও আপুই এই রুমে আসতে পারি। আমরা একসাথে ছিলাম। আপু ড্রেস পড়ার সময় বলল- সোনা, আজ এটা তোমার প্রথম ডেলিভারি।মন দিয়ে দেখো কিভাবে কি করি কেমন?
আমি- আচ্ছা আপু। new choti live

আমরা দ্রুত ওটিতে গিয়েই দেখি মহিলা খুব ঘেমে গেছে। দাত কামড়ে চিতকার করছে। শরীর কাপছে। মহিলার গায়ে একটা সুতোও নেই। পুরো উলঙ্গ। আমায় দেখে আকাশ থেকে পড়ল। হাতে ঢাকার চেষ্টা করল জোনি ও দুধ। কিন্তু আপু তখন তার হাত সরিয়ে বলল- উনি ডক্টর। লজ্জা পাবেন না। ডক্টরের কাছে কোন লজ্জা নেই।
আপুর পাশে দারিয়ে সামনে থেকে দুজনে মিলে আমরা জোনির ভিতরে হাত দিয়েছি ও অবশেষে বেবি এলো।

আমার প্রথম এসাইনমেন্ট আমি ভালো করে করেছি। একটুও ভুল করিনি আমি। আপু বেবি কোলে নিয়ে আমায় দিল। তারপর নার্সকে দিলাম। আপু মহিলার সামনেই আমার হ্যান্ডশেক করে হুট করে জরিয়ে ধরল। আমিও প্রস্তুত ছিলাম না বিষয়টা নিয়ে। আর বলল- কনগ্র্যাটস ডক্টর। new choti live

সেদিন আমরা বাসায় আসতে আসতে রাস্তায় বৃষ্টির কবলে পড়ি। দুজনে ভিজে কাক হয়ে রিকশা থেকে বাসায় নামি। আপুর পুরো শরীরে টাইট কামিজ আর টাইস একদম লেপ্টে আছে। প্রতিটা খাজ একদম স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। ওড়না শুধু নামের। বাসায় ঢুকেই আপু- তাড়াতাড়ি গোসল করে নাও সোনা। নইলে ঠাণ্ডা লেগে যাবে। আমিও চলে যাই গোসলে।

হঠাত মনে হলো আপু আজ সেক্সি কিছু করতো তাহলে বেশ মজা হতো। এসব ভেবে গোসল করে বের হই ও ড্রেস পড়ে ডাইনিং টেবিলে যাই।আপুর জন্য অপেক্ষা করতে থাকি। আপু সিরি দিয়ে নেমে আসছে। আপু আমার ভাবনা বুঝে হয়তো এমন কাজ করেছে।আপু একটা টাইট টাইস পড়েছে,কিন্তু কামিজটা ছিল কিছু ছোট ঝুলের। পাছার নিচে থেমেছে। new choti live

অনেকটা লং গেন্জির মতো।আর সবচেয়ে মজার বিষয় হল আপু ওরনা পড়েনি। এই প্রথম ওরনা ছাড়া আপুকে দেখে মনটা ভরে গেল। আমি বসা থেকে দারিয়ে গেলাম। আপু আমার দারানো দেখে খুশিমনে এগিয়ে এসে বলল- কি হলো সোনা?

আমি- আপু তোমাকে খুব সুন্দর লাগছে এই ড্রেসে।
আপু- রেগুলার এরকম ড্রেসইতো পড়ি। সুন্দর লাগে কেমন করে?
আমি- কই নাতো? তুমি এর থেকে লং কামিজ পড়। কিন্তু আজকেরটা একটু শট।
আপু- তাই নাকি? আমারতো সমানই মনে হয়।

আমি- না আপু, এটা কোমরে এসে থেমেছে। আর আগেরগুলো প্রায় হাটুতে ঝুল ছিল।
আপু- বাহহহ। তুমি দেখি আপুর দিকে খুব খেয়াল রাখো?
আমি- আমার আপু পৃথিবীর সবচেয়ে কিউট আর সুন্দরী মেয়ে। তাকে কিসে ভালো লাগে বা মন্দ লাগে তা কি আমি খেয়াল রাখতে পারিনা? new choti live

আপু আমার গালে হাত দিয়ে বলল- অবশ্যই পারো সোনা। তুমি সব খেয়াল রাখতে পারো। তাতে কোনো বাধা নেই।
আমি- থ্যাংকস আপু।
আপু- থ্যাংক ইউ জান। লাভ ইউ। আচ্ছা বলোতো শট কামিজে বেশি ভালো লাগে নাকি লং কামিজে?
আমি- সত্যি বলতে আপু শটেই বেশি ভালো লাগে।

আপু- তাহলে আজ থেকে লং বাদ। আর পড়বো না লং।আমার ভাইয়ের যা পছন্দ তাই পড়বো।
আমি- লংগুলো কাওকে দিয়ে দিলে ভালো হবে। গরীব কাওকে।
আপু- আমার ভাইটা কত দিকে খেয়াল রাখে। আমি তাই করবো যা তুমি চাইবে। এখন বলো কোন টাইপ শট কামিজ পড়বো? new choti live

বলে আপু একটা ব্যাগ থেকে কিছু কামিজ বের করে দেখাল। আমি বুঝলাম আপু তৈরি হয়েই এসেছে। আমি আপুকে আরও খুশি করতে বললাম- একচুলি টিশার্ট পড়লেইতো পারো আপু। শট কামিজ আর টি শার্ট পড়াতো একই কথা।
আপু- বলছো?

আমি- হ্যা। অবশ্য তোমার যদি পড়তে আনকমফোর্ট না লাগে তাহলে পড়তে পারো।
আপু- আমার ভাই বলেছে আর তা হবে না তা কি করে হয় বলো? কাল থেকে টিশার্ট পড়েই থাকবো। থ্যাংকস সোনা, তুমি আমায় অনেকটা সহজ করে দিলে।
আমি- কিসে সহজ করে দিলাম? new choti live

আপু- আববআববআবববব না কিছুনা। এমনিই।
আমিতো বুঝেছি আপু কি বলতে চাইছিল। আপুর মুখে খুশির রেশ।
আপু- আচ্ছা তুমি টিভি দেখো। আমি রান্না করি। কি খাবে বলো?
আমি- সুপ আর চিকেন ফ্রাই হবে?

আপু- আলবৎ হবে। তোমার জন্য জান হাজির।
আপু কিচেনে যাচ্ছে ও আমি আপুর কামিজে ঢাকা পাছায় চোখ বুলাচ্ছি।হঠাত আপু পিছন ফিরে বলল- আই লাভ ইউ সোনা।
আমি- আই লাভ ইউ টু আপু। new choti live

আপু চলে গেল। আমি টিভি দেখছি। হঠাত ইচ্ছে হল আপুর কাছে যাই। আমি কিচেনে গিয়ে আপুর কাছে গেলে আপু- এখানে গরম লাগবেতো সোনা। তুমি গিয়ে এসিতে বসো। আমি জলদি চলে আসবো।
আমি- তুমি গরমে কষ্ট করবে আর আমি এসিতে হাওয়া খাবো তা ভাবছো কেমন করে? আর তোমার কাছে আসতে ইচ্ছে করছিল। একটু বসি প্লিজ?

আপু আমার গালে হাত বুলিয়ে বলল- বসো। আমি কিচেন সিংকে বসলাম ও দেখতে লাগলাম রান্না। মুলত আপুর বুক ও পাছার দুলুনি দেখছিলাম আমি। হাতের নাড়ায় বুক ও পাছায় তাল বেতাল চলছিল। আপুর বুকে হটাত খেয়াল পড়ল আপু হাফকাট ব্রা পড়ে ও ব্রার খাজে মনে হলো কাপড়ের ফিতাওয়ালা ব্রা। তাহলে কি আপু স্টাইলিশ বিকিনি টাইপ ব্রা পড়ে নাকি? বিষয়টা ভেবেই মনে উথালপাতাল হচ্ছে। new choti live

আপু- কি হয়েছে সোনা? কি ভাবছো?
আমি- ভাবছি তুমি খুব সুন্দর আপু। তোমার মতো সুন্দর পৃথিবীতে আর একজনও নেই।
আপু- হুমমমম। তাই নাকি? তা কি কি কারনে এত সুন্দর লাগে আমায়?

আমি চুপ হয়ে আছি। আমার লজ্জা বুঝে বলল- কি হলো সোনা? কথা বলছো না যে?
আমি- আসলে আপু।
আপু- বুঝেছি। ওয়েট

বলে আপু খাবারগুলো ট্রেতে করে নিয়ে ডাইনিংয়ের দিকে যেতে যেতে বলল- এসো।
আমরা চেয়ারে বসলাম। আপু একটা বাটিতে সুপ নিল।
আমি-একটা কেন আপু? আরেকটা নিয়ে এলেনাযে।
আপু- আমার সাথে খেলে সমস্যা আছে? new choti live

আমি- না না কি বলছো? সমস্যা কেন হবে?
আপু- তাহলে? ঠিক এটাই। একই বাটিতে খেতে যদি সমস্যা না হয় তাহলে মন খুলে কথা বলতে সমস্যা কোথায়? আমি কি তোমার বোন নই?
আমি- তুমি আমার মা, বোন,বাবা, ভাই সবকিছু। আর কেই বা আছে তুমি ছাড়া।

আপু-তাহলে এমন করছো কেন?কোন কোন দিকে সুন্দর লাগে আমায় বলতে সমস্যা কোথায়?
আমি-আসলে আপু,সব কথাতো ভাইবোনে বলা যায় না তাইনা? কিছু গোপনীয় বিষয় থাকেনা? আমি তোমায় খুব শ্রদ্ধা করি।
আপু-কোথায় শ্রদ্ধা করছো?এটাতো অবজ্ঞা। আমায় কি দেখতে বাজে? new choti live

আপুর এই কথা শুনে না জানি কি হলো আমার। আমি কি বলতে বলে ফেলি- তুমি মোটেও বাজে না দেখতে আপু। পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দরী ও হট মেয়ে তুমি। তোমার বডি স্টাকচার এতো অসাধারণ। তাই তোমায় এতো সুন্দর লাগে।

কথাগুলো বলে মনে হলো সব বলে দিয়েছি। আপু মিটিমিটি হেসে আমার মুখে সুপ দিয়ে গাল টিপে দিয়ে বলল- এইবার হয়েছে। এটাই শুনতে চাইছিলাম বোকা ছেলে।মনে যা থাকবে তা বলতে শিখো। মনের কথা চেপে রাখবে না কখনো।
আমি- আচ্ছা আপু। কিন্তু আপু তুমি কি আমায় খারাপ মনে করলে?

আপু- আরে বোকা খারাপ কেন ভাবতে যাবো? তুমি আমার ভাই। আমার জীবনের একমাত্র ভালোবাসা। একমাত্র সম্বল তুমি জীবনে।আর আমার সৌন্দর্যরূপ নিয়ে কথা বলার অধিকার তুমি ছাড়া আর কারও নেই সোনা। তুমি তোমার বোনের সৌন্দর্য নিয়ে মত দিবে। ভালো মন্দ বলবে এটাই বিধির বিধান।
আমি- বিধির বিধান মানে? new choti live

আপু- আমরা দুজন একই মায়ের সন্তান। আমাদের জন্ম থেকে শুরু করে সবই এক। অন্যান্য ভাইবোন যতটা না পারস্পরিক হতে পারবে মনে প্রানে, আমরা তার চেয়ে অনেক কাছে। আমাদের মাঝে কোনো বিষয়ে কোনো বাধা নেই। এজন্য আমরা একে অপরের ভালোমন্দ সবকিছু নিয়ে কথা বলতে পারব, একে অপরের প্রয়োজন পূরণ করবো তা যেরকম প্রয়োজন হোক না কেন।বুঝেছ?

আমি- হ্যা আপু।
আপু-তাহলে আর এমন সংকোচ করবে আপুর সাথে বলো?
আমি- না আপু। আর করবো না।

( আমিতো এগুলো আগে থেকেই জানি। কিন্তু আপু নিজের জয় নিজেই দেখুক তার জন্য এসব না জানা অভিনয় করছি। আমি নিজেকে আরও মেলে আপুর সব বিষয়ে বিশেষ করে পোশাক ও শরীর নিয়ে কথা বলার সুযোগ পেলাম।এখন থেকে বোল্ডভাবে আপুর প্রশংসা করবো)
আপু- এইতো লক্ষিসোনা আমার। new choti live

বলেই আপু আমার গালে একটা মিষ্টি চুমু দিল। এখন আর চুমু দেওয়া তেমন বিষয় নয়। একদম স্বাভাবিক বিষয়। তো আমরা খেয়ে নিলাম। এরপর ঘুমাতে যাই। আপুকে নিয়ে স্বপ্ন দেখলাম যে খুব সুন্দর একটা বাসর করছি আমরা। কিন্তু আপুর উলঙ্গ রূপ এখনও স্বপ্নে দেখিনি। কারন বাস্তবেইতো দেখিনি।

পরদিন হাসপাতালে যাওয়ার সময় মনে মনে ভাবছি আজ কি আপু আসলেই টিশার্ট পড়ে আসবে? আমাকে খুশি করে দিয়ে আপু আজ তাই করেছে। গিয়ে দেখি আপু একটা হলুদ টিশার্ট ও হলুদ টাইস পড়েছে। একদম বিদেশী কোনো মেয়ে মনে হচ্ছে। বাংলাদেশে সচরাচর এমন পোশাক কেও পড়েনা। হাতেগোনা কিছু মেয়ে পড়ে তবে এতো টাইট করে পড়ে না। new choti live

আপুর টাইস এতই টাইট যে পাছার শেপ ঠিকরে বেরিয়ে আছে। এমনকি নিচে যে পেন্টি পড়া তার ছাপও স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। আর টিশার্ট আর কি বলবো। বুকের গড়ন দুটো বাটি একদম স্পষ্ট। নিচে কাপড়ের ব্রা পড়া তার ছাপও স্পষ্ট। এক কথায় পুরো শরীরের গঠন একদম স্পষ্ট। সবাই হা করে তাকিয়ে দেখেই চলেছে আপুকে। আমরা রাউন্ড করে এক সময় আপুর চেম্বারে গেলাম।নক না করে আপুর চেম্বারে কেও আসেনা।

তো আপু রুমে ঢুকেই বলল- কেমন লাগছে সোনা আমাকে? পছন্দ হয়েছে?
আমি- বলে বোঝাতে পারবোনা এত সুন্দর লাগছে তোমায়। এত কিউট আর কেও নেই।
আপু কোমর বাকিয়ে হেটে এসে আমার গালে হাত দিয়ে বলল- শুধু সুন্দর আর কিউট কেন লাগে বলো তো? আর কিছু লাগে না? new choti live

আমি- আপু, তুমিও না খুব দুষ্টু,,,,
আপু আমায় সুড়সুড়ি দিয়ে বলল- দুষ্টু তাইনা? বলো কেমন লাগছে। ওটা খারাপ শব্দ নয়। বলতে কোনো বাধা নেই। বলো।
আমি- খুব হট ও সেক্সি লাগছে আপু।

আপু আমায় সাথে সাথে জরিয়ে ধরল। বলল- আই লাভ ইউ সোনা।
আপুর নরম বুকের চাপে আমি যেন হাওয়ায় ভাসতে লাগলাম।
আমি- আমি প্রথমে বিশ্বাস করতে পারিনি তুমি পড়ে ফেলেছ এগুলো। সচরাচর বাংলাদেশে এসব পড়া মেয়ে নেই। আমি খুব খুশি হয়েছি। স্বাধীনতা থাকা দরকার। new choti live

আপু- তুমি বলেছ আর আমি পড়বো না তা কি করে হয় বলো?
তখনও আপু আমায় জরিয়েই ধরে আছে। বুকে বুক মেলানো। মনে হলো চাপ দিচ্ছে বুকে। আমরা আরও কিছুক্ষণ গল্প করে কাটালাম।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.1 / 5. মোট ভোটঃ 58

কেও এখনো ভোট দেয় নি

3 thoughts on “new choti live ডাক্তার আপু ও আমি-২”

Leave a Comment