choty golpo স্ত্রীর শরীরসুধা – 13

bangla choty golpo. দুই কামুক পুরুষকে চূড়ান্ত আনন্দের স্বর্গে পৌছাতে যে নারীর কি দারুন উত্তেজনা হয় , তা আমি বুঝতে পেরেছিলাম । বুঝেছিলাম যে অনেক নারী যা পারে না আমি তা পারি । ওদের সঙ্গে আমার রতিমিলন যে কি সুখের ছিল আমি ছাড়া তো আর কেউ জানে না । দুজনে মিলে আমার আকুল নারীশরীর কে সুখের সপ্তম স্বর্গে নিয়ে গেছিল । কি অসভ্য মাগো ভাবতেই শরীর সিরসির করে উঠছে । হঠাত আমি ভাবলাম আর দুঃখ পাব না , আর ভয় পাব না । যে শরীর আমাকে এত সুখ দিয়েছে তাকে ব্যবহার করেই আমি আমার লক্ষ্যে পৌছাব । কেন লজ্জা পাব , দেখা যাক না কপালে কি আছে । স্বপন আর সুকন্যা-কে কেউ তো আর কেড়ে নিতে পারবে না আমার কাছ থেকে ।

[সমস্ত পর্ব
স্ত্রীর শরীরসুধা – 12]

মাঝে মাঝে হোটেলে আসতে কি আর লজ্জা আছে । পয়সাও তো পাওয়া যাবে । সেই তো সুখের চাবিকাঠি । যার জন্যে পৃথিবীর সমস্ত পুরুষেরা অন্যদের তোষামোদ করে আর নারীরা পুরুষদের । লোকে যেমন নিজেদের বুদ্ধি ব্যবহার করে পয়সার জন্য আমি আমার শরীর ব্যবহার করব তাতে লজ্জার কি ? কমলা গার্লসের লাজুক মেয়েটি জীবনে আরো অনেক অনেক এগিয়ে যাবে । চোখে জল এসে গেছিল । মুছে নিলাম । চানঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দিলাম ওরা এগিয়ে আসার আগে । কি ভাবছে ওরা ? আমি আত্মহত্যা করব চানঘরে । আসতে আসতে করে ধাক্কা মারছে । আমি শাওয়ার খুলে দিলাম । গুন গুন গান গাইছি । একটা নতুন জীবনের শুরু ।

choty golpo

একটু কি ভয় পেয়ে গেছিল ওরা ? সত্যি-ই তো আমি যদি আত্মহত্যা করতাম চানঘরে তাহলে তো পুলিস ওদেরকেই এসে ধরত । খবরের কাগজে আমার নাম বেরোত – হোটেলের ঘরে গৃহবধুর আত্মহত্যা । স্বপন দেখত আমার দেহ আর চোখের জল ফেলত । না এ কি হতে দেওয়া যায় ? এত সুখের পর ? আমি সোনালী রায়চৌধুরী – যৌবনবতী সুন্দরী নারী । কেন মরব আমি ? আমি সুখ দেব আর নেব সুখ ।
গুনগুন করে গান করতে করতে চানঘর থেকে আমাকে বেরোতে দেখে বোধহয় ধরে প্রাণ এলো ওদের ।

রবি আর রনেন-দা আমার দিকে তাকালেন । রনেন-দা বললেন সরি । তোমাকে এসব বলতে চাইনি । ভেবে দেখো । তোমার লাভ হবে । আমাদের-ও । কত আরাম পাবে । আর পয়সাও । কোনো অসুবিধা হবে না । কেউ জানতেও পারবে না । আমরা সব ব্যবস্থা করে রাখব ।
– আমি সুধু দিনের বেলাতে বাইরে যেতে পারি । রাতে নয় । এটুকু কথা রাখতে হবে ।
– সেই ভাবনা তোমাকে ভাবতে হবে না । স্বপন-কে আমরা রাজি করিয়ে নেব । ওর তো পারমিতার ওপর দুর্বলতা আছেই । পারমিতা ওর কাছে রাতে গেলে ও রাজি হয়ে যাবে । choty golpo

– আমার ঘরে আমি বাইরের কাউকে চাইনা । মন্দারমণি আলাদা কথা । প্লিস আমাকে এটুকু স্বাধীনতা দাও ।
হাসলেন রনেন-দা । কি ভাবলেন কে জানে ।
আমার পিঠে হাত রাখলেন । ঠিক আছে সোনা তাই হবে । রাতে যেতে হবে না কোথাও ।
– পেমেন্ট সব ক্যাশ -এ হবে । সেই দিনেই । প্রতিদিন কুড়ি হাজার ।ঠিক আছে সোনা । আমাদের ক্লায়েন্ট-তা সব বিবাহিত লোক ।

তারা-ও কোনো অসুবিধা চায়না । আর জানাজানি হোক তারাও চায়না । সুধু তাদের খিদেটা হয়ত বেশি থাকবে । সবাই কোম্পানির উচু পোস্ট-এর লোক । শিক্ষিত ভদ্রলোক । একটাই প্রবলেম ওদের । ওদের স্ত্রীরা ওরা যা চায় দিতে পারে না । তুমি তা পারবে ।

আর একটা কথা এটা বোধহয় আমাকে বলতেই হবে । হাজার হোক । কিন্তু কিকরে বলি । বাঙালি নারীর একটা জায়গায় থামতে হয় তো ।

মানে আর..একটা কথা বলতে চাই। .. আমতা আমতা করছি আমি । choty golpo

হাসলেন রনেন-দা । বুঝলেন মনের কথা । জানি কি বলতে চাও । ওরা প্রটেকশন নেবে । ওদের-ই জন্যে । অচেনা জায়গা তো । এটা সাধারণ নিয়ম ।

তবে ওদের কিন্তু অনেক রকম খিদে থাকতে পারে । শরীরের , মনের-ও । স্ত্রীর সঙ্গে যা করতে চায় । কিন্তু পারে না । সেই সব । তোমাকে তা পূরণ করতে হবে কিন্তু । তার মধ্যে কিছু কিছু হয়ত তোমার বিকৃত রুচি বলে মনে হতে পারে ।

হাসলাম আমি । বললাম জানি ।

রনেন-দা চলে গেলেন । হাতে এস-ডি কার্ড-টা নিয়ে । আমার জীবনকাঠি ।

রনেন-দা চলে যেতেই আমি আর থাকতে পারলাম না । বন্ধ দরজার পেছনে রবির বুকে কান্নায় ভেঙ্গে পরলাম । আমার তো একটা সীমা আছে । মনে শরীরে ভেঙ্গে পড়েছি । কেন জানি না ।

রবি বুঝলো । আমাকে বুকে টেনে নিল । দরজার সামনেই । আমার মুখ রবির বুকে মেশানো । ওর রোমশ বুকের ঘামের গন্ধ । চেপে ধরেছে আমাকে ওর বুকে । choty golpo

ইস কি হয়ে যাচ্ছে আমার । এত কিছুর পরেও । নারী বোধহয় যে পুরুষের কাছে প্রথম চরম সুখ পায় তাকে ভুলতে পারে না । যা কিছুই সে করুক ।

দরজাতেই একটানে আমার শাড়ি খুলল ও । সায়া আর ব্লাউস পরা দেহটা কখন যে বিছানাতে তুলে নিয়ে গেল জানিনা । আমিও আশ্রয় চাইছিলাম । রবির ঘন রোমশ বুকটা সেই আশ্রয়ের কাজ করলো । আমি ওর বুকে মুখ রেখে অর শরীরের ঘ্রাণ নিছিলাম ।

এত কিছুর পরেও । পারে বটে ও । নাভির কাছ থেকে শায়ার দড়ি কখন খুলে নিয়েছে । আমার শরীরটাকে ওর শরীরের ওপর রেখে মিলনের ডাক দিল ও ।

আমার দুর্বলতা । উপেক্ষা করতে পারলাম না সেই আহ্বান । ভেসে গেলেম । আবার । উন্মত্ত সঙ্গমে পাগলকরা সুখ । চরম শিত্কারের পরে ওর শরীরের বন্ধনে পরে রইলাম বেশ কিছুক্ষণ ।

সব জামাকাপড় পরার পরে ওর বুকে মুখ দিয়ে ছিলাম ।

ভালোবাসো আমাকে ?

রবি বলল – হ্যা সোনা । choty golpo

পারমিতার চেয়েও ?

হ্যা সোনা

– তাহলে ? একটা ছোট্ট কথা । অনেক অনেক প্রশ্ন । রবি চুপ । ওর কোনো কথা বলার নেই । অনেক পুরুষেরই থাকে না । তখন তাকে নিজের বিবেকের ওপর ছেড়ে দিতে হয় । রবির মধ্যে একটা অপরাধের ভাব ।

আসতে আসতে আমরা হোটেল থেকে বেরোলাম । দরজা বন্ধ করার আগে আমাকে বুকে জড়িয়ে ধরল রবি ।

আমাকে পারলে ক্ষমা কর ।

আমি হাসলাম । এছাড়া আর কি করার ছিল । দুর্বল পুরুষ !

বাড়ি ফেরার সময় ইচ্ছে করেই একটা ট্যাক্সি নিলাম । কেমন নিজেকে বেশ বড়লোক বলে মনে হচ্ছিল । আমার তো দুটো দিক-ই থাকবে এদিকে স্বপনের সঙ্গে সুখী সংসার আর অন্যদিকে নতুন পুরুষের সঙ্গে উত্তেজক মিলনের হাতছানি । প্রথমে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরলেও ওদেরকে পুরো সুবিধা দেইনি ভেবে ভালই লাগছিল । একদিনে – কুড়ি হাজার ! ভাবা যায় ? যেই টাকাটা একজন গরিব শ্রমিক এক মাসেও পায়না , সেটা আমি সোনালী রায়চৌধুরী এক ঘন্টাতে পেতে পারি । তার কারণ আমার সুন্দর দেহ । এই দেহকে ব্যবহার না করলে দেহ শেষ তো হয়ে যাবেই একদিন । এই মিষ্টি সর্বনাশ আমার তো ভালই হলো । choty golpo

সেদিন রাতে আবার স্বপন আমাকে দেহমিলনের জন্য ডাকলো । একটু ক্লান্ত থাকলেও স্বপনকে তৃপ্ত করা তো আমার কাছে জলভাত । কিছুক্ষণের মধ্যেই স্বপন ঝরে গেল । আর সারাদিনের ক্লান্তিতে আমিও ঘুমিয়ে পরলাম । উহ মাগো কি ধকল গেছে শরীরে জন্তু-দুটোর সঙ্গে । আর হ্যা সত্যি বলতে কি স্বপন যখন করছিল আমাকে আমি কিন্তু নিজের উত্তেজনা বাড়াবার জন্যে মনে মনে ওদের কথাই ভাবছিলাম ।

বোধহয় প্রত্যেক বিবাহিতা মেয়েই ভাবে একবার পরপুরুষে যাবার পরে । উফ চানঘরে উলঙ্গ করে যা সুখ আমাকে দিয়েছিল ও , ভাবতেই কাঁটা দেয় শরীরে । রবির দামাল লিঙ্গের কাছে স্বপনের ছোট লিঙ্গ লাগ্ছিলই না । আর আমার পাছার ধাক্কা নেবার মত শক্তি তো ওর নেই তাই ওই সুখেই অর হয়ে গেল । ইস ।

পরের দিন সকালে পারমিতা-কে ফোন স্বপন অফিস যাবার পরেই । choty golpo

– ভালো আছিস সোনালী ?

– হ্যা থাকব না আর । অসভ্য একটা ।

– কেন কি হয়েছে রে ? তোর ছবি তুলেছে ।

– হ্যা । কেন তুই আমাকে সাবধান করে দিসনি ? কি হবে ebar ?

– কিছুই হবে না । সুধু মাঝে মাঝে হোটেলে যাওয়া তো । অভ্যস্ত হয়ে যাবি ।

— আমার রাগ লাগছে কেন তুই আমাকে বললি না ।

– এসব কি আগে থেকে বলে দিতে হয় ? আমাকেও তো কেউ বলে নি । রবি হঠাত এক রাতে রনেন-দার সঙ্গে ছেড়ে দিল । আর কি অসভ্য জানিস ফিরে আসার পরে জিগেশ করে রনেন-দা কি কি করেছে । choty golpo

– কি অসভ্য রে । ইস দুজনে মিলে কাল আমাকে ইস কি যাতা – মাগো

– এমন করে বলছিস যেন তুই ধোয়া তুলসীপাতা । আরামে তো তোর পাগল হয়ে যাবার কথা । ওরকম দুজন লোক। ..

– হইনি তো বলিনি । কিন্তু তুই না ।

– জানিস গতকাল রনেন-দা আমাকে নিয়ে কি করেছিল ?

– কি ?

– হোটেলে দুজন পাঞ্জাবি লোকের সঙ্গে আমাকে ছেড়ে দিয়েছিল । যা চেহারা এক একটার ।

– তুই কি করলি ? থাকলি ওদের সঙ্গে ?

– কি করব আর । দুটোতে মিলে আমাকে ধাম্সিয়েছে । থামেই না একদম । পরের দিন হাত পা যা ব্যথা । choty golpo

– সেদিন কেমন লাগলো আগে বল । পরের দিনের কথা ভেবে কি হবে আর ?

– উফ মাগো তোকে কি বলব সোনালী – সুখ দিতে কিকরে হয় ওরা জানে । প্রায় আধ ঘন্টা ধরে তো সুধু আমাকে গরম-ই করলো । তখন ওরা প্যান্ট জামা পরে । কানের লতিতে চুমু , খোলা পিঠে চুমু ইস পুরো আমার সবকিছু ভিজে গেছিল জানিস !

– তারপরে ?

– এত ইরোটিক লাগছিল কি বলব । একে তো হিন্দি সিনেমার হিরোর মত চেহারা , তারপরে এত আদর । মাগো আমার সারা শরীর সিরসির করছিল জানিস ।

– তা আবার হবে না । বুঝতেই পারি তো । রবি আর রনেন-দার আদরেই আমার যা অবস্থা হয়েছিল ।

-উফ সোনালী তোর উঠে গেছে তাইনা ?

– উঠবেনা আবার । চান করে বিছানাতে উপুর হয়ে সুয়ে তো । choty golpo

– আমিও । ইস কেমন কাঁটা দিয়ে উঠছে শরীরে ।

– জানি না আর ! ওই লোকগুলোর কথা ভাবছিস তো । জানিস ফিরে এসে স্বপন যখন আমাকে করছিল আমি চানঘরে রবির সঙ্গে করার কথা ভাবছিলাম ।

– সেকিরে চানঘরে করেছে তোকে । আমাকে করার কথা বলত । আমি দেইনি ।

– হ্যা রবি বলছিল আমার শরীরটা পাতলা বলে খুব সহজে করতে পারে ।

– জানি । কিন্তু ওই লোকগুলো আমাকেও করেছে । ওদের পক্ষে এটা কোনো ব্যাপার নয় ।

পারমিতার সঙ্গে কথা বলে আমার-ই বেশ গরম লাগলো । ও-ও করে যা আমি-ও করি । আর অনেকেই কি করে ? হয়ত করে কিন্তু কেউ জানে না । কেন জানিনা নিজের দেহকে ভীষণ ভালো লাগতে শুরু করলো । আমার এই বুক , নাভি এই পাছা যে কোনো ছেলের দেহে ও মনে জ্বালা ধরাতে পারে তাই ভেবে । উফ সে তো আমার মনেও ধরে । কত্তদিন পরে রবিকে পেলাম নিজের শরীরে । আর রনেন-দা । সেও এক খেলওয়ার বটে । হ্যা খেলতে আমিও পারি । কেন খেলব না । choty golpo

এক একবারে কুড়ি হাজার দেবার জন্যে বসে আছে লোকেরা । আর থাকবেই না কেন ? সোনালী রায়চৌধুরীর মত বাঙালি গৃহবধু কি অত সহজে পাওয়া যায় ? এই সব মধ্যবয়েসী লোকেরা তাদের বৌদের নিয়ে সন্তুষ্ট নয় আর সেই বউ-গুলো অলস আর নিজের ফিগার ঠিক রাখার চেষ্টা করে নি কখনো । বোকাগুলো জানেই না পুরুষ মানুষেরা কি চায় । আর পুরুষকে সুখ না দিলে আর নিজে সুখ না পেলে নারীজীবনের লক্ষ্য আর কি হতে পারে । মনে হয় আমার বয়েসী মেয়েরা দুই ছেলের সব মা হয়ে গেছে আর পেটে রবারের টায়ারের মত চর্বির থাক জমেছে ।

সেই জায়গায় আমার কুড়ি বছরের মেয়েদের মত টানটান চেহারা । চানঘরে যেমন রবির ঘাড় জড়িয়ে এক মুহুর্তে ওর কোলে উঠে গিয়ে ওকে শারীরিক সুখে ভরিয়ে দিতে পারি , আমার বয়েসী কোনো বাঙালি মেয়ে পারে কি ? পাঠকরা , যারা মধ্যবয়েসী আর বিবাহিত তারা নিজেদের বৌদের সঙ্গে একবার সোনালী রায়চৌধুরীকে তুলনা করবেন । দেখবেন কেমন শরীরে একটা জ্বালা ধরবে । একটা মাংসপিন্ডের মত বউ কেউ চায় কি ? choty golpo

বউ হবে রক্তমাংসের তৈরী পুতুল যাকে চটকালে সেই আপনাকে সুখ দেবে । আপনার লিঙ্গটাকে নিজের মধ্যে ঢুকিয়ে আপনার শরীরের ওপরে নাচবে । ইস কতদিন স্বপনের সঙ্গে থেকে আমার এই শরীরটাকে কষ্ট দিয়েছি । আর দেব না । নতুন নতুন প্রেমিকদের সঙ্গে সুখভোগ করব । শুরু হবে সোনালীর নতুন জীবন এক সোনালী আলোতে ।

স্বপন অফিসে চলে যাবার পরে সকালে বেশ ঘুমের আমেজে রবির কথা ভাবছিলাম । ভাবতেই কেমন শরীর-টা শিরশির করে উঠলো । মনে হলো অনেকদিন হয়নি আমাদের । ও-ই তো আমার জীবনে প্রথম পুরুষ যে আমার নারীশরীর কে সার্থকতা দিয়েছে । প্রত্যেক নারীর জীবনেই বোধহয় এমন এক একজন পুরুষ থাকে । রোজ সকালে চান করে যখন সিন্দুর পরি , তখন কেন জানিনা রবির মুখটাই মনে পরে । এটা কি পাপ ? জানিনা কিন্তু মন মানে না তো । ওকে কি আমি ভালোবেসে ফেলেছি ? না তাও তো নয় । choty golpo

স্বপন-কে ছেড়ে তো আমি কোনদিন যাব না । যাওয়া সম্ভব-ও নয় । এতদিনের বিবাহিত জীবন আমাদের । কোনো সম্ভাবনাই নেই । কিন্তু শরীর ? শরীর তো চায়না স্বপন-কে । রবি নিজের আট ইঞ্চি লিঙ্গ যখন গেদে দেয় আমার নাভির নিচে , তখন কি আমার শরীর স্বপনের স্ত্রী হয়ে থাকতে পারে ? তখন তো আমি রবির স্ত্রী হয়ে যাই দেহে আর মনেও । শারীরিক সুখ যে মানসিক সুখ নয় তা কে বলেছে ? আমি সোনালী রায়চৌধুরী মানি না মানতে পারি না । আমি এবং সব মেয়েই সেই সময় সেই পুরুষের স্ত্রী হয় যায় ।

জানি সমাজের নিয়ম ভেঙ্গে ফেলছি । আর হয়ত এ অধর্ম-ও । কিন্তু পাপ পুণ্য যে কি তার কে বিচার করবে ? সমাজ না আমি ? সত্যি বলছি আমি । আমার শরীর আর চায়না স্বপন-কে । ওর ওই ধাক্কাতে আমার কিছুই হয়না আজকাল । সুধু হালকা চিত্কার করে ওকে বোঝাতে চেষ্টা করি সুখ হচ্ছে । অনেক মেয়েই করে হয়ত । সবার স্বামী তো আর রবির মত হয়না ? আচ্ছা রবির কি সত্যি-ই মুটকি পারমিতাকে পছন্দ ? নিশ্চয় না । উফ ভাবতেই কেমন দুপায়ের ফাকে কি সুন্দর অনুভূতি হচ্ছে । ফোন করলাম ওকে । choty golpo

– কি করছ ?

– তোমার কথা ভাবছি সোনা । অনেকদিন দেখা হয়নি ।

– সত্যি বলছি সোনালী । তোমাকে আমার ঐভাবে – ব্যবহার করা উচিত হয়নি । ক্ষমা চাইছি ।

– ছার তুমি কবে দেখা করবে বল ?

ঘুম ঘুম আবেশের মাঝখানে রবির ফোনটা আমাকে নিয়ে গেল নতুন এক স্বপ্নের দেশে । সত্যি তো, অনেকদিন-ই দেখা হয়নি ওর সঙ্গে । আর এটা তো সত্যি ও সেই প্রথম পুরুষমানুষ যে আমার নারীসত্তাকে প্রথম মর্যাদা দিয়েছে । এতদিনের বিবাহিত জীবনে যা পাইনি তা আমাকে তো প্রথম দিয়েছে রবি-ই । সেদিক দিয়ে বিচার করলে ওই তো আমার সত্যিকারের স্বামী । স্বামী কথাটা ভাবলে মেয়েদের একটা অন্য ফীলিংস হয় । যদিও নারীবাদীরা বলেন নারীকে কেউ অধিকার করে না কিন্তু আমরা মেয়েরা কি সত্যি তাই ভাবি ? choty golpo

আমাদের গোপন ইচ্ছা হলো আমাদের কেউ অধিকার করুক , আমাদের দুই পায়ের ফাকে সেই অধিকারী পুরুষের কাম-দন্ড ভরে সুখের স্বর্গে উঠতে উঠতে যাতে তাকে ভরিয়ে দিতে পারি রাগ-রসে । উফ ভাবতেই শরীরটা কেমন গরম হয়ে গেল, হল্কা উঠতে লাগলো কামের মনে হলো. এখুনি যদি রবি থাকত – উফ মাগো – টেনে নিতাম ওকে আমার স্তনের খাজে , ভরিয়ে দিতাম আমার তলপেটের মধ্যেকার গভীরতার আনন্দে । ইস কি ভাবছি আমি ? অসভ্য সোনালী – এক বাচ্ছার মা – কি লজ্জা তাইনা ? কিন্তু কি করব ?

যৌবন তো অটুট , আর ঠিক পুরুষের আদর না পেলে সেই যৌবন তো তৃপ্ত হয়না । স্বপনের পাগল আদরেও আমার নারিসত্তা আজকাল আর যৌনতার স্বাদ পায় না । কি হবে আমার বিবাহিত জীবনের ? অর চেয়ে ওই অসভ্য রনেন-ডাকেও ভালো লাগে আমার । স্বপনের নিস্ফল পুরুসত্তের চেয়ে রনেন-দার অসভ্য কাম-ভরপুর সুখ অনেক অনেক ভালো । ওরা দুজনে একসঙ্গে যখন আমাকে ভোগ করছিল , তখন খারাপ তো লাগেনি আমার সত্যি-ই । মাগো পারছিনা আর – রবিকে আমার চাই-ই । choty golpo

ফোন-তা তুললাম । এবার ডায়াল করব রবির চিরচেনা নম্বর-টা ।

সোনালী জেগে উঠছে আবার ।

ফোন তুলে রবি-কে পেলাম না । কি করছে কে জানে অসভ্যটা । আমার শরীর-টা আর থাকতে পারছে না । দু-পায়ের খাজে আগুনের হল্কা । উফ কি করি মাগো । ভাবতে ভাবতে মনে পড়ল রনেন-দার একটা ভিসিটিং কার্ড আমার ভ্যানিটি বাগের পকেটে ছিল । উফ না । আবার জীবনে কি ঝামেলা হবে । কিন্তু শরীর তো মানে না । মনে পরে গেল রনেন-দার সেই উন্মত্ত সঙ্গমের কথা । আর সেই স্যান্ডল-উড অয়েল ম্যাসেজ । সারা শরীর গরম হয়ে উঠছে । হামাগুড়ি দিয়ে বিছানার কোনে গিয়ে ভ্যানিটি ব্যাগ-টা ধরলাম । ঠিক কার্ড-টা আছে । পরে যায়নি ।

কেন কে জানে । একটু ভিজে । কিসে যে জানে । রনেন-দার ঘামে না আমার ঘামে । বার করে কাঁপা কাঁপা হাতে ডায়াল করলাম । ঠিক ওদিকে রনেন-দার চেনা গলা । কেমন সুন্দর করে বললেন যেন আমার অপেক্ষাতেই ছিলেন । সুন্দরী বৌরা বোধয় সেরকমই থাকে । হেসে বললেন আসছো ? কখন ? হোটেল বুক করে রাখব ? আমি হিসহিস করে বললাম আপনি ব্যস্ত ? রনেন-দা বললেন তোমার জন্য সব-সময়েই আছি আমি । এবার কি করবেন কে জানে । আজ রবি-ও নেই । একা আমি । কাপছে শরীর-টা । choty golpo

কেন কে জানে থাকতে পারছিনা । রনেন-দা উফ । কি সুখ হবে আবার । অসভ্যটা ভালই সুখ দিতে পারে । আর একা পেয়ে তো আরো দামাল হবে । ইস সোনালী, কি শিরশির করছে । প্যানটি-তা ভিজে গেছে , পাল্টাতে হবে । একটা নতুন কালো লেসের প্যানটি পরে নিলাম । আর তার সঙ্গে টাইট একটা লেসের ব্রা ম্যাচ করে । নাভির নিচে সিফনের শাড়ি । হাতকাটা ব্লাউস । টসটসে নিজের শরীরটাকে আয়নাতে দেখে নিলাম । আদিম যৌনতা আমার সারা শরীরে । নিচে নেমে ট্যাক্সি ডাকলাম । সেই আগের হোটেল ।

হোটেলের করিডোর দিয়ে যাবার সময় একটু একটু ভয় করছিল না বললে ভুল বলা হবে । এখানে আগে এসেছিলাম রবির সঙ্গে । সে তো আমার বন্ধুর বর হাজার হলেও । তার বদলে সম্পূর্ণ অচেনা রনেন-দা । বিবাহিত বাঙালি মেয়ে হয়ে তার সঙ্গে ইস মাগো । কিন্তু তার যে এক আলাদা আনন্দ । পা টিপে টিপে আসতে করে দরজাতে নক করলাম । দুএকটা নকের পরেই রনেন-দা বেরিয়ে এসে আমাকে ঘরে ডেকে নিলেন । হরিণী আজ নিজেই জালে পড়েছে । শিকারীর দরকার নেই । choty golpo

রনেন-দা অভিজ্ঞ লোক বুঝতেই পেরেছেন কেন আমি এসেছি । যুবতী মেয়েদের এই সব মুহূর্ত আসে তা রনেন-দা জানেন । তখন সারা শরীরটা কামে ভরা । উফ । এইরকম অনেক যুবতীর গরম শরীর ঠান্ডা করার অভিজ্ঞতা আছে উনার । তাই আমাকে কোনো আবেগ না দেখিয়ে আসতে করে সোফাতে বসতে বললেন । অতদূর এসে ঘামে ভিজে গিয়েছিলাম আমি । তাই এ-সি-তা আরো ঠান্ডা করে দিলেন । আমার সামনে দুটো মদের গেলাস রাখলেন । ইস । তারপরে আমাকে অফার করলেন গ্লাস-তা নিয়ে ।

এব্যাপারে আমার কোনো লজ্জা ছিলনা সেটা উনি জানতেন-ও । আমিও জানতাম আমার লাগবে এই পানীয় তাই আসতে আসতে চুমুক দিতে শুরু করলাম । তারপরে কখন দেখি রনেন-দা আমার পাশে এসে বসে আমার ঘাড়ে হাত রেখেছেন । শিরশির করছিল । কিন্তু ততক্ষণে শরীর নেশায় মাতাল । দুপায়ের ফাকের মাঝে শিরশিরি বেড়ে গেছে । রনেন-দা আরো ঘন হয়ে বসেছেন । হাতটা আসতে আসতে আমার ঘাড়ে কুরকুরি দিছে । ইস মাগো । choty golpo

সারা শরীর যৌন আনন্দে সিরসির করছে । অনেকদিনের অবদমিত কাম । সত্যি বলতে কি মনে হচ্ছে ভালই করেছি রবির কাছে না গিয়ে । আজকের এই আনন্দ বোধহয় রনেন-দাই আমাকে দিতে পারেন । ইস কি সুন্দর পুরুষালি চেহারা , চওড়া কাধ । পেশল বুক । উফ মাগো । খালি গায়ে রনেন-দা । আল্টো আল্টো করে চুমু দিচ্ছেন আমার সুন্দর কাঁধে । সিরসির করে উঠছে শরীর প্রতিটি মধুর চুমুতে । উফ মাগো মেয়েদের বিয়ের রাতের মত । আমি যেন উনার বিবাহিতা স্ত্রী ।

কেন জানিনা ভালবাসতে ইচ্ছে করছে । ইস । যৌনতা কাকে বলে জানেন উনি । উনার বিশাল কাঁধে ঢলে পরলাম আমি । শরীর সমর্পণ করছে এক নারী । গালে হাত দিয়ে আদর করছেন আমাকে রনেন-দা । চাপা আনন্দের আওয়াজ । উ-ম-ম । উপভোগের আওয়াজ । সুখের আওয়াজ । এই একটা উ-ম-ম শব্দের মধ্যে কত আনন্দ পুরুষ এবং নারীর ফুটে ওঠে । বুঝলেন রনেন-দা । আমার শরীরটাকে চেপে ঠেসে ধরলেন নিজের পেশল শরীর দিয়ে । পিষছেন আমাকে রনেন-দা । মাগো । choty golpo

হোটেলের আধো অন্ধকার ঘরে কি ভালই লাগছে ইস মাগো । শিরশির করছে সারা শরীর অজানা আনন্দে । আমার শাড়ির আঁচল খোলা । ব্লাউসের মধ্যে স্তনের হাঠছানি । আর থাকতে চাইছেনা স্তন-দুটো । কি সিরসির করছে আনন্দে ইস ।

উহ মাগো । রনেন-দা আমার ব্লাউসের ওপর দিয়েই চেপে ধরলেন আমার একটা স্তন । আদর খাবার ইচ্ছে করছে ভীষণ । উমম করে কাতরে উঠলাম । পুরুষেরা যে কাতরানি ভীষণ ভালবাসে । যাতে নারীর অবদমিত কামের প্রকাশ ঘটে । তখন আর নারী ঘরের বউ থাকে না , আদিম পশুর প্রবৃত্তি জেগে ওঠে । যে চায় পুরুষ তাকে কামড়ে আচরে ভালোবাসুক । ইস কি করছেন রনেন-দা । আমার স্তনটাকে শক্ত হাতে ভালো করে ঠাসছেন ময়দা মাখার মত । উফ মাগো কি সুখ ।

অসভ্যটা আমার ব্লাউস খোলার চেষ্টা করছে । হুকগুলো ছিড়তে চাইছে । না-আ করে কাতরে উঠলাম আমি । সে কি আর শোনে । ছিড়তে না পেরে রনেন-দা ব্লাউসের নিচ দিয়ে বার করে আনলেন আমার স্তন । উফ দেখতে পেলেন বোটা পুরো শক্ত । ইস কি লজ্জা । আস্তে করে সুরসুরি দিতে শুরু করলেন আমার সেই আসল জায়গায় যেখানে সুরসুরি পেলে আর কোনো জ্ঞান থাকে না । আমিও খেলতে চাই । অসভ্য খেলা । একটা নরম হাত লাগিয়ে দিলাম রনেন-দার উরুতে । সংকেত বুঝলেন উনি । choty golpo

হাতটা আসতে করে নিজের প্যান্টের চেনে লাগিয়ে দিলেন । চোখে চোখে অসভ্য সংকেত । আমি আল্টো করে কুরকুরি দিলাম রনেন-দার ওখানে । হাসলাম । দুষ্টু হাসি । উত্তরে পাগলের মত আমার স্তনবৃন্ত নিয়ে আদর করতে থাকলেন উনি । উফ । কি সুখ মাগো । আমিও কি থাকতে পারি ? চেপে ধরলাম চেনের ওপর দিয়ে । ইস হামানদিস্তাটা পুরো বড় আকার নিয়েছে । মাগো । স্বপন রবির থেকে অনেকটাই বড় । একহাতে ধরা যায়না । ইস । দুষ্টুমি করে চেন নামাতে গেলাম ।

উনি আমার স্তনে সুখ দিচ্ছেন ইস । নামিয়ে দিয়ে অসভ্যের মত হাসলাম । ইস কি হয়ে যাচ্ছি মাগো । আমার মধ্যে আদিম পশু জেগে উঠছে । রনেন্দার লিঙ্গটা জাঙ্গিয়ার মধ্যে দিয়ে কচ্লাছি । উফ । রনেন-দাও আমার স্তনটাকে জোরে জোরে পিস্ছেন । পুরো খুলে দিলেন ব্লাউস । ইস আমার লাল ব্রা দেখে প্রচন্ড উত্তেজিত উনি । চুমু খেলেন একটা । তারপরে ব্রার হুক খুলে দিলেন । লজ্জায় বুক ঢাকতে গেলাম হাত দিয়ে । ইস । choty golpo

ও কি করছেন রনেন-দা । না-আ করে চিত্কার করতে গেলাম আমি কিন্তু পারলাম না । রনেন-দা আমার ব্রা খুলে দিলেন । ইস আমিও তো তাই চাইছিলাম । আমার সুন্দর স্তন দুটো দেখছেন উনি । কেমন জানি আনন্দ হচ্ছে একটা । যে আনন্দ কখনো হয়নি স্বপনের স্তন দেখাতে । এইরকম-ই কি হয় নারীদের ? স্বামীর শত আদরেও জাগে না যে নারী, পরপুরুষের একটা চাউনিতেই তার শরীরের আগ্নেয়গিরি জেগে ওঠে ? শিরশির করছে আমার শরীর, শিরশির করছে ওই জায়গাগুলো । যে জায়গাগুলোতে ছোটবেলা থেকে সুনে আসছি খুব অসভ্য তারা ।

আমার বুক, আমার স্তন, আমার বগলতলি , আমার ঘাসে ঢাকা উপত্যকা । উহ মাগো । কি সোহাগ-ই না করছেন রনেন-দা । টিপে আদর করছেন স্তনে আমার । উফ বোটা দুটোতে সোহাগ মাগো । মরে যাচ্ছি আমি ভালবাসতে । লজ্জার মাথা খেয়ে রনেন-দাকে কাছে টেনে উনার ঠোটে ঠোট হালকা করে লাগিয়ে চুক করে একটা হালকা চুমি দিলাম । জবাবে চকাম করে আমাকে চুমু খেলেন উনি । আরেক-তা চুক করে দিলাম ইস । কি সুখ লাগছে মাগো । চুমু খেতে । ছোটবেলাতে একটা টক ঝাল লজেন্স খেতে খুব ভালো লাগত । choty golpo

ঠিক সেইরকম । এবার আর থাকা যাচ্ছে না । আমার ঠোট দুটোকে লজেন্স বানিয়ে চুস্ছেন উনি । উফ । কমলালেবু খাচ্ছেন যেন । কোয়া দুটোকে ফাঁক করলেন । ইস আমার জিভ – আমার চুসিকাঠি তাকে খাবেন অসভ্য । বার করে দিলাম সোহাগে । আহ – এবার চুসছেন আমার লজেন্স । আমিও ইস । রনেন-দার ঠোঁট আমার ঠোঁটে মাগো । কি অসভ্যের মত সোহাগ করছি আমরা ।

উফ মাগো । ইস কি করছেন আমাকে নিয়ে রনেন-দা । অসভ্যের মত আমার নাভি চুসছেন । সক সক করে আমার নরম নাভিতে জিভের সুরসুরি । চুমি । ইস আর তো পারছিনা । আসতে আসতে কামড়াচ্ছেন নাভিতে । আর সেই কামড়ে আমার আদিম নারীর যৌনতা জেগে উঠছে । সিরসির করছে পুরো শরীরটা । আহ ।

তলপেট-এর নিষিদ্ধ অংশগুলো ভিজে ভিজে যাচ্ছে । মাগো না না আর থাকতে পারছিনা । হালকা করে রনেন-দার জাঙ্গিয়ার ওপরে হাত দিলাম । পুরো ফুলে আছে । চটকাতে চটকাতে আরো অনেক অনেক বড় হয়ে উঠলো । স্বপনের চেয়ে বড় । রবির চেয়েও বড় । এই না হলে পুরুষ । বিরাট লিঙ্গটাকে নিয়ে খেলছি আমি । বিবাহিতা নারী । সোনালী রায়চৌধুরী । choty golpo

এর দশ বছর পরের কথা । স্বপন আর সোনালীর এখন দুই সন্তান । সেই মন্দারমনির রাতের প্রায় সাত মাস পরে রবির সঙ্গে এক মদির মিলনের পরে সোনালীর পেতে আসে সেই ছেলে । সোনালীর একটি ছেলের সখ ছিল । রবিকে ও বলেছিল । চরম মিলনের সময় ভগবানের কাছে সোনালীর আকুল প্রার্থনা ব্যর্থ হয় নি ।

পারমিতাও গর্ভবতী হয় । হোটেলের ঘরে রনেন-দার আদর সইতে পারে নি । আর সোনালী-ও ওকে বলেছিল নিজের গর্ভসঞ্চারের কথা রবির কাছে । তাই পাপ-বোধ ছিল না । সোনালীর ছেলের নাম রবিন । সোনালীর সঙ্গে রবির আর দেখা হয় না । ও এখন অস্ট্রেলিয়া তে । সুধু ওর স্মৃতি রবিনের বয়েস নয় । স্ত্রীর শরীরসুধা এখানেই শেষ । নমস্কার।

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.6 / 5. মোট ভোটঃ 11

কেও এখনো ভোট দেয় নি

Leave a Comment