romantic choti 2022 মায়া – আমরা সবাই বাঁধা যেখানে – 18 by nextpage

bangla romantic choti 2022. দোলন চলে যাবার পর চুপচাপ বসে থাকে নিলয়।  দোলনের কথা গুলো মনের মাঝে বারবার আওড়াতে থাকে৷ নিজেকে দোলনের জায়গায় বসানোর চেষ্টা করে। না সে কখনো এত বড় ত্যাগ টা করতে পারতো না৷ মেয়েরা নিজের পছন্দের ভালবাসার জিনিসকে যেকোনো মূল্যে আঁকড়ে ধরে রাখার চেষ্টা করে, প্রাণপণে লড়ে যায়। সেখানে দোলন আজ নিজেকে হারিয়ে দিয়ে সব কিছু জিতে নিল। মনের যুদ্ধ বড় যুদ্ধ সেই যুদ্ধে বিনা রক্তপাতে নিলয় তথাকে জিতিয়ে দিয়ে সত্যিকারে দোলনই জিতে গেল। অনেক সময় সব হারিয়েও সব পাওয়া যায়।

[সমস্ত পর্ব
মায়া – আমরা সবাই বাঁধা যেখানে – 17 by nextpage]

নিলয় ভাবে, দোলন হয়তো বুঝতে পেরেছিল সে তথার দিকে একটু হলেও বেশি ঝুকে গিয়েছে। সত্যিই তো ওর মনটা তো তথার এখানেই পড়ে থাকতো। মেয়েদের চোখ এড়ানো এত সহজ না। আমরা হয়তো মেয়েদের দুর্বল ভাবি। কিন্তু ওরাই সবদিক থেকে বেশি শক্তিশালী। নারী হলো প্রকৃতি  প্রকৃতি যদি না হতো তবে আমাদের চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যেত না৷ প্রকৃতি ঠিকি সব কিছু সামলে ভারসাম্য রেখে চলে। প্রতিটা ঘরে নারী আছে কারও মা, কারও স্ত্রী, কারও বোন বা কারো সন্তান। ওরা লড়াই করে যায় সবসময় কিন্তু থেকে যায় আড়ালে। নারী যদি ঠিক অবস্থানে থাকে তবে সব কিছু এমনিতেই ঠিকঠাক চলতে থাকে।

romantic choti 2022

রাতে খাওয়ার সময় তথার সাথে তেমন কোন কথা হয় নিলয়ের৷ তথাও মনে করে একটু সময় দেয়া উচিত। তাড়াহুড়ো করতে গেলে হিতে বিপরীত হতে পারে। তথার মনে মনে একটু হলেও ভয় হয় যদি নিলয় ওকে গ্রহন না করে৷ সে নিজের সেই ভয়ংকর অতীত টার জন্য আরও বেশি ভীত। সেটা তো সবটাই নিলয় জানে, যদি সেটার জন্য ওদের মাঝের দূরত্ব টা থেকেই যায় তবে কি আর স্বাভাবিক কোন সম্পর্ক গড়ে ওঠবে না কখনো। নিজের ভুল গুলোর জন্য নিজেকে নিজে কখনই ক্ষমা করতে পারবে না যদি না নিলয় ওকে ক্ষমা করে৷ কিন্তু কি করে কথাটা বলবে সেটাই ভেবে পায় না।

সকালে দুজনে নাস্তা করছে, দোলন আজ আসে নি এখনো।

-তোমার ব্যাগ গোছানো আছে?

-কেন? ব্যাগ দিয়ে কি হবে?

-কেন আবার চিটাগং যাবে পরশু যাবার টিকিট কেটেছি। romantic choti 2022

-(তথা হতবাক হয়ে যায়, কি বলবে বুঝতে পারে ন) না না আমি যাবো না, আমি তো বলেছি আমি এখানেই থাকবো।

-যেতে তো তোমাকে হবেই।

-তার মানে আমার এই কথাটা তুমি রাখবে না? আমার চাওয়ার কোন দাম নেই।(মনমরা হয়ে বলতে থাকে)

-এত কিছু বুঝি না আমি। যদি আমার সাথে চিটাগং না যাও তবে মাইগ্রেশানের জন্য কাগজপত্র উঠাবে কি করে। ওখানে গিয়ে তো সেগুলো আনতে হবে নাকি।

-(অবাক হয়ে যায় সেই সাথে হাসি খেলে যায় মুখে) সত্যি! তাহলে আমি এখানে থেকেই পড়বো।

-আপাতত সেটাই মনে হচ্ছে।

-(উল্লাসে চোখ মুখ রাঙা হয়ে উঠে, শিশু সুলভ আচরণে মেতে থাকে)

বিকেলের দিকে দোলন আসে। তথা সকালের ঘটনাটা জানায়৷ নিলয় বাসায় ছিলো না হয়তো কোন কাজে বাইরে গেছে। সারাটা বিকেল দুজনে মেতে থাকে মেয়েদের খুনসুটিতে। romantic choti 2022

-দিদি একটা কথা জিজ্ঞেস করবো?

-কর না।

-তুমি তো আমাকে কদিন আগেও চিনতে না, তবুও সেই আমার জন্য এত বড় একটা কাজ করে ফেললে। তোমার ঋন আমি কখনো শোধ করতে পারবো না।

-শুন একটা কথা বলি, যেটা আমি করেছি সেটা কাউকে না কাউকে করতেই হতো। যদি আমি ছাড় না দিতাম তবে তোকে ছাড়তে হতো। তোকে আমি প্রথম দিনই বলেছিলাম তুই আমার ছোট বোনের মত। সেই ছোট বোনকে কষ্ট দিয়ে আমি কি সুখে থাকতে পারতাম।

-তোমার ভাবনা টা আমি হয়তো কোনদিনও ভাবতাম না। উল্টো তোমাকে খলনায়ক হিসেবে ধরে নিতাম। জানো যেদিন প্রথম তোমাকে ওর সাথে দেখেছিলাম তখন খুব হিংসে হচ্ছিলো তোমার উপর। আচ্ছা তোমারও কি হয়েছে এমন?

-হবে না আবার। নীলু যেদিন তর কথা বললো সেদিনই ইচ্ছে হচ্ছিলো তোকে গলা টিপে মেরে দেই। কিন্তু ওর মোবাইলে তোর মায়া ভরা ছবিটা দেখে সেই ইচ্ছে ট মরে গেল। কিন্তু তোকে হিংসে এখনি করি আর পরেও করবো। তুই যে আমার নীলু র উপর ভাগ বসালি। romantic choti 2022

-জানো আমার নিজের উপর রাগ হয়। মনে হয় যদি আমি না থাকতাম তবে তোমরা দুজনে এক হতে। আমি হয়তো উড়ে এসে জুড়ে বসলাম তাই না।

-কপালে থাকতে হয় রে, সেটা তুই না হলে অন্য কেউ আসতো সেই জায়গায়। কিন্তু এটা মনে রাখিস নীলু আমার যতটুকু ছিলো ততটুকুই থাকবে সেটাতে ভাগ বসাতে আসিস না।(হাসতে হাসতে বলতে থাকে) সেই ভাগ আমি ছাড়বো না।

-সেটা এতোদিনে বুঝে গেছি৷ সেটাতে ভাগ বসানোর ইচ্ছে আমার নেই। আমার টুকুতেই আমি সন্তুষ্ট। হয়তো পরে দেখবো আমাকে আবার ঐ দূরে রেখে আসবে।

আরও কত মেয়েলী কথায় সন্ধ্যা নেমে আসে। নিলয় এখনো বাসায় আসে নি৷ বারবার তৃষার ফোন আসছে তাই দোলন বিদায় নিয়ে চলে আসে।

—-★★★—-

সন্ধ্যা থেকেই আকাশে গুড়ুম গুড়ুম শব্দে বাজের ঝলকানিতে চারপাশ আলোকিত হয়ে যাচ্ছে। রাত বাড়ছে সাথে বাইরে ঝড়ো হাওয়ার বেগটাও। মাঝে মাঝে এমন শব্দে বাজ পড়ছে পুরো বিল্ডিং টা কেঁপে উঠছে। এই শহরের একটা বাজে অভ্যাস আছে আকাশটা একটু মেঘে ঢেকে গেলেই বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগ লোডশেডিং করে দেয়। পরে বৃষ্টি আসুক আর না আসুক তাতে তাদের কিছুই আসা যায় না। তবে আজ এখনো বিদ্যুৎ যায়নি তবে যেতে কতক্ষণ। তাই আগে থেকেই চার্জার লাইট গুলো একটু চার্জ দিয়ে নেয় নিলয়। রাতের খাওয়া টা আজ একটু আগেই সেরে নিয়েছে ওরা। romantic choti 2022

রাতের খাবার খেয়ে নিলয় একটু কাজে হাত দেয়। অনেক কাজ জমে আছে, সেগুলো এখন সেরে রাখতে হবে। দোলন বলছিলো ওর বাবার বিজনেসের কথা। আঙ্কেলের সাথে নিলয়েরও কথা হয়েছে৷ হয়তো সামনের মাসে এই চাকরিটা ছেড়ে দিয়ে ওটাতে মনোনিবেশ করবে। অনেকদিন ধরে মার্কেটিং এ কাজ করছে নিলয় তাই এই বিষয়ের অভিজ্ঞতা নেহাত কম নয়। নতুন বিজনেস দাঁড় করাতে গেলে ওর এই অভিজ্ঞতাটাই কাজে লাগবে।

একবার সব ঠিকঠাক চলতে থাকলে ওকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হবে না। বাইরে বৃষ্টি শুরু হয়ে গেছে, বাতাসের ঝাপটায় জানলাগুলো কাঁপছে। ঘুমিয়ে পড়ার তোরজোর করে নেয় নিলয়। ডিম লাইট জ্বেলে শুয়ে পড়ে নিলয়। হঠাৎ মনে হয় দরজাটা একটু সরে গেছে, ওদিকে তাকাতে দেখে কিছু একটা হাতে নিয়ে তথা দাড়িয়ে।
বাতিটা জ্বেলে দেখে বালিশ হাতে দাড়িয়ে আছে তথা।

-কি ব্যাপার এখানে দাড়িয়ে আছো কেন, ঘুমাও গিয়ে।

-না মানে যেভাবে বাজ পড়ছে তাতে ও ঘরে ভয় করছে। তাই আর কি। romantic choti 2022

-ও ঘরে কি বাজ আলাদা করে পড়ছে? তাহলে তুমি এখানে শুয়ে পড়ো আমি ও ঘরে চলে যাই।

-(আশাহত হয়ে) আরে একা ভয় করছে দেখেই তো এখানে আসলাম। তুমি ও ঘরে চলে গেলে তো সেই একাই থাকতে হবে।

-আজ কি ঝড় বৃষ্টি নতুন হচ্ছে নাকি, হঠাৎ যে ভয় পেতে শুরু করলে।

-থাক আর কিছু বলতে হবে না। আমিই ও ঘরে চলে যাচ্ছি
(তখনি বাজ পড়ার বিকট শব্দে কেঁপে উঠে সব, তথাও কুঁকড়ে যায়)

-দরকার নেই, আজ না হয় এখানেই শুয়ে পড়ো। (একপাশে সরে যায় গিয়ে জায়গা করে দেয়, উল্টো দিকে কাত হয়ে শুয়ে থাকে নিলয়। ফাঁকা জায়গায় দোলন গুটিসুটি দিয়ে শুয়ে পড়ে।)

নিলয় তার পিঠে তথার উষ্ণ নিশ্বাস অনুভব করে। ঘরের নিস্তব্ধতা আড়াল করে বাইরের দমকা হাওয়ার বৃষ্টি আর বিকট বাজের শব্দ। তথার মন উশখুশ করে চলেছে কিছু বলার জন্য, ওর কিছু জিনিস তো জানতেই হবে। romantic choti 2022

-আচ্ছা, একটা প্রশ্ন করি।

-(ঘুম জড়ানো কন্ঠে) কি?

-তুমি কি আমাকে কোন কারণে ঘৃণা করো?

-মানে কি বলতে চাইছো?

-না মানে তোমার মনে কি কোথাও আমাকে নিয়ে ঘৃণা জন্মে আছে।

-এমন মনে হবার কারণ?

-আমার যে একটা বিশ্রী অতীত আছে।

-(তথার দিকে পাশ ফিরে) কোন অতীতের কথা বলছো।

-এমন ভান করছো যেন কিছুই জানো না। তোমাকে তো সব বলে দিয়েছিলাম।

-এসব কিছু আমার মনে নাই। সবকিছু সেদিনই ভুলে গেছি। তুমিও ভুলে যাও সেটাই সবার জন্য ভালো। romantic choti 2022

-তার মানে তুমি কি আমাকে সেই ভুলের জন্য ক্ষমা করে দিয়েছো। তুমি যদি ক্ষমা না করতে পারো তবে আমি নিজেকে কখনই ক্ষমা করতে পারবো না।

-হুম করে দিয়েছি। ভুল তো সবাই করে ভুল করেই তো সেটা থেকে শিক্ষা নিতে হয়। তুমিও নিয়েছো, তাই সেটাকে মনের মাঝে পুষে রেখে গ্লানি বাড়িয়ে লাভ কি।

-(তথা নিলয়ের চোখের দিকে তাকিয়ে থাকে) আরেকটা কথা বলবো?

-আবার কি? ঘুমোতে দিবে না।

-এটাই শেষ।

-তাড়াতাড়ি বলো।

-আমি তোমাকে ভালোবেসে ফেলেছি, I love you

-(কিছুক্ষণ তথার দিকে একপলকে চেয়ে থেকে জড়িয়ে ধরে নিলয়, আলতো করে চুমো দেয় ওর কপালে, আর মৃদু আওয়াজে বলে) আমিও তোমাকে ভালবাসি। romantic choti 2022

তথা প্রগাঢ় আবেগ আবেশে নিজেকে নিলয়ের প্রশস্ত বুকে গুজে দেয়। উষ্ণ আলিঙ্গনে বাহুপাশে জড়িয়ে ধরে একে অন্যকে। রক্তের উত্তাপে ভাগ করে নিতে থাকে দুটো শরীর। দুই কপোত- কপোত-কপোতীর প্রগাড় প্রেমোদক আবেশের মাঝে সম্মোহিতের মত নিলয়ের বুকে চুমো একে দেয় তথা। থুতনিতে হাত দিয়ে তথার মুখ টা নিজের আরও কাছে টেনে আনে নিলয়।

-তোমার সমস্ত অতীত, অতীতের গ্লানি, ভুল সব আজ আমি গ্রহন করে নিলাম এখন থেকে তুমি শুধুই আমার। তোমার দেহ, মন আজ এই স্পর্শে পবিত্র হয়ে উঠোক।
দুচোখ বুজে নিজেকে আরও এলিয়ে দেয় তথা৷ তিড়তিড় করে কাঁপতে থাকা ঠোঁট গুলোতে নিলয় নিজের ঠোঁটের পরশ বুলিয়ে দেয়। ঠোঁট গুলো ঈশত ফাঁকা করে নিলয়ের ঠোঁট জোড়া অবগাহন করে নেয় নিজের মাঝে। পরস্পর যেন অমৃতসুধার খোঁজ করে চলেছে সমান্তরাল লেহনীয় কার্যে। romantic choti 2022

লালায় ভিজে উঠা জিভ গুলো যক্ষের ধন খোঁজার মত তরপাতে থাকে। চুষণের উত্তেজনায় পুরো শরীরে কামনার আগুন জ্বলতে শুরু করে। হাত পায়ের আঙড়িতে নিলয়কে জড়িয়ে নেয় তথা। নিলয়ের হাত পালা করে চড়তে থাকে তথার পিঠে আর নিতম্বে। বাজ পরার আলোর ঝলকানির আলো জানালার ফাঁক গলে ঘরে ছড়িয়ে পরে। ডান হাতের আঙুল গুলো খেলতে থাকে তথার নাভিকমলে। কোমল স্পর্শ ফর্সা পেটে ঢেউ খেলতে থাকতে। মুচড়ে উঠে তথার শরীর। বা হাত উঠে আসে বুকের কাছে।

ছানা মাখার মত করে হাত চালায় তথার টেনিস বলের মত স্তনে। উত্তেজনায় শিউরে উঠে পুরো শরীর। কাঁপতে থাকে তথার শরীর, এ কাঁপন শীতের নয় উষ্ণতার উত্তেজনার। উঠে বসে নিলয়, এক হাতে তথাকেও টেনে নেয় নিজের কাছে। চোখ খুলে তাকায় তথা। লজ্জার আভায় রাঙা হয়ে আছে মুখ। মাথা গলিয়ে তথার জামা খুলে নেয় নিলয়। আঙুলের আলতো স্পর্শে স্তনের বোটার চারপাশে অদৃশ্য রিং বানাতে থাকে। অদ্ভুত এক অনুভূতিতে শরীরে সুখের অনুভব হতে থাকে তথার। romantic choti 2022

নিজের শরীর যেন আজ নিজের কথা শুনতে চাচ্ছে না। শরীরে প্রতিটা প্রান্ত আজ যেন বেশিই ছোঁয়াছে হয়ে আছে। আঙুলের ছোট স্পর্শেই সারা শরীরে বিদ্যুৎ খেলে যাচ্ছে। নিলয়ের হাতের কারুকাজে স্তন বৃন্তগুলো জেগে উঠে স্তনের সৌন্দর্য যেন আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। জিভের ঠগা দিয়ে স্তন বৃন্ত গুলো ভিজিয়ে দেয়। জিভের স্পর্শে তথার শরীর উত্তেজনার প্রভাবে ধনুকের মত বাঁকা হয়ে ওঠে। নিলয় মুখ ডুবিয়ে দেয় বাম স্তনে, ছোট্ট শিশুর মত চোষতে থাকে অমৃত লাভের আশায়। নিজেকে আর ধরে রাখতে পারে না তথা৷

কামনার পারদ চরমে উঠে গেছে নিজের নখ হয়তো বসিয়ে দিয়েছে নিলয়ের ঘর্মাক্ত পিঠে। সেদিকে হুশ নেই নিলয়ে, এই ব্যাথা সহ্য হয়ে যায় স্তন বোটার নোনতা স্বাদে। আরেক হাত ছানতে থাকে উন্মুক্ত থেকে যাওয়া স্তন। এমন সুখের অনুভব আগে কখনও হয়নি তথা। নিলয়ের মাথা চেপে ধরে নিচের খোলা বুকে, আর মাথায় চুমু খেয়ে যায়।
বাইরে প্রচন্ড ঝড় হচ্ছে। বৃষ্টির উন্মত্ত ধারা সব থুয়ে মুছে নিয়ে যাচ্ছে।  এমন মূহুর্তে দুটি প্রাণ মিলিত হচ্ছে পবিত্র মিলনে। romantic choti 2022

আমাকে নাও, আমাকে নাও
আগুনে নাও, ফাগুনে নাও,
ঢেউয়ে ঢেউয়ে নাও, নাও না
নাও দু-হাত ভরে নাও।

প্রথম ভুল, প্রথম রাগ
আলগোছে গোপন দাগ,
নাও প্রথম ছোঁয়া নাও, নাও না
নাও দু চোখ ভরে নাও।। romantic choti 2022

তুমি তাকালেই হয়ে যাই বোকা
ভীতু প্যাডেলে ছুটেছে একরোখা,
এই ঘুম ঘোর নাও না ..
তুমি ছেড়ে যাওয়া গল্পের মাঝে
কিছু কথা যোগান হয়ে বাজে,
যদি ফের দেখা দাও ..

ঢেউয়ে ঢেউয়ে নাও, নাও না
নাও উজাড় করে নাও।
আমাকে নাও, আমাকে নাও
আগুনে নাও, ফাগুনে নাও,
ঢেউয়ে ঢেউয়ে নাও, নাও না

নাও দু-হাত ভরে নাও,
প্রথম ভুল, প্রথম রাগ
আলগোছে গোপন দাগ,
নাও প্রথম ছোঁয়া নাও, নাও না
নাও দু চোখ ভরে নাও।। romantic choti 2022

পাঁচ বছর পর
গাড়ির স্টিয়ারিং হাতে বসে আছে নিলয়, পিছনের সীটে তৃষা হাত আয়নায় মেকাপের শেষ ছোঁয়া দিয়ে নিচ্ছে নিজের মুখমন্ডলে। নিলয় সামনের আয়নায় ওকে দেখতে দেখতে বলে

-কীরে দোলন কইরে, এখনো সাজগুজ হয়নি ওর নাকি।

-না দাদাভাই, দিদির সাজ শেষ সে তার ছেলেকে নিয়ে পড়েছে।

-বলে রাখলাম দেখি নিস, দিপ্ত ওর আশকারাতে উচ্ছন্নে যাবে।

-আস্তে বলো দাদা ঐ যে আসছে।
দোলন এসে গাড়ির সামনের সীটে বসে৷ নিলয়কে দেখেই বাবা বাবা ডাকতে ডাকতে নিলয়ে কোলে ছোটে আসে।

-(দোলন মুখ ঝামটা দিয়ে বলে) যা যা এখন বাবার কাছেই যা এখন তো আর মাম্মামকে দরকার নেই।

-(নিলয় হাসতে হাসতে বলে)তুই তো দেখি দিন দিন ছোট হয়ে যাচ্ছিস। romantic choti 2022

-(তৃষা চিৎকার করে উঠে) এখানে বসে থাকবে নাকি৷ তাড়াতাড়ি চলো না হলে অনুষ্ঠানে পৌঁছাতে  দেরি হয়ে যাবে তো।

ওরা চারজনে ময়মনসিংহ মেডিকেল অডিটোরিয়ামের সামনে এসে গাড়ি থেকে নামে। একটু পরেই অনুষ্ঠান শুরু হবে। ওরা নিজেদের আসনেই বসে পড়ে। অনুষ্ঠান শুরু হয় কীর্তি শিক্ষার্থীদের মেডেল দেয়া হচ্ছে। চার নাম্বারে তথার নাম ডাকা হয়। তথা মঞ্চে উঠে মেডেল আর স্মারক গ্রহন করে। তথাকে দেখেই মা মা বলে চিৎকার করে উঠে দিপ্ত। সবাই ওরদিকে তাকিয়ে দেখছে কি সুন্দর হাততালি দিচ্ছে সে।
অনুষ্ঠানের বিরতিতে বাইরে এসে দিপ্ত কে কোলে তুলে নেয় তথা।

-কিরে মাম্মাম কে বেশি বিরক্ত করিস নি তো।
(মাথা নাড়িয়ে না করে, লাফ দিয়ে দোলনের কোলে চলে যায়) দিদি তুমি না থাকলে ওকে যে কে সামলাতো। আমি কো একদম পারি না।

-মাম্মাম আমি তোমাকে বিরক্ত করি?

-না গো সোনা আমার (দোলনের গালে হামি খায় দিপ্ত)

-দিদি জামাইবাবু আসলো না? romantic choti 2022

-নারে ওর অফিসে কি যেন মিটিং আছে।

-(তৃষা গাল ফুলিয়ে বলে) আমাকে তো কেউ দেখেই না।

-(কাছে গিয়ে তৃষা কে জড়িয়ে ধরে তথা) এটা তুই বলতে পারলি আমাকে। তুই আমার সোনা বোন।

-(ঢেস দিয়ে নিলয় বলে) আজকাল আমাকেও দেখে নারে কেউ বুঝলি তৃষা।

-(পেটে চিমটি কেটে) তাই নাকি, হিসাব টা তুলা থাক বাসায় গিয়ে হবে।

চলো চলো সবাই মিলে সেলফি তুলি, তৃষার ডাকে সবাই একসাথে দাড়ায়। তৃষা মোবাইল বের করে পটাপট ছবি তুলতে থাকে।
(সমাপ্ত)

কেমন লাগলো গল্পটি ?

ভোট দিতে হার্ট এর ওপর ক্লিক করুন

সার্বিক ফলাফল 4.5 / 5. মোট ভোটঃ 25

কেও এখনো ভোট দেয় নি

3 thoughts on “romantic choti 2022 মায়া – আমরা সবাই বাঁধা যেখানে – 18 by nextpage”

  1. Ending টা এতো তাড়াতাড়ি হবে ভাবতে পারি নাই।তবে অসাধারণ আপনার লেখা।আরো গল্প চাই আপনার কাছ থেকে। আশা করি আশাহত করবেন না।

    Reply

Leave a Comment