erotic romance পিতার রাজকন্যা – 5

bangla erotic romance chotiআজ রজতবাবুর শরীরটা খুব একটা ভালো ছিল না! সকাল থেকে তাই কাজে না গিয়ে নিজের ঘরে শুয়ে ছিলেন তিনি| শঙ্করা চাকরিতে বেরোবার আগে রান্নাঘরে টুকিটাকি কাজ গুছিয়ে যান| শালিনী কলেজ যাবার আগে জামা পরে নিয়েই ঘরদোর একটু ঝাড়ন দিয়ে ঝেড়েমুছে বেরোয়| আজ সকালে শুয়ে শুয়েই দেখেন রজতবাবু মেয়েকে হাতে ঝাড়ন নিয়ে কাজ করতে আসতে| ওকে দেখে মুগ্ধ হন তিনিই যেন আবার নতুন করে! একটি গাঢ় সবুজের সুক্ষ্ম নক্সাকাটা সিল্কের কামিজ পরে তাঁর মেয়েটি চলে এসেছে ঘরে কাজ করতে! পরণে সালোয়ারটি নেই!

[সমস্ত পর্ব
পিতার রাজকন্যা – 4]

কামিজের তলা থেকে দুটি থাই সহ দুই অপরূপ সুন্দর সুঠাম পা দুটি একেবারে নগ্ন! কামিজের ওড়নাটি কোমরে বেঁধে রেখেছে ও কাজের সুবিধার হেতু| সুডৌল স্তনদুটি স্পষ্ট ভাবে ফুলে আছে কেমন একটা নরম, ফুলো-ফুলো ভঙ্গিতে সিল্কের কামিজ ঠেলে, আর ওর হাঁটা-চলায় কেমন যেন সেদুটি উথলে উথলে উঠছে! মাথার চুলও কাজের সুবিধার জন্য উঁচু একটি চুড়ো করে ক্লিপ আটকে বেঁধে নিয়েছে মেয়েটি| ক্লিপ থেকে আবার কিছু চুলের গোছা খুলে এসে অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভাবে কিছু ঝুলে পড়েছে ওর কাঁধের উপর, কিছু ওর অপরূপ সুন্দর মুখের একপাশে রহস্যের মায়াজাল সৃষ্টি করে!

erotic romance

‘উফ!’ রজতবাবুর লিঙ্গ খোলামেলা পাজামার মধ্যে নিমেষের মধ্যে শক্ত হয়ে ওঠে মেয়েকে দেখে! ‘এই মেয়েটিকে নিয়ে আর পারা গেলো না! আমায় ওর রূপের আগুনে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে কি খাক করে দিয়ে তবে শান্তি পাবে?’ তিনি ভাবেন বিছানায় উসখুস করে উঠে|
শালিনী ঘরে আসতে আসতে পিতার চোখের দৃশ্য দেখে সব বুঝে নিয়ে ওঁর দিকে মন মাতানো, প্রাণ জ্বালানো একটি দুষ্টু হাসি ছুঁড়ে দেয় নিজের সুন্দর নরম, লাল ঠোঁদুটি বেঁকিয়ে| তারপর পিতার পাজামায় ফুলে ওঠা তাঁবুটি দেখে সশব্দে হেসে ওঠে:

“হিহিহি..”
-“দুষ্টু হাসছিস কেন!” রজতবাবু চাপা অথচ রাগত স্বরে ধমক দিয়ে ওঠেন!
-“বাপ্পি, তোমার কি অবস্থা দেখো! নিজের মেয়েকে দেখা মাত্রই তমার ‘ওটা’ খাড়া হয়ে যাচ্ছে… এ মাআআ…. ইশশশ! হিহি!” শালিনী কাজ করতে করতে হাসতে থাকে! erotic romance

রজতবাবু কিছু উত্তর করেননা| তাঁর বেশ কাছেই তাঁর উল্টোদিকে ফিরে শালিনী কাজ করছিলো| সিল্কের কামিজের নিচ দিয়ে ঠেলে উঠেছে ওর নিতম্ব নিটোল, সুবর্তুল আঁচড় কেটে| তিনি এবার হাত বাড়িয়ে ওর একটি নিতম্ব স্তম্ভ কামিজের উপর দিয়ে ধরে জোরে টিপে দেন| তাঁর হাত বসে যায় সিল্কের উপর সিয়ে নরম তুলতুলে মাংসে,.. দৃঢ় প্রতীতি হয় তাঁর শালিনী আজ প্যান্টি পরেনি!

“আউচ!” শালিনী কঁকিয়ে উঠে ঝটিতি ঘুরে ঝাড়ন দিয়ে পিতাকে আঘাত করে ওঁর বুকের উপর, তারপর পাজামায় ফুলে ওঠা ওঁর পুরুষাঙ্গ খাবলে ধরে নরম আঙ্গুলের নোখ বসিয়ে দেয়..
“তবে রে!..” শরীর খারাপ-টারাপ অগ্রাহ্য করে এবার এক লহমায় উঠে পরে রজতবাবু মেয়েকে ধরতে যান, কিন্তু ক্ষিপ্র পাখির মতই ও তাঁর হাত ছাড়িয়ে পালায় খিলখিলিয়ে হাসতে হাসতে! erotic romance

রজতবাবু ভারী শরীর নিয়ে ওকে ধাওয়া করেন| শালিনী হাসতে হাসতে দৌড়ে বেড়াতে থাকে হাতে ঝাড়ন নিয়ে ঘরময়,… তার নিতম্ব উছলে উঠছে , আর স্তনদুটি খরগোশের মতো লাফাতে লাফাতে দুটি ফর্সা বলের মতো যেন উথলে আস্তে চায় কামিজের গলার বাইরে..
কিন্তু ঘরটি ছোট বলে বেশিক্ষণ এই দৌড় স্থায়ী হয় না! অনতিবিলম্বেই রজত কন্যাকে ধরে ফেলে ওকে ঠেসে ধরেন টি.ভির পাশের দেয়ালে| দুহাতে মুঠো করে সজোরে পাকড়ে ধরেন ওর দুটি প্রগল্ভা সমুন্নত স্তন কামিজের উপর দিয়ে|

আগেই বুঝেছেন তিনি তাঁর মেয়ে আজ ব্রা পড়েনি, তাই অনুভব করন তিনি সিল্কের উপর দিয়ে তাঁর আঙুলগুলির নরম, টাটকা মাংসের মধ্যে বসে যাওয়া… দুহাতে মলে মলে টিপতে থাকেন তিনি সেদুটি ওর চোখের দিকে তাকিয়ে –“উম? কেমন জব্দ? টিপে টিপে মাখন বানিয়ে দিই এদুটো?! দুষ্টু মেয়ে!” তিনি চাপা গলায় বলে ওঠেন!
-“উহ.. মাগো! মাআআ!…” শালিনী দুষ্টু হেসে চোখের তারায় ঝিলিক দিয়ে চেঁচিয়ে ওঠে দেয়ালে ঠাসা অবস্থায়|
-“কি রে? কি হলো?” রান্নাঘর থেকে রজতবাবুর স্ত্রীয়ের গলা শোনা যায়| erotic romance

-“ইশ দেখনা! বাপ্পি আমার কিভাবে পেছনে লাগছে!”
-“উফ, দেখেছো! বাপির শরীর খারাপ! কেন জ্বালাছিস ওকে?”
শালিনী পিতার দিকে তাকিয়ে ঠোঁট কামড়ে হেসে ওঠে চোখে যত রাজ্যের দুষ্টুমি নিয়ে, তারপর আবার চেঁচায় “উফ! দেখনা! কিভাবে খামচে দিলো!”
-“উফ! সত্যি তোদের নিয়ে আর পারা যায় না! দাঁড়াও যাচ্ছি আমি! দেখাছি মজা!” নরম গরম বকুনি ভেসে আসে রান্নাঘর থেকে|

রজতবাবু ততক্ষনাত মেয়ের স্তনদুটি ছেড়ে দৌড়ে গিয়ে বিছানায় আবার চাদর মুড়ি দিয়ে শুয়ে পড়েন!
“হাহাহাহাহা…” চেঁচিয়ে খিলখিলিয়ে হসে ওঠে শালিনী| “মা, তোমার ধমক শুনেও বাপ্পি ভিজে বেড়ালের মতো লেজ গুটিয়ে ফেলেছে! হিহিহি..!”
রান্নাঘর থেকে এক অস্পষ্ট হাসির আওয়াজ শোনা যায়, “উফ, তোরা যে কি করিস না বাপ-মেয়েতে! দুটো বাচ্চা পুষেছি যেন আমি!”
শালিনী মুচকি হেসে উঠে আবার কাজ শুরু করে| erotic romance

শঙ্করা যাবার আগে ঘরে চাবি রেখে যান| শালিনী এবার পিতার বিছানার ধারে ঝারতে আসে| এবং রজতবাবু আবার নানাভাবে দুহিতাকে উত্তক্ত করা শুরু করেন| ওর স্তনজোড়া টিপতে থাকেন, নিতম্ব চটকে দিতে থাকেন, ওর থাই, উরু, কোমর, জংঘা সর্বত্র ঘুরেফিরে বেড়ায় তাঁর দুষ্ট হাত! শালিনী এবার পিতাকে তেমন বাধা দিতে থাকেনা, যদিও ভর্তসনা করে যায় সমানে| কিন্তু একই সময়ে সে ঝুঁকে পরে স্তনের খাঁজ দেখিয়ে, বা কাজের অছিলায় ঘুরে গিয়ে ওঁর মুখের সাথে উদ্ধত নিতম্বের ঘষা দিয়ে ওঁকে জ্বালাতে থাকে| দুষ্টুমি, খুনসুটিতে কাটতে থাকে সময়|

এরপর শালিনী বিছানায় উঠে পরে শুয়ে থাকা পিতার মাথার উপরদিকের জানলা পরিস্কার করার জন্য| আর রজতবাবুর অত্যাচার আরও বেড়ে যায়| ডানহাতে তিনি ওর নিতম্বদুটি ডলে ডলে দিতে থাকেন বাঁহাতে তিনি ওর কামজের সিল্কের কাপড়ের উপর দিয়ে উত্তপ্ত ফুলো জংঘায় ও যোনিদেশে আঙুল দাবিয়ে, খোঁচা মেরে মেরে উত্তক্ত করে ওকে অস্থির করতে থাকেন| শালিনী ছটফট করে উঠতে উঠতে দেহকাণ্ড বাঁকিয়ে তুলতে থাকে, ওঁকে বকে যায়, দুষ্টামি করতে বারণ করে যায় কিন্তু কার কথা কে শোনে! erotic romance

শেষে আর থাকতে না পেরে শালিনী এবার পিতার উপর উঠে এসে নিজের দুই উরুর মাঝে পিতার পুরো মুখটা চেপে ধরে ওঁর মুখের উপর নিজের উত্তপ্ত নরম জংঘা-যোনিদেশ-নিতম্বের ভার রেখে বসে পরে ওঁর মুখের উপর| দুই থাই দিয়ে চেপে ধরে ওঁর মাথা|
“থাকো এভাবে! দুষ্টু কোথাকার!” সে বকুনি দেয় জন্মদাতাকে|

“উমম্ম্ম্ম্ফ..” গুমরিয়ে ওঠেন রজতবাবু এক রাজ্য উষ্ণতার মধ্যে! শালিনী শিউরে ওঠে শুধুমাত্র একটি সিল্কের কাপড়ের ব্যবধানে যোনিদেশে পিতার খরখড়ে গাল-মুখের চাপে, পিতার গুমরে ওঠার শব্দ অনুরনণিত হয় তার সমগ্র যৌনাঙ্গে, সে নড়েচড়ে বসে পিতার মুখের উপর ওঁর নাকে-মুখে নিজের জংঘা ডলে দিয়ে| তারপর জানলা ঝাড়তে শুরু করে|

-“উমমমফমম…” মুখের উপর চেপে বসা শুধু মাত্র এক স্তর সিল্কের কাপড়ের ব্যবধানে তরুণী দুহিতার নরম, গনগনে উত্তপ্ত জংঘা-যোনি-নিতম্ব-বিভাজিকার আরামে মাতোয়ারা হয়ে যান রজতবাবু| তিনি দুই বাহু উঠিয়ে সজোরে পেঁচিয়ে ধরেন ওর দুই উরু, ওর যৌনাঙ্গ নিজের মুখে আরও চেপে শ্বাস টেনে নেন নাক ভরে.. “মমমহহ..” কি অসাধারণ মাতাল করা সুগন্ধ| ঠোঁট ও গোঁফ ঘষেন্ তিনি মুখে দাবানো ওর নরম, ফুলো জংঘায়..
“অআহুউহ..” শালিনী শীত্কার করে চাপা অথচ তীক্ষ্ণ স্বরে কঁকিয়ে ওঠে ঝাড়তে ঝাড়তে| erotic romance

রজতবাবুর ঘরের জানলার শিকগুলো পুরনো আমলের| উপর থেকে নিচে লম্বা লম্বা, পর পর সাজানো| শালিনী বাঁহাতে তাদেরই একটি শিক আঁকড়ে ধরে ডানহাতে মুছতে মুছতে| রজতবাবু অত্যন্ত উত্তেজক ভাবে খরখড়ে গোঁফ, গাল-ঠোঁট ঘষেই চলেছেন ওর যোনি ও নিতম্বের খাঁজের শুরুতে… স্বতঃস্ফুর্তভাবেই সে তার নরম জংঘা-যোনি পিতার মুখে রগড়ে দিতে থাকে|… তার হাত জানলার শিকগুলো যেন একটু বেশি বেশি করেই মুছতে থাকে! দুই থাই দিয়ে বারবার চেপে ধরতে থাকে ওঁর দুই কানের দুই পাশ| মৃদু মৃদু চাপা স্বরে হেসে উঠছে শালিনী যৌনাঙ্গে পিতার মুখের এমন খুনসুটি-দুষ্টুমি খেলায়…

-“উম্হ্ম্ম্ম..” কন্যার যোনি, ভগাঙ্কুর, নিতম্বের খাঁজ সমস্ত সিল্কের কামিজসহ উপর নিচ করে মুখ ঘষতে ঘষতে রজতবাবু এবার এবার চপ চপ করে চুম্বন করতে শুরু করেন সেই সব নরম তুলতুলে স্থানে সিল্কের কাপড়ে মুখ দাবিয়ে দাবিয়ে, আর গভীর শব্দ করতে থাকেন|
-“আঁআআহহ.. বাপ্পিইইই…” শালিনী শীত্কার করে উঠে চোখ বুজে পিতার মুখের উপর যৌনাঙ্গ ডলতে ডলতে| ওঁর খরখড়ে দাড়ি আর গোঁফের ঘষা খাওয়ার অনুভূতি যে কি পাগল পাগল করে তুলছে তাকে!… erotic romance

“এই শালু!”

শালিনী চমকে উঠে চোখ খোলে! আর সামনে জানালার উপরে বিমল দাঁড়িয়ে| সে সঙ্গে সঙ্গে অপ্রস্তুত হয়ে পরে পিতার মুখের উপর যৌনাঙ্গ রগড়ানো বন্ধ করে| নিজেকে ঝটিতি ছাড়াতে চেয়ে সে বুঝতে পারে পিতা তার দুটি উরু জাঁকিয়ে আটকে দিয়েছেন বাহুতে জড়িয়ে| তবে এই ভেবে সে আশ্বস্ত হয় যে জানালা জুড়ে তার শরীরের পিছনে পিতার শুয়ে থাকা শরীর দেখা যাচ্ছেনা| এমনি সময় রজতবাবু তাঁর গরম শ্বাস ফেলে তার গোটা যৌনাঙ্গ পুড়িয়ে দেন, শিউরে ওঠে সে..

-“বাঃ… ঘরের কাজ করা হচ্ছে!” বিমল এগিয়ে এসে জানালার দুটি শিক ধরে হেসে বলে “এমন সুন্দরী মেয়েরা ঘরের কাজ করে বলে জানতাম না!”
নিজেকে এতক্ষণে সামলে নিয়েছে সে| পিতার মুখের উপর আবার জংঘা-যোনি আস্তে আস্তে ডলতে শুরু করে সে ঠোঁট মুচকিয়ে হেসে জানালার বাইরে প্রেমিকের দিকে তাকিয়ে বলে:
“তাই বুঝি? তা কত সুন্দরী মেয়ে তোমার দেখা আছে!” erotic romance

-“একটা! আমার শালু!” বিমল এঁটো হেসে জানালার শিকে ধরে থাকা শালিনীর নরম ফর্সা হাতটি ধরে “তোমায় কি সুন্দর লাগছে আজকে! ভিতরে আসি? একটু গল্প করা যাক!”
-“উম্ম.. না.. বাপ্পির শরীর ভালো নেই ঘরে শুয়ে আছে,.. তাছাড়া আমি এক্ষুনি কলেজে বেরিয়ে যাবো!”
-“উম্ম” বিমলের মুখ কালো হয়ে যায় একটু|

-“এই দেখো! বাবু সোনার রাগ হয়েছে!” শালিনী মিষ্টি গলায় হেসে ওঠে, হাত বাড়িয়ে সে বিমলের কমানো গাল টিপে দেয় “আরে এত চাপ নিচ্ছ কেন! বিকেলে তো দেখা হচ্ছেই!”
-“উম, বলো প্রেয়সী তুমি শুধু আমারই!” বিমল ঘন গলায় বলে ওঠে মুখ ঝুঁকিয়ে, তার চোখে পরছে শালিনীর কামিজের গলার বাইরে ফর্সা স্তনের সুন্দর খাঁজে,.. সে এও লক্ষ করছে কাজ করতে গেলেই দুটি ফর্সা বল যেন দুলে দুলে উঠছে স্বাচ্ছন্দে! erotic romance

রজতবাবু এতক্ষণ বেশি সক্রিয় না হয়ে একটু আধটু চুমু খেয়ে, মুখ ঘষে দুহিতাকে নিজের মুখে যৌনাঙ্গ রগড়াতে দিছিলেন,… এবার যেন হঠাথই তিনি দুষ্টুমি শুরু করেন,… চিবুক ঘষে, মুখ ডলতে ডলতে এবার তিনি হঠাত কামড় দেন সিল্কের উপর দিয়ে শালিনীর নরম উত্তপ্ত যোনিদেশে সরাসরি…
“হাআহঃ..!” শালিনী ঠোঁট কামড়ে উঠে এবার নিজের বুক ঠেলে জানালার শিকে চেপে ধরে| বিস্ফারিত চোখে বিমল দেখে ওর দুটি দুধ-সাদা স্তন কামিজ থেকে উথলে উঠেছে, এবং তাদের ফর্সা, নরম তুলতুলে মাংসে দৃঢ়ভাবে বসে গেছে লোহার শিকগুলি!

-“কি হলো রে তোর!” বিমল বুকের ধুকপুকানি সামলে অবাক হয়ে শুধায়!
-“কি..কিছু না!” শালিনী দেহে খেলে যাওয়া বিদ্যুত প্রবাহ সামলে পিতার মুখে যোনি ঠেলে হেসে উঠে প্রেমিকের দিকে তাকায় “তুই এত ন্যাকামো করলি, তাই চমকে উঠলাম!”
বিমল প্রেমিকার ধরে থাকা হাতে চাপ দেয় “উম্ম.. তুমি জানি তো আমি এমন রূপসী! সেই জন্যেই তো এই সুদর্শন শ্যামলা কবির প্রেমে পড়েছিলে!” erotic romance

শালিনীর যোনিতে আবার কামড় পড়ে, তারপর খসখসে জিভের আপাঙ্গ লেহন, তারপর আবার কামড়, এবং তারপর আরেকটি কামড় ওর ভগাঙ্কুরে…
-“উম্ম.. আআআঃ..” শালিনী দুষ্টামি করতে থাকা পিতার মুখের উপর জোরে জোরে ডলে দেয় নিজের যৌনাঙ্গ চাপা কঁকিয়ে উঠে, শীত্কার সামলাতে সে জোরে হেসে ওঠে “আঃ হাঃ.. হিহিঃ … হিহিহি..”
“আবার হাসছো?? ঠিক আছে যাও! আমি আর আসব না!” বিমল এবার মুখ অভিমানে ভারী করে যেতে উদ্যত হয়,

“উম” শালিনী এবার প্রেমিকের হাত চেপে ধরে, ওর মুখে শত দুষ্টুমির ঝিলিক! ঠোঁট সরু করে ফুলিয়ে সে চুম্বনের ভঙ্গি করে ওঠে:
চোখের সামনে নিজের জীবনে দেখা সবথেকে সুন্দরী মেয়েকে এমন আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে দেখে যেন অজ্ঞান হয়ে যার দশা হয় বিমলের, সে বুকে দামামা সামলে ঠোঁট এগিয়ে দেয় শিকের ফাঁক দিয়ে, ছোঁয় শালিনীর ঠোঁট.. erotic romance

রজতবাবু মুখে চেপে বসা মেয়ের সমস্ত যৌনাঙ্গে মুখ রগড়ে ডলতে ডলতে কামড়ের পর কামড়, চুম্বনের পর চুম্বন, লেহনের পর লেহন করেই চলেছেন একটানা… তাঁর সবল দুই বাহু চেপে বসেছে শালিনীর দুই উরুর নরম শরীরে…. শালিনীও পিতার মুখের উপর নাছোরবান্দার মতো ঘষে চলেছে জংঘা, রগড়ে চলেছে ফুলেল, উত্তপ্ত যোনি| মুখে সে বিমলের নিকোটিনে পোড়া দুটি ঠোঁট পেয়ে এবার নিজের নরম, পেলব উত্তপ্ত ঠোঁটদুটি দিয়ে জোরে চেপে নেয় সেদুটি, প্রানপনে যেন শুষে নিতে তাকে সবকিছু বিমলের অধরোষ্ঠ থেকে..

বিমল চমত্কৃত হয় প্রেমিকার এমন আশ্লেষে! হারিয়ে ফেলে সে নিজেকে ওর উন্মত্ততায়… যেন শুষে খেয়ে ফেলতে চাইছে শালিনী ওর ঠোঁটদুটো! কিছুক্ষণ পরে নিজেকে দমবন্ধ লাগে তার, ছাড়াতে চায় ঠোঁট..
শালিনী ছাড়তে চায় না.. আঁকড়ে ধরেছে সে তার হাত দিয়ে বিমলের হাত সমস্ত নোখ বসিয়ে… শেষপর্যন্ত সে এক জোরদার কামড় বসে প্রেমিকের ঠোঁটে.. erotic romance

“আআঃ!” বিমল জোর করে ছাড়িয়ে নিতে চায় ঠোঁট,.. শালিনী তবুও কামড়ে ধরে তা অনেকটা টেনে রাখে.. তারপর ছেড়ে দিয়ে নিজেরই নরম ঠোঁট কামড়ে ধরে|
-“উফ.. কি হয়েছে আজকে তোর? সাক্ষাত কামদেব যেন ভর করেছে মনে হচ্ছে?” বিমল ঠোঁট হাতে চেপে অবাক হয়ে বলে ওঠে.. “কই বিকেলে গাছের তলায় তো এত জৌলুস দেখি না!”

-“যাঃ.. ভাগ!” শালিনী উচ্চৈস্বরে হেসে উঠে প্রেমিকের গালে ঠোনা মারে “অতো বিশ্লেষণ করতে হবে না! কবিতা লেখ যা এই নিয়ে! পাগলা.. আঃ!” শালিনী আবার কঁকিয়ে ওঠে পিতার এক জোরদার কামড়ে|
-“আমি পাগল না তুই পাগল!” বিমল কিছুটা উষ্মা নিয়েই বলে, তারপর মুচকি হেসে বলে “আজ হাত দিতে দেবে?”
-“কি?” শালিনী চোখ টেরিয়ে তাকায়… erotic romance

-“তোমার ওই, নরম দুটো পায়রায়!” বিমল ইঙ্গিত করে শালিনীর জানালার শিক দেবে যাওয়া উথলে ওঠা দুটি স্তনের দিকে|
শালিনী সঙ্গে সঙ্গে জানলা থেকে বুক সরিয়ে নিয়ে রেগেমেগে বলে “যাঃ! পালা এখান থেকে! অসভ্য কোথাকার! আর আমার চৌহদ্দিতেই আসবি না!”
“হাহাহা” বিমল হেসে উঠে ছোট করে হাত বাড়িয়ে শালিনীর নরম গাল টিপে দিয়ে চলে যায়|

বিমল চলে যেতেই শালিনী যেন উন্মাদ হয়ে ওঠে পিতার মুখে চেপে বসে থাকা অবস্থায়…. রজতবাবুও এবার আর না পেরে হ্যাঁচকা টানে মেয়ের কামিজ তুলে মুখ চেপে বসিয়ে দেন ওর নগ্ন, নির্লোম, আগুন-উত্তপ্ত যোনিকুন্ডে,.. কামড়ে কামড়ে চুষে খেতে থাকেন রসালো ফলটি, ভগাঙ্কুরে নাক ডলেন, যোনির ঠোঁটদুটিতে কামড় দিয়ে জিভ দিয়ে তা ফাঁক করে ঢোকাতে থাকেন, তারপর পুরো যোনিটিই মুখে চেপে ধরে প্রচন্ড জোরে চুষতে থাকেন, যেন সব রস নিষ্কাশন করে নিতে চান! … কন্যার যৌনাঙ্গ-নিসৃত হতে থাকা মিষ্টি আঠালো রসে তার নাক মুখ ভরে ওঠে,… আরামে, সুখে গোঙাতে গোঙাতে তিনি চেটেপুটে নিতে থাকেন সমস্ত রস! erotic romance

“আহঃ.. অউহঃ… আআহ” শালিনী শীত্কার করতে করতে জোরে জোরে নিজের সমূহ যৌনাঙ্গ রগড়াতে থাকে পিতার মুখে নির্বিচারে, ওঁর শ্বাসরুদ্ধ হয়ে যাবার কথা চিন্তা না করেই,… আসন্ন ক্ষরণবেগ সামলাতে পারেনা সে, অচিরেই কেঁপে কেঁপে উঠে সে পিতার নাক, মুখ ঠোঁটের উপর কামক্ষরণ করতে থাকে| তার মিষ্টি গলার যৌনমদির শীতকারে ভরে ওঠে সারা ঘর…

কন্যার সাথে পাল্লা দিতে দিতে ওর যৌনাঙ্গনিসৃত সমস্ত মধু পান করতে থাকেন রজত ওর দুটি থাই সবল বাহুতে একেবারে পিষে ধরে, কামড়ে কামড়ে যেতে থাকেন বারবার ওকে ছটফট করে উঠতে বাধ্য করে|
সব শান্ত হবার পর শালিনী পিতার মুখের উপর থেকে নেমে পড়ে হাঁপাতে থাকে| রজতবাবুও হাঁপাচ্ছেন্ জোরে জোরে… তাঁর সারা মুখ চক চক করছে নিজেরই দুহিতার যোনিরসে.. erotic romance

শালিনীকে তিনি জড়িয়ে ধরতে গেলেই সে এবার লাফিয়ে উঠে পিতার হাতের নাগালের বাইরে চলে যায় “না বাপ্পি!! আমায় কলেজ যেতে হবে!”
“বাঃ আর আমার ওইটার কি হবে?” পাজামায় গরজাতে থাকা ফুলে ওঠা লিঙ্গ দেখিয়ে তিনি করুন স্বরে বলে ওঠেন|
শালিনী এগিয়ে এসে ঝুঁকে পড়ে তারই যোনি-মধুতে ভিজে থাকা পিতার মুখ চুম্বন করে ওঁর মুখ দুহাতে ধরে “উম… লক্ষ্মীটি, আমায় কলেজ যেতে দাও, তারপর সন্ধ্যেবেলা ফিরে এলে আমাকে নিয়ে যা খুশি করো! কেমন?”

-“উম..” তবুও গুমরিয়ে ওঠেন রজতবাবু করুন স্বরে| শালিনী হেসে ওঁকে আরেকটি চুম্বন করে দ্রুত ঝাড়ন হাতে দৌড়ে পালায় ঘর থেকে|
সকালের রোদে আয়নায় নিজের প্রতিচ্ছবি দেখে শালিনী| আজ তার পোশাকটা একটু দুষ্টু তো বটেই! কলেজের ফাউন্ডেশন-ডে তে এমন একটু বেশি নজরকারা ভঙ্গিতেই সে নিজেকে সকলের সামনে উপস্থিত করতে চায়| যদিও অত্যন্ত মামুলি পোশাকেও সে অবশ্যম্ভাবীভাবে দৃষ্টি নারী-পুরুষ নির্বিশেষে আকর্ষণ করবেই তবুও আজকে সে চায় সকলের, এমনকি প্রিন্সিপালের চোখও যেন তার দিকে আঠার মতো লেগে থাকে! erotic romance

আজ পিতাকে সে অনুরোধ করেছে তার সাথে যাবার জন্য| তিনি রাজি হয়েছেন| সে শঙ্করাকেও বলেছিলো, কিন্তু স্কুলে পরীক্ষা ও ছুটির গুরত্বপূর্ণ মিটিং থাকার হেতু তিনি নাকচ করেছেন| আয়নায় মুচকি হাসে শালিনী নিজের অপরূপ সুন্দরী মুখশ্রী দেখতে দেখতে, দেখে কিভাবে এমন এটুকু মুচকি হেসেও সে এই সকালেও ঘরে যেন আলো জ্বালিয়ে রেখেছে তার নিজস্ব রূপের আভা দিয়ে! সত্যিই যেন একটু বেশিই সুন্দরী সে…মাঝে মাঝে তা়র নিজেরই নিজেকে হিংসা হয়… কথাটা ভেবে ফিক করে হেসে ফেলে সে|

মাথার দীঘল কালো চুল সে একপাশে বাঁহাতে গুচ্ছ করে ধরে আছে, বুঝতে পারছে না উঁচু করে বাঁধবে না কাঁধে ছড়িয়ে| ছোট্ট একটা শ্বাস মোচন করে সে| তার কানের ঝোলা দুল দুটো ঝিকমিক করছে আলোয়, চোখ ধাঁধিয়ে দেয় যেন| তার পরনে একটি সাদা রঙের লো-কাট কামিজ ও সালোয়ার| কামিজটি চাপা, পিঠের কাছে অনেকখানি কাটা অংশও যা থেকে শালিনীর ফর্সা সুঠাম পিঠ অনেকটা নগ্ন| বুকের কাছেও অনেকখানি কাটা চৌকো গলা| erotic romance

আজ শালিনী ইচ্ছা করেই একটি পুশ-আপ ব্রা পরেছে যার ফলে কামিজের চৌকো করে কাটা গলার বাইরে তার দুটি দুধ-সাদা সুডৌল ফর্সা স্তন উদ্বেলিত হয়ে উঠেছে সুন্দর স্তনসন্ধি সহ| শালিনীর এই কামিজের উদরের ঠিক উপরে বুকের ঠিক নিচে একটি মেরুন বন্ধনী মতো আটকানো, যা ওর বুককে এক সুন্দর স্ফীত আকর্ষণ দিয়েছে স্তনজোড়াকে প্রকট করে| শালিনীর সরু কোমরের পরেই উছ্লানো নিতম্বের বাঁকটিতে একটু চাপা কামিজটি যার ফলে ওর পশ্চাৎদেশও অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভঙ্গিমায় ফুলে আছে নজরকারা লাস্যে|

কামিজটির হাত দুটি বেশ ছোট করে কাটা, যার ফলে শালিনীর অনুপম সুন্দর দুই হাত বাহুসহ প্রায় পুরোটাই নগ্ন|
-“শালিনী, আমার রূপসী!”
-“উম, হিঃ..” আয়্নায় দরজা দিয়ে নিজের পিতাকে ঢুকতে দেখেই মুচকি হেসে ওঠে শালিনী নিজের চুলের গুচ্ছ হাতে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ায় “কেমন লাগছে?”
-“উফ, কি ভয়ানক রূপবতী হয়েছিস রে তুই!” রজত মল্লিক প্রায় সিংহের মতো এসে রূপসী একুশ বছরের মেয়েকে টেনে আনেন ঘরের সোফায়| erotic romance

নিজে বসে ওকে কোলে টেনে নিয়ে আড়াআড়ি ভাবে বসিয়ে ঘন ভাবে ওর নরম সুগন্ধি দেহটি জড়িয়ে ধরে ওর সারা মুখে চুমার পর চুমায় ভরিয়ে দিতে থাকেন
“উম্ম্হ… তোকে নিয়ে যে কি করি উম্হ.. উম্ফ..”
-“উমমম বাপ্পিইইই… তোমার মুখে সিগারেটের গন্ধ তোওওও..!” -“মমমফফ.. ‘ মেয়ের ডাগর দুটি ঠোঁট মুখে পুরে নেন রজতবাবু ওর কথা বন্ধ করে দিয়ে.. শব্দ করে চুষতে থাকেন, চুষতে চুষতে মাথা পেছন করে টান দিতে থাকেন, তাঁর এমনি খেলা..!.

-“উন্ম্ফ..” প্রতিবাদ করে শালিনী পিতার বুকে আলতো চাপ দেয় ডানহাত দিয়ে, কিন্তু কে কার কথা শোনে! রজতবাবু মেয়ের পাতলা নর্তকী-কোমর ঘন-ভাবে পেঁচিয়ে ওর ঠোঁটজোড়া প্রানপনে চোষেন, কামড়ে কামড়ে চোষেন,… যেন ওঁর সবথেকে প্রিয় খাদ্য সেদুটি!…
-“হম্ম্ফ….” শালিনী অসহায়ের মতো গুমরে ওঠে পিতার বাহুবন্ধনে, তার ঠোঁটদুটি ওঁর খাবার চপ চপ চাকুম-চুকুম শব্দে ভরে উঠেছে ঘর… পিতার মুখের মধ্যে নিজের নরম টুসটুসে ঠোঁটদুটি নিয়ে সে বেকায়দায় পড়েছে যেন… erotic romance

-“উম্মঃ..” কিছুক্ষণ বাদে রজত মল্লিক কন্যার ঠোঁটদুটি মুখ থেকে বার করলে পিতার লালায় ভিজে টসটসে লাল হয়ে ওঠা দুটি ঠোঁট নিয়ে তাঁর অপরূপ সুন্দরী কন্যা রাগের আঁচে বলে ওঠে..
-“বাপ্পী তুমি কি না!.. চিবিয়ে চিবিয়ে ছিবড়ে করলে!”
-“উমমমমম…” মেয়ের ভিজে ঠোঁটে একটা বড় মাপের চুমু চেপে বসিয়ে রজতবাবু বলেন

“বাপ্পির কি দোষ! তোমায় এত রূপসী হতে কে বলেছে!”
-“তোমার খালি ওই এক কথা..” তাঁর মেয়ের আদূরে মন্তব্য|
-“উম.. উমমমম..” তিনি শালিনীর ঠোঁটে, নাকে, গালে প্রভৃতি লালসাপূর্ণ চুম্বন করতে করতে বলেন “হ্ম্হঃ.. তুমি তো জানি বাপ্পী এতটাই দুত্তু!..”
-“উমমম, হিহি.. সেইজন্যেই তো এখন মেক-আপ করিনি!” erotic romance

-“উমমম..” মেয়ের মুখ থেকে মুখ তোলেন রজত মল্লিক, অনিবার্য ভাবেই ওর উদ্বেলিত বক্ষে আটকে যায় তাঁর অসৎ চোখ
“উফ, একই পরেছিস তুই! কি লাগছে তোকে শালিনী!” তিনি বাঁহাতে ওর পিঠের বেড় শক্ত করে ডানহাতের থাবা দিয়ে আক্রমন করেন শালিনীর বুক| কামিজে সুডৌল দুটি স্ফীত স্তন পালা করে মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে নিদারুন আশ্লেষে জোরে জোরে চটকান তাদের স্পঞ্জের মতো নরম মাংস… সমস্ত থাবা ভরে,
“আঃ… কি সুন্দর! কি অপূর্ব সুন্দর!”

-“আউচ বাপ্পী লাগে তো!” তাঁর কোলে তাঁর আদূরে পরমা সুন্দরী তনয়া উষ্মা দেখিয়ে বুকটা অত্যন্ত আকর্ষনীয়ভাবে ঠেলে ওঠে তাঁর থাবার তলায়… নিজেরই কথার অবমাননা করে| erotic romance

-“উমমম” হেসে বারেবারে থাবায় লেবু কচলিয়ে রস বার করার মতো কচলান তিনি শালিনীর বামস্তন, তারপর ডানস্তন| খুব ভালোলাগছে তাঁর,-চটকাবার সময় তাঁর হাতের তালু ও বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠটি পরছে স্তনের কামিজে মোড়া অংশে, কিন্তু বাকি চারটি আঙ্গুলের প্রতিটিই সরাসরি বসে যাচ্ছে ওর কামিজ থেকে উথলে ওঠা স্তনের নগ্ন কবোষ্ণ শরীরে| বুঝতে পারেন তিনি এটা শালিনীর পরা ব্রা-য়ের কৌশল| তিনি হেসে ওর সুন্দর গোলাপী উত্তপ্ত স্তনসন্ধিতে তর্জনী ঢুকিয়ে বলেন “কি সুন্দর কামিজটা তোর, আমি দিয়েছি না?”

-“দুষ্টু! তুমি খুব সেয়ানা! যদি বলি আমার কেনা তাহলেও বলবে তোমার পয়সায় তাই তোমার দেওয়া!” শালিনী তার সুন্দর মুখে লালিমা ফুটিয়ে বলে..
-“হমমম,..” রজত মল্লিক দেখেন কি অপূর্ব লাগছে শালিনীর কামিজের চৌকো গলা থেকে অল্প উথলে আসতে চাওয়া ওর দুটি সুডৌল স্তনের গরিমা,.. কি যে ঔদ্ধত্য… যেন একটি বাস্কেটে রাখা দুটি বড় বড়, শ্বেতশুভ্র হাঁসের ডিম উঁকি মারছে!.. তিনি ওকে এবার ভালোভাবে কাছে টেনে আবার বেশ আয়োজন করে ওর স্তনপীড়ন করতে শুরু করেন| erotic romance

এমনভাবে শক্ত থাবায় ওর বক্ষগ্রন্থিদুটি থাবা মেরে মেরে ডলতে থাকেন যেন কোনো সদ্য বয়ঃসন্ধিপ্রাপ্ত কিশোর প্রথম নারীর দুটি স্তন ভোগ করার সুযোগ পেয়েছে…. শালিনীর স্তনদুটি থাবায় দলে, তালু দিয়ে রগড়ে, সেদুটির সমস্ত নরম নির্যাস চটকিয়ে চটকিয়ে মাখেন তিনি…
-“আঃ … আউচ! বাপ্পী কি পেয়েছোটা কি ও-দুটো? উফ…” তাঁর পরমা সুন্দরী তনয়া উষ্ণ প্রতিবাদ করে সুরেলা কন্ঠে|
-“আমার খেলনা, তোমায় অমন উঁচু উঁচু করে রাখতে কে বলেছে?”

-“আহ উফ,.. লাগছে তোওওও..!”
-“হাহা.. দুষ্টু, মনে হচ্ছে এই নরম-গরম পায়রাদুটোকে খাঁচা থেকে বার করে আনি!” হেসে রজতবাবু মেয়ের কামিজের গলা দিয়ে হাত ঢোকাবার চেষ্টা করেন..
-“ধ্যাত অসভ্য!” শালিনী এবার এক থাপ্পরে বুক থেকে পিতার হাত সরিয়ে দেয় “কি হছে টা কি! তুমি আমার সাথে যাবেনা নাকি?”
-“উমমম” রজত মল্লিক এবার ডানহাত মেয়ের কোমরে পাঠিয়ে ওকে দুহাতে টানেন নিজের বুকের আরো কাছে “কে বলেছে যাবনা সুন্দরী?” erotic romance

-“তুমি তো এখনো শুধু পাঞ্জাবি পাজামা পরে আছে!” শালিনী ঠোঁট ফুলিয়ে বলে|
-“তো? আমি তো এই পরেই যাবো!”
-“হিহি..” শালিনী মুখে হাত চাপা দেয় “লোকে বলবে আমার বাবা আঁতেল!”
-“উম্ম.. বললে বলুক!” মেয়ের নরম ফর্সা গালে ঠোঁট ঘষেন রজতবাবু|

-“হিহি” হেসে ওঠে শালিনী|
-“প্চঃ..” চপ করে মেয়ের ঠোঁটে একটা চুমু খান তিনি|
-“উম” শালিনীও হেসে প্রতিচুম্বন করে পিতার ঠোঁটে|
-“প্চঃ” আবার চুমু খান রজত বাবু শালিনীর ঠোঁটে| erotic romance

-“হমম.হহ” শালিনী ঠোঁট মুচকিয়ে আকর্ষনীয়ভাবে হেসে পিতার নাকে চুমু খায়|
-“অমুমঃ” ওর ঠোঁটদুটো মুখে পুরে চুষে দেন রজতবাবু| তারপর জিভ দিয়ে চাটেন.. যেন লজেন্স|
শালিনী পিতার লালায় ভেজা ঠোঁট ওঁরই গালে ঘষে দেয় দুষ্টুমি করে|
-“উমমম..” রজত মল্লিক দুহিতার কোমরের বেড় এবার পিঠে তুলে ওর সুগন্ধি, নরম-উত্তপ্ত ঘাড়ে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে চুমু ও কামড় দিতে থাকেন এবার| বুকের কাছে ওর নরম স্তনের উত্তাপ নেন|

-“উম্ম” শালিনী গুমরে উঠে বলে “বাপ্পী, চুলটা কিভাবে বাঁধি বলত? তুলে না ছেরে?”
-“হম?” মুখ তুলে তিনি দেখেন মেয়ের খোলা চুল| দেখেন ওর ঠোঁট বাঁকিয়ে হৃদয়ে কাঁটা বেঁধানো মুচকি হাসি, দুষ্টুমিতে ভরা… কি মনে করে তিনি ওর উদরে আঙুল দিয়ে কুরকুরি কাটেন|
-“ইশ.. হিহিহি…” শালিনী হেসে উঠে কুঁকড়ে যায়, কামিজের উপরে ওর উদ্বেলিত স্তনজোড়ায় আন্দোলন হয় সুন্দরভাবে… erotic romance

-“হাহা” রজতবাবু এবার শালিনীর কোমরের কাছে সুরসুরি দিতে ও কাতরে উঠে বুক টানটান করে ওঠে এবং ওর স্তনদুটি অত্যন্ত সাহসী ভঙ্গিতে কামিজ ফুঁড়ে টানটান হয়ে ওঠে..
“উম” রজতবাবু সহসা হাত উঠিয়ে খপ্ করে মেয়ের নরম স্ফীত বামস্তন ধরে চটকে দেন…

-“হিহি দুষ্টু! উফ!” শালিনী অল্প কঁকিয়ে ওঠে, কিন্তু পিতার হাত নিজের বামস্তনে যাওয়ার আগেই সে হেসে উঠে ঝটকা মেরে বুক সরাতে যায়, কিন্তু তার স্তনসুন্দরীকে রক্ষা করতে পারেনা, তার আগেই থাবায় পাকড়ে ধরেন তিনি ওর প্রগল্ভা ডানস্তন| সেটি ভালো করে দু-তিনবার চটকিয়ে তিনি নিস্তার দেন| তারপরেই তাঁর অসাধু হাত দুহিতার কোমর বেয়ে নেমে এসে ওর নিতম্বের উপর চলে আসে, পরপর ফোলা স্তম্ভ দুটি থাবা মেরে তিনি সালোয়ারের উপর দিয়ে নরম-উত্তপ্ত মাংস ডলেন|
-“উফ বাপ্পী তুমি না!” তাঁর সুন্দরী দুহিতা কাতরে ওঠে তাঁর কোলে| পীড়নে পীড়নে অস্থির সে.. erotic romance

“বিনুনি কর, তোর অমন খোলা পিঠে ভালো লাগবে!”রজতবাবু শালিনীর নরম তুলতুলে নিতম্বের স্তম্ভে মোচড় দেন|
-“উমমম..” শালিনী আলতো করে ওঁর চিবুকে ঠোঁট ছোঁয়ায় “বলছো?”
-“বলছি!”
-“তুমি বিনুনি বাঁধতে জানো?”

-“আচ্ছা, এবার বিনুনি বাঁধতে বললে বিনুনি বাঁধতে জানতে হবে?”
-“হিহি..” শালিনী পিতার চিবুকে কামর দেয় “জাননা!”
-“জানি!” রজতবাবু এবার আবার আগ্রাসীভাবে মেয়ের ঠোঁটদুটো মুখে পুরে নেন, সেদুটি চুষতে চুষতে এবার দু-হাতে ওর দুটি নিতম্বস্তম্ভ ধরে ডলতে থাকেন|
-“উম্ফ..” গুমরে ওঠে শালিনী, নরমভাবে প্রতিবাদ করে| erotic romance

-“হ্ম্ম্ম্ফ..” কোলে বসিয়ে শালিনীকে এমনভাবে চটকাতে চটকাতে উত্তেজিত হচ্ছেন ওর পিতা| ওর নরম উত্তপ্ত তনুটি তাঁকে পাগল করে দিচ্ছে| তার উপর আজ এমন সাজ ওর… তিনি ওর ঠোঁটদুটো চোষা থামিয়ে কিছুক্ষণ ওর গালে, ঘাড়ে কামড়ান আপনমনে| ওর খোলা চুল গোছা করে ধরে এনে নাকে চেপে সুগন্ধ নেন… তারপর আবার বাঁহাতে পিঠে বেড় দিয়ে ডানহাত সামনে এনে ওর গলায় কুরকুরি দেন,.. শালিনী হেসে ওঠে… ওর দুটি স্তনের অমন উত্তেজক ভঙ্গি তাঁকে পাগল করে তুলছে, তিনি আবার তাদের থাবায় চেপে চেপে চটকান জোরে জোরে|

যেন কিছুতেই সাধ মিটছে না তাঁর এই দুটি মাংসপিন্ড নিয়ে… কিযে তাঁর ভালো লাগছে দেখতে শালিনীর টগবগে স্তনের নরম তুলতুলে মাংসে তাঁর আঙুলসমূহের ডুবে যাওয়া দেখতে| কিছুক্ষণ সেদুটি টিপে তিনি অনিচ্ছাসত্ত্বেও হাত নামিয়ে ওর পাতলা কোমরে চাপ দেন, হাত নামিয়ে আবার নিতম্বের মাংস ডলেন| erotic romance

-“উঃ,… আঃ আউচ..” শালিনী একদম চুপটি করে পিতার কোলে বসে নেই, তাঁর পীড়নে, আদরে, চুম্বনে অস্থির আদুরেপনা ও মৃদু ছটফটানি লেগেই আছে তার| তবে তাঁকে নিজের মতো করে ওকে ভোগ করতে দিচ্ছে| সে এই জন্যেই বেশ কিছুক্ষণ আগে থেকেই পোশাক পরিধান করেছে| সে জানে পিতা তাকে নিয়ে এমন দুষ্টুমি করবেন|.. মুচকি হাসে সে ভেবে কিভাবে প্রথমেই পিতাকে এত উত্তেজিত করে ফেলেছে সে এমন পোশাকটি পরে, তার দৃঢ় প্রতীতি হয় যে আজ কলেজে সে দারুন সারা ফেলবেই!

-“ঔম্মঃ..” শালিনীকে ভোগ করতে করতে এবার রজত মল্লিক ওর পিঠের বেড় আরও শক্ত করে আবার মুখ-ঠোঁট নিয়ে চোষাচুষি, কামড়াকামড়ি করতে শুরু করেন| মুখ নামিয়ে কামিজের গলা থেকে উথলে ওঠা ওর নরম তুলতুলে স্তনের উপরিভাগে মুখ ডুবিয়ে দিতে থাকেন, কামর দিতে থাকেন দুধে-আলতা চামড়ায়|
-“উফ বাপি, হিহি,.. কি করছো না তুমি আমায় নিয়ে” শালিনী খিলখিলিয়ে ওঠে পিতার ছেলেমানুষীতে| erotic romance

-“উমমম” দুহিতার নরম স্তনের ওমে, আহ্লাদে আবিষ্ট গলায় রজত মল্লিক হেসে ওঠেন “উম্ম, কেন তুই এত সুন্দরী, আমায় পাগল করে দিস তুই!”
-“উমমম,… আর কতক্ষণ দুষ্টুমি করবে, দেরী হয়ে যাচ্ছে তো!” ঠোঁট ফুলিয়ে বলে ওঠে তাঁর আদূরে কন্যা|
-“উমমম… তোমার বিনুনি করা বাকি আছে তোওও..” মেয়ের স্তন থেকে মুখ তুলে ওর ফোলানো ঠোঁটদুটোয় সশব্দে চুমু খান রজত মল্লিক|

-“উম্ম” শালিনী সুন্দর করে তার পঞ্চাশোর্ধ পিতার ঠোঁটে প্রতিচুম্বন করে “তুমি আমার বিনুনি করে দাও!”
-“আচ্ছা দিছি, তবে তোমার বুকে একটা ওড়না বা কিছু দাও, আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি!”
-“হিহি” শালিনী ফিক করে হেসে ফেলে| লাস্যময়ী ভঙ্গিতে উঠে পরে পিতার কোল থেকে| ওঁর হাত ধরে টানে| erotic romance

শালিনীর কলেজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ওকে পরিচালিকা করা হয়েছে| এবং অনুষ্ঠানে প্রারম্ভিক সূচনা, নানান অতিথিবৃন্দসমূহের অভ্যর্থনা ও মাল্যপ্রদান, পুরস্কার বিতরণী সমস্ত কাজেই খুব স্বাভাবিকভাবেই কলেজের অসামান্যা সুন্দরী শালিনীকেই বেছে নেওয়া হচ্ছে সে সম্বন্ধে কোনো দ্বিমতের অবকাশ ছিলনা| রজত মল্লিক বসে ছিলেন প্রথম সারিতে| তিনি চোখ ফেরাতে পারছিলেন না তাঁর তনয়ার থেকে| কি অসম্ভব সুন্দরী লাগছে যে শালিনীকে… শুধু তিনি নয়, প্রত্যেক পুরুষের দু-চোখেরই যেন এক অন্যায় অগ্রধিকার নিয়ে আছে মেয়েটি|

ওর হাঁটাচলা, প্রত্যেকটি কথা বলার ভঙ্গি, হাসির মুর্চ্ছনা, ভ্রু-যুগলের বঙ্কিমতা, সব-কিছুই যেন হৃদয় ও পুরুষাঙ্গ অশান্ত করে তোলা!… ময়াল সাপের মতো বিনুনিটি এঁকেবেঁকে লেপ্টে যাচ্ছে ওর অনেকখানি উন্মুক্ত পিঠের সাথে ওর হাঁটাচলার সময়| শালিনী ওড়না দিয়েছে ঠিকই, তবে দুষ্টুমি করে তা গলায় পেছনদিকে ঝুলিয়ে দিয়েছে| ফলে ওর সমুন্নত দুটি স্তন তাদের সমস্ত অহমিকা নিয়ে অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভঙ্গিতে সাদা কামিজে টানটান! যেন বুক থেকে দুটি সুডৌল মারনাস্ত্র উঁচিয়ে রেখেছে সামনের দিকে শালিনী, যারা পুরুষের হৃদয় ক্ষতবিক্ষত করছে প্রতিটি মুহূর্তে! erotic romance

স্তনদুটির উপরিভাগ কামিজের চৌকো গলা দিয়ে তো কিছুটা উথলেই আছে এবং পুরুস্কার বা মাল্যদানের সময় শালিনী যখন একটু ঝুঁকছে তখন গভীর খাঁজ নিয়ে স্তনজোড়া এমন মারাত্মক ভঙ্গিতে উপচে আসতে চাইছে ওর কামিজের উপর দিয়ে যে রজতবাবু নিজের হৃতপিন্ড অনুভব করছেন গলার কাছে… তাঁর শক্ত পুরুষাঙ্গ টনটন করছে পাজামার ভিতরে অন্তর্বাসের মধ্যে| যা বারবার উরু প্রতিস্থাপন করে তাঁকে সামলাতে হচ্ছে| তিনি অনুভব করছেন তাঁর চারপাশেও এই একই ঘটনা ঘটছে পুরুষগনের মধ্যে|

শালিনীর উত্তেজক স্তনদুটি, তাদের নড়াচড়া তাঁকে উন্মাদ করে তুলছে, উন্মাদ করে তুলছে আরও বহু পুরুষকে… ওর সরু পাতলা কোমরের বিভঙ্গ, উঁচু ঢেউখেলানো নিতম্বের ছন্দ সকলের মনে আগুন জ্বালিয়ে দিচ্ছে|… তিনি অসুহিষ্ণুর মতো ছটফট করেন কতক্ষণে উদ্বোধনী শেষ হবে|…

1 thought on “erotic romance পিতার রাজকন্যা – 5”

Leave a Comment