threesome fuck choti স্ত্রীর শরীরসুধা – 9

bangla threesome fuck choti. আমার স্বামী স্বপনের সঙ্গে সেই রাতের চরম উত্তেজক সঙ্গমের পরের দিন দুপুরবেলায় ফ্যানের তলায় সুয়ে উপন্যাস পড়তে পড়তে বেশ ঘুম ঘুম আসছিল । হঠাত মোবাইল-এ একটা এস-এম-এস । ভালো আছ ? – রবি – কি চাইছে আবার যে জানে ? আমার জীবন-টা কি একটা নতুন মোড় নিতে চলেছে ? সময়-ই সব বলে দেবে । অনেকদিন পরে ওই মেসেজটা পেয়ে হঠাত কেমন একটা চাপা উত্তেজনা হতে শুরু করলো । ওই মেসেজ-টা ফোনে দেখতে দেখতে কেমন করে মন্দার-মনির সব স্মৃতি মনে পড়তে লাগলো । উপুর হয়ে খাটে শুয়ে শুয়ে ভাবতে ভাবতে হঠাত কখন তলপেট ভিজে উঠেছে বুঝতেই পারিনি ।

[সমস্ত পর্ব
স্ত্রীর শরীরসুধা – 8]

উফ রবির মত পুরুষ আমি সত্যি-ই আগে দেখিনি । হঠাত কেন জানিনা শারীরিক সুখ পাবার ভীষণ একটা ইচ্ছে হতে লাগলো । মন্দারমনিতে আমার শরীরের চড়ায় যে ভরা জোয়ার এসেছিল তার অভিজ্ঞতা আবার পেতে ইচ্ছে করছে । নিশ্চয় আবার চাইছে আমাকে ও । উঃ মাগো রবি, আমার-ও চাই – আর পারছিনা এস মাগো । ভুলে গেলাম আমি বিবাহিত । ফোনটা টেনে নিলাম নিজের পাছে । আবার করে দেখলাম মেসেজটা । তারপরে একটা চুমু খেলাম ফোনটাতে । ইস । টাইপ করলাম – ভালো আছি – তুমি ? উত্তর এলো প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই । কাল দুপুরে চলে এস । তাজ বেঙ্গল । আমি লবিতে থাকব । কোনো ভয় নেই ।

threesome fuck choti

পরের দিন সকালে । খুব পাতলা একটা হালকা নিল সিফনের সারি পরলাম । নাভির বেশ খানিকটা নিচে । একটা ট্যাক্সি নিলাম । হালকা প্রসাধন । আধ ঘন্টাতে ট্যাক্সি – টা পৌছে দিল তাজ বেঙ্গল-এ । উফ কি বড় হোটেল রে বাবা । ঠিক যেমন ভেবেছি লবিতে রবি দাড়িয়ে ছিল একটা স্যুট পরে । বেশ হ্যান্ডসাম দেখাচ্ছিল ওকে । চোখে কালো চশমা রে-ব্যান-এর । কেমন যেন তাকিয়েই থাকতে হলো । ওর তুলনায় স্বপন বেশ নিস্প্রভ । হোটেলের আয়নাতে রাবির পাশে আমাকে দারুন মানাচ্ছিল । রবি এসে আমার হাত ধরল । চারিদিকে কেউ নেই দেখে অল্প চাপ দিল আমার হাতে । শিরশির করে উঠলো আমার শরীর ।

হাসলো রবি আমাকে দেখে
– দারুন দেখাচ্ছে তো ? অনেকদিন পরে !
– হ্যা এতদিনে তোমার মনে পড়ল ?
– আমার তো মনে আছে । তোমার মনে পড়ছে কিনা তার টেস্ট করছিলাম । threesome fuck choti

– কি ফল পেলে ?
– তুমি ভাঙবে তবু মচকাবে না । আগে এস এম এস করলেই তো পারতে । আমাকে করতে হলো কেন ?
হাসলাম আমি । হেরে যাবার হাসি । আরো দুষ্টু খেলার হাসি । রবি বুঝতে পারল । লবি-তেই আমার কাঁধে হালকা হাত রাখল । আমি কিছু বললাম না । জানি তো এসব অনেক বড়লোকদের জায়গা । সব চলে ।

রবি বলল
– ওপরে চল
– ওপরে কেন ?
– এমনি । আমার একটা ঘর আছে । threesome fuck choti

– কেন যাব ? আমার কোনো ঘর বাড়ি নেই বুঝি ? দুষ্টু হাসলাম । জানি পুরুষেরা এই হাসি দেখে পাগল হয়ে যায় ।
– হাতে চাপ দিল ও । ইস কি পুরুষালি চাপ । শিরশির করে উঠলো দেহ । অনেকদিন পরে ।
ইমপোর্টেড পারফিউম মেখেছি । নিশ্চয় গন্ধ পাছে রবি । আমার শরীরের-ও কি গন্ধ পাছে ?
– চল
– এখনি ঘরে কেন ? চল রেস্টুরান্ট-এ বসি । একটা পুল-সাইড রেস্টুরান্ট আছে বলে শুনেছিলাম ।

– ওখান থেকেই ঘরে খাবার আনিয়ে দেব । চলনা । খুব কাছে এসে বলল – তোমাকে যা দেখতে লাগছে আর থাকতে পারছিনা ।
– ইস অসভ্য চাপা স্বরে বললাম আমি
পরকীয়াতে সব সময়েই মস্তি । ইস কি হবে কে জানে ।
এগারো তলাতে রবির ঘর । লিফট-এ কেউ নেই । তবুও অসংযত হলো না রবি । তাকাচ্ছিল সুধু । আমিও ওর তাকানো মনে প্রাণে উপভোগ করছিলাম । threesome fuck choti

রুমে গিয়ে দরজা বন্ধ করলো । তারপরে খাবার অর্ডার দিল । আমার বেশ খিদে পেয়ে গেছিল । তাই বারণ করলাম না ।
খুব সুন্দর সাজানো ঘর । কি সুন্দর পর্দা । পরিষ্কার টেবিল চেয়ার । টেবিলে আমার চিঠি লেখার কাগজ সুন্দর করে সাজানো । কালার ম্যাচিং করা আসবাব সব । আমাদের বাড়ির মতন নয় ।
এই প্রথম ফাইভ ষ্টার হোটেলে এসেছি আমি । আমাদের অবস্থা এত ভালো নয় যে নিজের পয়সায় আসবো । বেশ ভালো লাগছে ।

জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে দেখলাম । আমাদের প্রিয় কলকাতা-তাকেই কি সুন্দর লাগছে । ঠিক যেন রঙিন চশমার মধ্যে দিয়ে দেখা ।
পিছন থেকে আমার কাঁধে হাত রাখল রবি । ওর হাত আমার কাঁধ বেষ্টন করে । কি কেমন লাগছে ?
– দারুন । কি সুন্দর হোটেল গো । আমাদের মন্দারমনির হোটেল-তা এর কাছে কিছুই নয় ।
– আমার কাছে ওই হোটেল-তার আলাদা দাম আছে । ওখানে না গেলে তো তোমাকে পেতাম না ।
– ইস. threesome fuck choti

– চল দুটো দুজনে ড্রিংক-এ সিপ দেই । মনমেজাজ ফুরফুরে হয়ে যাবে ।

রবি তৈরী করে দিল দুটো ড্রিংক । কি সুন্দর হালকা নিল রং । ঠিক যেন ওই মন্দারমনির সমুদ্রের মত যেখানে রবি আমার সঙ্গে দুষ্টুমি করছিল । ভীষণ ভালো লাগছে ।

চিয়ার্স —

চুমুক দিলাম আমরা গেলাসে । খাবার আসবে একটু পরে । ততক্ষণ আরাম করে ড্রিংক-টা এনজয় করি ।

দুএকটা চুমুক দিতেই কেমন যেন লাগতে শুরু করলো । কেমন যেন গরম গরম । কিসের ড্রিংক কে জানে ।

– কি ড্রিংক দিয়েছ গো । এই দুপুরবেলাতেই কেমন ঝিম ঝিম নেশা হয়ে যাচ্ছে । কি হবে?

হাসলো রবি । threesome fuck choti

– কেন ভালো লাগছে না ? মেয়েদের ভালো লাগার জন্যেই তো এই ড্রিংক । পুরো শরীর ফুরফুরে হয়ে যাবে । সবকিছু ভালো লাগবে ।

ড্রিংক-এ আরো কযেকটা চুমুক দেবার পরে ভীষণ ভালো লাগতে শুরু করলো । সব লাজলজ্জা কেটে গিয়ে শরীরটা কেমন বাঁশি হয়ে উঠছে । ভীষণ ভালো লাগছে রবির ওই সুপুরুষ দামাল শরীরটার দিকে তাকাতে , দেহ উপভোগের কথা ভাবতে । শিরশির করছে আমার সারা শরীর , ভাবতেই ভালো লাগছে রবির সঙ্গে সহবাসের কথা ।

ওই পাশের কি নরম তুলতুলে বিছানা , ওই বিছানাতেই ইস একটু পরে মাগো । কেন মেয়েদের মদ খেতে বারণ করে কে জানে, কি মস্তি হচ্ছে আমার । নিচু হচ্ছি মাঝে মাঝে যাতে রবি আমার খাজটা দেখতে পায় । প্রচন্ড উত্তেজনা জাগাতে চাই ওর শরীরে যাতে সেই উত্তেজনা ও আমার শরীরে ভরে দিতে পারে ।

কলিং বেলের আওয়াজ । রুম সার্ভিস । খাবার নিয়ে এসেছে । কি বোরিং । আমার মাতাল শরীরটাকে দেখতে পাবে । অঞ্চল খসে খসে পড়তে চাইছে । সংযত রেখে কি করব । ইস ।

রুম সার্ভিস চলে যাচ্ছে , রবি দরজার কাছে , আবার কে এলো ? কার সঙ্গে কথা বলছে রবি ? যাতা আসছে না কেন ও ? আমি কিছু খেতে চাইনা , প্লিস এস না । threesome fuck choti

আসছে এবার ও । কিন্তু সঙ্গে কে ? দরজা বন্ধ করার আওয়াজ । আমি শাড়ি ঠিক করে নিলাম । রুম সার্ভিস কি খাইয়েও দেবে নাকি ? দুত্তোর ।

ইনি আবার কে রবির সঙ্গে ? বেশ সুপুরুষ তো । রবি আলাপ করিয়ে দিছে । সোনালী, আমার বন্ধু । সোনালী- আমার বস । রনেন রায় ।

হাসবার চেষ্টা করলাম । বোধহয় মিষ্টি করেই । উনিও হাসলেন । সোফাতে আমি আর রবি । পাশের কাউচে রনেন রায় । রবি ড্রিংক ঢেলে দিছে । আমাকে যেটা দিয়েছিল সেটা নাকি ? না অন্য কিছু ? আমার আরেকটা চাই ঐটা । হ্যা রবি জানে । ঢেলে দিল । আমি দু তিনটে লম্বা সিপ দিলাম । আবার বেশ ভালো লাগছে । রনেন-দাও সিপ দিচ্ছেন । ওনার-ও ওই রকম ভালো লাগছে কি ?

রবি বলল সোনালী এই প্রথম ড্রিংক করলো । আগে এইরকম হোটেলে আসে নি তো । বেশ ভালো লাগছে ওর । কি সোনালী ভালো লাগছে না ?

আরো দুএকটা সিপ মেরে দিয়েছি আমি । সত্যি কি ভালো লাগছে । আগে কেন খাইনি কে জানে । স্বপন-তা কোনদিন নিয়ে আসে নি এইসব জায়গায় ।

হাসলাম । খুব মিষ্টি করে । বললাম হ্যা কি দিয়েছ কে জানে , কেমন একটা দারুন ফিলিং হচ্ছে । threesome fuck choti

রবি বলল হ্যা আমার-ও বলে আমার খুব কাছে এসে বসে ঘরে হাত রাখল । ইস কখন রনেন-দা যাবেন কে জানে । আমার খুব ভালো লাগছে এখন ।

রবি বলল লজ্জা পেওনা । রনেন-দা আমার খুব ভালো বন্ধু-ও । কি বল রনেন-দা ।

বলে আমার শাড়ির আচলটা একটু সরিয়ে দিল । যাতে রনেন-দা আমার হালকা বুকের আভাস দেখতে পান । কিন্তু আমার আর কিছু বলার ক্ষমতা নেই । দেখুক যতক্ষণ থাকে ।

হাসলেন রনেনদা । বললেন বন্ধু বলছ কিন্তু দুরে সরিয়ে রেখেছ ।

রবি বলল নানা এই সোফাতেই বসতে পারেন । সোনালী কিছু মনে করবে না ।

রনেন-দা আমার পাশে এসে বসলেন । রবি আমার ঘাড়ে আস্তে আস্তে করে আঙ্গুল বুলিয়ে মাসাজ দিছে । আরেকটা সিপ দিলাম । আরো ভালো লাগছে । threesome fuck choti

রনেন-দা বললেন আমিও ভালো মাসাজ দিতে পারি । হাসলো রবি । আমার কিছু বলার ক্ষমতা নেই আর । নেশায় মাথাটা ঝিমঝিম ।

রনেন্দা আমার ঘাড়ে হাত দিলেন । আঙ্গুলগুলো সাপের মত খেলছে ঘাড়ে । রবির আর রনেন-দার-ও । ভরাট গলায় রনেন-দা বললেন কি সোনালী, ভালো লাগছে ?

কে উত্তর দিছে ? আমি না আমার শরীর ? সত্যি ভীষণ ভালো লাগছে । লাগবেই তো । দু দুজন দামাল পুরুষ ।

হালকা আলতো আদুরে গলায় মস্তির ঘরে একটা আওয়াজ বেরিয়ে এলো – উমমমম । কোনো ভাষার সময় নেই এখন ।

একী হচ্ছে আমার ? এ কি করছি আমি ? সোনালী রায়চৌধুরী , স্বপন রায়চৌধুরীর বিবাহিতা স্ত্রী , সুকন্যার মা আমি নই ? কি হলো কমলা গার্লস-এ পড়া লাজুক মেয়েটির যে বুকের কাছে বই নিয়ে হাঁটত যাতে তার সেই কোমল কুঁড়ির মত বুক কোনো ছেলে না দেখে । আজ কি করছে সে ? রনেন-দা আর রবি দুই কামার্ত পুরুষ আমার দুই পাশে । এখন আমার লজ্জা পাছে না কেন ? ইস নেশায় পুরো শরীরটা ভারী । কিছু করতে চাইলেও পারছিনা । শিরশির করছে , কাঁপছে শরীর উত্তেজনায় । threesome fuck choti

রবির আদর খেয়েছি কিন্তু দুজনের একসঙ্গে ? পারমিতা বলেছিল যদিও নীল্ ছবিতে এই দৃশ্য দেখার কথা । কিন্তু কোনো বাঙালি বিবাহিতা নারীর জীবনে এই মুহূর্ত আসতে পারে ভাবি নি কখনো । কিন্তু মুহুর্তটা খারাপ-ও লাগছে না । কামার্ত রবি আর রনেন-দা খুব কাছে আমার । ঘাড়ের পাশের চুল সরিয়ে আমার ফর্সা সুন্দর ঘাড়টাকে দেখছে আর আদর করছে আঙ্গুল বুলিয়ে । উহ ভালো ম্যাসাজ কি ভালো লাগে । দুজনেই পাকা খেলোওয়ার । আমার আবেশে চোখ বুজে আসছে । আর অজানা এক সুখের শিরশিরানি দেহে । ঘন ঘন নিশ্বাস ।

একী , কখন আসতে করে আমার আচলটা নেমে গেছে ? নাকি ওরা ইচ্ছে করে – ইস । তুলে দেবার চেষ্টা করলাম , কিন্তু রনেন-দার বলিষ্ঠ হাতের হালকা স্পর্শেই আবার নেমে গেল, আর তুলবার শক্তি নেই । বুঝলাম দুজনেই আমার ভরাট বুকের ওঠানামা দেখছে – মাগো । খোলা স্তনের খাজ । কালো ব্রার হাতছানি ওদের পাগল করে তুলছে । রনেন-দার ঠোট-টা আমার ঘাড়ে ইস মাগো হালকা হালকা করে আমার ঘাড়ে চুমু খাচ্ছেন উনি ? কেন ? ইস এই কেন জিগেস শক্তি আমার নেই । threesome fuck choti

আর চুমুতে চুমুতে শিরশিরানি-টা আরো বেড়েই যাচ্ছে । রবি জিগেশ করলো সোনালী ভালো লাগছে ? আমি ঘাড় টা হেলিয়ে দিলাম । ওদের নজর আমার স্তনের দিকে জানি আমি । অসভ্য দুটো লোভী দৃষ্টিতে তাকাচ্ছে । এবার আলতো আলতো কামড় দিচ্ছেন রনেন-দা । কি ভীষণ কামোত্তেজনা উঠছে আমার । ইচ্ছে করছে উনি ভালো করে পিষে দিন আমার বুক-দুটো । উফ কি ভালো সেক্স ওঠাতে পারেন উনি মাগো । বললাম প্লিস প্লিস আর না আমার সংসার আছে । প্লিস ।

রনেন-দা হেসে বললেন আমাদের সংসার আছে । রোজ-ই তো সংসার করি । আজ একটু রিলাক্স কর , ভালো লাগছে না ? কি সুন্দর লাগছে তোমাকে । চোখ ফেরাতে পারছিনা । আরেকটা সিপ দাও , আরো ভালো লাগবে । রবি একটা মিষ্টি ট্যাবলেট দিয়েছে ওই ড্রিংক-টাতে যাতে তোমার ভালো লাগে । কি আরাম লাগছে না এখন – বলে রনেন-দা উনার মাসকুলার বাম হাতটা আমার ব্লাউসের উপর দিয়ে স্তনে ঠেকিয়ে দিলেন । বুঝলাম আমার বোটার দৃঢ়তা মাপছেন উনি । threesome fuck choti

আর ওই হাত লাগতেই কেন জানিনা পুরোপুরি শক্ত হয়ে গেল আমার ওদুটো । ইস পুরো ফিল করলেন সেটা উনি – অসভ্য । বুঝতেই পারলেন বাঙালি গৃহস্থ নারীর সুইচ অন হয়ে গেছে । আর হবেই না কেন ? শরীরের ব্যাপারটা তো উনি ভালই জানেন । উফ আরো জোরে ঠেসে ধরলেন হাতটা আমার স্তনে । ইস । বললেন সোনালী, লাগছে ? বললাম না কিন্তু প্লিস ছেড়ে দিন । হাসলেন রনেন-দা – বললেন পুরো শক্ত হয়ে গেছে এখন ছাড়লে থাকতে পারবে না । একটু নরম করে দেই বলে ব্লাউসের ওপর দিয়ে একটা স্তনে আসতে আসতে কুরকুরি দিতে শুরু করলেন ।

উফ কি ভালো সেক্স ওঠাতে পারেন মাগো । আমার আবেশে চোখ বুজে এলো । রনেনদা আমার দুটো চূড়া-কে পাথরের মত শক্ত করে দিচ্ছেন । আঃ ও কি করছেন উনি ? ব্লাউসের ওপর দিয়ে জোরে জোরে ডলে দিচ্ছেন আর মোচরাছেন চূড়া-দুটোকে । অসভ্যের মত মাগো । আমি চেচিয়ে উঠলাম – রবি-ই-ই । হাসলেন রনেন-দা । বললেন রবি কিছুই বলবেনা । ও পারমিতা-কেও আমার কাছে এনে দিয়েছে – আর তোমাকেও । কিন্তু সোনালী-সোনা পারমিতার চেয়ে তুমি আরো সেক্সি । আঃ কি নরম তোমার বুক । threesome fuck choti

ভালো করে ছেনে দিচ্ছেন । আর রবি ওপাশে বসে আমার কোমরে হাত । মাগো নাভিতে সুরসুরি দিছে অসভ্যটা । রনেন-দা বললেন রবি সোনালীর নাভিটা কি সুন্দর না এই বয়েসেও ? হাসলো রবি – হ্যা রনেন-দা – ওই নাভি দেখেই আমি প্রেমে পড়ে গেছি । নাভিতে চুমু খেলে সোনালীর খুব ভালো লাগে । হাসলেন রনেনদা একটা খেয়ে দেখব নাকি ? রবি হাসলো , বলল সোনালীর এখন আমাদের দুজনকে ছাড়া চলবে না । আর চুমু খেলে আরো ভালো লাগবে । রনেন-দা সোফার নিচে বসলেন ইস ।

আর রবি আমাকে জড়িয়ে নিল । আসতে করে রনেন-দা মুখ লাগলেন আমার নাভিতে । চুমু দিতেই আমার অজান্তেই মুখ থেকে একটা চাপা শীত্কার বেরিয়ে এলো । আর এক একটা চুমুর পরে সেই চাপা শীত্কার-টা আরো মধুর,আরো আনন্দের শব্দে পরিনত হলো । তখন অসভ্য রবি আমার দুই স্তন জোরে জোরে ঠেসে দিছে আর নিচে রনেন-দা আমার নাভি থেকে নিম্ন-নাভির বিপজ্জনক বিভাজিকা-তে । নাভিমূলে পুরুষের কামড়ে নারীর যে এত উত্তেজনা হয় আগে জানতাম না । threesome fuck choti

নিজের অজান্তেই আমার দুই উরু রনেন-দার পিঠের ওপরে আর আমার দুই হাত রনেন-দার চুলে আদর করছে । জিভ-তা আমার ক্ষীন-কটিদেশের একদিক থেকে অন্যদিকে তীব্র আনন্দের জ্বালা ছড়িয়ে দিছে । আমার চাপা শীত্কার এখন গোঙানিতে পরিনত হয়েছে । নারীর গোঙানি চিরকালই পুরুষের উত্তেজনার কারণ । আমাকে জিতে নিতে পেরে রবি আর রনেন-দা ভীষণ উত্তেজিত । রনেন-দা বললেন রবি এবার ওর ব্লাউস-টা খুলে দাও নয়তো ওর গরম লাগছে । রবি আমাকে জিগেশ করলো কি গরম লাগছে ?

আমি থাকতে না পেরে বললাম না প্লিস খুলনা রনেন-দা আছেন । রবি হাসলো । বলল রনেন-দাকে দেখাবে না তোমার তুলতুলি-দুটো ? এস দেখিয়ে দেই বলে আমার ব্লাউসের বোতাম খুলতে শুরু করলো । আমার কাঁধের ওপর দিয়ে বার করে আনলো । পাতলা লেসের কালো ব্রার মধ্যে আমার দৃঢ় স্তন দেখে পাগল হয়ে গেলেন রনেন-দা ।নাভি ছেড়ে উপরে উঠে এসে খাজে মুখ রাখলেন । আমি আর থাকতে পারলাম না ।ব্রার ভেতর থেকে একটা স্তন বার করে ইঙ্গিত করলাম উনাকে । আহঃ । threesome fuck choti

রনেন্দার মুখে ঠেসে ধরলাম আমার একটা তুলতুলি-কে । আসতে করে বোটা তে একটা প্রথমে কামড় দিলেন উনি । প্রচন্ড উত্তেজনাতে একটা চাপা চিত্কার করে উঠলাম আমি । উনার চুল টেনে ধরে স্তন-তা আরো জোরে মুখে গুজে দিলাম । কামড় দিক , পিষে দিক উফ । রনেন-দা ভাবতেই পারেন নি । পাগলের মত উত্তেজিত হয়ে গেলেন উনি । দাঁত বসিয়ে দিলেন আমার বোটা তে । আঃ কি সুখ ওখানে পুরুষের কামড়ে । চিত্কার করে উঠলাম আমি উফ ।

উনি কাম্রাছেন আমার চুড়াতে । কি আদিম শিরশিরানি মাগো । ঘন ঘন নিশ্বাস দুজনেরই । কামড়ে চেটে চুষে আমার স্তনবৃন্তকে প্রচন্ড সুখ দিচ্ছেন । আসতে আসতে পিঠের স্ট্রাপ খুলে দিলেন । আমার স্তন আর খয়েরি বোটা দুই কামার্ত পুরুষের সামনে । হাসলো ওরা । তারপরে প্যান্ট খুলে ফেলল দুজনেই । আর দুই লোমশ পুরুষ সোফাতে বসে আমাকে ওদের কোলে বসিয়ে নিল ।

উফ কি গরম । দুজন আন্ডারওয়্যার পরা পুরুষের কোলে বসে আছি আমি । সোনালী রায়চৌধুরী । আমার পরনে সুধু শায়া । আর কোনো লজ্জা করছেনা ওরা । রবি আর রনেন-দা আমার দুই স্তনের দখল নিয়েছে । স্তনের চুড়াতে আস্তে আস্তে কচ্লাছে ওরা । উফ কি সুখ মাগো । মাঝে মাঝে আমি শীত্কার করছি আর তাতে আরো উত্তেজিত হয়ে ওরা ভালো করে ঠেসে কচলে দিছে ওদুটোকে । আমার ফর্সা বোটা দেখে পাগল ওরা । threesome fuck choti

রবি বলল রনেন-দা সোনালীকে ভালো লাগছে ?

রনেন-দা বললেন উফ কি নরম শরীর ভালো না লেগে পারে ? সোনালী বেশ উত্তেজনা পাছে বল ?:

হাসলো রবি – আপনার ভালো লাগলেই আমি খুশি । বলেছিলাম না পারমিতার থেকে ভালো । ইস পুরো শক্ত হয়ে গেছে ওর । ভালো করে না আদর করলে নামবে না ।

রনেন-দা বললেন আর পারছিনা । ওর নাভিতে ভালো করে সুরসুরি দিতে ইচ্ছে করছে বলে আমার নাভিতে হাত দিয়ে ম্যাসাজ করতে শুরু করলেন ।

আমি উহ না রনেন-দা আর না প্লিস বলা সত্বেও কুরকুরি থামল না । তার সঙ্গে রবিও আমার পেটে হাত দিল । হেসে রনেন-দা কে বলল এক মেয়ের মা বলে মনেই হয়না না ?

রনেন-দা বললেন হ্যা কি মসৃন না ? ঠিক পচিশ বছরের যুবতীর মত । আর কি নরম উফ । সোনালী , তোমার নাভিতে একটু অলিভ অয়েল মাখিয়ে দেই ? রবি প্লিস ওই ব্যাগটা বার কর না । threesome fuck choti

রবি শিশিটা বার করলো আর রনেন-দা অলিভ অয়েল বার করে আমার নাভিতে দিয়ে ভালো করে ম্যাসাজ করতে শুরু করলেন । চকচক করছে আমার নাভি উফ । পুরুষের চরম সুখের উত্স ।

আসতে আসতে নাভিতে অয়েল ম্যাসাজ করতে করতে রনেন-দা দেখি আমার শায়ার দড়িতে হাত দেবার চেষ্টা করছেন । আমি কাকুতি মিনতি করছি চোখ দিয়ে প্লিস ওখানে না ।

রনেন-দা শুনলেন না । শায়ার দড়ির গিত একটানে খুলে দিলেন । ইস । দুই কামার্ত পুরুষ চেয়ে আছে আমার প্যান্টির দিকে । কালো প্যানটি । লেসের । নিচের দিকটা একটু ভেজা । কি লজ্জা ।

ইস মাগো । আমি সুধু প্যানটি পড়ে বসে আছি দুই দামাল পুরুষের কোলে লজ্জা করছে কিন্তু তার চেয়েও বেশি নিষিদ্ধ সম্পর্কের বাসনা । আমার কি কোনদিন ইচ্ছে ছিল দুই পুরুষের দ্বারা রমিতা হবার ? সত্যি ? নয়তো সারা শরীরে কেন এত শিরশিরানি আসছে ? পেটে মাখানো অলিভ অয়েল ।ভালো করে ম্যাসাজ করে দিয়েছে তবুও আমার পেটটা চকচক করছে । আমার কালো প্যানটি পরা শরীরটার দিকে ভীষণ লোভী দৃষ্টিতে ওরা তাকিয়ে আছে । ইস সারা গায়ে রবি আর রনেনদার হাত কিলবিল করছে ।কি করবে আমাকে ওরা দুজনে ? threesome fuck choti

হোটেলের নিরালা ঘরে কোনো লজ্জা নেই তো ওদের । ইস পারমিতাকেও করেছে দুজনে মাগো । কিন্তু আমি তো পারমিতার চেয়ে অনেক সেক্সি । উফ । ঘেমে যাচ্ছি উত্তেজনাতে এই ঠান্ডা ঘরেও । জাঙ্গিয়া পরা দুই পুরুষের প্রতি কামভাব জাগছে । তিরতির করে ভিজে যাচ্ছে যোনি ওদের সামনেই । মাগো আমার দুই স্তনে ভালো করে কচলে দিছে ওরা । মাঝে মাঝে রনেন-দা আঁচরে দিচ্ছেন নিপলে পাগলের মত সুখ হচ্ছে তখন । ইস ছড়ে যাচ্ছে কি ? যাক না আরাম তো পাচ্ছি । এইবার আর থাকতে পারলেন না রনেন-দা । এ

কটা আঙ্গুল প্যান্টির মধ্যে দিয়ে ঢুকিয়ে দিয়ে হাসলেন আমার দিকে চেয়ে । আসতে আসতে আঙ্গুল-তা আমার আসল জায়গায় চলে গেল । ঠিক বোঝেন রনেন-দা । আরো নিচে , আরো নিচে যেতে যেতে ঠিক আমার ভগাঙ্কুরে এসে ঠেকলো ।কামনায় আমি চাপা শীত্কার দিয়ে বোঝালাম উনি ঠিক জায়গায় এসেছেন । হিসহিস করে রনেন-দা বললেন সোনালী বরকে ভালো লাগে না আমাকে ? বললাম মাগো জানিনা প্লিস ছেড়ে দিন । আরেকটু কুরকুরি তে কেঁপে উঠলাম আমি । রনেন-দা বললেন আমাকে ভালো লাগলে আসতে করে একটা পাছার ধাক্কা দাও আমার ধনে। threesome fuck choti

উফ মাগো আরেকটা কুরকুরি । দাঁতে দাঁত চেপে একটা পাছার দোলা দিলাম রনেন-দার লিঙ্গে । ঘষে গেল । আমার নরম ভারী পাছার চাপে ফুসে উঠলো রনেন-দার বিরাট লিঙ্গ । পাগলের মত কামার্ত উনি । আঙ্গুল-তা চেপে চেপে ঘষে যাচ্ছে আমার ভগাঙ্কুরের সঙ্গে মাগো । অন্য স্তনটা রবির হাতে । কি অবস্থা আমার ইস । আমার তন্বী কিন্তু ভরাট শরীর পেয়ে পাগল দুজনে । যোনি পুরো সকসকে ভিজে । তার মধ্যে রনেন-দার আঙ্গুল পাগলের মত কুরকুরি দিছে ।

আর না থাকতে পেরে আমি পাগলের মত জোরে জোরে পাছা দুলিয়ে ধাক্কা মারতে থাকলাম ওদের দুজনের লিঙ্গে । রনেন-দা বললেন উফ কি ভালো খেলতে পর তুমি । এবার বল তোমার বরের ধন ভালো না আমার ? হিস হিস করে বললাম উফ আপনার মাগো ভালো করে ঘষে দিন আমার আসছে আঃ । রনেন-দা অসভ্যের মত বললেন আগে বল আমার সঙ্গে শোবে ? কামনায় পাগল আমি । বললাম পারছিনা মাগো যা বলবেন আপনি সব করব প্লিস আমাকে স্বর্গে পৌছে দিন আর পারছিনা । রনেনদা বললেন আমাদের দুজনের সামনে ল্যাংটো হতে লজ্জা পাবে না ? threesome fuck choti

বললাম না সোনা প্লিস আরো জোরে দাও । আঙ্গুলগুলো ভীষণ শিরশিরানি দিছে । আমার ভগাঙ্কুর তিরতির করে কাঁপছে চরম সুখের আশায় । অপরিচিত পুরুষের আদর সব নারী-ই চায় । অবচেতনে , স্বপ্নে আর বাস্তবেও । চরম সুখের লোভে আমি পাগল । দুই দামাল পুরুষের সঙ্গে কি জোরে পাছা দলাছি আমি । ওদের লিঙ্গগুলো পুরো শক্ত, আর দুটোই আমার পনের বছরের সাথী স্বামীর চেয়ে লম্বা , মোটা আর দৃঢ় । ওরা যে একটু পরেই আমাকে স্বর্গে নিয়ে যাবে বুঝতেই পারছি । প্রচন্ড কামার্ত ওরা । সুধু আগে পুর্বরাগে আমাকে জিতে নেবে ।

কাঁপছি আমি । ওরা জানে চরম এক রাগমোচনের অপেক্ষায় আমি । অসভ্যের মত পাছা দোলাতে দোলাতে আর যোনিতে রনেন-দার আদর খেতে খেতে তীব্র আনন্দের শীত্কার করে উঠলাম আমি । রনেন-দা আঙ্গুলটা ঠেসে ধরলেন যোনিতে । রনেন-দা জিভে জিভ লাগিয়ে দিয়েছেন । রনেন-দার জিভ থেকে আমার জিভে ৪৪০ ভোল্ট বিদ্যুত খেলে গেল ।

কামড়ে ধরলাম উনার ঠোট আনন্দে । বুঝতে পারলেন উনি । তীব্র কামড়ে আমাকে ইঙ্গিত করলেন । আমার হচ্ছে মাগো । রনেন-দার হাতে ঢেলে দিছি আমার রাগরস । কোলে এলিয়ে পরলাম উনার । আর চুমু দিতে দিতে বললাম ভীষণ ভালো তুমি সোনা । ভীষণ ভালো । মরে যাব তোমার আদরে । এক বিবাহিতা নারী বলল অচেনা পুরুষ-কে । কেন ? কে জানে ? threesome fuck choti

নেশায় কামে আর আনন্দে আমি সুখের চুড়াতে । এরকম সুখ কি কোনদিন কোনো বাঙালি মেয়ে পেয়েছে ? হ্যা পারমিতা তো পেয়েছে আর আমাকে বলেনি কিছু অসভ্যটা । যদিও বর ওকে রনেন-দার বিছানাতে নিয়ে গেছে সেটা বলতে লজ্জা পেতে পারে । কিন্তু এত সুখ পেলে কোনো নারী থাকতে পারে ? আমি বুঝে গেছি আমাকে দৃন্কের মধ্যে রবি কিছু খাইয়ে দিয়েছে যাতে আমার শরীর-তা এত কামার্ত হয়ে উঠেছে । কি খাওয়ালো কে জানে । খালি গায়ে রবি আর রনেন-দার শরীরটা কষ্টিপাথরের মত ।

দুজনেরই বেশ ভালো পেটানো চেহারা , মেয়েরা যা চায় । রোমশ বুক রনেন-দার । রবির শেভ করা । আমার কিন্তু রনেন-দা কে আরো ভালো লাগছে । খানিক-টা লম্বাও উনি রবির চেয়ে । হোকনা অপরিচিত কযেকদিন আগে রবিও তো অপরিচিত ছিল । কি চওড়া কাঁধ আর পেশল বাহু । জাঙ্গিয়ার মধ্যে দিয়ে লিঙ্গটা পুরো খাড়া । লোহার রডের মত স্পর্শ লাগছিল পাছাতে । আমার পাছাটা নিশ্চই খুব ভালো লাগছিল উনার । শিরশির করছে এখনো যোনি রনেন-দার আদরে । threesome fuck choti

পুরো ভিজে গেছে প্যানটি টা । আমি উঠে দাড়ালাম । লজ্জাভরে । ইস ওদের দুজনের সামনে আমার কি লজ্জা মাগো ।অসভ্য দুটো আমার শরীরের সব গোপন কথা জেনে গেছে । শরীরের সব চাবিকাঠি ওদের হাতে আমার । বললাম এবার হয়ে গেছে । আমাকে বাড়িতে যেতে হবে । শাড়ি পরে নেই । অল্প হাসলেন রনেন-দা । জানেন পাখি ফাঁদে পরে আছে । আমার হাত ধরে কোলে বসালেন আবার । বললেন এই যে বলেছিলে আদর খাবে । সবে তো শুরু । তোমার পাছার ধাক্কাতে আমার পুরো শরীর এখন আগুনের মত গরম ।

দেখো আমার অবস্থা । বলে আমার চাঁপার কলির মত আঙ্গুলগুলো নিয়ে আসতে করে নিজের জাঙ্গিয়ার ওপরে রাখলেন । আমরা তিনজনেই সুধু জাঙ্গিয়া পরে ইস । আমি লজ্জাভরে রনেন-দার লিঙ্গের ওপরে হাত রাখলাম । উনি বললেন কি খুব গরম লাগছে না ? ভালো করে ধর আরো ভালো লাগবে । ইস লজ্জার মাথা খেয়ে আমি পুরো লিঙ্গটা আমার হাত দিয়ে চেপে ধরলাম । আর লিঙ্গমুন্দি তে আসতে আসতে কচলাতে শুরু করলাম । আনন্দে পাগল রনেন-দা । আমি দাড়িয়ে । রবি আমাকে পেছন থেকে ঠেসে ধরে আমার পাছাতে ওর রড ঠেসে ধরেছে । threesome fuck choti

মাগো পুরো খাড়া ওর লিঙ্গ । আমি রনেন-দার লিঙ্গে জোরে জোরে কচ্লাছি এখন লজ্জা ভুলে । হেসে রনেন-দা বললেন রবি-কে সোনালী পনের বছর পরে আসল সঙ্গী পেয়েছে তাই না? রবি হাসলো বলল ওর পনের বছরের না পাওয়া সুখ আজ একদিনেই আমরা দিয়ে দেই চলুন । আপনি সামনে দিন আমি পেছনে । ইস কি বলছে ওরা মাগো । ঠিক ওই নিল ছবির মত । মেয়েটা কি প্রচন্ড সুখ পাচ্ছিল । রনেন-দা বললেন সোনালী পারবে তো?

আমি লজ্জা ভুলে রনেন-দার লিঙ্গটা ভালো করে কচলে দিলাম । বললাম ইস কি অসভ্যের মত বড় হয়ে গেছে আপনারটা মাগো । ভীষণ অসভ্য আপনি । রবি তখন পিছন থেকে ঠেসে মারছে আমার পাছাতে । নরম পাছাতে প্যান্টির মধ্যে দিয়ে মারতে খুব আনন্দ পাছে নিশ্চয় । রবি বলল রনেন-দা এবার সোনালী-কে উলঙ্গ করে দিন – তাহলে অর লজ্জা কমে যাবে । হাসলেন রনেন-দা আমার দিকে তাকিয়ে । বললেন কি লজ্জা করছে ? আমি জবাবে রনেন-দার লিঙ্গ অল্প চাপ দিয়ে বললাম খুব বড় আপনার ইস মাগো লজ্জা করবে না ? threesome fuck choti

রনেন-দা আমার নাভিতে চুমু খেলেন । তারপরে আসতে আসতে আমার প্যানটি-তা নামাতে শুরু করলেন । আমি না না বললেও শুনলেন না । আসতে আসতে আমার যোনি উন্মোচিত হলো । উফ । আমার ফর্সা সুন্দর আপেলের মত যোনি দেখে পাগল হয়ে গেলেন উনি । চুমুর পর চুমু দিতে শুরু করলেন । উফ তারপরে একী জিভটা ঠেলে ঢুকিয়ে দিলেন । আমি আরামে শীত্কার করে উঠলাম পাগলের মত । রনেন-দা জিভ দিয়ে চাটছেন আমার যোনি মাগো । আমি পাগলের মত চাপা আওয়াজে শরীরের সুখ জানাচ্ছি ।

যোনিতে পাগলের মত আনন্দ । আমার পায়ের ফাকে রনেন-দার মুখ । আর থাকতে পারলেন না উনি । উঠে দাড়ালেন । তারপরে আমাকে টেনে নিয়ে বললেন চল বিছানাতে । সুখে আর ভালবাসাতে আমি রনেন-দার গলা জড়িয়ে ধরলাম । উনি আমাকে কোলে তুলে নিলেন । তারপরে আসতে করে আমার উলঙ্গ দেহটা হোটেলের ফর্সা চাদরের উপরে নামিয়ে দিলেন । threesome fuck choti

একি হলো আমার ? হোটেলের বিলাসবহুল ঘরে দুই সুঠাম পুরুষের চোখের সামনে আমার নগ্ন শরীর । দুজনে খুব কামার্তভাবে আমাকে দেখছে । কি লজ্জা মাগো । জাঙ্গিয়া পরা দুটো বলশালী শরীর । আমার পনের বছরের পুরনো স্বামীর থেকে বোধহয় অনেক বেশী বলশালী ওরা । রবির তীব্র সঙ্গম তো আমি উপভোগ করেইছি , রনেন-দা বোধহয় আরো বেশি পুরুষালি । দুজনেরই বুকের , কোমরের , উরু পেশীবহুল । আগাপাশতলা দেখছে তারিয়ে তারিয়ে দুজনে আমার সুন্দরী উলঙ্গ শরীর ।

উফ মাগো কি অসভ্য । আমি কেন পালিয়ে যেতে পারছিনা , ওদের শরীরের জাদুতে আমি মুগ্ধ । কি সুন্দর চেহারা দুজনেরই মাগো । শিরশির করছে ওদের দেখে আমার উরুসন্ধি । ভিজে গেছে ইস । ওরাও নিশ্চয় জানে । রনেন-দা একটা স্যান্ডাল-উড অয়েলের শিশি বার করলেন । আসতে আসতে আমার নাভির ওপরে তেল চুইয়ে পরছে । পুরো নাভির খাজে । তারপরে হাসলেন রনেন-দা । রবিকে বললেন তোমার বন্ধুর বৌএর নাভি-টা কি সুন্দর । আমার আদরে আরো সুন্দর হবে । threesome fuck choti

বলে আসতে করে একটা আঙ্গুল দিয়ে নাভি থেকে তেল-তা নিয়ে আমার পেটে আর কোমরে ম্যাসাজ করতে শুরু করলেন । কি তীব্র যৌনতা মাগো । এক পুরুষের আঙ্গুলে কি জাদু । আসতে আসতে আমার ভীষণ কাম উঠতে শুরু করলো । উনিও বোধহয় জানেন । কুরকুরি দিচ্ছেন নাভিতে । পেটের পাশে । একটা হাত আমার কামান বগলে । আসতে করে একটা হাত তুলে দিয়ে বগল-তা দেখলেন উনি । আরো কাছে ইস । বগলে চুমু খেলেন আসতে করে । মাগো জিভ-তা বগলে খেলছে । কোনো পুরুষ আমাকে এরকম করেনি । কি ভীষণ উত্তেজনা মাগো । জিভটা পুরো বগলে চাটছে ইস । আসতে করে বললেন রনেন-দা ভালো লাগছে ?

– উফ মাগো মরে যাচ্ছি প্লিস করবেন না । ছেড়ে দিন ।

– সোনালী তোমার শরীর-টাকে আজ আমরা দুজন স্বর্গে পৌছে দেব । এ তো সবে শুরু । আর কোনো-দিন মনে পড়বে না স্বামীর কথা । যখনি সেক্স উঠবে , মনে পড়বে আমাদের কথা । আর চলে আসবে এখানে । উফ কি সুন্দর বগল তোমার মনে হছে চুষে খেয়ে নেই ।

– উফ মাগো রনেন-দা । আগে কেউ এরকম করে আমার বগল চোষে নি । কি দারুন উত্তেজনা ওখানটা কেউ চুষলে । আমি জানি পনের বছরের বিবাহিত জীবনে এরকম সুখ কোনদিন পাইনি । আপনারা দুজনেই ভীষণ অসভ্য । threesome fuck choti

– অসভ্যতার আর কি দেখলে এখনি । এস ভালো করে নাভিতে চন্দনের তেল মাখাই । তোমার এত ফর্সা মোমের মত শরীর , চন্দনের তেল না হলে চলে ?

ইস কি করছেন রনেন-দা ? আমার নাভি থেকে উনার হাত নেমে যাচ্ছে কখনো ওপরে , কখনো নিচে আমার গভীর উপত্যকায় । কিন্তু পুরো নামছে না । মাঝে মাঝে ছুতে চাইছে আমার তীব্র সুখের জায়গাটা । আর তাতে আমার যৌন উত্তেজনা আসতে আসতে বেড়েই যাচ্ছে । মাগো । ইস । পুরুষের আদর যে এত সাংঘাতিক হতে পারে আমার জানা ছিল না ।

যোনিতে কুরকুরি খাবার জন্য সারা শরীর উন্মুখ হয়ে উঠেছে ? কখন আমার আসল জায়গাতে হাত দেবেন উনি মাগো । শিরশির করছে উনার হাতের জন্য আমার ওই জায়গাটা । তেলে চপচপে আঙ্গুলগুলো ছুয়ে ছুয়ে যাচ্ছে আমার যৌনকেশ । উফ কি উত্তেজনা মাগো ।রনেন-দা জানেন আমার যোনি পুরো ভিজে । হাসলেন উনি ।

– কি সেক্স উঠে যাচ্ছে তো ?

– আর পারছিনা রনেন-দা । প্লিস ওই জায়গাটাতে একটু ।

– কোন জায়গাতে ? threesome fuck choti

– উফ বোঝনা যেন ? আমি তুমি বলতে সুরু করে দিয়েছি উনাকে । অসভ্য হাসলাম আমি ।

– বলই না কোথায় ? তোমার মুখ থেকে শুনলে ভালো লাগবে ।

– উমম না লজ্জা করছে । তুমি না । আমার বুঝি লজ্জা করে না ?

– লজ্জা ভেঙ্গে যাবে । এইটার কি অবস্থা ? রনেন-দা আমার যোনীর ঠিক ওপরে হাত । তিরতির করে কাপছে আমার তলপেট আর যোনি । নাকের পাটা ফুলে উঠেছে আমার । চোখ বড় বড় । আহ করে নিজের অজান্তেই একটা আরামের আওয়াজ বেরিয়ে এলো ।

রনেন-দার একটা আঙ্গুল আমার যোনির ঠিক দরজাতে । যৌনকেশে বিলি কাটতে কাটতে বললেন

– আগে ভালো করে ম্যাসাজ করি তোমাকে । তারপরে তুমি যা চাইছ দেব ।

কিন্তু আমার শরীর এখনি চায় । কি করে বলি রনেন-দা কে ? threesome fuck choti

উহ মাগো, আর তো পারছিনা । একি খেলছেন রনেন-দা আমাকে নিয়ে । যুবতী বয়েসে গর্ব ছিল, যেকোনো পুরুষের চোখ ধাধিয়ে দিতে পারি আর তাকে নিজের পায়ের তলায় নিয়ে আসতে পারি । বিবাহিত জীবনে স্বপন আমাকে পরিপূর্ণ সুখ না দিলেও আমার সব কথা বেদবাক্যের মত শুনে এসেছে । কিন্তু এ কোন জগতে হারিয়ে যাচ্ছি আমি ? রনেন-দার প্রতি আমার, কমলা গার্লসের সেই লাজুক মেয়েটির আকর্ষণ তো বেড়েই যাচ্ছে । আমার নগ্ন দেহে আদর আর ভালবাসাতে রনেন-দা হাত বুলিয়ে যাচ্ছেন আমার নিভৃত প্রদেশের খুব কাছে ইস । কি লজ্জা ।

আমার সারা শরীর প্রস্তুত রনেন-ডাকে গ্রহণ করবার জন্যে । এস গো । নবযুবতী না হলেও তো যুবতীর সব লক্ষণ-ই আমার শরীরে বিদ্যমান । আমার পরিপুষ্ট স্তন , আমার ভরাট নাভি আর মাদক উরু , সব-ই তো আজ রনেন-দার জন্যে । জীবনে কথা থেকে এলে তুমি আর আমাকে জিতে নিলে । বিবাহিত প্রেম-ই কি সত্যি প্রেম ? আমার সারা শরীরে এই যে তীব্র যৌন আকর্ষণ জাগছে পাগলের মত রমন করার জন্যে তা কি প্রেম নয় ? কে বলে দেবে ? সারা শরীরটা শিউরে শিউরে উঠছে । threesome fuck choti

আমার দেহমন্দিরে পূজার ঘন্টা বাজছে । রনেন-দা সেই দেবতা । উনার আদরে কেঁপে কেঁপে উঠছে আমার নাভি , আমার যৌনকেশ । আমার উরু । ফর্সা সুন্দর উরু যা দেখে স্বপন পাগল হয়ে উঠত হাত দিত সম্ভোগের সময় । সেই সোহাগী উরু আজ নতুন সোহাগের পরশের জন্যে ব্যাকুল । একী করছেন রনেন-দা মাগো । আমার উরু-দুটো তুলে নিচ থেকে আমার যোনি দেখছেন ইস । পুরো ফাক করে । উফ । কি অসভ্য । লজ্জাও করে না । হেসে রবিকে বললেন – কচি মেয়ে । এখনো খেলতে শেখেনি ।

তোমার বউ তো পাকা খেলওয়ার ছিল । তবে আমার কচি মেয়েদের খেলওয়ার করে তুলতে বেশি ভালো লাগে । হাসলো রবি । তাই জন্যেই তো আপনাকে এনে দিয়েছি । সোনালী-র ভালো লাগবে , আপনার-ও । আমি আর পারছিনা । ভীষণ শিরশির করছে । চাপা আদুরে গলায় রনেন-ডাকে বললাম আর পারছিনা রনেন-দা । প্লিস ওখানটাতে একটু । রনেন-দার কাঁপা কাঁপা গলায় বললেন তার আগে তোমাকে একটা ইনজেকসন দিতে হবে । খেলার জন্যে প্রস্তুত হতে হবে তো । threesome fuck choti

ওটা দিলে আর লজ্জা থাকবে না । তখন ভালো করে খেলতে পারবে । সিরিঞ্জ-তা কি তৈরী-ই ছিল রবির হাতে ? রনেন-ডাকে দিতে আমার কোমরের কাছে নিয়ে এলেন । আলতো ব্যথা । হালকা ছওয়া । ইস কি বিষ ঢেলে দিলেন কে জানে শরীরে । আরো হালকা লাগছে । চোখ বুজে আসছে । কিন্তু তার আগে রনেন-ডাকে আমার চাই । উমম উনার হাত-তা নিজেই আমার যোনিতে চেপে ধরলাম ।

হঠাত কেমন শরীর-তা আরো গরম হয়ে গেল ! কি ছিল কে জানে ওই সিরিঞ্জ-এ আমার সব লজ্জা চলে গেল । হাসলাম আমি রনেন-দার দিকে চেয়ে । অসভ্যের মত । রনেন-দা বুঝলেন খেলার জন্যে তৈরী আমি । হিসহিস করে রনেন-ডাকে বললাম এস । হাসলেন উনি অল্প । রবিকে বললেন দেখেছ আমার সোনালীর লজ্জা কেমন চলে গেছে । সোনালী এখন আমার বউ হবে । কি বল সোনালী ? ইস । সত্যি যদি রনেন-দার বউ হতাম ? ফুলশয্যার রাতে কি করে দিত কে জানে ।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.8 / 5. মোট ভোটঃ 12

কেও এখনো ভোট দেয় নি

1 thought on “threesome fuck choti স্ত্রীর শরীরসুধা – 9”

Leave a Comment